Archive for March 28th, 2011

March 28, 2011

“কউন চাটেগা আফ্রিদির ডান্ডু” প্রতিযোগীতার প্রথম বিজয়ী

মিরপুর শের-এ-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে পাকিস্তান ও ওয়েষ্ট ইন্ডিজের মধ্যে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট ম্যাচে পাকিস্তানের বাংলাদেশী সমর্থকদের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় একটি অভিনব প্রতিযোগীতা।

“কউন চাটেগা আফ্রিদার ডান্ডু” শীর্ষক এই প্রতিযোগীতায় পাকিস্তানের ও পাকিস্তানীদের পুটু চেটে প্রথম পুরস্কার জিতে নিয়েছেন নটরডেম কলেজের ছাত্র রুপম চৌধুরী

আফ্রিদির ডান্ডু চাটতে অধীর অপেক্ষায় রুপম চৌধুরী

রুপমকে অভিনন্দন। বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পরপরই রুপমকে পাকিস্তানে আফ্রিদির সাথে এক রাত কাটাতে পিআইএর বিমানে ঢাকা-করাচী-ঢাকা রিটার্ন টিকেট উপহার দেয়া হবে।

March 28, 2011

আলীম কারাগারে

ঢাকা, মার্চ ২৮ (মতিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম) — একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের রাজাকার মন্ত্রী আবুদল আলীমকে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত কারাগারে আটকে রেখে পুটু মারার নির্দেশ দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

সোমবার দুপুরের পর শুনানি শেষে নিজামুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আলীমের আইনজীবী তাজুল ইসলাম বলেন, “আটকাদেশের আবেদনে বলা হয়েছে, রাজাকার আলীম একজন চোতমারানি। তিনি বাইরে থাকলে সাক্ষীরা ভীত থাকেন। কিন্তু কোথায়, কখন, কীভাবে কাকে তিনি ভয় দেখিয়েছেন, এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। আদৌ বলা হবে কিনা তার কোন নিশ্চয়তা কেউ দিতে পারছে না।”

গ্রেপ্তারের পর বিএনপির সাবেক এ সংসদ সদস্যকে সোমবার ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম ১৯৭১ সালে আলীমের ভূমিকা ব্যাখ্যা করে তার আটকাদেশ চান। এরপর আলীমের আইনজীবী তাজুল ইসলাম এ আবেদনের বিরোধিতা করে জামিনের আবেদন করেন। ট্রাইব্যুনাল এরপর দুটি আবেদনের শুনানির জন্যই আগামী ৩১ মার্চ দিন ঠিক করেন। ওই সময় পর্যন্ত আলীমকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। একইসঙ্গে অশীতিপর আলীমের শারীরিক অবস্থার দিকে নজর রেখে প্রয়োজনমাফিক পুটু মারার জন্য কারাগার কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

পুটু বিধ্বস্ত মাদারফাকার সাকা

আলীমের আগে একই অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়ে আছেন বিএনপির সংসদ সদস্য সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী। জানা গেছে পুটু মারা খেতে খেতে মাদারফাকার সাকার পুটু ফেটে রক্ত ঝরছে। সাকার পুটুতে বাঁধ দেবার জন্য দশ হাজার বালুর বস্তা কেনা হচ্ছে।

যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোটের অন্যতম শরিক মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী দল জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষ পর্যায়ের পাঁচ নেতাও এখন কারাবন্দি। তাদের পুটুর অবস্থাও বেশি সুবিধার নয় বলে জানতে পেরেছেন আমাদের কারাগার মতিনিধি।

March 28, 2011

ক্রিকেটারদের ব্যর্থতার কারণ খুঁজতে তদন্ত কমিটি হবে: ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব মতিবেদক | তারিখ: ২৮-০৩-২০১১

বিশ্বকাপ ক্রিকেটে খেলোয়াড়দের ব্যর্থতার কারণ খুঁজে বের করতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটির নেতৃত্বে থাকছেন ক্রীড়ামন্ত্রী নিজে। কমিটির অন্য দুজন সদস্য হচ্ছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির ক্রীড়া সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ কমিটির ক্রীড়া সম্পাদক। ক্রীড়ামন্ত্রী আরো বলেছেন, একই সঙ্গে দলের দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার জন্য যথাযথ ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

আজ সোমবার সকালে বিশ্বকাপ ক্রিকেট নিয়ে মন্ত্রনালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্র্রী মো. আহাদ আলী সরকার সংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, এবারের  বিশ্বকাপে ছয়টি ম্যাচে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ তিনটিতে জয়ী হয়েছে ও তিনটিতে পরাজিত হয়েছে। তিনটি ম্যাচে জয়ী হওয়ায় দেশবাসী আনন্দিত ও গর্বিত। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে খেলার স্কোর দেখে মনে হয়েছে, ব্যাটিংয়ের মান উত্তরণের জন্য নিরলস পরিশ্রম করতে হবে। উইকেট কামড়ে পড়ে থাকার জন্য ধৈর্য্যের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের ছাত্রলীগের রাজনীতিতে নিয়ে এসে কেন্দ্রীয় কমিটিতে সদস্যপদ পাবার জন্য ধর্না দেবার অভ্যাস করাতে হবে। ফলে তাদের ধৈর্য্য বৃদ্ধি পাবে। দিনের পর দিন সিনিয়র নেতাদের লেজুরবৃত্তি করতে করতে কোন কিছুতে এক নাগাড়ে লেগে থাকার অভ্যাস গড়ে উঠবে।’

ছাত্রলীগের তাড়া খেয়ে ছুটছে বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়েরা

প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের উন্নত মানের ফিল্ডিং প্রশিক্ষণ দেবার জন্য ছাত্রদল নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। প্রতিমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে ছাত্রদল বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়দেরকে উন্নতমানের ফিল্ডিং প্রশিক্ষণ দিতে রাজি হয়েছে। ছাত্রদলের নেতৃত্বে আগামী এপ্রিল মাসে প্রেসক্লাব এলাকায় হরতাল চলাকালীন পিকেটিংএর সময় পুলিশের প্রতি ইট ছোঁড়ার ভূমিকায় অবতীর্ণ হবেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়রা।

March 28, 2011

রোমাঞ্চের অপেক্ষায় ক্ষণ গোনা

উটপুটু ফকফকা, মোহালি থেকে | তারিখ: ২৮-০৩-২০১১

ইন্তিখাব আলম প্রায় হাতজোড় করে ভারতীয় মিডিয়াকে অনুরোধ করেছেন, দয়া করে ক্রিকেটের সাথে রাজনীতি মেশাবেন না।

কে শোনে কার কথা! ভারতীয় এক টিভি চ্যানেলে ধোনি আর আফ্রিদির ছবি দিয়ে যে প্রোমো বানিয়েছে সেটি পর্দায় আসতেই শুরু হয়ে যাচ্ছে গোলাগুলি। এদিকে আফ্রিদির নেংটুপুটু ছবি দেখে পাকিমনপেয়ারুদের পুটুতে কামনার আগুন ধরে যাচ্ছে। যুদ্ধের দামামা বেজে চলেছে চারিদিকে। আক্ষরিক অর্থেই।

সপরিবারে আফ্রিদি

ভারত-পাকিস্তান শুধু ক্রিকেট ম্যাচ থাকলেও সেটি দর্শকদের স্নায়ুর চূড়ান্ত পরীক্ষা নেয়। ক্রিকেট তার সব রূপ-রস-মাধুর্য নিয়ে রাঙিয়ে দেয় এই দুই দলের দ্বৈরথ। যদিও ক্রিকেট ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যায় দুই দলই বাল ফালানোর মত কোন কিছু করতে পারেনি। তারপরও ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট কখনোই শুধুই ক্রিকেট থাকে না। এবারও থাকছে না।

ভারত-পাকিস্তান বৈরীতার ইতিহাসকে বন্ধুত্বের ইতিহাসে পাল্টে দিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং হাত বাড়িয়েছেন। তিনি দুদেশের সম্পর্কের জমাট বাঁধা বরফকে গলিয়ে তরল করার মাধ্যম হিসাবে বেছে নিয়েছেন ক্রিকেট-কূটনীতিকেই। তার আমন্ত্রণে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী আসছেন বলে খবর বেরিয়েছে। এদিকে দাওয়াত না পাওয়ার গাল ফুলিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘পাকিস্তান দল যখন বাংলাদেশের মাঠে খেলে তখন খেলাটা বাংলাদেশে হচ্ছে নাকি পাকিস্তানের কোন মাঠে হচ্ছে সেটা টেলিভিশনের পর্দায় দেখে আলাদা করা সম্ভব না। এমতাবস্থায় যেখানে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী আসছে সেখানে আমাকে দাওয়াত না দেয়াটা অপমানজনক। অন্ততপক্ষে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী আমাকে সাধতে পারতেন।’

ব্যর্থ খেলোয়াড়েরাই ক্ষুরধার ধারাভাষ্যকার হয়। নভজ্যোত সিং সিধুকে দেখার পর এ বিষয়ে তর্কের অবকাশ থাকে না আর। এদিকে আরেক উচ্চকন্ঠ ধারাভাষ্যকার বিষেন সিং বেদি এক টিভি চ্যানেলে এসে বলেছেন, ‘ম্যাচটা খেলা হিসাবে থাকলেই ভাল হতো। খেলার মাঠকে রাজনৈতিক মঞ্চ না বানালেই ভাল হতো।’

দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী ও তাদের সঙ্গীসাথীদের খেলা দেখতে আসার আসল বিপদ তো অন্য। টিম হোটেল ও স্টেডিয়ামকে গিয়ে নজীরবিহীন নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে গিয়ে পুটু শুকিয়ে কাঠ পুলিশ প্রশাসনের। বাইরের কাউকে তাজ হোটেলে ঢুকতেই দেয়া হচ্ছে না। আবার পাকিস্তান দলের কোন খেলোয়াড় ভারতীয় নায়িকাদের বাড়িতে যেতে চাইলে উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাকে চার ঘন্টা আগে তা জানাতে বলা হয়েছে। এখনই এমন অবস্থা, আর ম্যাচের দিন কী হবে! এই দুশ্চিন্তায় দিবারাত্রির ম্যাচ দেখতে সাতসকালেই মাঠে আসার পরিকল্পনা করছেন অনেকে।

‘সোনার হরিণ’ টিকেট যাদের হাতে ধরা দিয়েছে তাদের দিকে সবাই ঈর্ষার চোখে তাকাচ্ছেন। কালোবাজারে আড়াইশো রুপির টিকেট এখন ২৫ হাজার রুপি পর্যন্ত বিকোচ্ছে। বিশ্বাস করা কঠিন। কিন্তু আমার কোন দুশ্চিন্তা নাই। হু হু বাওয়া, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ক্রীড়া সাংবাদিক উটপুটু ফকফকার টিকেট নিয়ে চিন্তা করা লাগে না। দুই-চার-দশ-বিশটা টিকেট উটপুটুর পুটুতে এসে গড়াগড়ি খায় সারাক্ষণ!

খেলাকে রাজনীতির সাথে না মিশিয়ে খেলা হিসাবে দেখতে বলছেন ইন্তিখাব আলম। ইন্তিখাব যে ভুক্তভোগী। উপমহাদেশে বিশ্বকাপে সর্বশেষ ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ হয় ১৯৯৬ সালে। সেবার বেঙ্গালুরুতে কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের কাছে হারার পর ওয়াসিম আকরামদের বাড়িতে হামলা হয়েছিল। পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের একরকম পালিয়ে বেড়াতে হয়েছিল অনেক দিন। সেই বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলের কোচের নাম ছিল ইন্তিখাব আলম। এবার ইন্তিখাব ম্যানেজার। আরেকটি বিশ্বকাপে পাকিস্তান খেলছে প্রতিপক্ষের মাটিতে। এবারও যদি পাকিস্তান হারে তাহলে বুড়ো হাড়ে পালিয়ে বেড়ানোর হুজ্জতি সইবে না আর। সে কারণেই খেলাকে খেলা হিসাবে দেখার আকুতি ফুটে উঠছে তার কথায়।

এদিকে পাক-ভারত সেমি-ফাইনালকে সামনে রেখে আফ্রিদির নেংটুপুটু পোস্টার দেদারসে বিক্রি হচ্ছে বলে আমাদের ঢাকাস্থ মতিনিধি জানতে পেরেছেন।

%d bloggers like this: