Archive for March 11th, 2011

March 11, 2011

বাংলাদেশের জয়ে ইউনূসের অভিনন্দন

Sat, Mar 12th, 2011 12:01 am BdST

ঢাকা, মার্চ ১১ (মতিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিজয়ে খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাসহ বাংলাদেশ ক্রিকেট দলসংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন জানিয়েছেন নোবেলজয়ী ড. ইউনূস।

ড. ইউনূসের প্রেস সচিব আবুল কালাম আজাদ মতিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে এ তথ্য জানান।

নিয়মিত শক্তি দই খেতে বললেন নোবেলজয়ী ড. ইউনূস

তিনি জানান, বিশ্বকাপের আগামী ম্যাচগুলোতেও বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা এই সাফল্য ধরে রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন ড. ইউনূস। তিনি বাংলাদেশের ব্যাটিং ইনিংসে মাত্র একটি ছক্কা দেখে অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, ব্যাটসম্যানদের গায়ে তেমন শক্তি নাই। তিনি ক্রিকেটারদের নিয়মিত শক্তি দই খাওয়ার পরামর্শ দেন। এ জন্য প্রয়োজনে গ্রামীণ ব্যাংক স্বল্প সুদে ক্ষুদ্র ঋণ দিতে প্রস্তুত বলে তিনি জানান।

শুক্রবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এই ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ২ দুইকেটে পরাজিত করে বাংলাদেশ।

March 11, 2011

তথ্যভ্রান্তি আমার হয় না

উৎরাফুল শুভ্র, ক্রিকেট তথা ক্রীড়াসর্বজ্ঞ

ক্রিকেট বিষয়ে সমস্ত তত্ত্ব, তথ্য, পরিসংখ্যান আমার নখ- এবং শরীরের অন্যান্য অঙ্গদর্পণে, তা তো আপনারা নিশ্চিতভাবেই জানেন।

এই যেমন আজকের দ্বিতীয় আলো পত্রিকায় প্রথম পাতার খবরে শফিউল সম্পর্কে লিখেছি, টেস্ট ইতিহাসে প্রথম দুটি স্কোরিং শটেই ছক্কা মারার একমাত্র কীর্তিটি তাঁর। ভুল বলেছি? কক্ষনো না। কিছু ফালতু সাইট (একটি উদাহরণ) ফাল দিয়ে উঠে বলছে, কীর্তিটি তাঁর নয়, জহিরুলের। আপনারা নিশ্চয়ই সে কথায় কান দেবেন না, কারণ আমাতে আপনাদের অসীম আস্থা, তা তো জানিই।

প্রশ্ন ঊঠতে পারে, ওই সাইটগুলোয় তথ্যভ্রান্তির কারণ কী? কারণ অতি সহজ – বাঙালিদের নাম সম্পর্কে তাঁদের অজ্ঞতা। শফিউল, জহিরুল, আশরাফুল (আহা! এঁর নাম নেবো না, তা কি হয়?), রকিবুল – এই তালিকার প্রতিটি নামান্তেই রয়েছে ul। ফলে বুঝতেই পারছেন, বিদেশীদের পক্ষে তা গুলিয়ে ফেলা খুবই সম্ভব।

তাই বলি, আমার ও আমার ক্রিকেট জ্ঞানের ওপরে আস্থা রাখুন, দিনশেষে প্রভূত জ্ঞানার্জন হবে আপনাদেরই।

March 11, 2011

মার ঘুরিয়ে, বাংলাদেশ

নির্মলেন্দু গুণিনহো | তারিখ: ১২-০৩-২০১১

স্কুলের ছাত্রছাত্রী ও গ্রামবাসীর সঙ্গে মিলে সাতই মার্চ, ঐতিহাসিক ভাষণ দিবস পালন করতে কাশবনে গিয়েছিলাম। দেশ এখন বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আনন্দজোয়ারে ভাসছে। বাংলাদেশ এবার বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০১১-এর অন্যতম আয়োজকই শুধু নয়, ভারত ও শ্রীলঙ্কার দাবিকে পাশে ঠেলে এবারের জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটিরও আয়োজন করেছে সে। ক্রিকইনফো এক প্রতিবেদনে বলেছে, উদ্বোধনী অনুষ্ঠান এবং একে কেন্দ্র করে যে উৎসব ও উচ্ছ্বাস, তার বিবেচনায় বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আগের কটি উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুধু নয়, বিশ্বকাপ ফুটবল, কমনওয়েলথ গেমস এবং অলিম্পিক গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়েছে ঢাকা। ক্রিকইনফোর প্রতিবেদন অনুবাদ করেই আমার প্রিয় পত্রিকা দ্বিতীয় আলোর খেলার পাতা চলে, তাই তাদের কথাকে অবিশ্বাস করার কোনো অর্থ নাই। ক্রিকেট নিয়ে মানুষের আনন্দ ও উন্মাদনার ঢেউ ঢাকা-চট্টগ্রাম ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশের গ্র্রামগঞ্জে। আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে জয়লাভের পর সেই আনন্দে লেগেছে নতুন মাত্রা। জেগেছে ক্রিকেট নিয়ে নতুন প্রত্যাশা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে অভাবিত ও অপ্রত্যাশিত পরাজয়ের পর, সেই আনন্দে কিছুটা ভাটার টান পড়লেও সেই আকস্মিক বিপর্যয়ের ধাক্কা ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলা শুরু হওয়ার আগেই কাটিয়ে উঠেছে বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রিয় মানুষ এবং বাংলাদেশের ক্রিকেট দল।

এই লেখাটি আমি যখন লিখছি, তখন চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ বল করছে। টস জিতে প্রতিপক্ষকে ব্যাট করতে পাঠানোর সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সাকিব। ইতিমধ্যে তিনটি গোল খেয়েছে ইংল্যান্ড। খেলাটি এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের আয়ত্তের মধ্যে রয়েছে বলেই মনে হচ্ছে। দেখা যাক।

গত শতকের দ্বিতীয় দশকে, চট্টগ্রামে ব্রিটিশরাজের অস্ত্রাগার লুণ্ঠনের জন্য মাস্টারদা সূর্য সেনের নেতৃত্বে যে দুঃসাহসী সশস্ত্র অভিযানটি পরিচালিত হয়েছিল, মনে হচ্ছে আমাদের টাইগাররা সেই পথেই অগ্রসর হচ্ছে। আজ আমরা ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দিচ্ছি, কাল হারাবো আর্জেন্টিনা বা ব্রাজিলকে।

শাবাশ বাংলাদেশ। মার ঘুরিয়ে।

March 11, 2011

উটপোঁদ শুভ্র ঘুরে দাঁড়াবে: সাকিব

Thu, Mar 10th, 2011 6:38 pm BdST

চট্টগ্রাম, মার্চ ১০ (মতিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- ইংল্যান্ডের বিপক্ষে শুক্রবারের ম্যাচে বিজয়ের পর উটপোঁদ শুভ্র ঘুরে দাঁড়াবে বলে মনে করেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

বৃহস্পতিবার সাকিব সাংবাদিকদের জানান, ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে লজ্জানজনক হারের পর খেলোয়াড়রা ইতিমধ্যে মানসিক ও শারীরিক দৃঢ়তা ফিরে পেয়েছে। বিশেষ করে ছোটো ব্যাটের দৃঢ়তা।

“অতীতে উটপোঁদ শুভ্র অনেকবার ক্রিকেটারদের সামনে পেন্টুল খুলে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। শুক্রবারের ম্যাচের পরও সে ঘুরে দাঁড়াবে বলে আমি আত্মবিশ্বাসী।”

"উটপোঁদ দৌড়"-এর রিহার্সাল করছেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা

গত তিনটি ম্যাচে নিজের পারফর্ম্যান্স নিয়ে কিছুটা সন্তোষ প্রকাশ করে সাকিব বলেন, এ পারদকে আরও বড় উচ্চতায় নিয়ে যেতে চাই। নিয়ে গিয়ে উটপোঁদ শুভ্রের পুটু মেরে দিতে চাই।

তিনটি ম্যাচে টস জিতলেও এর সুবিধা তেমন নিতে না পারায় তাকে গুরুত্বপূর্ণ ভাবছেন না বাংলাদেশ অধিনায়ক। তিনি বলেন, ব্যাটে-বলে কিছু করতে না পারলে টস জিতে কোন লাভ নেই। তবে উটপোঁদের পুটু কে আগে মারবে তা নিয়ে টস করতে রাজি নন তিনি। বিস্কুট দৌড়ের মতো একটি উটপোঁদ দৌড়ের আয়োজন করে বিজয়ীকে আগে পুটু মারার সুযোগ দেয়া হবে বলে জানান অধিনায়ক।

%d bloggers like this: