Archive for May 1st, 2012

May 1, 2012

‘প্লেবয়’ শব্দের অর্থ নিয়ে শাহাদাত ও আমিনীর বিরোধ

ক্রীড়া মতিবেদক

এম ইলিয়াস আলী ও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ‘গুম’ নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর মধ্যে চলমান উত্তেজনার মাঝে দেশের ক্রীড়া, বিনোদন ও রাজনীতি অংগনে নতুন করে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড় শাহাদাত হোসেন নিজের নতুন নাম উদ্বোধন করতে গিয়ে এ পরিস্থিতির সুচনা করেন।

শাহাদাত হোসেন বলেন, আমার সংগে শহীদ আফৃদীর চেহারার অনেক মিল। আমি দাড়ি কামালে আমাকে মুরগীর মত লাগে। দাড়ি না কামালে আমাকে শহীদ আফৃদীর মত লাগে। তাই আজ থেকে আমার নাম শাহাদাত আফৃদী।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত কারওয়ানবাজারের প্রতিনিধি শাহাদাতের এই নতুন নামকরনকে হাততালি দিয়ে স্বাগত জানান।

শাহাদাত বলেন, শহীদ আফৃদীর জন্য বাংলার নারী ও পুরুষ পাগল। আশা করি তারা শাহাদাত আফৃদীর জন্যও পাগল হবেন।

কিন্তু এর পরই ঘটে বিপত্তি। শাহাদাত আফৃদী বলেন, আমি জানতে পেরেছি বিসিবি ও পিসিবির মধ্যে খেলোয়াড় বিনিময় চুক্তি হতে যাচ্ছে। চুক্তির অংশ হিসাবে আমি যাব লাহোর। আর ভিনা মালিক আসবে ঢাকা। কিন্তু ভিনা মালিক আমার জন্য উলংগ হবে।

শাহাদাতের এ বক্তব্য উপস্থিত সাংবাদিকদের মাঝে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে।

কারওয়ানবাজারের উপসর্দার আমিষুল লা “মা” মুঠোফোনে শাহাদাতের সাথে যোগাযোগ করে এ বক্তব্যকে ‘বিভ্রান্তিকর’ আখ্যা দিয়ে বেখ্যা চান।

জবাবে শাহাদাত আফৃদী বলেন, ১ মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে ভিনা মালিক প্লেবয়ের জন্য উলংগ হবেন বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে। প্লে অর্থ খেলা, বয় অর্থ বালক। আমিই সেই বালক যে খেলা করে। তাই ভিনা মালিক আমার জন্য উলংগ হবে।

আবার উলংগ হবেন ভিনা মালিক

শাহাদাতের এ বক্তব্যে ঢাকা শহরে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। নিজ বাসভবনে তাতক্ষনিক পাল্টা সংবাদ সম্মেলন ডেকে উপমহাদেশের ইসলামী আন্দোলনের অগ্র পুরুষ গৃহবন্দী মুফতি ফজলুল হক আমিনী বলেন, শাহাদাত আফৃদী একটি মুর্খ। সে প্লেবয় শব্দের অর্থ জানে না। প্লে অর্থ খেলা, বয় অর্থ বালক। বালক নিয়ে যে খেলে, সেই প্লেবয়। তাই পিশাচিনী ভিনা মালিক আমার জন্য উলংগ হবে।

আমিষুল লা “মা” এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ভিনা মালিক বিনোদন লাইনের মেয়ে। আমি বিনোদন লাইনের পুরুষ। শাহাদাত আফৃদী ক্রীড়া লাইনের মানুষ। আমিনী রাজনীতি লাইনের মানুষ। তাই শাহাদাত আফৃদীর উচিত কোন মহিলা খেলোয়াড় ও আমিনীর উচিত কোন মহিলা রাজনীতিবীদকে যোগাড় করে উলংগ হওয়ার বেবস্থা করা। তারা কেন ভিনা মালিককে নিয়ে টানাটানি করে?

সবাইকে লাইনে থাকার আহ্বান জানিয়ে আমিষুল বলেন, লাইনে থাকুন।

ভিনা মালিকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি মতিবেদককে বলেন, হাম পাকিস্তানকে লিয়ে কাপড়া আর নেহি খুলেগি। উন লোগ বহুদ বানচুদ হায়।

শাহাদাত না আমিনী, কার জন্য উলংগ হবেন, এ প্রশ্নের সরাসরি উত্তর না দিয়ে ভিনা মালিক একটি আংগুল প্রদর্শন করেন।

May 1, 2012

ইলিয়াসের পর গুম করা হল ফখরুলকে: খালেদা

বিশেষ মতিবেদক

এম ইলিয়াস আলীকে গুম করার পর সরকার এবার গুম করল বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামের বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবী করেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামের বিএনপি শাখার মহিলা আমীর আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

বেগম খালেদা জিয়া বলেন, আপনারা জানেন, এম ইলিয়াস আলী ছিল বিএনপির একজন প্রকৃত সৈনিক। সে ছিল গনতন্ত্রের প্রতি নিবেদিত প্রান। গনতন্ত্রের সাথে তার ছিল উষ্ণ সম্পর্ক। গনতন্ত্রের জন্য ইলিয়াস অনেক কিছু করেছে। লনডনে বড় গনতন্ত্রের টুকটাক টেকাটুকা খরচাপাতি ইলিয়াসের মাধ্যমেই হত। বাংলাদেশে বড় গনতন্ত্রের কার্যকলাপ ইলিয়াসই নিয়ন্ত্রন করত। তাই বাকশালী সরকার ইলিয়াসকে গুম করেছে।

বেগম জিয়া আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও আমাদের গনতন্ত্রের পথে একনিষ্ঠ সেনানী। তিনি লনডনে বড় গনতন্ত্র ও বেংককে ছোট গনতন্ত্রের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন, তাদের প্রয়োজনে পাশে গিয়ে দাড়াতেন, টুকটাক বাজার সদাই করে দিতেন। তাই বাকশালী সরকার আজ ফখরুলকেও গুম করেছে।

বেগম জিয়া ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন, গনতন্ত্রের সাথে যাদের ঘনিষ্ট যোগাযোগ, তারাই গুম হয়ে যাচ্ছে বাকশালী সরকারের হাতে।

বেগম জিয়া দাবী করেন, এর পেছনে ভারত ও বার্মার গোয়েন্দা সংস্থার হাত রয়েছে, এবং সবকিছুই পরিচালিত হচ্ছে ইসরায়েলী গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের তত্তাবধানে।

তিনি বলেন, জেসিকা ফক্স সবকিছু ফাস করে দিয়েছে। এই সরকার চালাচ্ছে ভারত, বার্মা ও ইসরায়েল। আমরা ক্ষমতায় গেলে বার্মায় আমাদের নেয্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করব। এই সরকার মাহমুদুর রহমানের গেস ব্লক বার্মার হাতে তুলে দিয়েছে। আমরা ক্ষমতায় গিয়ে সেই গেস ব্লক আবার মাহমুদুর রহমানের হাতে তুলে দিব।

খালেদা জিয়ার অভিযোগ খণ্ডন করে আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফ বলেন, সরকার ফখরুলকে গুম করেনি। ফখরুল আর ইলিয়াস দুইজনেই এমপেরিয়াল গেষ্ট হাউসে আছে। আর যদি ফখরুল সেখানে না থাকে, তাহলে সাদেক হোসেন খোকাকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

উল্লেখ্য যে কিছুদিন পুর্বে বেআদবী করায় সাদেক হোসেন খোকাকে চড় মারেন জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’ হিসাবে পরিচিত মির্জা ফখরুল।

সাদেক হোসেন খোকার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তিনি আমাকে চড় মারলেও পরে কাছে ডেকে দুই বাটি হালিম আর এক শলা ষ্টার ফিল্টার খাইয়েছেন। রাজনীতিতে চড়থাপ্পড় চলতেই থাকে, তার জন্য কেউ কাউকে গুম করে না।

%d bloggers like this: