হাইকুটকে হাইকুট দেখাতে গিয়ে বিপদে মিজান

নিজস্ব মতিবেদক

আইন, আইন প্রনেতা, সংসদ সদস্য, রাজনীতীবীদ প্রভৃতির পর এই বার খোদ হাইকুটকে হাইকুট দেখাতে গিয়ে বিপদে পড়েছেন কারওয়ানবাজারের যুগ্ম সর্দার ও হিসাব বিজ্ঞানের মেধাবী ছাত্র সাংবাদিক মিজানুচ চটকান খান।

আজ মাননীয় হাইকুট মিজানুচ চটকান খানকে জবাবদিহী করার জন্য ডাক দিয়ে কাঠগড়ায় দাড় করিয়ে রাখেন।

কারওয়ানবাজারে প্রকাশিত একটি প্রবন্ধে হিসাব বিজ্ঞানের মেধাবী ছাত্র মিজানুচ লিখেন, হাইকুটে ঘন্টায় শত শত আগাম জামিন দেওয়া হয়। কেন দেওয়া হয়? নিশ্চয়ই হাইকুট মে কুছ কালা হায়।

এ ছাড়া জামিনকে ‘পুলিশের বিষয়’ হিসাবে উল্লেখ করে মিজানুচ চটকান খান বলেন, জামিন বিষয়ে টেকাটুকা যা খাওয়ার তা খাবে পুলিশ। হাইকুট কুন সাহসে এর মধ্যে বাম হাত ঢুকায়?

আজ হাইকুটের তলবে সাড়া দিয়ে মিজান হাজির হলে হাইকুটের পক্ষ নিয়ে বেরিষ্টার রকনুদ্দি মাহমুদ বলেন, ইয়রনার, এই মিজানকে আমি বেক্তিগত ভাবে চিনি। সে একটি অভিশাপ। সে হাইকুটকে হাইকুট দেখাইতে চায়। উহাকে ফাসি দিয়া দেন।

আবেগঘন কণ্ঠে বেরিষ্টার রকনুদ্দি বলেন, এই বেক্তি লিখাপড়া করিয়াছে হিসাব বিজ্ঞানে। কিন্তু সে আইন ও বিচার বেবস্থার পেন্ট খুলিতে সদা ততপর। কারওয়ানবাজারের সর্দার মতিচুর রহমান আজমীর অংগুলি হেলনে এই শালার পুত বড় বড় বেক্তিবর্গের উপর কলম সন্ত্রাস চালায়। এখন সকলের পুটু মারিয়া রক্তাক্ত করিবার পর তার লালচ পড়ছে হাইকুটের উপর।

কাঠগড়ায় উপস্থিত মিজানুচ চটকান খানকে উদ্দেশ করে এ সময় বেরিষ্টার রফিকুল হক চিতকার করে বলেন, দেশের সকল লো পুটু মারিয়া এখন তুই হাই পুটুর দিকে নজর দিয়াছিস বাশটাড। ইয়রনার উহাকে ফাসি দিয়া দেন।

বেরিষ্টার রফিকুল হক হাইকুটকে বলেন, ইয়রনার, এই হারামজাদা মিজান বলতে চায় সে আদালতের গুপন প্রতিবেদন দেখিয়া ফেলছে। আমার কথা হইল, কিছু কথা থাক না গুপন? আদালতের গুপন প্রতিবেদন দুই টেকার বেতন ভোগী মিজানের বাচ্চা কেমনে দেখতে পায়? এর পিছনে কুন বড় ষড়যন্ত্র আছে। শুধু মিজান নহে, মিজানের খালাত ভাই মতিচুর রহমান আজমীকেও ধরিয়া আনিয়া ফাসি দিন।

এ সময় মিজানুচ চটকান খানের আইনজীবী বেরিষ্টার শাহেদীন মালিক নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে গেলে বেরিষ্টার রকনুদ্দি মাহমুদ আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, অনাচার কর যদি, পুটুতে ঢুকাব গদি। হাইকুটে জুলুম পাপ, ক্ষমা চেয়ে নাহি মাফ। যারা তার ধামাধারী, তাদেরও বিপদ ভারি। নাই কুন পরিত্রান, ফাসিতে ঝুলাব তরে হারামজাদা মিজানুচ চটকান খান।

এ সময় হাইকুট বলেন, অর্ডার, অর্ডার।

2 Comments to “হাইকুটকে হাইকুট দেখাতে গিয়ে বিপদে মিজান”

  1. অনাচার কর যদি, পুটুতে ঢুকাব গদি। হাইকুটে জুলুম পাপ, ক্ষমা চেয়ে নাহি মাফ। যারা তার ধামাধারী, তাদেরও বিপদ ভারি। নাই কুন পরিত্রান, ফাসিতে ঝুলাব তরে হারামজাদা মিজানুচ চটকান খান। 😛

  2. পুটুতে দিলে বাঁশ, টের পাবে সর্বনাশ

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: