Archive for June, 2013

June 30, 2013

চিঠি দিব, প্রতিদিন, চিঠি দিব: খালেদা

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার মহিলা আমীর আপোষ হীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সংসদ অধিবেশনে বক্তব্য কালে বলেছেন, চিঠি দিব, প্রতিদিন, চিঠি দিব।

মার্কিন যুক্ত রাস্ট্রের পতৃকা ওয়াশিংটন টাইমসে চিঠি লিখে জিএসপি সুবিধা বাতিলের আবদার করায় সংসদে সমালোচনার মুখমুখি হলে উত্তরে খালেদা জিয়া এ কথা বলেন।

বেগম জিয়া বলেন, কিছু কুলাংগার আমার নামে কুতসা রটায়, আমি নাকি মেটৃক পরিক্ষায় ইংরাজিতে লেটার পাই নাই। আমি সেই সব সালা ঘোচুদের উদ্দেশে বলতে চাই, ইংরাজিতে দুই চাইরটা লেটার লিখার জন্য মেটৃকে ইংরাজিতে লেটার পাওয়া লাগে না। লেটার পাওয়া আমার কাম নহে, লেটার দেওয়াই আমার কাম। ইংরাজ কবি উইলিয়াম সেক্সপীরও মেটৃকে ইংরাজিতে লেটার পান নাই। কিন্তু তিনি রচনা করেছেন অমর সাহিত্য মেকবেথ হেমলেট ওথেলু ইত্যাদি। রবী ঠাকুর ত ইস্কুলই পাশ দিতে পারেন নাই, কিন্তু গিতাঞ্জলী কাব্যর জন্য নোবেল চাহিয়া তিনি বিভিন্ন বিদেশী বেক্তির কাছে ইংরাজিতে পত্র লিখেই সফল কাম হয়েছিলেন। তাই মেটৃক পরীক্ষায় ইংরাজিতে লেটার পাওয়া কুন বিষয় নহে। আসল কথা হচ্ছে ইংরাজিতে লেটার লিখবার দক্ষতা, যা আমার আছে। ইয়ে ভি কোই বাত হায়, মহাফুজ আনাম সাথ হায়।

আবেগঘন কণ্ঠে বেগম জিয়া বলেন, তিরিশ বচ্ছর ধরে রাজনীতীর পাশাপাশি ইংরাজি অধ্যয়ন করে আসিতেছি। সেক্সপীর আমার পীর। টেনিশন পাঠ করে আমি টেনশন দুর করি। বায়রন আমার আপোষ হীনতার আয়রন। জর্জ বানাড শ আমি শয়ে শয়ে পাঠ করি। বিডিআরে যখন গুলাগুলি হচ্ছিল, আমি তখন বারান্দায় বসিয়া ফেয়ারঅয়েল টু আর্মস পাঠ করছিলাম। হেফাজতের তান্ডবের সময় পড়ছিলাম টারজান। ইংরাজির খোটা আমায় দিও না বাকশালীর দল। মাইকেল মধুসুদনের পর আমিই দেশে ইংরাজির জাহাজ।

ওয়াশিংটন টাইমস মারফত ওবামার কাছে পাঠান চিঠির দায় শিকার করে বেগম জিয়া বলেন, গুলাপী কাগজে গুটা গুটা মধুময় আখরে লিখেছি সে চিঠি। আমার চিঠি পাঠ করে ওবামা সারাটা দিন পংকজ উদাসের চিটঠি আয়ি হে আয়ি হে চিটঠি আয়ি হে গানটি উদাস হয়ে শ্রবন করেছে। তারপর দিছে জিএসপি বন্দ কইরা। আর আমার সংগে পাংগা লবি? আর আমার পুলাগেরে দেশ হতে খেদাবি? আর আমায় কেন্টনমেন্টের বাড়ি হতে ভাগাবি?

বাকশালকে সাবধান করে দিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, শেখের বেটী হুশিয়ার। জিএসপির কথা পরে চিন্তা কর। সামনে আসছে আর্জেস গ্রেনেডের দিন। এইবার আর মিছ নাই। কাচ্চা চাবা যাউংগা।

June 29, 2013

সামনে আসছে শুভ দিন: বাবুনগরী

নিজস্ব মতিবেদক

সদ্য গঠিত রাজনৈতিক দল বাবুনাগরিক শক্তির আমীর, বাংলাদেশের একমাত্র নোবেল বিজয়ী অর্থনীতীবীদ ও গ্রামীন বেংকের বিতাড়িত মালিক ড. মুহম্মদ ইউনূস বাবুনগরী বলেছেন, সামনে আসছে শুভ দিন।

শনিবার রাজধানীতে ধানমণ্ডির বেসরকারি ডেফডিল ইন্টারনেশনাল ইউনিভার্সিটি মিলনায়তনে ‘সোশাল বিজনেস ইয়ুথ কনভেনশনে’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন বাবুনগরী।

ইউনূস বলেন, শেখের বেটী আমার পুটুতে শুদু শুদু অংগুলি দিল। তার পেট ভর্তি শুদু হিংসার অনল। আমি নোবেল পাইছি, সে পায় নাই। আমি যুক্ত রাস্ট্রের প্রেসিডেন্টের ফৃডম পদক পাইছি, সে পায় নাই। আমি কংগ্রেসের সোনা পাইছি, সে পায় নাই। ফরবেশ আমায় দরবেশ কয়েছে, তারে কিছু কয় নাই। তাই হিংসায় হিংসায় সে জ্বলিয়া পুড়িয়া ছারখার। আর তাই প্রতিশুধ নিতে শেখের বেটী আমায় ঘেটী ধরিয়া আমার হক্কের গ্রামীন বেংকের গদি হতে খেদাইয়া দিল। বলল, তুমি বুড়া হয়া গেছ। আরে যখন ছুডু ছিলাম তখন কি নোবেল পাইছি, ফৃডম পদক পাইছি, কংগ্রেসের সোনা পাইছি, ফরবেশের মুখে দরবেশ ডাক পাইছি? যা পাইছি তা ত বুড়া হইয়াই পাইছি। এখন দেখ এই বুড়া হাড়ের ভেলকি। জিএসপি সুবিধা বাতিল করাইয়া দিলাম বুড়া বয়সেই।

শেখের বেটী ০, বাবুনগরী ১

আবেগঘন কণ্ঠে ইউনূস বলেন, সামনে আসছে শুভ দিন। এই যে এত দিন গেল, বাকশালের কুন নেতা, কুন বুদ্ধিজীবী আমার কুন খুজখবর করে নাই। আমি কি খাই, কি পরি, তারা কুন খবরই লয় নাই। কিন্তু বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সেদিন আমার বাড়িতে আসিয়াছিল। সংগে খাওয়ার জন্য আম, লিচু, কচু শাক দিয়া মাছের মাথার ছালুন, আর পরার জন্য শহীদ আফৃদির দুকান ইদিয়ান হতে খরিদ করা একটি আরাম দায়ক রেশমী চুড়িদার পাইজামা। ফখা ইবনে চখা আমায় বলল, বাবুদা আপনি ১৮ দলের সংগে চলিয়া আসেন। আপনার খাওয়া পরার চিন্তা থাকবে না। আমরা ক্ষমতায় গেলে আপনাকে গ্রামীন বেংকের গদি ফিরাইয়া দিব। এইবার এমন আইন করব যে আপনি মরার পর আপনার ফেমিলির লুকজন সেই গদি পাইবেক।

হাসতে হাসতে বাবুনগরী বলেন, আমি ত আর ঘাস খাইয়া নোবেল পাই নাই। সংগে সংগে তাহাকে শুধাইলাম, তুমাদের তরুন নেতৃত্ব বড় গনতন্ত্র তারেক জিয়া যে আমার নোবেলের টেকার টেন পারসেন্ট চান্দা খাইছিল, সেই টেকা ফিরত দিবা কিনা বল। ফখা তাহাতেও রাজি। সে বলল, বাবুদা টেকা কুন বেপারই নহে। আপনার বাড়ি ভর্তি খালি সোনার মেডেল। এ কি সোনার আলোয় জীবন ভরিয়ে দিলে, ও গ বন্ধু সাথে থেক, পাশে থেক।

সবাইকে বৃহত্তর জামায়াতের মার্কায় ভোট প্রদানের আহোভান জানিয়ে বাবুনগরী বলেন, গ্রামীন বেংকের এক কুটি খাতক নারীর আমি মা-বাপ। তারা আমার নিকট টেকাটুকা ধারে। এই এক কুটি নারীকে এখন বৃহত্তর জামায়াতের বাক্সে ভুট দিতে হবে। অন্যথায় তাদের বাড়ির চাল আমি নিজের হাতে খুলিয়া আনব।

প্রধান মন্ত্রীকে সতর্ক করে দিয়ে ইউনূস বলেন, আজ জিএসপি গেছে, কাল যাবে গদি, আমার হক্কের মাল ফিরাইয়া না দেও যদি।

June 29, 2013

পাকিপ্রেমের পতপত পতাকা

প্রথমালু ক্রিড়া ডেস্ক

আমাদের ক্রিড়া পাতায় আজ পাকি প্রেমরস পুর্ন দুটি লেখা আলো ছড়াচ্ছে।

১. বেবসায়ী আফৃদি

আমাদের ক্রিড়া ডেস্কের নয়ন মনি শহিদ আফৃদি ইদিয়ান নামের একটি বুটিক হাউসের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি কুয়েত, কাতার, যুক্তরাস্ট্র, কানাডার পর এবার ঢাকায় ফেশন হাউসটির শো রুম উদভোদন করলেন কাল।

তিনি বলেন, আমি এর আগেও ঢাকায় এসেছি। এবার নতুন পরিচয়ে এলাম। আমার এই বেবসার আসল উদ্দেশ্য অন্য যে কুন বেবসার মতই – টেকাটুকা কামান। আরো অনেক দেশ থাকতে বাংলাদেশে আসার কারন হল, এই দেশে আছে কুটি কুটি পাকচোদ, যারা পাকিস্তান বা আমার নাম শুনলেই মাখায়া ফেলে। এই পাকচোদ গুলার দৌলতে আমার বেবসা রমরমা হবে ইনশাল্লা।

মুনাফাঘন কন্ঠে তিনি বলেন, বিশিষ্ট পাকচোদ নেতা মতিচুর রহমান আফৃদি তার পত্রিকা বেবহার করে আমার বেবসা প্রসারে হেল্প করতে শুরু করেছে। এর জন্যে অবশ্য তাকে কিছু এডভান্স দিতে হয়েছে।

আশরাফুলের ইস্পট ফিকসিং কেলেংকারি বিষয়ে তিনি বলেন, বাঙালি এত দিনে লাইনে এসেছে। পাকিস্তানি ক্রিকেটারগন > যে পথে করে গমন > হয়েছে কারাবরনীয়, আশরাফুল সেই পথেই চলেছে। বাঙালিদের সঠিক উপলব্ধি হয়েছে বলেই বাংলাদেশের রাজনিতিও এখন মাশাল্লা পাকিস্তানকে অনুসরন করছে।

পরবর্তিতে বাংলাদেশে আরো কুন বেবসা প্রতিষ্ঠান খুলবেন কিনা, জানতে চাইলে আফৃদি বলেন, আমি জানি, মেহেরজানের মত অনেক বাঙালি জেনানা পাকিস্তানি তাগড়া জওয়ানদের রুপগুন মুগ্ধ। তাই ‘মেরি মি, আফৃদি’ নামে একটা শাদি এজেন্সি চালু করার পরিকল্পনা আমার আছে। এর মাধ্যমে পাকিধনপেয়ারু বাঙালি জেনানারা পাকি জওয়ানদের শাদি করতে না পারলেও স্বাদ নিতে পারবে অন্তত।

তিনি আরো জানান, একাত্তর সালের নয় মাস পাকি সেনাদের নিবির সান্যিধ্যে কাটিয়ে সেটার সুখ স্রিতি আজ পর্যন্ত বহন করে চলা এক রাজনৈতিক নেত্রি এই শাদি এজেন্সি উদভোদন করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তবে তাকে কুন কারনে না পাওয়া গেলে আবুল বা মখাকে দিয়েও কাজ চলবে।

২. হাসি মুখে ক্ষমা চাইলেন বাট

বেবাকেই জানে, বিশ্ব জুড়ে দুই নম্বরি কাজে পাকিস্তানিরা এক নম্বর। ক্রিকেটেও এর বেতিক্রম নহে। ইস্পট ফিকসিং করে ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হওয়া ও ইংলেন্ডের জেলে সাত মাস বাটমারা খাওয়া পাকিস্তানি বেটসমেন সালমান বাট অবশেষে বাটে পড়ে নিজের বাট বাচাতে প্রকাশ্যে অপরাধ স্বিকার করে বলেছেন, আমি দুষ করেছি, বাট আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে চাই। ইস্পট ফিকসিং পাকিস্তানের জাতীয় ক্রিড়া। এই খেলা হতে নিজেকে দুরে রাখা সম্ভব নহে।

হাসি মুখে ক্ষমা চাইছেন বাট, তার চেহারায় পষ্ট অনুশোচনার ছাপ

দুই নম্বরি আবেগঘন কন্ঠে তিনি বলেন, আইসিসির দুর্নীতিবিরোধী ও নিরাপত্তা ইউনিটকে (আকসু) একটা অভিশাপ। আরাম করে টেকাটুকা কামাইতে দেয় না। আরে, দরকার হইলে তোরা পার্সেন্টেজ নে। বেটারা বুজে না: ষোল আনা থেকে যদি চার আনা যায়, হিশেব দাড়ায় এসে বার আনায়, কিন্তু বার আনাতে আমরা খুশি…

এর আগ পর্যন্ত বাট অবশ্য বরাবরই নিজেকে নির্দুষ দাবি করে এসেছেন। তাকে প্রশ্ন করা হয়, এত দিন অপরাধের কথা স্বিকার করেননি কেন নিজের মুখে? উত্তরে তিনি বলেন, বাট থাকতে মুখ কেন?

 

June 28, 2013

জন্মদিনে বাবুনগরী লও লও লও ছালাম: ওবামা

ওয়াশিংটন মতিনিধি

মার্কিন যুক্ত রাস্ট্রের ইতিহাসে একমাত্র কৃষ্ণাংগ ও মুসলমান রাস্ট্র পতি বারাক হোসেন ওবামা বলেছেন, জন্মদিনে বাবুনগরী লও লও লও ছালাম।

আজ ওয়াশিংটনে হোয়াইট হাউসে ফজরের নামাজ আদায়ের পর আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে ওবামা এ কথা বলেন।

ওবামা বলেন, কয়েক মাস আগে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার মহিলা আমীর আমার বন্ধু এডমিরাল জেনারেল আলাদীনের কাছে একটি খত লিখেন। সেই খতে তিনি উহার নিকট আবদার করে বলেন, ভাইসাব বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা তুলিয়া লন। বাকশালের ফেসিবাদে নিপীড়ীত বাংলাদেশকে এইসব সুবিধা দেওয়ার কুন মানেই নাই। আমরা আবার ক্ষমতায় আসিলে আবার দিয়েন।

আবেগঘন কণ্ঠে ওবামা বলেন, বিএনপি শাখার মহিলা আমীরের চিঠিকে আমি বা আলাদীন কেহই পাত্তা দেই নাই। কারন সেই চিঠি এত কঠিন ইংরাজিতে লিখা যে তার অর্ধেক কথাই আমি পড়িয়া বুঝি নাই। যে দেশে বিরুধী দলীয় নেত্রী এত শিক্ষিত সে দেশে যে বিরাট সমস্যা আছে, তা আমি তখনই বুঝতে পারি।

অশ্রু মুছে ওবামা বলেন, এরপর কংগ্রেসের সোনা নিতে ওয়াশিংটনে আসে আমার সাবেক পর রাস্ট্র মন্ত্রী ও মার্কিন যুক্ত রাস্ট্রের দীপু মনি হিলারি রডহাম ক্লিনটনের বাল্য বন্ধু ইউনূস বাবুনগরী। সে আসিয়া আমায় সব খুলিয়া বলল। তারপর সে আমায় আবদার করিয়া বলল, সামনের জন্মদিনে আমায় একটি লাল সাইকেল কিনিয়া দেও।

ইউনূস বাবুনগরীকে উদ্দেশ করে ওবামা বলেন, হে আমার প্রিয় বান্দা ইউনূস, লাল সাইকেল নয়, তুমার জন্মদিনে উপহার হিসাবে আমি বাংলাদেশের জিএসপি বাতিল করলাম। আশা করি এতে তুমার মান সম্মান বৃদ্ধি পাইবে। না পাইলে আসিও, তুমায় আরেকটি মেডাল দিব।

%d bloggers like this: