Archive for July 13th, 2013

July 13, 2013

মেধাবীদের পাশে বৃহত্তর জামায়াত

নিজস্ব মতিবেদক

অবশেষে মুক্তিযুদ্ধা কোটা বাতিল করে রাজাকার কোটা, আল বদর কোটা, আল শামস কোটা ও একাত্তরের শান্তি পন্থী কোটা প্রবর্তনে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র শিবিরের নেতৃত্বে চলমান আন্দলনে অংশ গ্রহন কারী মেধাবীদের পাশে এসে দাড়িয়েছে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামী।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে দলটির ভাঁড়প্রাপ্ত খানকির পোলায়ে নায়েব রফিকুল ইসলাম খান বলেন, কোটা বেবস্থার কারনে সরকারে বৃহত্তর জামায়াতের মেধাবী গন কুন চাঞ্চ পাচ্ছে না। তাই কোটা বেবস্থা বাতিল করতে হবে।

বাকশালের ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ও নিখিল বাংলাদেশ হোটেল মালিক সমিতির সভাপতি এডভকেট সাহারা খাতুনের মালিকানাধীন দি এমপেরিয়াল হোটেল এন্ড গেষ্ট হাউস থেকে সাক্ষরিত বিবৃতিতে রফিকুল ইসলাম খান বলেন, মুক্তিযুদ্ধা কোটায় চাকরি পায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ। নারী কোটায় চাকরি পায় তেতুলের মত লুভনীয় সব নারী। জেলা কোটায় চাকরি পায় শুধু গোপালগঞ্জ ও রংপুরের লোক। আদিবাসী কোটায় চাকরি পায় মালাউন। প্রতিবন্ধী কোটাতে চাকরি পায় ছাত্র জীবনে ইসলামী ছাত্র শিবিরের মেধাবীদের হাতে মাইর খাইয়া পংগু পুলাপান। হায়, বৃহত্তর জামায়াতের মেধাবীদের তাই চাঞ্চ পাওয়ার জন্য বেশী বেশী পড়া লিখা করতে হয়। তারা যে মাঝে মধ্যে রাস্তায় নামিয়া বৃহত্তর জামায়াতের খানকির পোলায়ে আমীরদের মুক্তি চাহিয়া দশ বারটা বাসে আগুন দিবে কিংবা পুলিশ কুপাইয়া মারবে, সেই ফুরসত তারা আর পায় না। ৯৯% মুসলমানের দেশ বাংলাদেশে এই বৈষম্য ছইলত ন।

আবেগঘন ফন্টে রফিকুল ইসলাম খান বলেন, এই অভিশপ্ত কোটা বেবস্থার কারনে বৃহত্তর জামায়াত আজ দিশেহারা। তাই মেধাবীরা আজ মগবাজার ছাড়িয়া রাজপথে নেমেছে। মেধা চত্বরের আন্দলন মেধাবীদের আন্দলন। মুক্তিযুদ্ধার দুই গালে জুতা মার তালে তালে। পাকিস্তান জিন্দাবাদ।

পাশাপাশি এক পৃথক বিবৃতিতে সাহারা খাতুনের মালিকানাধীন দি এমপেরিয়াল হোটেল এন্ড গেষ্ট হাউসে আদর আপ্যায়ন বেবস্থার ত্রুটির বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে ধরে রফিকুল ইসলাম খান বলেন, এই হোটেলে শুধু বাকশালের সন্ত্রাসীদের বেশী বেশী সীট দেওয়া হয়। অবিলম্বে এমপেরিয়াল হোটেলের ৫০ শতাংশ সীট বৃহত্তর জামায়াতের খানকির পোলায়ে আমীরদের জন্য কোটা হিসাবে বরাদ্দ করার দাবী জানিয়ে তিনি বলেন, লাইনে আসুন।

%d bloggers like this: