Archive for February, 2012

February 28, 2012

রওশনের খেদমত করতে আবার ক্ষমতায় যেতে চান এরশাদ

বিনোদন মতিবেদক

রওশনের খেদমত করার জন্য আরেকবার ক্ষমতায় যেতে চান জাতীয় পার্টির একাংশের চেয়ারমেন ও সাবেক স্বৈরাচার লে জে হোমো এরশাদ। বৃহস্পতিবার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ‘কলি পরিষদ বাংলাদেশ’ আয়োজিত মেধাবী কওমি মাদ্রাসা ছাত্রদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

লে জে হোমো বলেন, ‘মায়ের পায়ের নিচে সন্তানের বেহেশত আর স্বামীর বেহেশত স্ত্রীর পায়ের ফাঁকে।’ তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ক্ষমতায় থাকতে মেরি, জিনাত, শাহনাজ রহমতুল্লাহ, শাকিলা জাফরদের খেদমত করেছি। রওশনের দিকে চোখ তুলে তাকানোর সময় পাইনি। এখন আমার পাশে কেউ নেই তাই রওশনের বেহেশতে ঢুকতে চাই। তিনি বলেন, ক্ষ তে ক্ষমতা; ক্ষ তে ক্ষেদমত। তাই ক্ষমতায় না গেলে রওশনের খেদমত করা যাবে না। এজন্য তাকে আরেকবার সুযোগ দেওয়ার আহ্বান জানান এরশাদ।

কোরআন-হাদিসের নির্দেশনা থেকে সরে আসায় সমাজে বিশৃঙ্খলা, অন্যায়-অনাচার বিস্তার লাভ করেছে মন্তব্য করে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন, দেশে শান্তি ও স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে ইসলামের পথ অনুসরণ করতে হবে। বাড়াতে হবে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মিল মহব্বত। ক্ষমতায় গেলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মিল মহব্বত বাড়াতে বিজয় টেবলেট বিনামূল্যে সরবরাহ করার ঘোষণা দেন তিনি। তিনি বলেন, বিজয় টেবলেটে কাজ হয়। কিন্তু শুধু বিজয় টেবলেটের উপর ভরসা করে বসে থাকলে বেহেশতে ঢোকা যাবে না।

হোমো বলেন, আমি কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার সঙ্গে সাধারণ শিক্ষা যুক্ত করেছিলাম। ফলে দেশে শিক্ষার হার বেড়ে গেছে। এখন মাদ্রাসা শিক্ষাকে অবহেলা করার আর কোনো সুযোগ নেই। কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার অগ্রযাত্রা বজায় রাখার লক্ষ্যে গ্রামীণ বেংকের প্রতিষ্ঠাতা ড. ইউনুসকে ইসলামী বেংক বাংলাদেশ লিমিটেডের প্রেসিডেন্ট হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

February 28, 2012

হাল্কের নেয় শক্তি আমার শরীরে: গোলাম আজম

কারাগার মতিনিধি

হাসপাতালের প্রিজন সেলে স্বামী গোলাম আজমের সাথে সাক্ষাতের পর আফিফা আজম অভিযোগ করেন, সরকার গোলাম আজমকে পরিকল্পিত ভাবে তিলে তিলে হত্যা করতে চায়। তারা তাকে পরটার বদলে রুটি, ময়দার রুটির বদলে আটার রুটি, পলাওয়ের বদলে পান্তা ভাত ও খাসির গোস্তের পরিবর্তে কাচা কাঠালের তরকারি খাওয়াচ্ছে।

আফিফা আজম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গোলাম আজমের শরীরে শক্তি নাই। তাকে বেশি করে সোডিয়াম, পটাশিয়াম, মেগনেশিয়াম, কেলশিয়াম, মাংগানিজ, লৌহ প্রভৃতি ধাতু সমৃদ্ধ খাবার সরবরাহের জন্য তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

আফিফা আজমের এই বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে গোলাম আজম প্রিজন সেল থেকে দেয়া একটি বিবৃতিতে বলেন, হাসপাতালের প্রিজন সেলে তিনি অত্যন্ত আরামে আছেন। সরকার তাকে আন্ডা, দুধ, ফলের রস ও আচার খেতে দিচ্ছে নিয়মিত। টেলিভিশনে হিন্দি সিনেমা দেখার বেবস্থা করে দিয়েছে। তিনি বাড়ির চেয়ে সুখে আছেন। কিন্তু কেন্দ্রীয় কারাগারের চম্পাকলি সেলে আটক জামায়াতে ইসলামীর অন্যান্য নেতারা তার এই সুখ সহ্য করতে পারছে না। তারা যে কোন মুল্যে তাকে এহেন আরামদায়ক বেবস্থা থেকে দুর করতে স্ত্রী আফিফা আজম ও পুত্র আবদুল্লাহিল আমান আজমীর সাথে ষড়যন্ত্র করছে।

সবুজের অভিযান

গোলাম আজম বলেন, আমার শরীরে হাল্কের নেয় শক্তি। আফিফা আজম তার শারীরিক দুর্বলতা নিয়ে মিথ্যা গুজব ছড়াচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সোহাগ রাত থেকেই তিনি এই অভিযোগ করে আসছেন। আফিফা আজমের গুজবে কান না দিয়ে তিনি ইসলামী ছাত্র শিবিরের কচি সদস্যদের সৌজন্য সাক্ষাতে আসতে আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, আমার স্ত্রী একটি অভিশাপ। হাসপাতালের কারাগার কক্ষ থেকে তিনি কোথাও যাবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।

February 26, 2012

বিডিআরকে হত্যা করেছে সরকারের মন্ত্রীরাই: ফখরুল

বিশেষ মতিবেদক

‘বিডিআরে সেনা কর্মকর্তাদের হত্যা করেছে সরকারের মন্ত্রীরা। অথচ জনগনকে ধোকা দিয়ে বোকা বানাতে বিচার করা হচ্ছে নীরিহ জওয়ানদের।’ বলেছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

মির্জা আলমগীর অভিযোগ করেন, বিডিআরে দরবার চলাকালে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী সাহারা খাতুন, অর্থ মন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও আরও কয়েকজন বিপথগামী মন্ত্রী বিডিআরের উর্দি পরে ছদ্মবেশে দরবারে প্রবেশ করেন ও বেপক গোলাগুলি করে অসংখ্যা সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করেন।

তিনি বলেন, মিডিয়ার কেমেরাতেও এর প্রমান পাওয়া যাবে। বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখা ভবিষ্যতে ক্ষমতায় গেলে এইসব ফুটেজ জনসাধারনের জন্য উন্মুক্ত করবে বলে তিনি জানান।

আলোচনা সভায় উপস্থিত এলডিপি নেতা কর্নেল (অব) ড. অলি আহমদ বলেন, সেইদিন বিডিআরের উর্দি পরে পিলখানাতে মুহম্মদ জাফর ইকবালও উপস্থিত ছিলেন। তিনি নিজেও হত্যাকান্ড ও লুটপাটে অংশ গ্রহন করেন।

কর্নেল (অব) ড. আলি বলেন, এর প্রমানও আমার কাছে রয়েছে। এই জঘন্য হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে মুহম্মদ জাফর ইকবাল পত্রিকায় কিছুই লিখেন নাই। অথচ তিনি পত্রিকায় অনেক তুচ্ছ বিষয়াদি নিয়ে লিখালিখি করেছেন।

কর্নেল (অব) অলি সরকারের প্রতি মুহম্মদ জাফর ইকবালকে ফাঁসি দিয়ে তাকে মরনোত্তর একুশে পদক প্রদানের আহ্বান জানান।

February 25, 2012

এবার ধন ও ধনীদের জাদুঘরে পাঠাব: ইউনূস

বিশেষ মতিবেদক

‘মাননীয় প্রধান মন্ত্রী বিচক্ষনতার পরিচয় দিয়েছেন। ইউরুপী ইউনিয়নের কাছে আমাকে বিশ্ব বেংকের প্রেসিডেন্ট করার অনুরোধ করেছেন তিনি, আমি আনন্দিত।’ এভাবেই প্রধান মন্ত্রী ভাষাকন্যা গনতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী ড. শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক রাজনৈতিক চাল সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানালেন নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবীদ ড. মুহম্মদ ইউনূস।

ইউনূস বলেন, ‘তিনিও ডক্টর, আমিও ডক্টর। এক ডক্টর আরেক ডক্টরের মর্যাদা দিবেন, এটিই আমার আশা।’

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে নিজের প্রতিক্রিয়া তুলে ধরেন এই বরেন্য বেংকার।

ইউনূস বলেন, ‘শেখ হাসিনা আমাকে গ্রামীন বেংক থেকে বিতাড়িত করেছেন। কাজটি তিনি ভাল করেন নাই। কিন্তু আমাকে বিশ্ব বেংকের প্রেসিডেন্ট বানাতে তিনি মাঠে নেমেছেন, এটি তিনি ভাল কাজ করেছেন।’

তিনি বলেন, গ্রামীন বেংক দিয়ে আমার যাত্রা শুরু হয়েছে। কিন্তু সারা জীবন গ্রামে পড়ে থাকলে হবে না। থাকব না ক বদ্ধ ঘরে দেখব এবার জগতটাকে। বিশ্ব জগত দেখব আমি আপন হাতের মুঠোয় পুরে। বিশ্ব জগত মুঠোয় পুরার জন্য বিশ্ব বেংকের প্রেসিডেন্ট হওয়া জরুরী। গ্রামীন বেংকের প্রেসিডেন্ট হিসাবে শুধু গ্রাম গঞ্জ মুঠোয় পুরা যায়।

ইউনূস বলেন, গ্রামীন বেংক দিয়ে আমি দারিদ্রতাকে জাদুঘরে পাঠিয়েছি। এখন বিশ্ব বেংক দিয়ে ধন ও ধনীকে জাদুঘরে পাঠাব।

মধুর হেসে তিনি বলেন, এখন উন্নয়নশীল দেশগুলির উচিত হবে নিজেদের টিনের চালগুলির যত্ন নেয়া।

%d bloggers like this: