মহিলা আমীরের কার্যালয়ে মানবাধিকার পরিস্থিতির অবনতি

নিজস্ব মতিবেদক

ঢাকা মেট্রপলটন পুলিশের মারমুখো আচরনে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে আজ এক করুন দৃশ্যের অবতারনা হয়।

রাতে মহিলা আমীরের কার্যালয়ের বাইরে শতাধিক পুলিশ ও হেলমেট পরা গোয়েন্দারা অবস্থান নেয়। সেই সংগে এ কার্যালয়ে যাওয়া-আসার সব পথে অবস্থান নেয় পুলিশ ভ্যান।

রাত দশটার পর এখান থেকে জাগপা আমীর শফিউল আলম প্রধানকে আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ।

শফিউল আলম প্রধানের পরিনতি দেখে বিএনপি শাখার নায়েবে আমীরদের মধ্যে ত্রাসের সঞ্চার হয়। তারা সকলেই কার্যালয়ের দরজা বন্ধ করে ভিতরে অবস্থান নেন।

এ সময় তাদের একা ফেলে বাড়ি চলে যান বিএনপি শাখার মহিলা আমীর বেগম খালেদা জিয়া।

পরে প্রানের ঝুঁকি নিয়ে কার্যালয়ের পিছন দিকের ছয় ফুট উচ্চ প্রাচীর টপকে একে একে রাতের অন্ধকারে পুলিশের চোখে ধুলি দিয়ে পলায়ন করেন ড. আর এ গণি, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, এমকে আনোয়ার, ড. আবদুল মঈন খান ও বিজেপি চেয়ারম্যান আন্দালিভ রহমান পার্থ।

তারা পলায়নের কিছু ক্ষন পর পুলিশও এলাকা তেগ করে।

এ বেপারে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বিএনপি শাখার উকিলে আমীর মওদুদ আহমদ বলেন, আমি বাংলাদেশের সকল রাজনৈতিক দল করেছি। কিন্তু বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মত এত অসুবিধা জনক দল কোথাও দেখিনি। আমি বিএনপি তেগ করে বিএনএফে চলে যাব। শুনেছি নাজমুল হুদাকে তারা আহ্বায়ক পদ হতে বহিস্কার করেছে। সিট খালি আছে, গিয়ে বসে পড়ব।

বিএনএফে যোগ দিতে চান মওদুদ

কেন বিএনপি শাখায় এত অসুবিধা, এ প্রশ্ন করলে রাগে ফেটে পড়েন উকিলে আমীর মওদুদ। তিনি বলেন, এত বড় একটা দল, অথচ তার কার্যালয়ে বাথরুম মাত্র একটি। সেটি বেবহার করেন মহিলা আমীর নিজে। ভিতরে জাকুজি টাকুজি সব আছে। অটমেটিক পরিস্কারক আছে। আছে ঠান্ডা পানি গরম পানির সুবন্দবস্ত।

মওদুদ বলেন, বাকশালী পুলিশ কার্যালয় ঘেরাও করার পর আমরা সবাই এক কক্ষে আশ্রয় গ্রহন করি। তখন মহিলা আমীর বাথরুমের দরজায় তালা মেরে চাবিটি নিয়ে বাড়ি চলে যান। আমরা এক দিনের জন্য চাবিটি চাইলে তিনি বলেন, খবরদার আমার বাথরুমে কেউ ঢুকবেন না। আমার বাথরুম আমি ময়লা করব। আর কেউ নহে।

আবেগঘন কণ্ঠে মওদুদ বলেন, তিনি চলে যাওয়ার পর ঘন্টার পর ঘন্টা আমরা কয়েকজন একটি সমাধানে আসার চেষ্টা করেছি। আন্দালিভ পার্থ ওয়েষ্ট পেপার বাষ্কেট বেবহারের পরামর্শ দিয়েছিল, কিন্তু আমরা কেউ মেনেজ করতে পারি নাই। শেষ পর্যন্ত চাপ সহ্য করতে না পেরে আমরা গোপনে প্রানের ঝুকি নিয়ে বাড়ির দেওয়াল টপকে পলায়ন করি। আমার নতুন বানান পেন্টটা ছিড়ে গেল। দেশের জন্য তেগ স্বিকারের রাস্তাও বাকশালী পুলিশ ও আপোষহীন নেত্রী বন্ধ করে দিতে চান। অদ্ভুদ।

মহিলা আমীরের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে মওদুদ বলেন, বাথরুমে তালা মেরে তিনি বলেন, আই শেল মেক পলিটিকস ডিফিকাল্ট ফর পলিটিশিয়ানস।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: