Archive for March 12th, 2013

March 12, 2013

মহিলা আমীরের কার্যালয়ে মানবাধিকার পরিস্থিতির অবনতি

নিজস্ব মতিবেদক

ঢাকা মেট্রপলটন পুলিশের মারমুখো আচরনে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে আজ এক করুন দৃশ্যের অবতারনা হয়।

রাতে মহিলা আমীরের কার্যালয়ের বাইরে শতাধিক পুলিশ ও হেলমেট পরা গোয়েন্দারা অবস্থান নেয়। সেই সংগে এ কার্যালয়ে যাওয়া-আসার সব পথে অবস্থান নেয় পুলিশ ভ্যান।

রাত দশটার পর এখান থেকে জাগপা আমীর শফিউল আলম প্রধানকে আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ।

শফিউল আলম প্রধানের পরিনতি দেখে বিএনপি শাখার নায়েবে আমীরদের মধ্যে ত্রাসের সঞ্চার হয়। তারা সকলেই কার্যালয়ের দরজা বন্ধ করে ভিতরে অবস্থান নেন।

এ সময় তাদের একা ফেলে বাড়ি চলে যান বিএনপি শাখার মহিলা আমীর বেগম খালেদা জিয়া।

পরে প্রানের ঝুঁকি নিয়ে কার্যালয়ের পিছন দিকের ছয় ফুট উচ্চ প্রাচীর টপকে একে একে রাতের অন্ধকারে পুলিশের চোখে ধুলি দিয়ে পলায়ন করেন ড. আর এ গণি, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, এমকে আনোয়ার, ড. আবদুল মঈন খান ও বিজেপি চেয়ারম্যান আন্দালিভ রহমান পার্থ।

তারা পলায়নের কিছু ক্ষন পর পুলিশও এলাকা তেগ করে।

এ বেপারে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বিএনপি শাখার উকিলে আমীর মওদুদ আহমদ বলেন, আমি বাংলাদেশের সকল রাজনৈতিক দল করেছি। কিন্তু বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মত এত অসুবিধা জনক দল কোথাও দেখিনি। আমি বিএনপি তেগ করে বিএনএফে চলে যাব। শুনেছি নাজমুল হুদাকে তারা আহ্বায়ক পদ হতে বহিস্কার করেছে। সিট খালি আছে, গিয়ে বসে পড়ব।

বিএনএফে যোগ দিতে চান মওদুদ

কেন বিএনপি শাখায় এত অসুবিধা, এ প্রশ্ন করলে রাগে ফেটে পড়েন উকিলে আমীর মওদুদ। তিনি বলেন, এত বড় একটা দল, অথচ তার কার্যালয়ে বাথরুম মাত্র একটি। সেটি বেবহার করেন মহিলা আমীর নিজে। ভিতরে জাকুজি টাকুজি সব আছে। অটমেটিক পরিস্কারক আছে। আছে ঠান্ডা পানি গরম পানির সুবন্দবস্ত।

মওদুদ বলেন, বাকশালী পুলিশ কার্যালয় ঘেরাও করার পর আমরা সবাই এক কক্ষে আশ্রয় গ্রহন করি। তখন মহিলা আমীর বাথরুমের দরজায় তালা মেরে চাবিটি নিয়ে বাড়ি চলে যান। আমরা এক দিনের জন্য চাবিটি চাইলে তিনি বলেন, খবরদার আমার বাথরুমে কেউ ঢুকবেন না। আমার বাথরুম আমি ময়লা করব। আর কেউ নহে।

আবেগঘন কণ্ঠে মওদুদ বলেন, তিনি চলে যাওয়ার পর ঘন্টার পর ঘন্টা আমরা কয়েকজন একটি সমাধানে আসার চেষ্টা করেছি। আন্দালিভ পার্থ ওয়েষ্ট পেপার বাষ্কেট বেবহারের পরামর্শ দিয়েছিল, কিন্তু আমরা কেউ মেনেজ করতে পারি নাই। শেষ পর্যন্ত চাপ সহ্য করতে না পেরে আমরা গোপনে প্রানের ঝুকি নিয়ে বাড়ির দেওয়াল টপকে পলায়ন করি। আমার নতুন বানান পেন্টটা ছিড়ে গেল। দেশের জন্য তেগ স্বিকারের রাস্তাও বাকশালী পুলিশ ও আপোষহীন নেত্রী বন্ধ করে দিতে চান। অদ্ভুদ।

মহিলা আমীরের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে মওদুদ বলেন, বাথরুমে তালা মেরে তিনি বলেন, আই শেল মেক পলিটিকস ডিফিকাল্ট ফর পলিটিশিয়ানস।

March 12, 2013

সুখের লাগিয়া এ ফ্রন্ট বাধিনু, অনলে পুড়িয়া গেল: হুদা

নিজস্ব মতিবেদক

নিজের প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফ্রন্টের (বিএনএফ) আহ্বায়ক পদ থেকে নাজমুল হুদাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এখন থেকে জাহানারা বেগম দলের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

গতকাল শনিবার সেগুনবাগিচার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের আহ্বায়ক কমিটির এক মুলতবি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভায় নাজমুল হুদার বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয়, তিনি দলের অনুমতি ছাড়া গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ আইনের একটি ধারা নিয়ে উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করেছেন। সেখানে রিটকারী হিসেবে বিএনএফের আহ্বায়ক বলে নিজেকে উল্লেখ করেছেন। এতে বিএনএফ সমস্যায় পড়েছে। গত পঞ্চাশ বতসর ধরে উপমহাদেশে সম্মানের সংগে রাজনীতী করে আসা এ দলটির ভাবমুর্তি ভুলুন্ঠিত হয়েছে।

এ ছাড়া সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকীর দিন তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের একটি অনুষ্ঠানে দলের শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ড করেছেন। এই দুই অভিযোগের ভিত্তিতে নাজমুল হুদাকে আহ্বায়ক পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। একই সঙ্গে তাঁর প্রাথমিক সদস্য পদও স্থগিত করা হয়েছে।

আজ আমার মন ভাল নেই: হুদা

এ বেপারে নাজমুল হুদার সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিএনপি আমায় খেদানর পর আমি বিএনএফ বানাইলাম। জাহানারা বেগমকে আমিই বিএনএফে আনলাম। আর আজ সে দলের ভিতর কু করে আমায় গদি হতে নামাইয়া দিল।

তিনি সব রাজনীতীবিদকে সাবধান করে দিয়ে বলেন, রাজনৈতিক দলের প্রতিষ্ঠাতারা সাবধানে থাকবেন। নয়ত এমনই কুন এক জাহানারার হাতে আপনারাও গদি হারাতে পারেন।

গোপন সুত্রে জানা গেছে, হুদার পরিনতির কথা শুনে সাবেক স্বৈরাচার রাস্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, সাবেক রাস্ট্রপতি বদরুদ্দুজা চৌধুরী ও সাবেক কর্নেল ড. অলি আহমদ নিজ নিজ দলে জাহানারা আছে কি না তা পরিক্ষা করতে কমিটি গঠন করেছেন।

নাজমুল হুদা বলেন, আমি আবার বিএনপিতে গিয়ে ঢুকব। এইবার সংগে লাঠি নিয়া ঢুকব। মওদুদ বানচুদকে এমন পিটান পিটাব যে সে আর রাজনীতীর কথা কইয়া পলিটিকশ করতে পারবে না।

নাজমুল হুদার কন্যা ফারজানা হুদা মতিবেদকের সংগে যোগাযোগ করে বলেন, আব্বা আবারও বহিস্কার হয়েছে। আমরা ঠিক করছি এইবার আব্বাকে বাড়ি হতে বহিস্কার করব।

Tags:
March 12, 2013

প্রিজন ভেনে পেসেঞ্জার তুললেন ফখা

নিজস্ব মতিবেদক

ঢাকা মেট্রপলটন পুলিশের প্রিজন ভেনে পেসেঞ্জার তুলে বিশ্ব রেকর্ড করলেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির কমপ্লান বয় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ওরফে ফখা ইবনে চখা।

আজ নয়া পল্টনে হরতাল পালনের ঘোষনা দেওয়ার কিছু ক্ষন পর ঢাকা মেট্রপলটন পুলিশের একটি ফেসিবাদী দল তাকে গ্রেফতার করলে তিনি বিএনপি শাখার অন্যান্য নেতাদের সংগে নিয়ে পুলিশের উপর চড়াও হন ও প্রিজন ভেনটিকে দখল করেন।

বিএনপি শাখার উত্তেজিত নেতা কর্মীরা এ সময় পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে প্রিজন ভেনের গায়ে ‘ফখা পরিবহন’ ও ‘গাবতলী – গুলিস্তান’ লিখে দেন। পুলিশের মতিঝিল অঞ্চলের এডিসি মেহেদী হাসান এ সময় বাধা দিতে গেলে ফখা ইবনে চখা তাকে উপেক্ষা করে প্রিজন ভেনে যাত্রী তুলা শুরু করেন।

ফখা পরিবহন

এ বেপারে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে ফখা ইবনে চখা বলেন, পুলিশ আমাদের সংগে ইয়ারকী মারে। শান্তিতে দুইটা ককটেল ফুটাইতে দিবে না, বক্তৃতা করতে দিবে না, বিএনপি শাখার কার্যালয়ের ভিতরে ঢুইকে দরজা ভাইঙ্গে কলার ধইরে ধাক্কা মাইরে প্রিজন ভেনে তুইলবে আর আমরা চাইয়ে চাইয়ে দেখব? তা হবি না। এই গাবতলী সিট খালি সিট খালি।

পুলিশের এডিসি মেহেদী হাসান বলেন, বৃহত্তর জামাতের বিএনপি শাখার নেতাদের আমি বাধা দিব না। তারা যা পারে পেসেঞ্জার তুলুক। ভাড়ার টেকা আমি নিজের পকেটে ঢুকাব।

কেন মির্জা ফখরুলকে গ্রেফতার করা হল, এ প্রশ্নের জবাবে এডিসি মেহেদী বলেন, অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ পেয়ে আমরা বিএনপি শাখার কার্যালয়ে ঢুকি।

ফখা ইবনে চখা ককটেল পাওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, লাল ও কাল টেপ দিয়ে পেচান ককটেল দুটি আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন ছিল না। সবই পুলিশের কারসাজি। সারা বাংলাদেশ জানে বিএনপি আরজেস গ্রেনেড নিয়ে কারবার করে। এইসব ককটেল ফকটেল ফুটায় ছাত্র লীগ।

মেহেদী হাসানকে উদ্দেশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, দুই হাজার চার সালের আগষ্ট মাসের বিশ তারিখে তুই কই ছিলি? তখন বিএনপি শাখার কার্যালয়ে ঢুকলে একটা কথা ছিল।

March 12, 2013

রিজভী জেলে, ফেন্টাষ্টিক ফাইভের নতুন আমীর ফারুক

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নায়েবে আমীর ও বিশেষ নৃশংস একশন টিম ফেন্টাষ্টিক ফাইভের আমীর আল্লামা রুহুল কবীর রিজভী অফিসবন্দীকে গ্রেফতার করে কারাগারে নিয়েছে ঢাকা মেট্রপলটন পুলিশ।

এমন পরিস্থিতিতে ফেন্টাষ্টিক ফাইভের হাল ধরেছেন নতুন আমীর ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার হুইপে আমীর জয়নাল আবদিন ফারুক।

একবার বিদায় দে মা ঘুরে আসি

গ্রেফতারের পর কারাগারের ভেনে তুলার সময় সকলকে বিদায় জানিয়ে রিজভী বলেন, দুই মাস বিএনপি কার্যালয়ে অফিসবন্দী ছিলাম, কুন শালা পুলিশ আমায় ধরতে পারে নাই। কিন্তু এই অভিশপ্ত ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর ফখা ইবনে চখা জেল থেকে বের হয়ে আবার দায়িত্ব নেওয়ার পর আমি ফাইসা গেলাম মাইনকার চিপায়। ফখা একটি অভিশাপ।

এ বেপারে সাংবাদিকরা আরও জানতে চাইলে কর্তব্য রত পুলিশ তাড়াতাড়ি কারাগারের ভেন চালিয়ে চলে যাওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু সাংবাদিকদের বাধার কারনে কারাগারের ভেনগাড়ি আরও কিছু ক্ষন দাড়িয়ে থাকে। এ সময় রিজভী আবার বক্তৃতা শুরু করেন।

রুহুল কবীর রিজভী বলেন, ফখা ভাইকে আমি বারবার বললাম, সব কয়টা ককটেল ফুটানর পর তারপর হরতাল ডাকেন। কিন্তু তিনি আমার কথা শুনলেন না। দশ বারটা ককটেল ফুটার পরই তিনি বললেন, হরতাল হরতাল। এদিকে আমাদের কার্যালয়ে বাক্স বাক্স ককটেল তখনও অবিস্ফারিত অবস্থায় পড়ে আছে। আমি ফখা ভাইকে একটু নিরালায় ডেকে বললাম ওস্তাদ আরেকটু অপেক্ষা করা দরকার ছিল। তিনি বললেন, তুই থাম, পাকনামি করিস না। হরতাল ককটেল আমাত্তে বেশি বুঝস?

আবেগঘন কণ্ঠে রিজভী বলেন, আমি ফখা ইবনে চখাকে বলেছিলাম, ভাই সবুর করেন, তাড়াহুড়া করা ঠিক নহে। যদি পুলিশে ধরে কুথায় যাব? তিনি আমায় একটা থাপ্পড় মেরে বললেন, পুলিশে ধরলে জেলে যাবি। ডিভিশন আছে, টিভি আছে পত্রিকা আছে গেলমান আছে, দুশ্চিন্তা কি? বিএনপি অফিসে মাসের পর মাস রাত কাটাইতে তর এত ইন্টারেশ কেন?

এ পর্যায়ে রিজভী কেদে ফেলেন। তিনি অশ্রুরুদ্ধ কণ্ঠে বলেন, রিজভী বংশের কেউ কুনদিন জেল খাটে নাই। ফখার পাল্লায় পড়ে আমার বংশের নাম ধুলায় লুটাল। আমি মামলা করব।

রুহুল কবীর রিজভীর বড় ভাই প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার উপদেষ্টা গওহর রিজভীকে মুঠোফোনে রিজভী গ্রেফতারের সংবাদ জানান হলে তিনি বলেন, আমি জানতাম সে একদিন বম ফুটাইয়া হাজতে যাবে। ছুটকাল থেকেই তার এই গুন্ডা স্বভাব দেখে বড় হয়েছি। আমি আব্বাকে বলব তাকে তেজ্য পুত্র করতে।

নতুন নেতৃত্বে ফেন্টাষ্টিক ফাইভ

এদিকে ফেন্টাষ্টিক ফাইভের দায়িত্ব নিয়েছেন জয়নাল আবদিন ফারুক। তিনি মতিবেদককে মুঠোফোনে বলেন, ফেন্টাষ্টিক ফাইভের চার নারী পাণ্ডের সংগে আমার ভাল বুঝাপড়া আছে। আশা করি তাদের নিয়ন্ত্রনে রাখতে পারব, বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর স্বার্থে তাদের নৃশংসতার পথে পরিচালিত করতে পারব। আপনারা দুয়া করবেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ফারুক বলেন, আমি কুন পাণ্ডেকেই আলাদা চক্ষে দেখি না। সকল পাণ্ডেই আমার কাছে সমান। আপনারা গুজবে কান দিবেন না।

%d bloggers like this: