চাকরি ছাড়িয়া দিব: মজিনা ফায়ারফক্স

কূটনৈতিক মতিবেদক

রাস্ট্র দুতের চাকরি হতে ইস্তফা দেওয়ার অভিলাশ বেক্ত করেছেন মার্কিন যুক্ত রাস্ট্রের রাস্ট্র দুত ও ‘সোনার বাংলা আন্দলন’ এর প্রবক্তা মজিনা ফায়ারফক্স।

আজ নিজ কার্যালয়ে আয়জিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিলাশ বেক্ত করেন মজিনা।

মজিনা ফায়ারফক্স বলেন, সোনার বাংলাকে ভালবেসে আমি এ চাকরি লইয়াছিলাম। সেই ১৯৯৮ সালে যখন বাকশাল ক্ষমতায় ছিল, তখন আমি সোনার বাংলায় মার্কিন দুতাবাসে আরও ছুট পদে চাকরি লইয়া আসছিলাম। তখনই আমি এই দেশের প্রেমে পড়ি। এ দেশ সোনার দেশ। পকেটে কিছু টেকাটুকা আর লাইন ঘাট চিনা থাকলে এ দেশে কুটি কুটি টেকা বানান কুন বেপারই নহে। আমি বাকশালের সেই আমলে শেয়ার বেবসায় টেকা খাটাইয়া দুটু লাভের মুখ দেখছিলাম। এ ছাড়া ভিওআইপি বেবসা, লঞ্চ বেবসা ও ইটের ভাটাতেও কিছু বিনিয়গ করছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ বেবসা ভালই চলতেছিল।

আবেগঘন কণ্ঠে মজিনা বলেন, কিন্তু গরীবের ললাট, রসময় গুপ্ত লিখিত গ্রন্থের মলাট। তার উপর লালকালিতে শুধু লিখা থাকে ‘মাধ্যমিক সমাজ বিজ্ঞান’। আর লিখা থাকে লাঞ্ছনা বঞ্ছনা গঞ্জনা। আমৃকায় সরকার পাল্টাইল, এই দেশেও সরকার পাল্টাইল। বুশ ছারের নতুন সরকার আমায় এংগলায় বদলি করিয়া দিল। আমি দরখাস্ত করিয়া বললাম, হুজুর আমায় বরখাস্ত করিয়া দিন কিন্তু বেংগলা ছাড়িয়া এংগলায় আমি যাব না। সোনার বাংলায় আমি দুটু লাভের মুখ দেখতে দেখতে মরতে চাই। এংগলায় না আছে শেয়ার বাজার, না আছে ইটের ভাটা। বসেরা আমার কথা শুনলেন না, দিলেন বদলি করিয়া। সোনার বাংলা ছাড়িয়া আমি সুদুর আফৃকার সেনা বাহিনী শাসিত দেশ এংগলায় গেলাম রাস্ট্র দুতের চাকরি লয়ে।

এই চাকরিতে আর নহে: ফায়ারফক্স

কাদতে কাদতে মজিনা বলেন, তারপর কয়েকটি বতসর গেল শুধু চুখের পানিতে বুক ভিজাইয়া। এংগলায় চষুট্টি জিলায় খালি বম ফুটে। আর বেংগলায় তখন ইউনূস বাবুনগরীর জাদুতে খালি শান্তি ও সমৃদ্ধি। শেয়ার বাজার রমরমা। ইটের ভাটায় কুটি কুটি ইট। আমি আবার বসদিগের নিকট দরখাস্ত মারিয়া বললাম, ফিরিয়ে দাও আমার এ প্রেম তুমি এ ভাবে কেড়ে নিও না। তখন তারা আমায় পুনরায় সোনার বাংলায় বদলি করিয়া দিল।

দির্ঘশাস তেগ করে মজিনা ফায়ারফক্স বলেন, পয়লা পরথম ভালই কাটতেছিল দিন। কিন্তু যতই নির্বাচন আর যুদ্ধাপরাধী গনের ফাসি কাছাইয়া আসতেছে, ততই মুশকিল বিরিদ্ধি পাইতেছে। বাকশালের নেতা, বৃহত্তর জামায়াতের নেতা, জামায়াতের বিএনপি শাখার নেতা, পল্লীবন্ধু এরশাদ, নোবেল বিজয়ী ইউনূস, নাইট পদবীর আবেদ, ইভা রহমান, আবদুল জলিল অনন্ত, ‘কানাবাবা’ শুভ্র, সকলেই নানা আবদার নানা বিচার আচার লইয়া আমায় পেরেশানী দিতেছে। শান্তি মত রাত্র কালে দুইটা ভাত ডাইল দিয়া খাইতে পারি না। সৈয়দ আশরাফ আসিয়া বলে, এক গ্লাশ জেক ডেনিয়েল দেও। ফখা ইবনে চখা আসিয়া বলে, এক গ্লাশ কমপ্লান দেও। রাজ্জাক বেরিষ্টার আসিয়া বলে, এক গ্লাশ রক্ত দেও। খালি দেও দেও দেও। রাত্র কালে এস এম এস পাঠাইয়া গ্রামীন ফুন বিরক্ত করে। মাঝে মাঝে গভীর রাত্রে মিস কলে কে এক বেটাছেলে খালি চু চু করিয়া চুমার আওয়াজ দিয়া বলে, মজিনা ও মাই ডালিং।

চিতকার করে কেদে উঠে মজিনা ফায়ারফক্স বলেন, এই চাকরিতে আর না। আমৃকা ফিরিয়া যাব, পিজ্জার দুকান দিব।

9 Comments to “চাকরি ছাড়িয়া দিব: মজিনা ফায়ারফক্স”

  1. মাঝে মাঝে গভীর রাত্রে মিস কলে কে এক বেটাছেলে খালি চু চু করিয়া চুমার আওয়াজ দিয়া বলে, মজিনা ও মাই ডালিং। <v

  2. গরীবের ললাট, রসময় গুপ্ত লিখিত গ্রন্থের মলাট! 😛

  3. মাঝে মাঝে গভীর রাত্রে মিস কলে কে এক বেটাছেলে খালি চু চু করিয়া চুমার আওয়াজ দিয়া বলে, মজিনা ও মাই ডালিং।
    বুদ্ধিদীপ্ত আর বিনোদনে ভরা অসাধারণ লিখা। লেখককে অভিনন্দন আর Respect ।

  4. হাহা! হাসতে হাসতে জান শেষ!

    মতি ইউ রক্স ♦

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: