Archive for April, 2013

April 29, 2013

কাশিমপুরে এসে সঠিক স্তম্ভ ধরে লাড়াচাড়া করুন: সাকা

কারাগার মতিবেদক

সাভারে রানা প্লাজার স্তম্ভ ধরে লাড়াচাড়া করে বিলডিং ধ্বংসকারী সুপারমেন ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার উকিলে আমীর আল্লামা মওদুদ আহমদকে কাশিমপুর কারাগারে আমন্ত্রন জানিয়ে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার সমকামী নায়েবে আমীর ব্রাদারফাকার সাকা বলেছেন, সাভার টাংগাইল এইসব স্থানে গিয়া ভুল স্তম্ভ ধরিয়া টানা হেচড়া না করে কাশিমপুরে এসে সঠিক স্তম্ভ ধরে লাড়াচাড়া করুন।

সকালে কাশিমপুর কারাগারে নিজ কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ আমন্ত্রন জানান ব্রাদারফাকার সাকা।

সাকা বলেন, বৃহত্তর জামায়াতের বাকশাল শাখার খানকির পোলায়ে আমীর ডা. মখা আলমগীর আমার আলালকে কুল হতে টানিয়া কাড়িয়া ময়মনসিংহ পাঠাইয়া দিল। মাসের অধিক কাল ধরে আমার কুল খালি। এত বড় একটা খাটে একা শয়ন করিতে হয়। অথচ তখন ফাগুনেরও আগুনে হায় পুড়ে প্রেমের পতংগ। আমারও অংগ পতংগে শিখা অনির্বান।

কুন মালা গেথে গলে পরালে গ বন্ধু: মওদুদ

আবেগঘন কণ্ঠে ব্রাদারফাকার সাকা বলেন, হায় নিঠুর মখা, আলালকে যদি ময়মনসিংহেই পাঠাবি তবে শুরুতে কেন পাঠাইলি না। ফাসি দিবি ভাল কথা, কিন্তু দাগা দিলি কেন?

উকিলে আমীর মওদুদকে কারা কক্ষে আমন্ত্রন জানিয়ে সাকা বলেন, আমি ফিতা দিয়া মাপাইয়া দেখছি, খাটে আপনার জন্য প্রয়জনীয় তিন ফুট পরিমান জায়গা খালি আছে। এইখানে সকল প্রকার নাগরিক সুবিধা আছে, কুনই টেনশন নাই। স্তম্ভ ধরিয়া লাড়াচাড়ার সুযুগও পাবেন।

এ বেপারে প্রতিক্রিয়া জানতে মওদুদ আহমদের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি মুঠোফোনে মতিবেদককে বলেন, সকালে ঘুম ভাঙ্গিবার পর দেখি সাকার প্রতিনিধি আসিয়া আমায় মালা পরাইয়া দিয়া গেছে। আমার বাড়ি নোয়াখালী, চট্টগ্রামের লোকজন কেন মালা দেয় আমি বুঝি।

সাকাকে শুভেচ্ছা উপহার হিসাবে একটি শিমুল তুলার কুলবালিশ পাঠানর অংগীকার বেক্ত করে মওদুদ বলেন, সেম সাইড ভাল নহে।

April 29, 2013

টেকা শাকিব মামার, নাম ফাটিল আমার: মতিচুর

নিজস্ব মতিবেদক

সাভারে বিধ্বস্ত ভবন রানা প্লাজার নিচে চাপা পড়া হতাহত মানুষদের জন্য উত্তোলিত ৫৪ লক্ষ টাকার জন্য যাবতীয় বাহাদুরী দাবী করে কারওয়ানবাজারের সর্দার ও প্রভাবশালী সংগঠন মতিসংঘের সভামতি মতিচুর রহমান আফৃদী বলেছেন, টেকা শাকিব মামার, নাম ফাটিল আমার।

সকালে নিজ বাসভবনে আপন শয়ন কক্ষে আড়ং হতে খরিদ করা খেতার নিচে শয়নরত অবস্থায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন মতিচুর।

মতিচুর রহমান হাসতে হাসতে বলেন, ১ বচ্ছর ধরিয়া কারওয়ানবাজারের মেরিল পদক বিতরন অনুষ্ঠানের প্লেন প্রগ্রাম করেছি। এই অনুষ্ঠানের পিছনে বিভিন্ন বড় বড় কর্পরেট মতিষ্ঠান কুটি কুটি টেকা আমায় দিয়াছে। সাভারে বিলডিং ভাংগিয়া পড়লে আমার কেন অনুষ্ঠান বন্দ রাখতে হবে? টেকা কি বলদের পুটু দিয়া বাইর হয়?

আবেগঘন কণ্ঠে মতিচুর বলেন, বিলডিং ভাঙ্গল যুব লীগের সোহেল রানার, বিলডিং ভাঙ্গিলেন বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার উকিলে আমীর মওদুদ, সেই বিলডিঙ্গে মারিয়া পিটাইয়া লেবার ঢুকাইল গার্মেন্টস মালিক, আর কুটি কুটি টেকা গচ্চা দেওয়ার ঠেকা পড়ে আমার উপর। আমার মেরিলের অনুষ্ঠান বন্দ রাখলে কি বিলডিঙ্গ আবার খাড়া হইত? উহা পল্লীবন্ধুর রানা প্লাজার নেয়, একবার যখন পড়ছে শত বিজয় প্লাসেও তারে আর খাড়া করা যাবে না। অতএব এই ক্ষতি লইয়াই আমাদের সম্মুখে আগাইতে হবে।

মতিচুর বলেন, আমি জানতাম পাবলিক আমায় গালি দিবে। তাই আমি অনুষ্ঠানের আগে নিউ মার্কেট হতে কিছু কাল বেজ সিলাইয়া আনিয়াছি। সকল অতিথি কাল বেজ পরিধান করে নাচ গান উপভোগ করেছেন। অথচ তাকাইয়া দেখেন সাভারে এত এত লোক হাজির, কার গায়ে কাল বেজ নাই। খানকির পুলাদের বেজ নাই, কিন্তু ষুল আনা তেজ আছে। আমি মেরিল পদক অনুষ্ঠান করায় তারা আমায় গালাগালি করিল। আরে ভুদাই ৫৪ লক্ষ টেকা জীবনে চক্ষু দিয়া দেখছ?

হাসতে হাসতে মতিচুর বলেন, এই ৫৪ লক্ষ টেকার মধ্যে আমার পকেট হতে একটি টেকাও বাইর হয় নাই। টেকা দিয়াছে শিল্পী আর কর্পরেট। আমি শুধু মাইক হাতে লইয়া বলছি, টেকা না দিলে কারওয়ানবাজারে নাম ছাপাইয়া বলব তুমরা টেকা দেও নাই। তারপর দেখিও তামাশা কাকে বলে। এই কথা বলার পর সকল শিল্পী ঘটীবাটী বেচিয়া লক্ষ লক্ষ টেকা তহবিলে দান করেছে।

নিজের বুদ্ধির প্রসংশা করে মতিচুর বলেন, টেকা শাকিব মামার, নাম ফাটিল আমার।

কারওয়ানবাজারের উপসর্দার আল্লামা আমিষুল হক বলেন, এই অনুষ্ঠান কনসাট ফর বাংলাদেশকেও হালকা বানাইয়া দিছে। কনসাট ফর বাংলাদেশে শাকিব খান ছিল না, এম এ জলিল অনন্ত ও বর্ষা ছিল না। শুধু রবি শংকর না কে যেন সেতার লইয়া পিড়িং পিড়িং করিয়াছিল।

April 27, 2013

সাভারকে বাঁচাবো আবার

April 26, 2013

ব্রাদারফাকার সাকার ভয়ে দেশ ছাড়লেন শামীম ওসমান

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার সমকামী নায়েবে আমীর ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের সমুচিত বলি ব্রাদারফাকার সাকার সংগে কাশিমপুর কারাগারে একই কক্ষে বন্দী হওয়ার আতংকে স্ত্রী পুত্র নিয়ে দেশ ছেড়েছেন নারায়নগঞ্জের গডফাদার শামীম ওসমান।

বৃহস্পতিবার বউ বাচ্চা নিয়ে সৌদী আরবের উদ্দেশে দেশ তেগ করেন শামীম ওসমান।

বিমান বন্দরে মতিকণ্ঠকে দেওয়া এক অন্তরংগ সাক্ষাতকারে নিজের উতকন্ঠার কথা তুলে ধরেন মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহম্মদ ত্বকী সহ আরও অগনিত মানুষকে হত্যার দায়ে অপরাধী গডফাদার শামীম ওসমান।

১ বার সাকার পাল্লায় পড়লে আমি শেষ: শামীম ওসমান

তিনি বলেন, দিনকাল ভাল না। আজকাল মানীর মান আর থাকছে না। এই নতুন মিলেনিয়ামে সকলেই মান হারাচ্ছে। আজ যে স্বরাস্ট্র মন্ত্রী মখা গদিতে বসিয়া দাপাদাপি করে, কয়েক বতসর পুর্বে তারে ধরিয়া পুটুতে ডিম দিয়াছিল নিঠুর পুলিশুয়া। আবার কয়েক বতসর পুর্বে সুট বুট পরিধান করিয়া মন্ত্রী ফখা ও মন্ত্রী মওদুদ অপিসে বসিয়া মিষ্ট মিষ্ট হাসিতেন, আজ তাহাদের পকেটমারের নেয় কানে ধরিয়া জেলে ঢুকান হইতেছে। কাজেই এই মিলেনিয়াম প্রকৃত পক্ষে খুবই গরম। তাই আমি আপাতত সৌদী আরব যাইতেছি। গরম কমলে আবার ফিরব।

ব্রাদারফাকার সাকার সংগে একই কক্ষে চালানের আশংকা প্রকাশ করে শামীম ওসমান বলেন, কেন্দ্রীয় কারাগারে তিল ঠাই আর নাহি রে। তার উপর আমার সাইজ বড়। কাজেই কুন কারনে যদি আল্লাহ না করুক আমায় জেলে প্রেরন করা হয়, তাহইলে ব্রাদারফাকার সাকার কক্ষেই ডিপজলের নেয় আমায় বন্দী জীবন যাপন করতে হবে। আর একবার তার পাল্লায় পড়লে আমি শেষ।

নিজের বিপুল আকৃতির উপর অনাস্থা জ্ঞাপন করে শামীম ওসমান বলেন, বেপারটা ঠিক শরীলের সাইজের উপর নির্ভর করে না। সাকা চট্টগ্রামের ছেলে, তার রয়েছে এইসবে বিপুল অভিজ্ঞতা। আমি খুন জখম ধর্ষন চান্দাবাজি করে আর এইসবে অভিজ্ঞতা অর্জনের সময় পাইলাম না। ব্রাদারফাকার সাকার আকার আমার মত হইলেও অভিজ্ঞতায় আমি তার নিকট আন্দালিব পার্থের নেয় অসহায় ও কুমল। তাই আমি দেশ তেগ করতেছি।

অবিলম্বে সাকার ফাসি দাবী করে শামীম ওসমান বলেন, সাকার ভয়ে জেলে পর্যন্ত যাইতে সাহস পাই না। একটা বিহিত প্রয়জন।

%d bloggers like this: