Archive for April 25th, 2011

April 25, 2011

চট্টগ্রাম মেডিকেলের শিক্ষার্থীদের আবার সড়ক অবরোধ

নিজস্ব মতিবেদক, চট্টগ্রাম | তারিখ: ২৫-০৪-২০১১

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ছাত্ররা গতকাল রোববার সকালে আবার কলেজের সামনের সড়ক অবরোধ করেন। এ সময় তাঁরা রাস্তায় টায়ারে আগুন ধরিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেন। প্রায় দুই ঘণ্টা তাঁরা সড়ক অবরোধ করে রাখেন। গত শনিবার রাতে রোগনির্ণয় কেন্দ্র শেভরনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল সকালে শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করেন।

মেডিকেল কলেজের কয়েকজন ছাত্র গত শনিবার রাতে রিপোর্ট গ্রহণের জন্য লাইনে না দাঁড়ানোয় শেভরনের কয়েকজন কর্মচারীর সঙ্গে তাঁদের বাগিবতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে কর্মচারীরা দুই ছাত্রকে বেঁধে মারধর করেন। এ খবর জানাজানি হলে মেডিকেল কলেজ ছাত্রাবাস থেকে ছাত্ররা গিয়ে শেভরনে ব্যাপক তাণ্ডব চালান। পরে ছাত্ররা কলেজের সামনের সড়ক তিন ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন। শেভরনের তিন কর্মীকে আটকের পর পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়।

ভুক্তভোগী ছাত্ররা দাবি করেছেন, চট্টগ্রাম এলাকায় আগুপিছু করে লাইনে দাঁড়ালে পিছনের জন সামনের জনের পুটু মারবেই। পুটু মারা চট্টগ্রামের মানুষের বদ খাসলত। তাই তারা রিপোর্ট নেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়াতে আপত্তি জানিয়েছিলেন।

শেভরন কর্তৃপক্ষ শনিবারের ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে একটি বিবৃতি দিয়েছে। এতে বলা হয়, ‘কলেজের ছাত্ররা ছাত্রলীগ, ছাত্রদল ও ছাত্রশিবিরে বিভক্ত হয়ে প্রতিনিয়ত নিজেদের মধ্যে পুটু মারামারি করে। আমরা বুঝতে পারিনি যে বাইরের লোকেরা তাদের পুটু মারতে চাইলে তারা ক্ষিপ্ত হবে। এই অনাকাঙ্খিত ঘটনায় আমরা গভীর দুঃখ প্রকাশ করছি।

জানা গেছে, শনিবার রাত একটা পর্যন্ত সড়ক অবরোধের পর রোববার সকাল ১০টায় ছাত্ররা আবার সড়ক অবরোধ করেন। এ সময় হাসপাতাল সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন বিক্ষুদ্ধ ছাত্ররা ‘চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের পুটু লই চুদুরবুদুর চইলত ন’ শ্লোগান দিচ্ছিলেন।

April 25, 2011

ভারতের আধ্যাত্মিক গুরু সাঁই বাবার জীবনাবসান

মতিকণ্ঠ ডেস্ক | তারিখ: ২৫-০৪-২০১১

ভারতের প্রভাবশালী আধ্যাত্মিক গুরু সত্য সাঁই বাবা গতকাল রোববার সকালে মারা গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে সারা বিশ্বের ভক্ত-অনুরাগীদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।

গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় সাঁই বাবাকে ২৮ মার্চ অন্ধ্র প্রদেশ রাজ্যের নিজের শহর পুত্তাপারথির একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি ফুসফুসের সমস্যা ও হূদেরাগে ভুগছিলেন। তাঁকে জীবনসহায়ক কৃত্রিম যন্ত্রের সাহায্যে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছিল।

সত্য সাঁই বাবা নিজেকে শিরধির সাঁই বাবার ‘অবতার’ বা পুনর্জন্ম বলে দাবি করতেন। সাঁই বাবাকে অলৌকিক শক্তির অধিকারী বলে মনে করা হতো। ভক্তদের মতে, তিনি পূর্বজন্মের কথা বলতে পারতেন এবং কঠিন অসুখও সারাতে পারতেন।

ইস্টারের সময় মৃত্যু হওয়ায় তাঁর ভক্তরা আশা প্রকাশ করছে, যিশুর পথ অনুসরণ করে তিনি আগামী তিনদিন পরে পুনরুজ্জীবিত হয়ে তাদের মাঝে ফিরে আসবেন।

%d bloggers like this: