দুই নেত্রী এক টেবিলে

নিজস্ব মতিবেদক

বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানের বেবসায় কমিশন হিসাবে কুটি কুটি টেকা খাওয়া ও সেই টেকা সিংগাপুরে পাচারের মামলায় বন্ধু গিয়াস আল মামুন সাত বতসরের কারাদন্ড ও ৪০ কুটি টেকা অর্থদন্ড ভোগ করলেও বেকসুর খালাস পেয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী বড় গনতন্ত্র তরুন নেতৃত্ব চিকিতসাধীন পলাতক তারেক জিয়া।

আর এই রায় দুই নেত্রীকে এক টেবিলে নিয়ে আসবে বলে আশাবাদ বেক্ত করেছেন দেশের বাবুনাগরিক বৃন্দ।


ককটেল সংগ্রহ করছেন বিক্ষুব্ধ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী বৃন্দ

আজ ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ মো. মোতাহার হোসেন এই রায় ঘোষনার সংগে সংগে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন বিএনপি শাখাপন্থী আইনজীবীরা। তারা আদালতের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে দিতে আদালত ভবন তেগ করেন ও আদালত প্রাংগনে বিএনপি শাখার ককটেল কর্মীদের নিকট হতে ককটেল সংগ্রহ করেন।

এ সময় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক জাতীয়তাবাদী আইনজীবী বলেন, এই প্রহসনের রায় মানি না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জনৈক জেষ্ঠ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী মতিকণ্ঠকে মুঠোফোনে বলেন, আমরাও তারেক জিয়ার বিচার চাই। কিন্তু সে বিচার হতে হবে স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ও আন্তর্জাতিক মানের। ক্ষমতায় গেলে আমরা প্রকৃত টেকা পাচারের বিচার করব।

রায়ের প্রতিক্রিয়া উপমহাদেশের প্রখ্যেত ইতিহাসবীদ, কলামিষ্ট ও গান্ধীবাদী আন্দলনের অগ্র সেনানী সৈয়দ আবুল মকসুদ মতিকণ্ঠকে বলেন, এই রায়ের মাধ্যমে দুই নেত্রীর এক টেবিলে আসার পথ সুগম হল। এ রায়ের মাধ্যমে প্রমানিত হল যে সবার উপরে ফেমিলি। পরিবারের সদস্য গন ক্ষমতায় থাকলে মাঝে মধ্যে হাত ফসকাইয়া দুই চার হাজার কুটি টেকা এদিক সেদিক করেই। এগুনো নিয়া বেশী বাড়াবাড়ি করা ঠিক নহে।

বৃহত্তর জামায়াতের গত দুই সপ্তাহের হরতালে বিপুল ধ্বংস যজ্ঞ ও মানুষ পুড়ানকে প্রজ্ঞা ময় কৌশল আখ্যা দিয়ে মকসুদ বলেন, কতিপয় মনির পুড়াইয়া বিএনপি শাখা বাকশালী সরকারকে সমঝতার সঠিক বার্তাটি দিতে পারছে।


বেকসুর খালাসের রায়ের সংবাদে উদ্দাম ভাংরা নৃত্যে মেতে উঠলেন চিকিতসাধীন বড় গনতন্ত্র

এদিকে মতিকণ্ঠের লনডন মতিনিধি জানান, তারেক জিয়ার ঘনিস্ঠ সুত্র মতে জানা গেছে, রায়ের সংবাদ পেয়ে আনন্দে ভাংরা নৃত্যে মেতে উঠেন গুরুতর অসুখের চিকিতসায় লনডনে অবস্থান কারী তারেক জিয়া।

রায়ের প্রতিক্রিয়া জানতে গিয়াস আল মামুনের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সাত বতসর জেল আর চল্লিশ কুটি টেকা জরিমানাই ত করছে। অপমান ত করতে পারে নাই। আই এম হেপি।

চল্লিশ কুটি টেকা জরিমানা পরিশধ করতে পারবেন কিনা, এ প্রশ্নের জবাবে হাস্যজ্জল মামুন বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের উক্তি কুড করে বলতে চাই, মানি ইজ নট এ প্রবলেম।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: