Archive for January, 2012

January 28, 2012

“অনলাইনে” থাকার জন্য বিজয় টেবলেটের বিকল্প নাই: পল্লীবন্ধু

প্রযুক্তি মতিবেদক

জাতীয় পার্টির চেয়ারমেন পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, “অনলাইনে” থাকার জন্য বিজয় টেবলেটের কোন বিকল্প হয় না।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে পল্লীবন্ধু বলেন, বয়স হলে পুরুষ মানুষের অনলাইনে থাকার নানা সমস্যা দেখা দেয়। আমার শরীর দড়ির মত পাকান হলেও, অনলাইনে যেতে আমার ইদানীং অনেক সমস্যা হচ্ছিল। কিন্তু বাংলার তথ্যপ্রযুক্তির দিকপাল বাংলার জবস মোস্তফা জব্বারের আবিষ্কৃত বিজয় টেবলেট বেবহার করে আমি সুফল পাচ্ছি।

বিজয় টেবলেটকে অভিনন্দন জানিয়ে পল্লীবন্ধু বলেন, মুন্নী বদনাম হুই ডারলিং তেরে লিয়ে।

পৃথক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশে নারী সাংবাদিকতার পথিকৃৎ মুন্নী সাহা মোস্তফা জব্বারকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বিজয় টেবলেট আসলেই কাজে দেয়। এটি বেবহার করে পল্লীবন্ধু এখন অনলাইনে যেতে পারছেন।

বিজয় টেবলেট কাজে দেয়: মুন্নী সাহা

মোস্তফা জব্বারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মতিবেদককে বলেন, বিজয় টেবলেট নিয়ে আমি অনেক পরীক্ষা নিরিক্ষা করেছি। বাজারে ছাড়ার আগে আমি নিজে এটি বেবহার করেছি দীর্ঘদিন। বিজয় টেবলেট বেবহার করলে অনলাইনে যাওয়া এবং অনলাইনে থাকা অনেক সহজ হয়ে যায়। আমি আগে অনলাইনে থাকতে পারতাম না বেশি ক্ষন। এখন বিজয় টেবলেট বেবহার করে মিনিটের পর মিনিট অনলাইনে থাকি।

মোস্তফা জব্বার বলেন, পল্লীবন্ধু ছাড়াও জামাতে ইসলামের সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর গোলাম আজমও বিজয় টেবলেট বেবহার করেন। কিন্তু আমি আওয়ামী লীগ করি বলে তিনি আমার নামে কোন প্রশংসা করেন না।

পল্লীবন্ধু এরশাদের প্রাক্তন স্ত্রী বিদিশার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মোস্তফা জব্বার সময় মত বিজয় টেবলেট আবিষ্কার করতে পারলেন না। তার এই আবিষ্কারের সুফল আমি ভোগ করতে পারলাম না। বিজয় টেবলেটের সুফল ঘরে তুলছে বদের হাড়ি মুন্নী সাহা।

পল্লীবন্ধু এরশাদ এক অন্তরঙ্গ সাক্ষাতকারে মতিবেদককে বলেন, আমি শুধু রাজনীতিবীদও নই, এখন আমি একজন অনলাইন একটিভিষ্ট। অনলাইনে একটিভ থাকি প্রতিদিন, প্রতিক্ষন, ওভাকন, ওভাকন।

January 28, 2012

হাতি দিয়ে টেনেও তোমরা আমাকে এখান থেকে সরাতে পারবে না: গোলাম আজম

কারাগার মতিনিধি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের প্রিজন সেল থেকে নড়বেন না বলে জানিয়েছেন জামাতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর গোলাম আজম।

গোলাম আজম সম্পুর্ন সুস্থ আছেন, চিকিৎসকরা এমন মত দেয়ার পর হাসপাতালের প্রিজন সেল থেকে গোলাম আজমকে কেন্দ্রীয় কারাগারের চম্পাকলি সেলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হলে তিনি খাটের পায়ার সাথে পায়জামার ফিতা বেধে তীব্র প্রতিরোধ করেন। তিনি বলেন, হাতি দিয়ে টেনেও তাকে এই প্রিজন সেল থেকে কেউ সরাতে পারবে না।

কারাগার থেকে আগত দুই পুলিশ গোলাম আজমের সাথে আধ ঘন্টা ধস্তা ধস্তি করে বিফল হয়ে ফিরে যান।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুল মজিদ ভূইয়া মতিনিধিকে বলেন, গোলাম আজম একটি অভিশাপ। তার কোন অসুখ নাই। কোন সমস্যা নাই। সে তিন বেলা গরুর মত খায়, রাতের বেলা পায়খানা করে ঘুমাতে যায়। নামাজ কালাম পড়ে না। সারাদিন টেলিভিশনে হিন্দি সিরিয়াল দেখে।

গোলাম আজমের তত্ত্বাবধানে নিয়োজিত সিনিয়র নার্স মনা অধিকারী বলেন, গোলাম আজম রোজই ফাসির খাওয়া খাচ্ছেন। তিনি ভাতের বদলে বিরিয়ানি ও রুটির বদলে পরটা খান। প্রত্যেক বেলার খানায় সিদ্ধ ডিম খান দুইটা। হাসপাতালের তহবিল গোলাম আজম একাই ফাক করে দিচ্ছেন।

আজ আচারের দাবিতে গোলাম আজম অনশনের হুমকি দেন। তাতে কাজ না হওয়ায় তিনি বিছানার উপর পায়খানা করার হুমকি দিলে অগত্যা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে আচার সরবরাহ করে।

গোলাম আজম আচার ছাড়াও আয়নার জন্য বায়না করেন। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে আয়না সরবরাহ করেনি।

আয়না দিয়ে কি করবেন জানতে চাইলে গোলাম আজম বলেন, তিনি আয়না দিয়ে নিজের পুটুটি দেখতে চান। তিনি বলেন, মুমিনকে নিজের পুটুর খেয়াল নিজেরই রাখতে হয়।

জ্যেষ্ঠ সন্তান মতিচুর রহমান আজমী তাকে এখনও কেন দেখতে আসছেন না, এই বলে গোলাম আজম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে রাগারাগি করেন। তিনি বলেন, হারামজাদা পয়দা করেছি একটা।

হাসপাতালের প্রিজন সেলে থাকতে কেমন লাগছে, এ প্রশ্নের জবাবে গোলাম আজম মধুর হেসে বলেন, আগার ফেরদৌস বরোয়ে জমিন অস্ত, হমিন অস্ত, হমিন অস্ত, হমিন অস্ত।

January 27, 2012

সংসদে নতুন স্পিকার চায় বিএনপি

মাইক দিবি কি দিবি না?

ঢাকা, জানুয়ারি ২৫ (মতিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- বিরোধী দলীয় প্রধান হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক অভিযোগ করেছেন, স্পিকারের অভাবে সংসদ ক্ষমতাসীনদের ‘দলীয় প্রচারণার কেন্দ্রে’ পরিণত হয়েছে।

বুধবার সকালে এক আলোচনা সভায় ফারুক বলেন, ১৯৮২ সালে জাতীয় সংসদ ভবন চালু করার পর থেকে মাত্র একটা মাইক্রোফোন আর মান্ধাতা আমলের একটা স্পিকার দিয়ে সংসদের কাজ চলছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, সংসদ নেতা ও সংসদের প্রধান হুইপ জাতীয় সংসদকে একদলীয়, গণতন্ত্রহীন ও দলীয় প্রচারণার কেন্দ্রে পরিণত করেছে।

জয়নাল আবেদিন ফারুক দাবি করেন, সংসদ অধিবেশনের শুরুতে সংসদ নেতা শেখ হাসিনা সংসদের একমাত্র মাইকটিকে নিজের বেগে ঢুকিয়ে বসে থাকেন। কথা বলার জন্য মাইক চাইলে তিনি বলেন, “জয়নাল সাহেব, দয়া করে ঘেন ঘেন করবেন না। দুপুরে টিফিনের সময় পাউরুটির সাথে একটা কলা বেশি নিয়েন।”

“সংসদে কথা বলতে গেলে সরকারি দলের এমপিরা হাউকাউ করেন। মাইকের অভাবে চিতকার করে কথা বলতে হয়। মাইক ছাড়া কথা বলতে গেলে মেডামের গলায় পেশার পড়ে।”, যোগ করেন এই বিএনপি নেতা।

বুধবার বিকালে জাতীয় সংসদের দ্বাদশ অধিবেশন শুরু হচ্ছে, যাতে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে এরই মধ্যে শর্ত জুড়ে দিয়েছে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি। দলটি বলছে, সরকার সংসদ ভবনের সাউন্ড সিস্টেম উন্নত করার পতিশ্রুতি দিলে বিএনপি সংসদে যাওয়ার কথা ভাববে।

সর্বশেষ গত বছর ২৪ মার্চ বিএনপিসহ বিরোধী দল সংসদ অধিবেশনে যোগ দেয়। এ সংসদের ১১টি অধিবেশনের মধ্যে ৭টিতেই অনুপস্থিত থাকে বিএনপি।

এর কারণ ব্যাখ্যা করে ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে লেবার পার্টি আয়োজিত আলোচনা সভায় জয়নাল আবদিন ফারুক বলেন, “দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, পূঁজিবাজারের দরপতন, সীমান্ত হত্যা, তিস্তা পানি বণ্টন সমস্যা, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন বিষয়ে কুটি কুটি নোটিশ দিয়েছি আমরা। কিন্তু মাইকের অভাবে আমাদের বক্তব্য সংসদের পুরানো স্পিকার পর্যন্ত পৌছায়নি।

তিনি বলেন, “আমরা সংসদে আসতে চাই। তার আগে সংসদ ভবনে মাল্টি চেনেল সারাউন্ড সাউন্ড সিস্টেম বসাতে হবে। সেই সাথে মেডামের বেগে রাখার জন্য দুইটা মাইক দিতে হবে। আর দুপুরের টিফিনে কলা-পাউরুটির সাথে দুটো সিদ্ধ ডিম দিতে হবে।”

January 26, 2012

গুলি ছাড়া কু হয় না: আসিফ নজরুল

বিশেষ মতিবেদক

গুলি বেবহার না করে কোন কু হতে পারে না বলে অভিমত দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের চেয়ারমেন ও জামাতে ইসলামীর ঢাবি শাখার আমীর ড. আসিফ নজরুল।

গতকাল এক টক শোতে তিনি বলেন, সরকার সেনাবাহিনীর কান্ধে বন্দুক রেখে গুলি করছে। সেনাবাহিনীর কান্ধের চামড়া নীল হয়ে গেছে সরকারের বন্দুকের ঘষায়।

আসিফ নজরুল বলেন, সেনাবাহিনী কেন সংবাদ সম্মেলন করবে? তারা করবে গুলাগুলি। তারা সংবাদ সম্মেলন করে বলল কু হয়েছে। অথচ কোন গুলি হয় নাই। এই কথা অত্যান্ত সন্দেহ জনক।

তিনি বলেন, আগুন থাকলে ধোঁয়া হবে। হাগু করলে গন্ধ হবে। কু করলে গুলি হবে। এটাই প্রকৃতির নিয়ম। সমাজের নিয়ম। রাষ্ট্রের নিয়ম। ধর্মের নিয়ম। বিজ্ঞানের নিয়ম। ধোঁয়া ছাড়া কোন আগুন হয়? গন্ধ ছাড়া হাগু হয়? হয় না। তাহলে গুলি ছাড়া কু কিভাবে হয়?

আসিফ নজরুল বলেন, সরকার ধোঁয়া ছাড়া আগুন নিয়ে খেলছে। এরপর হয়ত তারা গন্ধ ছাড়া হাগু নিয়ে খেলবে।

তিনি জোর দিয়ে বলেন, কু হতে হলে গুলি হতেই হবে। সেই গুলির শব্দ সবাইকে শুনতে হবে।

আসিফ নজরুল সম্প্রতি সেনাবাহিনীতে জামায়াতে ইসলামীর সেনাবাহিনী শাখার সদস্য মেজর জিয়া প্রসংগে বলেন, যুগে যুগে মেজর জিয়ারাই দাজ্জালের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ায়। তিনি সেনাবাহিনীর সকল অফিসারের নাম পরিবর্তন করে নামের সঙ্গে জিয়া যোগ করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, আমরা সবাই জিয়া আমাদের এই জিয়ার রাজত্বে।

%d bloggers like this: