ফখরুলের দেখা পাচ্ছেন না যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতারা

নিউ ইয়র্ক মতিনিধি

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দেখা পাচ্ছেন না যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতারা।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করে ক্ষোভ প্রকাশ করেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতারা।

টেকাটুরা বখরা নিয়ে গোলযোগের কারনে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি এখন চার ভাগ করে কার্যক্রম চালাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের বিএনপি সমর্থকদের কাছে এই চার অংশ রাম, শেম, যদু ও মধু গ্রুপ নামে পরিচিত।

আব্দুল লতিফ সম্রাট এবং মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল রাম অংশের নেতৃত্বে রয়েছেন। শেম অংশের নেতৃত্বে রয়েছেন বেলাল মাহমুদ ও অলিউল্লাহ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান।

এছাড়া তারেক পরিষদ আন্তর্জাতিক কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান আকতার হোসেন বাদল যদু অংশ এবং ‘সেইভ বাংলাদেশ মুভমেন্ট’ নামে একটি সংগঠনের ব্যানারে শাহ আলমও মধু অংশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

রাম, শেম, যদু ও মধু গ্রুপের নেতারা সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুলের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেন।

রাম গ্রুপের পক্ষ থেকে সম্রাট ও বাবুল অভিযোগ উপস্থাপন করে বলেন, তিনি সম্রাটের বাড়িতে দুপুরের খানা ও বাবুলের বাড়িতে রাতের খানা খেয়েছেন। কিন্তু রাম গ্রুপের সদস্যরা মত বিনিময়ের জন্য তার সাথে দেখা করতে চাইলে তিনি পলায়ন করেন।

শেম গ্রুপের পক্ষ থেকে বেলাল ও অলিউল্লাহ তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মির্জা ফখরুল রাতে অলিউল্লাহর বাড়িতে ঘুমিয়েছেন। সকালে শেম গ্রুপের সদস্যরা মত বিনিময়ের জন্য তার সংগে দেখা করতে এলে তিনি অলিউল্লাহর দেওয়া একটি দামী সিল্কের লুংগি ও ব্রেন্ডের সেন্ডেল পরিধান করে চম্পট দেন।

যদু গ্রুপের নেতা বাদল বলেন, মির্জা ফখরুলকে নগদ এক হাজার ডলার নজরানা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া জেকসন হাইটসের একটি ভাতের হোটেলে তিনি বিরিয়ানী, দই, মিষ্টি পান ও তিন বোতল কোকা কোলা ভক্ষন করেছেন। কিন্তু যদু গ্রুপের সদস্যরা তার সংগে মত বিনিময়ের জন্য দেখা করতে এলে তিনি বিল পরিশোধ না করেই পলায়ন করেন। সেই বিল বাদলকে চুকাতে হয়েছে।

মধু গ্রুপের নেতা শাহ আলম ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন, মির্জা ফখরুলকে আমি স্টেচু অফ লিবার্টি ঘুরিয়ে দেখিয়েছি। দিনের বেলা স্থানীয় পার্ক, চিড়িয়াখানা, ব্রডওয়ে আর রাতের বেলা অন্যান্য মনরঞ্জনের বেবস্থা করে দিয়েছি। কিন্তু যদু গ্রুপের সদস্যরা তার সংগে মত বিনিময় করতে এলে তিনি কেটে পড়েন।

অন্যান্য মনরঞ্জনের বেপারে বিশদ জানতে চাইলে শাহ আলম বলেন, বুঝেনই ত।

রাম, শেম, যদু ও মধু গ্রুপের নেতারা মির্জা ফখরুলের নিমক হারামির বেপারে একমত হয়ে বলেন, মির্জাফখ একটি অভিশাপ। তিনি ব্রাসেলস থেকে নিউ ইয়র্কে এসেছেন মস্তানি করতে। তিনি একজন সামান্য ব্রাসেলসমেন হয়ে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সংগে প্রতারনা করেন। তাকে হাতের কাছে পেলে সংখ্যালঘুর নেয় সাইজ করা হবে।

মির্জা ফখরুলের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কারও আতিথ্য গ্রহনের কথা অস্বীকার করে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি চার ভাগে বিভক্ত। তাদের এক গ্রুপের বাড়িতে রাতের খানা খেলে অন্য গ্রুপের বাড়িতে রাতের পাইখানার জন্য চাপ আসে। তাই আমি তাদের সকলের নিকট হতে পলায়ন করে আছি।

অন্যান্য মনরঞ্জনের কথা অস্বীকার করে তিনি বলেন, এ সবই মিথ্যে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: