মার্কিন পুলিশের কাজে সন্তষ প্রকাশ করলেন জব্বার

নিজস্ব মতিবেদক

মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই এর নিকট হতে বেআইনী ভাবে গোপন তথ্য খরিদ করতে গিয়ে পুলিশের হাতে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার যুক্তরাস্ট্র উপশাখার কানেটিকাট পাতিশাখার আমীর মাহমুদুল্লাহ মামুনের পুত্র রিজভী আহমেদ সীজার গ্রেফতার হওয়ায় সন্তষ প্রকাশ করেছেন বাংলার তথ্য প্রযুক্তির দিকপাল বাংলার স্টীভ জবস মোস্তফা জব্বার।

আজ নিজ কার্যালয়ে এক অন্তরংগ সাক্ষাতকারে মতিকণ্ঠকে এ কথা বলেন তিনি।

মোস্তফা জব্বার বলেন, এই সালা ঘোচুর দল আমৃকায় বসিয়া আমার তথ্য খরিদ করতে গেছিল এফবিআইয়ের নিকট। কিন্তু পাপ কুনদিন চাপ দিয়া ঢাকা যায় না। মাহমুদুল্লাহ মামুনের বখাটে পুত্র সিজার এখন জেলে। ঠিকমত বিচার আচার হইলে তার ২০ বছরের জেল হবে। আমি ত বলি তারে গুল্লি করিয়া নিধন করা হউক। কত্তবড় সাহস হইলে সে বাংলার স্টীভ জবসের গুপন তথ্য হাতাইতে এফবিআইরে ভাড়া করে।

আবেগঘন কণ্ঠে মোস্তফা জব্বার বলেন, পেপারে খবর আসছে, সে বাংলার তথ্য প্রযুক্তিবিদ রাজনীতীবীদ সম্পর্কে তথ্য কিনতে এফবিআইয়ের অফিসে গেছিল। বাংলায় তথ্য প্রযুক্তিবিদ বলতে আমি একাই আছি। টুকটাক রাজনীতীও করি। আমার সম্পর্কে তথ্য কিনার জন্য এফবিআই পযন্ত যাওয়া লাগত না। মিস্টি করিয়া জিজ্ঞাসা করলে আমি নিজেই বলিয়া দিতাম। কিন্তু হারামজাদা সীজারের মতলব ছিল অন্য।

অফিসে মাউশ টিপছেন বিজয় টেবলেটের প্রনেতা মোস্তফা জব্বার

এ ঘটনার পিছনে এক গভীর আন্তর্জাতিক চক্রান্ত কাজ করছে উল্লেখ করে বাংলার জবস বলেন, আপনারা জানেন, আমি বিজয় টেবলেটের প্রনেতা। সচ্ছল বিত্তবান কিন্তু গুপন অসুখে আক্রান্ত পুরুষ ও তাদের স্ত্রী-বান্ধবীদের মাঝে আমার বিজয় টেবলেট জনপ্রিয়। বিজয় টেবলেটের সর্বাপেক্ষা বড় কাষ্টমার সাবেক স্বৈরাচার রাস্ট্রপতি ও পল্লীবন্ধু আলহাজ্জ এরশাদ। মুন্নী সাহা আমার বিজয় টেবলেটের সর্বাপেক্ষা বড় সমঝদার। আমি সন্দেহ করতেছি, বিজয় টেবলেটের ফর্মুলা ও ক্রয় বিক্রয়ের হিসাবের তথ্য হস্তগত করিতেই সীজারের বাচ্চা এফবিআই গেছিল। সে আমার ও পল্লীবন্ধুর রাজনৈতিক কেরিয়ারের উপর আঘাত হানতে চায়।

এদিকে মাহমুদুল্লাহ মামুনের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি মতিবেদককে মুঠোফোনে কাদতে কাদতে বলেন, ফুলের মত নরম কুমল আমার পুত্র সীজার। কুনদিন কাউকে কুন খারাপ কথা বলে নাই। রাস্তায় সে কুকুর বিড়ালকে পানি পান করাইত। কাঠবিড়ালীকে বাদাম খাওয়াইত। জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঈদ উপহার দিতে সে এফবিআইকে ধরিয়া জব্বার বিষয়ে দুই চাইরটা গুপন তথ্য কিনতে গেছিল। আর এফবিআই হারামজাদারা তারে ধরিয়া জেলে ঢুকাইয়া ধমক দিয়া বলল, কিছু কথা থাক না গুপন। কাষ্টমারের সাথে তারা এইরুপ আচরন করে জানলে সীজার কখনই তাদের কাছে যাইত না।

জাতীয়তাবাদী শক্তিকে সীজারের পাশে দাড়াতে অনুরোধ করে মামুন বলেন, আপনারা সীজারকে জেল হইতে ছুটান। বিনিময়ে যা লাগে আমি দিব। প্রয়জনে আমি জয়নাল আবদিন ফারুকের সংগে গলা চিকন করিয়া ফোন সেক্স করিব।

4 Comments to “মার্কিন পুলিশের কাজে সন্তষ প্রকাশ করলেন জব্বার”

  1. কিন্তু পাপ কুনদিন চাপ দিয়া ঢাকা যায় না। 😛

  2. কিছু কথা থাক না গুপন।

  3. প্রয়জনে আমি জয়নাল আবদিন ফারুকের সংগে গলা চিকন করিয়া ফোন সেক্স করিব।!

  4. কাঠবিড়ালীকে বাদাম খাওয়াইত।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: