বাকশালের বিলবুড দখল, পথের ফকির হলেন সাশাচুর

নিজস্ব মতিবেদক

ঈদুল ফিতরের বাজারে মহানগরী ঢাকার সকল বিলবুড দখল করে বাকশালের নির্বিচার উন্নয়নের বিজ্ঞাপনের কারনে পথের ফকির হয়েছেন কারওয়ানবাজার সর্দার মতিচুর রহমান আজমীর বৈধ পুত্র সাশাচুর রহমান আজমী।

বুধবার সন্ধায় এক সংবাদ সম্মেলনে কাদতে কাদতে এ কথা বলেন সাশাচুর রহমান।

এ সময় কারওয়ানবাজার সর্দার মতিচুর রহমান সাশাচুর রহমানের পাশে ছিলেন। ক্রন্দনরত সাশাচুরকে সান্তনা দিয়ে তিনি নিজেই সংবাদ সম্মেলনে বাকি বক্তব্য রাখেন।

মতিচুর বলেন, আমার পুত্র সাশাচুর বিজ্ঞাপন বিজিনেশ করে। বাকশালের বিলবুড বিজ্ঞাপনের পরিকল্পনার কথা আমি কারওয়ানবাজারে সর্দারীর কারনে কয়েক দিন আগেই অবগত হই। আমি সাশাচুরকে ডাকিয়া বললাম, বাপধোন, গনভবনে গিয়া তুমার হাসিনা পুপ্পিকে গিয়া সালাম করিয়া আস। তারপর বাকশালের প্রচার সম্পাদক ও হেফাজতে ইসলামের বাকশাল শাখার আমীর বন মন্ত্রী বনমানুষ হাছান মাহামুদকে মুঠোফোন মার। মারিয়া বল যে তুমি মতিচুর রহমান আজমীর বৈধ পুত্র সাশাচুর রহমান আজমী। বাকশালের বিলবুডে বিজ্ঞাপনের বিজনেশ ডিল তুমি লইতে চাও, এই কথা বলিও। রাজী না হইলে পুনরায় তাহাকে বলিও তুমি সাশাচুর ইবনে মতিচুর। তারপরও যদি কাম না হয় তাহইলে আমাকে আসিয়া বলিও।

এ সময় সাশাচুর বিকট শব্দে কেদে উঠেন।

মতিচুর রহমান পুত্রকে সান্তনা দিয়ে আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, আমার ছেলেটি গত জুম্মা বার জুম্মার নামাজ পড়িয়া গনভবনে গেল। গিয়া বাকশালের মহিলা আমীর শেখ হাসিনাকে সালাম পযন্ত করিয়া আসল। কিন্তু বাসায় আসিবার পথে বন মন্ত্রী বন মানুষ হাছান মাহামুদকে মুঠোফোন মারিয়া সে কাম হাছিল করতে পারল না। হাছান মাহামুদ তার পরিচয় শুনিয়া গালি দিয়া বলিল, বিলবুডে বিজ্ঞাপনের বিজনেশ তুরে কেন দিব রে ইবলিছের পুত্র?

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে আবেগঘন পরিস্থিতির সৃস্টি হয়।

মতিচুর রহমান কাদতে কাদতে বলেন, ঈদের মাত্র চাইর দিন আগে বাকশাল আমার বৈধ পুত্র সাশাচুরের বৈধ বিলবুডগুলি বেদখল করিয়া সেইখানে শেখ হাসিনার থোবড়া টাংগাইয়া দিয়া উন্নয়নের বিজ্ঞাপন মারিয়া দিল। সারা ঢাকায় বিজ্ঞাপনের বিজনেশ ত সাশাচুর পাইলই না, উল্টা তার নিজের বিলবুডগুলিও নরপশু হাছান মাহামুদের কুক্ষিতে ঢুকিল। সামনে ঈদ, আমার পুলাটা বিলবুডের বিল তুলিয়া পাঞ্জাবী আর লাচ্ছা সেমাই খরিদ করিবে, ঈদ করিবে, তার কুন সপ্নই পুরন হইল না। এই ঈদে তাকে নেংটা থাকতে হবে, ভুখা থাকতে হবে। পুলাটা আমার পথের ফকির হইল।

এ বেপারে বন মন্ত্রী হাছান মাহামুদের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি মুঠোফোনে মতিবেদককে বলেন, হাওয়া ভবন এ দেশে কমিশনের হার টেন পারসেন্ট ঠিক করেছে। সেই হিসাবে ঢাকার প্রতিটি বিলবুড বছরে সাড়ে ছয়ত্রিশ দিন আমাদের দখলে থাকার কথা। আর আমরা দখলে নিছি মাত্র সাড়ে তিন দিন হইল। এইটা বাকশালের ঈদি।

9 Comments to “বাকশালের বিলবুড দখল, পথের ফকির হলেন সাশাচুর”

  1. বেশির ভাগই বাটপার,চোর,অসভ্য।মুখের ভাষা দেখলে বোঝা যায় কোন নোংরা জায়গায় মানুষ হইছে।চুরি চোট্টামি ঘরে টাকার বাগান সরি খেত করছে, ল্যাপটপ-আইপ্যাড কিনেছে এখন Blog এ এসে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য যাচ্ছেতাই বলছে।

  2. চোদে? দেখলে দেকেন, না দেকলে ছলে যান।

  3. বুঝলাম এই দেশে গরীবরাও ফেসবুক use করে, তাই তো গরীবের বন্ধু অহন ফেসবুকে…………

  4. উনি গরীরের রানী সিনেমার নায়ক গরীব,তার বন্ধু,নাকি সাশাচুরের বন্ধু?আসলেই চোদে,তাই এবা করে

  5. গরিবের বন্ধু,

    নেট চালানি বন্ধ কইরা সেই ট্যাকা বাচাইয়া ওগুলা দিয়া গরিবগোরে হেল্প করেন। এইখানে বুদ্ধিবেশ্যাগিরি চোদাইতে আইসেন না।

  6. ঐ কে আসস গরিবের বন্ধুরে সাকার সেলে দিয়া আয়, ওর ঐ ডা কম হইছে, আর এক বস্তা বালু দিয়া আসিস কেউ, সাকা মেশিনে লাগায়া ওরে করব।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: