হরতাল দিলে পানি বন্ধ

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর হরতালের বিরুদ্ধে পানিকে অস্ত্র হিসাবে বেবহার করছে বাকশালী সরকার।

আজ বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার নয়া পল্টন কার্যালয়ে আয়জিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন বিএনপি শাখার নায়েবে আমীর ও বাকশালের উপদেস্টা গওহর রিজভীর সহোদর আল্লামা রুহুল কবীর রিজভী।

রিজভী বলেন, আমরা চার দিনের হরতালের ডাক দিয়াছি। এই চারদিন আমরা শান্তিপুর্ন ভাবে গাড়ি পুড়াব, মনির পুড়াব, ককটেল মারব, বোমা মারব, পুলিশ কুপাব, চাক্কায় আগুন দিয়া রাস্তা অবরধ করব। অথচ এমন শান্তিপুর্ন কর্মসুচিতে বাকশালের ফেসিবাদী পুলিশ বাধা দিতেছে। তারা উকিলে আমীর মওদুদ, উকিলে আমীর রফিকুল, আংগুলে আমীর আনোয়ার, খাজায়ে আমীর মিন্টু ও খাদেমে আমীর শিমুল বিশ্বাসকে গ্রেফতার করিয়া জেলে ঢুকাইছে।

আবেগঘন কণ্ঠে রিজভী বলেন, চট্টগ্রামে বোমা বানাইতে গিয়া মুফতি ইজাহারের মাদ্রাসা উড়াইয়া দিছে আমাদের মাদ্রাসা শাখার কচি বোমারুরা। ঢাকায় পকেটে বোমা বহন করতে গিয়া আহত হইছে আমাদের বোমারু আনোয়ার। চট্টগ্রামে বোমা বানাইতে গিয়া হাত হারাইছে আমাদের বোমারু শাহাবুদ্দি। এ সবই বাকশালী ষড়যন্ত্র। অতীতে আমরা আর্জেস গ্রেনেড পর্যন্ত ফুটাইছি, আমাদের নিজেদের কেউ আহত নিহত হয় নাই। আর এই বাকশাল সরকারের আমলে আমরা শান্তিপুর্ন ভাবে দুটু বোমা পযন্ত বানানর মানবাধিকার হারাইছি। এতেই বুঝা যায় দেশে কুন গনতন্ত্র নাই।

কাদতে কাদতে আল্লামা রিজভী বলেন, এ সবই মেনে নেওয়া যাইত। কিন্তু হরতালের আহোভান করে আমাদের মেডাম শান্তিপুর্নভাবে বাসায় চারটি দিন কাটানর সুযুগও পাইতেছেন না। ইবলিছ বাকশাল তার বাড়ির পানি বন্ধ করিয়া দিছে। পানির অপর নাম জীবন। বাকশাল মেডামের জীবনের উপর হামলা করেছে।

সরকারের প্রতি তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে রিজভী বলেন, আমরা বিএনপি শাখার নায়েবে আমীরবৃন্দ হরতাল ডাকিয়া নিরিবিলি টেলিভিশন দেখি, পতৃকা পড়ি, টেলিফুনে জাতীয়তাবাদী গৃহিনী দলের নারীদিগের সংগে রসের আলাপন করি। রাস্তাঘাটে যা বোমাবাজি জ্বালাও পোড়াও হয়, তা ত আমরা করি না। সরকার কেন আমাদের বাড়ির পানির লাইন কাটিয়া দিল? হরতালে জনজীবন কঠিন হবে, আমাদিগের জীবন কঠিন হবে কেন?

এভাবে পানির লাইন কেটে দিলে ভবিষ্যতে হরতাল ঘোষনা অসম্ভব হয়ে পড়ার সম্ভাবনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে রিজভী বলেন, পানি বন্ধ করে দিলে হরতাল চালান সম্ভব নাও হতে পারে। জেলখানায় পাঠাইলে ডিভিশন লইয়া অন্তত খাওয়া পরা পানির চিন্তা করতে হয় না। কিন্তু হরতালে নিজের বাড়িতে বসিয়া যদি দুদন্ড শান্তির পর পাক সাফ হওয়ার জন্য পানি পাওয়া না যায়, রাজনীতী কঠিন হয়ে উঠতে পারে।

বাকশালকে অভিশাপ দিয়ে রিজভী বলেন, ইউ মেক পলিটিকস ডিফিকাল্ট ফর পলিটিশিয়ানস।

এ বেপারে তাতক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় বাকশালের উপদেস্টা ও রুহুল কবীর রিজভীর বড় ভাই গওহর রিজভী বলেন, রুহুল কবীর রিজভী কুরবানীর ঈদে একটি নধর চকচকা ভারতীয় হিন্দু গরু কুরবানী দিয়াছে। আমার বাড়িতে একটা টুকরা গুস্ত পাঠায় নাই। এখন যদি সে কুন কারনে অপরিস্কার অবস্থায় আমার বাড়িতে পানির সন্ধানে আসে, আমি তাকে দারওয়ান দিয়া ঘাড়ধাক্কা দিতে বাধ্য হব।

9 Comments to “হরতাল দিলে পানি বন্ধ”

  1. বাকশালকে অভিশাপ দিয়ে রিজভী বলেন, ইউ মেক পলিটিকস ডিফিকাল্ট ফর পলিটিশিয়ানস।

  2. জটিল জটিল… 😀

    সরকারের প্রতি তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে রিজভী বলেন, আমরা বিএনপি শাখার নায়েবে আমীরবৃন্দ হরতাল ডাকিয়া নিরিবিলি টেলিভিশন দেখি, পতৃকা পড়ি, টেলিফুনে জাতীয়তাবাদী গৃহিনী দলের নারীদিগের সংগে রসের আলাপন করি। রাস্তাঘাটে যা বোমাবাজি জ্বালাও পোড়াও হয়, তা ত আমরা করি না। সরকার কেন আমাদের বাড়ির পানির লাইন কাটিয়া দিল? হরতালে জনজীবন কঠিন হবে, আমাদিগের জীবন কঠিন হবে কেন?

    এ বেপারে তাতক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় বাকশালের উপদেস্টা ও রুহুল কবীর রিজভীর বড় ভাই গওহর রিজভী বলেন, রুহুল কবীর রিজভী কুরবানীর ঈদে একটি নধর চকচকা ভারতীয় হিন্দু গরু কুরবানী দিয়াছে। আমার বাড়িতে একটা টুকরা গুস্ত পাঠায় নাই। এখন যদি সে কুন কারনে অপরিস্কার অবস্থায় আমার বাড়িতে পানির সন্ধানে আসে, আমি তাকে দারওয়ান দিয়া ঘাড়ধাক্কা দিতে বাধ্য হব।

  3. এটা কি নিউজ পেপার? নাকি ভুয়া প্রপাগান্ডা চালানর কারখানা? ভুয়া নিউজ দারা ভরা

    • স্যাটায়ার বোঝেন? মস্করা বোঝেন? ব্যাঙ্গাত্বক রচনা বোঝেন? মতিকন্ঠ সংবাদ জানার জন্য পড়ছেন? মতিকন্ঠ লেখকদের এই দুঃখে বনবাসে যাওয়া উচিৎ! 😀 😀

    • মাথার গোবর ঝেরে ফেলুন, সব এমনিতেই বুঝে যাবেন

    • Mone hocche apni Motikonthe notun…history check kore dekhen…

  4. মানে কইতাছেন ফরজ গোছলের পানিও পায়নাই। কেউ আমারে মাইরালা। লেখকের উপর ঠাডা পরবো। 🙂

  5. উকিলে আমীর মওদুদ, উকিলে আমীর রফিকুল, আংগুলে আমীর আনোয়ার, খাজায়ে আমীর মিন্টু ও খাদেমে আমীর শিমুল বিশ্বাস

  6. আবেগঘন কণ্ঠে রিজভী বলেন, চট্টগ্রামে বোমা বানাইতে গিয়া মুফতি ইজাহারের মাদ্রাসা উড়াইয়া দিছে আমাদের মাদ্রাসা শাখার কচি বোমারুরা। ঢাকায় পকেটে বোমা বহন করতে গিয়া আহত হইছে আমাদের বোমারু আনোয়ার। চট্টগ্রামে বোমা বানাইতে গিয়া হাত হারাইছে আমাদের বোমারু শাহাবুদ্দি। এ সবই বাকশালী ষড়যন্ত্র। অতীতে আমরা আর্জেস গ্রেনেড পর্যন্ত ফুটাইছি, আমাদের নিজেদের কেউ আহত নিহত হয় নাই। আর এই বাকশাল সরকারের আমলে আমরা শান্তিপুর্ন ভাবে দুটু বোমা পযন্ত বানানর মানবাধিকার হারাইছি। এতেই বুঝা যায় দেশে কুন গনতন্ত্র নাই।
    ওস্তাদ চোউখে আঙ্গুল ভি ঢুকাইয়া, আসল কথা কইছেন। চরম চরম

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: