মুনতাসীর মামুনের প্রতি আমিষুলের ক্ষোভ

নিজস্ব মতিবেদক

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের নির্মম বলি ও একাত্তরের কসাই মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত কাদের মোল্লার লাশ আলাদা দাফন করতে বলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের অধ্যাপক মুনতাসীর মামুনের উপর নাখোশ হয়েছেন প্রভাবশালী এলাকা কারওয়ানবাজারের উপসর্দার ও আইভরী কোষ্ট ফিরত উপন্যাসিক আল্লামা আমিষুল হক।

আজ অধ্যাপক মামুনের বক্তব্য শেষ হওয়ার পর পর কারওয়ানবাজারে নিজ কার্যালয়ে এক তাতক্ষনিক সংবাদ সম্মেলনে এ নাখোশির কথা তুলে ধরেন আমিষুল।

আমিষুল হক বলেন, অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন একটি অভিশাপ। কাদের মোল্লাকে যখন ট্রাইবুনাল পনার বতসরের আরামদন্ড দিল, তখন আমি ভারতের জয়পুরে সাহিত্য উতসবে বিভিন্ন দেশের নারী উপন্যাসিকদের সংগে মধুর আলাপনে লিপ্ত। একটি নারী লেখককে নিরালায় পাইয়া চুপে চুপে তাকে যখন পটাইয়া বাগে আনিয়াছি, মাত্র চেইন খুলিয়াছি, তখন দেশ হতে এল মুঠোফুন কল। আমার বৃদ্ধ কবি বন্ধু নির্মলেন্দু গুন আমায় মুঠোফুন মেরে বলল, আমিষুল শুনছনি, কাদের মোল্লার পনার বতসরের আরামদন্ড হইয়াছে। আমি বললাম, গুন গুন গুন, যখনই বেস্ত থাকি কর কেন ফুন? নির্মলেন্দু গুন বলল, কুন কথা শুনব না শাহবাগে চলে আয়। আমি তখন মুঠোফুন সংযোগ কেটে দিলাম। নারী লেখকটি নিজেই আমার চেইন খুলিয়া ভিতর হতে এক কপি ফৃডমস মাদার বাইর করিয়া বলল, সব সময় সংগে ১০ কপি নিয়া নিয়া ঘুর?

আবেগঘন কণ্ঠে আমিষুল বলেন, এরপর যাহা ঘটল তাহা ইতিহাস। দেশে আসিয়াই গেলাম শাহবাগে। গিয়া দিন নাই রাত্র নাই রাস্তায় পড়িয়া রইলাম। স্লোগান দিলাম। কারওয়ানবাজার কার্যালয় হইতে মতিচুর ভাই অর্ডার দিয়া আমার জন্য একটি বান্দরের খাচা বানাইয়া পাঠাইলেন। টিভি কেমেরা দেখা মাত্র ঝাপাইয়া পড়িয়া ইন্টারভু দিতে লাগলাম। সেই সংগ্রাম, সেই তেগ, সেই তিতিক্ষার সময় মুনতাসীর মামুনরে শাহবাগে কুথাও দেখি নাই। সে তখন কুথায় ছিল?


হেলিকপ্টারে চড়ে কাদের মোল্লার কবরের জমি সন্ধানে আমিষুল

হুহু করে কেদে উঠে আমিষুল বলেন, কাদের মোল্লার ফাসি সে ত আমারই সংগ্রামে। অতএব কাদের মোল্লার লাশটি আমার নেয্য গনিমতের মাল। কুনমতেই উহা মুনতাসীর মামুনের নহে। মামুন অভিশাপটি বলে কি, কাদের মোল্লার লাশের উপর নাকি জামায়াত শিবির মাজার নির্মান করবে। আরে সালা ঘোচু, কাদের মোল্লার লাশের উপর মাজার নির্মান করব আমি আমিষুল। জামায়াত শিবিরকে কুন প্রকার চাঞ্চই দিব না।

অশ্রু মুছে আমিষুল হক বলেন, হাটহাজারী মাদ্রাসার আমীর আল্লামা রাজ শাহ আহমদ শফী আমার গুরু। তাই কিছু দিন পুর্বে আমি তার নেয় একটি হেলিকপ্টারে চড়িয়া আমার অংপুর অঞ্চলে উপযুক্ত মাদ্রাসার জমি সন্ধান করিতে গিয়াছিলাম। মাশাল্লাহ, জমি পাইয়া গেছি। আমার গ্রামের বাড়ির কাছেই এক একর মালাউনের জমি পাওয়া গেছে। আপাতত ঐ জমির বর্ডারেই কাদের মোল্লার দাফন দিব। পরবর্তীতে বৃহত্তর জামায়াত কিংবা তৃতীয় শক্তি ক্ষমতায় আসিলে মালাউনের পুরা একর বেদখল করিয়া মাজার তুলব। দুয়া কালাম যা জানি, খাদেম হিসাবে কাজ চালাইয়া নিতে পারব।

মুনতাসীর মামুনের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে আমিষুল বলেন, বেবসার পেটে লাথি মারবেন না জনাব। লাইনে আসুন। পু।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: