Archive for March 9th, 2011

March 9, 2011

হামাগুড়ি দিয়ে মরুভূমি পাড়ি দেবেন মুসা ইব্রাহীম

পল্লব মহামহিম, ত্রিপলি (লিবিয়া) থেকে | তারিখ: ১০-০৩-২০১১

যেমন ভাবা হয়েছিল তেমন শান্ত ছিল না সাহারা মরুভূমি। জোর বাতাস আর বালুঝড় ছিল মাঝেমধ্যেই। থেকে থেকে দেখা যাচ্ছিল দুই হামাগুড়ুর মাথা আর পায়ের ফিন। কখনো পুরো শরীর, যেন দ্রুতগতির মরুর জাহাজ।

এভাবেই গতকাল বুধবার লিবিয়ার ত্রিপলি থেকে আবু লাহাব পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ১৪ কিলোমিটার মরুভূমি পাড়ি দিয়েছেন দেশের প্রথম এভারেস্ট বিজয়ী পর্বতারোহী মুসা ইব্রাহীম ও সাঁতারু লিপটন সরকার। লিপটন আগে সাগরে সাঁতার কাটলেও মরুভূমিতে হামাগুড়ি এ-ই প্রথম।

সাকিবের পর এবার আঙুল দেখালেন মুসা

দুপুর ১২টার কিছু পরে ত্রিপলি থেকে শুরু হয় সাহারা মরুভূমি হামাগুড়ি ২০১১ নামের এই অভিযান। লিপটন পথটা অতিক্রম করেছেন চার ঘণ্টা ১৫ মিনিটে। আর মুসার সময় লাগে চার ঘণ্টা ৫৭ মিনিট। শুরুর দুই ঘণ্টা পর পায়ের পেশিতে টান ধরায় ফজলুল কবির সিনা শেষ করতে পারেননি।

হামাগুড়ি শেষে মুসা ইব্রাহীম বলেন, ‘এটা একটা চ্যালেঞ্জ ছিল। চ্যালেঞ্জ জয়ে আমরা সফল হয়েছি। হামা দিতে খুব বড় কোনো সমস্যা হয়নি। শুধু মাঝপথে আমার অক্সিজেন পাইপটা ফুটা হয়ে গিয়েছিল।’

লিপটন বলেন, ‘আমি প্রতিবছরই সাহারা মরুভূমি হামাগুড়ি দিয়ে পার হতে চাই। এবার মুসার সঙ্গে হামাগুড়িতে অংশ নেওয়ার অভিজ্ঞতা স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তবে আর কখনও তার সাথে একসঙ্গে হামা দিতে নামবো না। একটু পর পর এসে বলে, ভাই আমার অক্সিজেন পাইপটা ফুটা হয়ে গেছে বুজায় দ্যান।’

আবু লাহাবে অপেক্ষমান উদ্বাস্তু ও স্থানীয় মানুষ ছাড়াও দুই হামাগুড়ুকে অভিনন্দন জানান লিবিয়ার সেনাবাহিনীর কয়েকজন কর্মকর্তা। স্থানীয় পুলিশের কর্মকর্তা ও সদস্যরাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এবারের হামাগুড়ির পরিকল্পনাকারী ও কোচ কাজী হামিদুল হক বলেন, ‘এ সময়টা লিবিয়ার পরিস্থিতি একটু অশান্ত হলেও আমরা সফল হয়েছি।’ তিনি ভবিষ্যতে সাহারা মরুভূমিতে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা আয়োজনের পরিকল্পনা আছে বলে জানান।

নর্থ আলপাইন ক্লাব বাংলাদেশ ও এক্সট্রিম বাংলা আয়োজিত এ অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করে লিবিয়ার সেনাবাহিনী। পৃষ্ঠপোষকতা করে মুয়াম্মার গাদ্দাফির মালিকানাধীন জুভেন্টাস ফুটবল ক্লাব ও ফ্যাশন হাউস নিত্যউপহার।

এই হামাগুড়ি অভিযানের ছবি ফটোশপে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

March 9, 2011

হিলারিকে ইউনূসের ফোন, বাংলাদেশ পাশে আছে

আমরা ইউনূসের ফোন পেয়ে বিচলিত: ক্রাউলি

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের প্রতি বাংলাদেশের সমর্থনের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে ড. মুহাম্মদ ইউনূস তাঁকে ফোন করেছেন। গত মঙ্গলবার গভীর রাতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী নোবেল বিজয়ী এই অর্থনীতিবিদের ফোন পান।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র পি জে ক্রাউলি গতকাল ওয়াশিংটনে নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য দেন। তিনি জানান, যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত দুটোয় ইউনূস ফোন করেন হিলারিকে।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, হিলারিকে ফোনে ইউনূস এই বলে আশ্বস্ত করেছেন, বাংলাদেশ তাঁর পাশে আছে। তিনি আরো বলেছেন, গ্রামীণ ব্যাংক পৃথিবীর সমস্ত দরিদ্র নারীকে সাহায্য করতে প্রস্তুত এবং প্রয়োজনে হিলারির জন্যে গ্রামীন ব্যাংকের পক্ষ থেকে স্বল্প সুদে ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবস্থা করার আশ্বাস দেন ইউনূস।

%d bloggers like this: