Archive for November 9th, 2013

November 9, 2013

ইউনূসকে ‘অর্থনীতীর সানি লিওনি’ উপাধি দিলেন মালয়েশিয়ার প্রধান মন্ত্রী

অর্থনীতী মতিবেদক

সদ্য গঠিত রাজনৈতিক দল বাবুনাগরিক শক্তির প্রতিষ্ঠাতা আমীর, বাংলাদেশের একমাত্র নোবেল বিজয়ী অর্থনীতীবীদ ও গ্রামীন বেংকের বিতাড়িত মালিক কায়েদে নোবেল ড. মুহম্মদ ইউনূস বাবুনগরীর ভুয়সী প্রসংশা করে মালয়েশিয়ার প্রধান মন্ত্রী নাজেব রাজ্জাক বলেছেন, আই এম এ গ্রেট ফেন অব ইউনূস বাবুনগরী। হি ইজ দি সানি লিওনি অফ ইকনমি।

মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে তিন দিন বেপী বিশ্ব সামাজিক বেবসা সামিটে দ্বীতিয় দিনের শেষে বক্তিতায় নাজেব রাজ্জাক এ কথা বলেন।

নাজেব রাজ্জাক বলেন, কায়েদে নোবেল ইউনূস বাবুনগরীর সংগে মালয়েশিয়ার সম্পর্ক হাজার হাজার বছরের। ইউনূস বাবুনগরী ঐতিহ্যবাহী রোহিংগা রাজ বংশ বাবুনগরী বংশের বর্তমান প্রধান পুরুষ। এই রাজ বংশের একটি অংশই আজি হতে শত বর্ষ পুর্বে মালয়েশিয়ায় আস্তানা গাড়িয়াছিল। কালের স্রোতে আজ আমরা দুই জন দুই দেশের নাগরিক হলেও মুলত আমরা কুটুম্ব।

আবেগঘন কণ্ঠে নাজেব রাজ্জাক বলেন, পুজিবাদী সমাজ বেবস্থা আমাদিগের বারটা বাজাইতেছে। আর এই বেবস্থা হতে উত্তরনের একমাত্র হাতিয়ার ইউনূস বাবুনগরীর সামাজিক বেবসা। ইহা ছাড়া আমি আর কুন উপায় দেখতেছি না।


‘অর্থনীতীর সানি লিওনির’ সংগে নাজেব রাজ্জাক

বাবুনগরীকে ‘অর্থনীতীর সানি লিওনি’ খেতাবে ভুষিত করে নাজেব রাজ্জাক বলেন, আজ আমি মুক্ত কণ্ঠে বলতে চাই, বাবুনগরী বিশ্ব অর্থনীতীর সানি লিওনি।

এই খেতাব দেওয়া মাত্র কনভেনশন সেন্টারের সকল অংশ গ্রহন কারী উল্লাসে ফেটে পড়ে এবং দাড়িয়ে করতালি জানিয়ে অর্থনীতীর সানি লিওনি ইউনূস বাবুনগরীকে সম্মান জানায়।

নাজেব রাজ্জাক এই খেতাবের তাতপর্য বেখ্যা করে বলেন, সানি লিওনি কেমেরার সম্মুখে কিছু কার্য কলাপ করে, যা দেখিয়া সারা বিশ্বের কুটি কুটি নারী পুরুষ হস্তসুখনের আনন্দ লাভ করতে পারে। এই বেবস্থায় কার্য কলাপের মজা পায় সানি লিওনি ও তাহার ভাগ্যবান ভাগ্যবতী পাটনার সমুহ, কিন্তু হাতের মজা পায় সারা দুনিয়ার লোক। এই বেবস্থায় নাম ফাটে সানি লিওনির, আর টেকাটুকা খরচ হয় সারা দুনিয়ার মানুষের। এই বেবস্থায় পুরস্কার পায় সানি লিওনি, আর তা দেখিয়া হাততালি দেয় সারা দুনিয়ার লোক। এই বেবস্থায় লাভের লাভ একমাত্র সানি লিওনির পকেটেই ঢুকে, কিন্তু আনন্দ পায় সারা দুনিয়ার পুরুষ ও রমনী।

কায়েদে নোবেলকে ‘অর্থনীতীর সানি লিওনি’ খেতাবে ভুষিত করে রাজ্জাক বলেন, বাবুনগরীর বেবসার শিশ্টেমটিও সানি লিওনির অনুরুপ। তার বেবসায় সব মজা পান তিনি ও তার বেবসার পাটনার টেলিনর, আর হাতের মজা নেয় বাংলাদেশের লোক। নাম ফাটে উনার, কিন্তু টেকাটুকা খরচ হয় মানুষের। পুরস্কার পান উনি, আর তা দেখিয়া তালি দিয়া হাত বেথা করে জনগন। তাই ড. বাবুনগরীকে ‘অর্থনীতীর সানি লিওনি’ না বলাই অন্যায় হবে।

নাজেব রাজ্জাককে ধন্যবাদ জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে কায়েদে নোবেল বলেন, নাজেবের পিতা প্রধান মন্ত্রী টুন আবদুল রাজ্জাক আমার ফেন ছিল। নাজেবও আমার ফেন। আমি কামনা করি নাজেবের পুত্রও যেন মালয়েশিয়ার প্রধান মন্ত্রী ও আমার ফেন হওয়ার বরকত লাভ করে।

November 9, 2013

‘অসুস্থ’ এম কে আনোয়ারের গ্রেফতারে আনন্দ মিছিল

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নায়েবে আমীর মুবাইলে কুকাম আনোয়ার ওরফে মতি কণ্ঠ আনোয়ার ওরফে এম কে আনোয়ারের গ্রেফতারের সংবাদে উল্লাস প্রকাশ করে আনন্দ মিছিল করেছেন জাতীয়তাবাদী গৃহিনী দলের নেতা কর্মী গন।

শনিবার বিকালে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে তারা আনন্দ মিছিল করে পরস্পরকে মিস্টি খাওয়ান ও এম কে আনোয়ারের তিনটি কুখ্যেত আংগুলের কুশ পুত্তলিকা দাহ করেন।

আনন্দ মিছিল শেষে জাতীয়তাবাদী গৃহিনী দলের নেত্রী ও জয়নাল আবদিন ফারুকের হাতে নিগৃহীত শিউলি রহমত এক বক্তব্যে বলেন, মধ্যরাত্রের আতংক মুবাইলে কুকাম আনোয়ারকে ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করায় আমরা আনন্দিত।

শিউলি রহমত বলেন, আমরা বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার বিভিন্ন পাতিশাখার আমীরের ঘরনী। স্বামী সন্তান লয়ে আমরা সুখে দুঃখে সংসার করি। অবসরে টিভিতে হিন্দী সিরিয়াল দেখি, বাচ্চা কাচ্চাকে ইস্কুলে দিয়াসি নিয়াসি, বাজার করি, রান্না করি, টেলিফুনে ফেসবুকে কুটনামি করি, বিভিন্ন মার্কেটে কিনাকাটা ও খাওয়া দাওয়া করি। সারা দিন এইসব গৃহিনীর দায়ীত্ব পালনের পর মধ্য রাত্রে একটু নিদ্রার অধিকার আমাদের মানবাধিকার।


শিকারের সন্ধানে মুবাইলে কুকাম আনোয়ার

আবেগঘন কণ্ঠে শিউলি বলেন, কিন্তু মধ্যরাত্রির আতংক মুবাইলে কুকাম আনোয়ার আমাদের নিদ্রার মানবাধিকার নিয়মিত লংঘন করেন। তিনি আমাদের গৃহিনী দলের সদস্যদের নিয়মিত মুঠোফুনে কল দিয়া নংরা নংরা কথা বলেন। কখনও শুধান, তুমার জামাই তুমায় গতকাল কিরুপে লাগাইল? কখনও জানতে চান, আমাদের খসম আমাদের কুন অংগ প্রত্যংগে কামড় দিয়াছে। কখনও আবার আমাদের উপর উনার প্রবাদ প্রতিম কুখ্যেত তিনটি আংগুল প্রয়গ করতে চান।

এক পর্যায়ে কেদে ফেলে শিউলি রহমত বলেন, আমরা কাদতে আসিনি, মুবাইলে কুকাম আনোয়ারের ফাসির দাবী নিয়া এসেছি। এই আনোয়ারের নামের বৃদ্ধ জানোয়ারটিকে ফাসিকাষ্ঠে না চড়াইলে আমরা গৃহিনীরা গৃহযুদ্ধ ঘুষনা করব। জাতীয়তাবাদীদের ঘর করি বলিয়া কি আমাদের মানবাধিকার নাই?

মুবাইলে কুকাম আনোয়ারকে ‘অসুস্থ’ ও ‘রোগাক্রান্ত’ উল্লেখ করে গৃহিনী দলের অন্যান্য নেতৃ বৃন্দ বলেন, ডিবি পুলিশের অফিসে ডিমের পর ডিম দিয়া উহার অসুখ নিরাময় করতে হবে।

November 9, 2013

মনির মরলে আমরার কি: বাবুনগরী

নিজস্ব মতিবেদক

গাজীপুরের দরিদ্র ভেন চালক রমজান আলীর ১৪ বতসর বয়সী পুত্র মনির হোসেন ঘুমন্ত অবস্থায় বৃহত্তর জামায়াতের কেডারদিগের লাগান আগুনে দগ্ধ হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুবরন করায় সদ্য গঠিত রাজনৈতিক দল বাবুনাগরিক শক্তির আমীর, বাংলাদেশের একমাত্র নোবেল বিজয়ী অর্থনীতীবীদ ও গ্রামীন বেংকের বিতাড়িত মালিক কায়েদে নোবেল ড. মুহম্মদ ইউনূস বাবুনগরী বলেছেন, মনির মরলে আমরার কি?

শুক্রবার মালয়েশিয়ায় পাচ তারা হোটেলের আরাম দায়ক বিলাস বহুল কক্ষে আয়জিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন বাবুনগরী।

কায়েদে নোবেল বলেন, সরকার গ্রামীন বেংক আইন পাশ কইরালাইছে। এখন এইসব মনির ফনিরের মরার খবরের কুন বেইল নাই। যে যেখানে আছ ঘরে ঘরে দুর্গু গড়ে তুল। যাহারা গ্রামীন বেংক আইন বাতিল করিয়া গ্রামীন বেংককে পুনরায় আমার হস্তে তুলিয়া দিবে, তাদের ভুট দিতে হবে। তাদের হাতে একশ দুইশ মনির পুড়িয়া মরলেও সমস্যা নাই, দেশে আরও কুটি কুটি মনির আছে।

আবেগঘন কণ্ঠে বাবুনগরী বলেন, দেশের গরীবের এক মাত্র ভরসা গ্রামীন বেংক। গ্রামীন বেংক না বাচলে ৮৪ লক্ষ গরীব নারী বাচবে না। এইসব মনিরের পিছে টাইম নস্ট না করিয়া আস বাকশালকে গদি হতে টানিয়া নামাই।

মনির গ্রামীন বেংকের গ্রাহক ছিল না জানিয়ে ইউনূস বলেন, হরতালের কালে তুই বেটা ভেনগাড়িতে শুইয়া ঘুমাইতেছিলি কেন? আর তুই বেটা গাজীপুরের গ্রামের পুলা কুন দুঃখে হরতালের কালে শহরে ঘুরতে আইছিলি? হরতালে যখন খোদ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর রাস্তায় বাইর হওয়ার সাহস না পাইয়া বিএনপি শাখার কার্যালয়ের কেচি গেটে তালা মারিয়া টেলিভিশনে উত্তম সুচিত্রার চলচিত্র অবলোকন করে, তুই কুন সাহসে ভেনগাড়িতে ঘুমাইতে গেলি?

মনির গ্রামীন বেংকের গ্রাহক না হওয়ায় অনেক ঝামেলা থেকে বেচে যাওয়ার কথা জানিয়ে কায়েদে নোবেল বলেন, মনিরের বাচ্চা গ্রামীন বেংকের গ্রাহক হলে আমায় একশ একটা প্রশ্নের জবাব দিতে হত। এখন আর কুন ঝামেলা নাই। আমি মন খুলিয়া বৃহত্তর জামায়াতকে সাপট দিতে পারব।


ভুট দিন ভুট দিন

এক প্রশ্নের জবাবে বাবুনগরী বলেন, কল্যান পার্টির জেনারেল ইব্রাহীমের সংগে আমার ভাল দুস্তি বিদ্যমান। উহার সংগে বিজনেশ করার জন্য আমি গ্রামীন-কল্যান ফান্ড নামক একটি তহবিল গঠন করিয়াছিলাম। জেনারেল আমায় আজ মুঠোফুনে ওয়াদা করেছে, তাকে ভুট দিলে সে প্রধান মন্ত্রী হয়ে পয়লা পরথমই গ্রামীন বেংক আইন রদ করিয়া দেশের ৮৪ লক্ষ গরীবকে বাচাইবে।

গ্রামীন বেংক দারিদ্রতা দুর করে নোবেল পাওয়ার পরও কেন এর সকল গ্রাহক এখনও গরীব, এ প্রশ্নের কোন সরাসরি উত্তর না দিয়ে ইউনূস বলেন, আরে ভুটটা একবার ইব্রাহীমরে দিয়াই দেখ না। এত প্রশ্ন কর কেন? সব প্রশ্নের কি উত্তর হয়? রুহুল কবীর রিজভী কেন বাড়ি ফেলিয়া মিছামিছি বিএনপি কার্যালয়ে রাত কাটায়? বেবী গাণ্ডে কেন গানের মাঝখানে শিবিরের বেনারের প্রসংশা করে? মুবাইলে কুকাম আনোয়ার ওরফে এম কে আনোয়ার কেন পরস্ত্রীকে তিন আংগুল দিতে চায়? সব কেনর কি জবাব হয় রে দুস্টু?

%d bloggers like this: