Archive for November 17th, 2013

November 17, 2013

রায়ে ক্ষুব্ধ ইউনূস

নিজস্ব মতিবেদক

নিম্ন আদালতের রায়ে টেকা পাচারের মামলায় বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী বড় গনতন্ত্র তরুন নেতৃত্ব চিকিতসাধীন পলাতক তারেক জিয়া বেকসুর খালাস পাওয়ায় এবং সাগরেদে আমীর বিশিষ্ঠ বেবসায়ী গিয়াস আল মামুনের সাত বতসর কারাদন্ড ও ৪০ কুটি টেকা জরিমানা হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সদ্য গঠিত রাজনৈতিক দল বাবুনাগরিক শক্তির আমীর, বাংলাদেশের একমাত্র নোবেল বিজয়ী অর্থনীতীবীদ ও গ্রামীন বেংকের বিতাড়িত মালিক ‘অর্থনীতীর সানি লিওনি’ কায়েদে নোবেল ড. মুহম্মদ ইউনূস বাবুনগরী।

আজ মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের সহকারী পর রাস্ট্রমন্ত্রী নিশা দিশাই বিষওয়ালীর সংগে বৈঠক শেষে এক তাতক্ষনিক সংবাদ সম্মেলনে এ ক্ষোভ প্রকাশ করেন কায়েদে নোবেল।

বাবুনগরী বলেন, বাকশালী সরকারের আমীর শেখের বেটী শেখ হাসিনা আমায় ঘেটী ধরিয়া গ্রামীন বেংকের আমীরের গদি হতে বিতাড়ন করল। আমি গেলাম আমার দুস্ত কামাল হোসেনের নিকটে। কামাল বলল দুস্ত চল মামলা করি। মামলা করলাম। সে মামলা নিম্ন আদালত মধ্য আদালত উচ্চ আদালত হইয়া শেষ পযন্ত খারিজ হল। আমার কুন কসুর ছিল না। বেকসুর আমাকে শেখের বেটী গ্রামীন বেংক হতে খালাস করিয়া দিল। কুন আইন, কুন আদালতই আমায় গদি ফিরাইয়া দিল না।


রায়ে ক্ষুব্ধ কায়েদে নোবেল

আবেগঘন কণ্ঠে ইউনূস বলেন, আর যে মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট আমার নিকট হতে নোবেল পুরস্কারের গনিমত হতে টেন পারসেন্ট চান্দা বাবদ আদায় করিল, সে পায় বেকসুর খালাস।

অশ্রু মুছে কায়েদে নোবেল বলেন, এই দেশের আইন আদালত রাজনীতীবীদকে ছাড়িয়া দেয়, আর বেবসায়ীকে ধরিয়া জেল জরিমানা করে। আগে জানলে বেবসায় না ঢুকিয়া রাজনীতীতে ঢুকতাম। নিজে গ্রামীন বেংকের আমীর না হইয়া গিয়াস আল মামুনকে আমীর বানাইতাম। বিপদ আপদ দেখিলে লনডনে চিকিতসা করাইতে চলিয়া যাইতাম। জীবন হত মধুময়।

এই রায়ের পিছনে মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের সহকারী দীপু মনি নিশা দিশাই বিষওয়ালীর কোন ভুমিকা আছে কিনা, এমন প্রশ্নের কোন সরাসরি উত্তর না দিয়ে বাবুনগরী বলেন, আমার মামলার সময় কুন সালা ঘোচুই আইল না।

November 17, 2013

দুই নেত্রী এক টেবিলে

নিজস্ব মতিবেদক

বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানের বেবসায় কমিশন হিসাবে কুটি কুটি টেকা খাওয়া ও সেই টেকা সিংগাপুরে পাচারের মামলায় বন্ধু গিয়াস আল মামুন সাত বতসরের কারাদন্ড ও ৪০ কুটি টেকা অর্থদন্ড ভোগ করলেও বেকসুর খালাস পেয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী বড় গনতন্ত্র তরুন নেতৃত্ব চিকিতসাধীন পলাতক তারেক জিয়া।

আর এই রায় দুই নেত্রীকে এক টেবিলে নিয়ে আসবে বলে আশাবাদ বেক্ত করেছেন দেশের বাবুনাগরিক বৃন্দ।


ককটেল সংগ্রহ করছেন বিক্ষুব্ধ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী বৃন্দ

আজ ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ মো. মোতাহার হোসেন এই রায় ঘোষনার সংগে সংগে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন বিএনপি শাখাপন্থী আইনজীবীরা। তারা আদালতের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে দিতে আদালত ভবন তেগ করেন ও আদালত প্রাংগনে বিএনপি শাখার ককটেল কর্মীদের নিকট হতে ককটেল সংগ্রহ করেন।

এ সময় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক জাতীয়তাবাদী আইনজীবী বলেন, এই প্রহসনের রায় মানি না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জনৈক জেষ্ঠ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী মতিকণ্ঠকে মুঠোফোনে বলেন, আমরাও তারেক জিয়ার বিচার চাই। কিন্তু সে বিচার হতে হবে স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ও আন্তর্জাতিক মানের। ক্ষমতায় গেলে আমরা প্রকৃত টেকা পাচারের বিচার করব।

রায়ের প্রতিক্রিয়া উপমহাদেশের প্রখ্যেত ইতিহাসবীদ, কলামিষ্ট ও গান্ধীবাদী আন্দলনের অগ্র সেনানী সৈয়দ আবুল মকসুদ মতিকণ্ঠকে বলেন, এই রায়ের মাধ্যমে দুই নেত্রীর এক টেবিলে আসার পথ সুগম হল। এ রায়ের মাধ্যমে প্রমানিত হল যে সবার উপরে ফেমিলি। পরিবারের সদস্য গন ক্ষমতায় থাকলে মাঝে মধ্যে হাত ফসকাইয়া দুই চার হাজার কুটি টেকা এদিক সেদিক করেই। এগুনো নিয়া বেশী বাড়াবাড়ি করা ঠিক নহে।

বৃহত্তর জামায়াতের গত দুই সপ্তাহের হরতালে বিপুল ধ্বংস যজ্ঞ ও মানুষ পুড়ানকে প্রজ্ঞা ময় কৌশল আখ্যা দিয়ে মকসুদ বলেন, কতিপয় মনির পুড়াইয়া বিএনপি শাখা বাকশালী সরকারকে সমঝতার সঠিক বার্তাটি দিতে পারছে।


বেকসুর খালাসের রায়ের সংবাদে উদ্দাম ভাংরা নৃত্যে মেতে উঠলেন চিকিতসাধীন বড় গনতন্ত্র

এদিকে মতিকণ্ঠের লনডন মতিনিধি জানান, তারেক জিয়ার ঘনিস্ঠ সুত্র মতে জানা গেছে, রায়ের সংবাদ পেয়ে আনন্দে ভাংরা নৃত্যে মেতে উঠেন গুরুতর অসুখের চিকিতসায় লনডনে অবস্থান কারী তারেক জিয়া।

রায়ের প্রতিক্রিয়া জানতে গিয়াস আল মামুনের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সাত বতসর জেল আর চল্লিশ কুটি টেকা জরিমানাই ত করছে। অপমান ত করতে পারে নাই। আই এম হেপি।

চল্লিশ কুটি টেকা জরিমানা পরিশধ করতে পারবেন কিনা, এ প্রশ্নের জবাবে হাস্যজ্জল মামুন বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের উক্তি কুড করে বলতে চাই, মানি ইজ নট এ প্রবলেম।

November 17, 2013

এ রায়ে গনতন্ত্রের জয় হয়েছে

November 17, 2013

মোল্লারা পরগাছা হলেও গাছের নেয়

নিজস্ব মতিবেদক

হেফাজতে ইসলাম যশোর জেলা কমিটির সভাপতি আনোয়ারুল করিমের ছেলে, শহরের রেল গেট তেতুল তলা এলাকার সমকওমী মাদ্রাসা ‘মাদ্রাসাতুল হাসান’ এর ভার প্রাপ্ত অধ্যক্ষ আহমেদ হাসানকে ইহকালে আখেরাতী সেবা গ্রহনের দায়ে গ্রেপতার করা হয়েছে। গত আড়াই মাস বেপী মাদ্রাসার দশ বছর বয়সী শিশুকে গেলমানবৎ জ্ঞান করে তিনি তার কাছ থেকে জোর পুর্বক নানাবিধ যৌন সেবা আদায় করে আসছিলেন।

গ্রেপতারের পরে এই ভার প্রাপ্ত বেক্তি তার অপরাধের ভার মাদ্রাসা ও এলাকার নামের উপরে নেস্ত করেন। তিনি বলেন, এমনিতেই মাদ্রাসাটা সমকওমী, তার উপরে তেতুল তলায় – এলাকার নাম শুনলেই ত তলা দিয়া লালাপাত ঘটে। তা ছাড়া আমাদের হেফাজতী লালেম লাল্লামা শফির তেতুল তত্ত সম্পর্কেও আপনারা অবহিত আছেন। আমাদের চখে আওরাতগনের পাশাপাশি শিশু-কিশররাও তেতুল তুল্য। ইহাদের সেবা গ্রহনে কুন অপরাধ নাই। কুরানের সুরা আত্ব তূরে বেহেশতের বর্ননায় বলা আছে, ‘সুরক্ষিত মোতিসদৃশ কিশোররা তাদের সেবায় ঘুরাফেরা করবে।’ আমি ত কিশরের সেবা গ্রহন করে ইহকালে আখেরাতী কর্মের রিহার্শাল দিয়াছি মাত্র। ইহাই কি আমার অপরাধ?

ডুকরে কেদে ওঠে চোখের অশ্রু মুছতে মুছতে তিনি বলেন, লোকজন মোল্লাদিগকে পরগাছা বলিয়া থাকে। কথাটায় ভ্রান্তি রহিয়াছে। আপনারা জানেন, গাছের প্রয়জন সালোক সংশ্লেষন। আমরা মোল্লাগন পরগাছা হইলেও অনেকটাই গাছের নেয়- আমাদের প্রয়জন বালক সংশ্লেষন।

%d bloggers like this: