অভাগা যেদিকে চায়, পেট্রল শুকায়ে যায়: কাদের

নিজস্ব মতিবেদক

৭০ লক্ষ টাকা যথাসময়ে হস্তগত করতে না পারার বেদনায় পদত্যেগী মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের পর রেল মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

কিন্তু এই দায়িত্ব পেয়ে খুশী নন কাদের।

আজ রেল ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের বলেন, অভাগা যেদিকে চায়, পেট্রল শুকায়ে যায়। তিনটি বছর আমি ফেফে করে ঘুরেছি, মাঠে ঘাটে সরকারের সমালোচনা করেছি। মন্ত্রীত্ব পাইনি। আর মেয়াদের শেষ দুই বছরে এসে আমাকে নিতে হচ্ছে দুইটি মন্ত্রনালয়ের ভার।

কাদের বলেন, আপনারা জানেন, যোগাযোগ মন্ত্রনালয়ে প্রচুর পেট্রল ছিল। কিন্তু সব পেট্রল আবুইল্যা খাইয়া হালাইছে। আমি তারপর সেই শুকনা মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব কাধে নিয়ে সারা দেশে ভাংগাচুরা রাস্তায় ফেফে করে ঘুরছি। ভাংগা সেতুর তল দিয়ে ফেরি দিয়ে পার হচ্ছি। কারন পেট্রল নাই। সব পেট্রল আবুইল্যার পেটে। তার কারনে আমি পদ্মা সেতু তো দুরের কথা, কালভার্ট থেকেও আয় রুজগার করতে পারছি না। সে আমার টেকাটুকা আয়ের রাস্তার বারোটা বাজাইয়া দিয়া গেছে। বাংলাদেশের রাস্তার চেয়েও সেই রাস্তার অবস্থা এখন খারাপ। এদিকে অন্যরা পাচ বচ্ছরে যে পরিমান টেকাটুকা খায়, আমাকে তা দুই বচ্ছরে খাইতে হবে। আমার কাধে দায়িত্ব বেশী। সময় কম।

সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের তীব্র সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সুরঞ্জিত একটি অভিশাপ। সে না পারল নিজে ঠিকমত খাইতে, না সে আমার খাওয়ার রাস্তা খোলা রাখল। রেল থেকে টেকাটুকা খাওয়া কি এখন সম্ভব? কখন কোন এপিএস কোন ড্রাইভার কোন জিএম কোথায় গাড়ী ঢুকাইয়া দিবে, আর আমার আম ছালা সব যাবে। সুরঞ্জিত আমার পেট্রলের রেলপথের ফিশ প্লেট খুলে দিয়ে গেল।

নিজের গৌর বর্নের প্রতি ইংগিত করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সুরঞ্জিত ছিল কাল বিড়াল। আমি ধলা বিড়াল। আমার গলায় কেউ ঘন্টা বাধতে চাইলে সাবধান। ঘন্টা আমি তার পুটুপথে ঢুকাব। ফর্সা কাদেরের সাথে কোন মস্তানি চলবে না।

ওবায়দুল কাদের রেলের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ করে বলেন, বখরার টেকা কখন কিভাবে কার মাধ্যমে মন্ত্রীর হাতে দিতে হয়, তা সুরঞ্জিত জানত না। কিন্তু আমি জানি। খুব সাবধান। আমার ভাগের টেকা নিয়ে যদি কেউ বিজিবির কাছে যায়, আমি সেই টেকা তার গলায় গামছা দিয়ে আদায় করব।

আরামদায়ক চেয়ার সরিয়ে নিতে রেল সচিবকে নির্দেশ দিয়ে কাদের বলেন, এইসব ইয়ান তুন লই যান। তার বদলে একটা পেরেক মারা তক্তা দিয়ে যান। পেরেক মারা তক্তার উপর না বসলে এইখানে সাধন হবে না।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমি একা খাব না। আপনাদের নিয়ে খাব। উল্টা পাল্টা নিউজ করে গনতন্ত্রকে বেহত করবেন না। লাইনে আসুন।

তিনি বলেন, রেলকে লাইনে আসতে হবে। কারন লাইন ছাড়া চলে না রেলগাড়ি।

One Comment to “অভাগা যেদিকে চায়, পেট্রল শুকায়ে যায়: কাদের”

  1. “রেলকে লাইনে আসতে হবে। কারন লাইন ছাড়া চলে না রেলগাড়ি।” (Y) (Y)!!

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: