ঘুর্নিঝড় ‘মহাসেন’কে মাফ করে দিলেন বাবুনগরী

নিজস্ব মতিবেদক

মেঘনা মোহনা অতিক্রম করে নোয়াখালী ও সীতাকুন্ড দিয়ে বাংলাদেশ উপকুল অতিক্রম করে যাওয়ায় বাকশালী সরকার ও ইনডিয়ার যৌথ ষড়যন্ত্র হিন্দু ঝড় ‘মহাসেন’কে ক্ষমা করে দিয়েছেন সদ্য গঠিত রাজনৈতিক দল বাবুনাগরিক শক্তির আমীর, বাংলাদেশের একমাত্র নোবেল বিজয়ী অর্থনীতীবীদ ও গ্রামীন বেংকের বিতাড়িত মালিক ড. মুহম্মদ ইউনূস বাবুনগরী।

আজ ওয়াশিংটনে নিজ হোটেলের আরাম দায়ক বিলাস বহুল কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন বাবুনগরী।

ইউনূস বলেন, চট্টগ্রাম শুধু আমার বাড়িই নয়। চট্টগ্রাম পবিত্র হাটহাজারী মাদ্রাসা শরীফেরও বাড়ি। আল্লামা শফি সেখানে হর রোজ আল্লাহর ইবাদতে মগ্ন। চট্টগ্রাম ফটিকছড়ির সংগ্রামী মুজাহিদগনের বাড়ি। চট্টগ্রাম অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল ড. অলি ও আউলিয়াদের দেশ। লুসাই পাহাড় হতে হাজারও কাফেরের বুংগি বাজিয়ে কর্নফুলী নদী বিধৌত পুন্যভুমি চট্টগ্রাম। চট্টগ্রাম লড়াকু প্রেমিক সংসদ সদস্য ব্রাদারফাকার সাকার দেশ। আর এই চট্টগ্রামের সংগে চুদুরবুদুর করতে এসেছিল বাকশালী সরকার ও ইনডিয়ার যৌথ ষড়যন্ত্রের ফসল হিন্দু ঝড় ‘মহাসেন’।

আবেগঘন কণ্ঠে ইউনূস বলেন, খবর পাওয়া সংগে সংগে আমি আমার বন্ধু নোবেল বিজয়ী অর্থনীতীবীদ অমর্ত্য সেনকে মুঠোফোন মারি। তাকে বলি, সেন বাড়ির ছেলে হিসাবে তুমার লজ্জিত হওয়া উচিত। সে বার বার আমার কাছে মাফ চায়। ইতিপুর্বে সে অং সান সু চিকে লইয়া আমার সংগে বিবাদ করছিল। আমি ভুলি নাই। সময়মত তাকে উচিত শিক্ষা দিব। সালা ঘোচু।

ঘুর্নিঝড় ‘মহাসেন’ নিজেই মহাবিপদ হতে রক্ষা পেয়েছে, এমন মন্তব্য করে ইউনূস বলেন, প্রতিটি ঝড়ের সীমান্ত এলাকায় বাতাসের বেগ থাকে বেশী। কিন্তু যত ভিতরে যাওয়া যায়, তত বাতাসের বেগ কমতে থাকে। ঝড়ের একেবারে কেন্দ্রে বাতাসের কুন বেগই নাই। ঐখানে রয়েছে একটি শান্ত মনোরম ছিদ্র। একে বলা হয় পুটু অফ দি স্টর্ম। চট্টগ্রামের উপর দিয়া না গিয়া ‘মহাসেন’ মহাবিপদ হতে রক্ষা পেয়েছে। নাহলে তার পরিনতিও হত সাকা কবলিত আলালের নেয় করুন।

যে কোন ঘুর্নিঝড়কে নিজের শত্রু ঘোষনা করে ইউনূস বলেন, ঘুর্নিঝড় মানুষজনের বাড়ির চাল উড়াইয়া লইয়া যায়। ইহা গ্রামীন বেংকের বিরুদ্ধে স্পস্ট চেলেঞ্জ।

9 Comments to “ঘুর্নিঝড় ‘মহাসেন’কে মাফ করে দিলেন বাবুনগরী”

  1. যে কোন ঘুর্নিঝড়কে নিজের শত্রু ঘোষনা করে ইউনূস বলেন, ঘুর্নিঝড় মানুষজনের বাড়ির চাল উড়াইয়া লইয়া যায়। ইহা গ্রামীন বেংকের বিরুদ্ধে স্পস্ট চেলেঞ্জ। — aahahahaa pura pochani disey!! ^_^

  2. পুরাই পাঙ্খা। হাসতে হাসতে মইরা যাই।

  3. এইড্যা সেরা দিসে — ” কিন্তু যত ভিতরে যাওয়া যায়, তত বাতাসের বেগ কমতে থাকে। ঝড়ের একেবারে কেন্দ্রে বাতাসের কুন বেগই নাই। ঐখানে রয়েছে একটি শান্ত মনোরম ছিদ্র। একে বলা হয় পুটু অফ দি স্টর্ম।”

  4. haste haste moira gelam

  5. চট্টগ্রামের উপর দিয়া না গিয়া ‘মহাসেন’ মহাবিপদ হতে রক্ষা পেয়েছে। নাহলে তার পরিনতিও হত সাকা কবলিত আলালের নেয় করুন।ভাই সিরাম লিখছেন।

  6. I wanna see “”putu of the strom”” .
    wht should i do……

  7. যে কোন ঘুর্নিঝড়কে নিজের শত্রু ঘোষনা করে ইউনূস বলেন, ঘুর্নিঝড় মানুষজনের বাড়ির চাল উড়াইয়া লইয়া যায়। ইহা গ্রামীন বেংকের বিরুদ্ধে স্পস্ট চেলেঞ্জ। ————————————————- এইটা বাণী

  8. motikontho ekta faltu newspaper.Pagoler prolap

  9. ড. মুহম্মদ ইউনূস বাবুনগরী। hae keda???

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: