গদিতে গেলে প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করব: ফখা

নিজস্ব মতিবেদক

বর্তমান আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালকে ‘বিতর্কিত’ ও ‘কুন কামের না’ আখ্যা দিয়ে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, গদিতে গিয়া প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করব।

আজ এক আলচনা অনুষ্ঠানে ফখা ইবনে চখা এ প্রতিশ্রুতি দেন।

বক্তব্যে মির্জা ফখরুল বলেন, এই ট্রাইবুনালের বিচার রাজনৈতিক বিচার। আমরা গদিতে গেলে অরাজনৈতিক বিচার হবে। আমাদের বিচার হবে স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ও আন্তর্জাতিক মানের।

ফখা ইবনে চখা বিচারের ত্রুটি উল্লেখ করে বলেন, আমাদের মহিলা আমীর আজি হতে শত বর্ষ আগেই বলেছিলেন, পাগল ও শিশু ছাড়া কেউ নিরপেক্ষ নহে। এই ট্রাইবুনালে পাগলও নাই, শিশুও নাই। আমরা গদিতে গেলে ট্রাইবুনালের চেয়ারমেন হিসাবে একজন পাগল ও একজন শিশুকে নিয়োগ দিয়া এর নিরপেক্ষতা নিশ্চিত করব।

ট্রাইবুনালের স্বচ্ছতা প্রসংগে ফখা বলেন, এই ট্রাইবুনালের স্বচ্ছতা সরকার নিশ্চিত করতে না পারলেও বৃহত্তর জামায়াত ঠিকই নিশ্চিত করেছে। তারা সাক্ষীদের ঠিকানা সংগ্রহ করে তাদের বাড়িতে গিয়া হুমকি দিয়াছে। একজন সাক্ষীকে তারা ইতিমধ্যে ফুটুশ করে দিয়েছে। আরেক সাক্ষীর ভাইকে ফুটুশ করেছে। ট্রাইবুনাল যতই ঢাকার চেষ্টা করুক, আমরা সব গুপন বেপার জেনে গেছি।

আন্তর্জাতিক মানের প্রশ্নে বৃহত্তর জামায়াতের অটল থাকার কথা নিশ্চিত করে ফখা বলেন, পাকিস্তান হতে আমরা আন্তর্জাতিক মানের উকিল আমদানী করে এই ট্রাইবুনাল চালাব। দেশী মুরগি ডাইল বরাবর।

প্রকৃত যুদ্ধাপরাধী মখা ও মোশার বিচার করব: ফখা

গদিতে গেলে প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবে উল্লেখ করে ফখা ইবনে চখা বলেন, এ দেশে প্রকৃত যুদ্ধাপরাধী দুইজন। তারা হচ্ছেন শেখ হাসিনার বেয়াই খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও স্বরাস্ট্র মন্ত্রী মখা আলমগীর। এরা দুইজন মিলেই ১৯৭১ সালে তিন লক্ষ মানুষকে হত্যা করেছে।

আবেগঘন কণ্ঠে ফখরুল বলেন, পচিশে মার্চ ফরিদপুর হতে মোশা ভাই ও ময়মনসিংহ হতে মখা ভাই ঢাকায় এসে হাজির হয়। পাকিস্তানী সেনাবাহিনীকে তারাই পথ দেখিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, পিলখানা ও রাজারবাগে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে মখা ভাই নকল দাড়ি লাগাইয়া গোলাম আজমের ছদ্মবেশে টিক্কা খানের সংগে দেখা করে। অপরদিকে মোশা ভাই একে একে নিজামী, মুজাহিদ, সাঈদী, কামারুজ্জামানের ছদ্মবেশে আলবদর বাহিনী গঠন করে।

ক্ষমতায় গিয়ে এদের উভয়কেই ট্রাইবুনালের মাধ্যমে ফাঁসি দেওয়ার অংগীকার করে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরাও বিচার চাই। কিন্তু সে বিচারে মখা-মোশার ফাঁসি হতে হবে। নাহলে উহা বিচার নহে, ছলনা।

ঐ বিচারের প্রতিবাদে শাহবাগের মত কোন আন্দোলনের জন্ম হলে কি করবেন, এমন প্রশ্নের জবাবে হাসতে হাসতে মির্জা ফখরুল বলেন, হেফাজতে ইসলাম তখন শাহবাগে তাঁবু ফেলবে। প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য দশ বিশ হাজার বডি ফেলতে হলে আমরা ফেলব। আমাদের অভ্যাস আছে।

2 Comments to “গদিতে গেলে প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করব: ফখা”

  1. পাগল হইবাম, নিরপেক্ষ হইবাম 😀

  2. আমাদের মহিলা আমীর আজি হতে শত বর্ষ আগেই বলেছিলেন, পাগল ও শিশু ছাড়া কেউ নিরপেক্ষ নহে। এই ট্রাইবুনালে পাগলও নাই, শিশুও নাই। আমরা গদিতে গেলে ট্রাইবুনালের চেয়ারমেন হিসাবে একজন পাগল ও একজন শিশুকে নিয়োগ দিয়া এর নিরপেক্ষতা নিশ্চিত করব।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: