মরা একটি ফুলকে বাচাব বলে যুদ্ধ করি: নুর

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর তহবিল যোগান দাতা প্রতিষ্ঠান ইসলামী বেংকের নিকট হতে তিন কুটি টেকা নিয়ে বিপদে পড়েছে ফেসিবাদী বাকশালী সরকার।

কয়েকদিন আগে ইসলামী বেংকের আমীরের হাত হতে বাকশালের মহিলা আমীর প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী ভাষা কন্যা গনতন্ত্রের মানস কন্যা ড. শেখ হাসিনা একটি চেক গ্রহন করার পর সারা দেশে তিব্র ক্ষোভের সৃস্টি হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে আজ বাংলা একাডেমীতে এক অনুষ্ঠানে বাকশালের অতীতের শত্রু ও বর্তমানের চামচা জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, এই টেকা ভাংব আমি কেমন করে? এই টেকা ফিরাইয়া দিতে হবে। না দিলে আমি সৈয়দ আবুল মকসুদের নিকট কুচিং করিয়া আমরন অনশনে বসব।

ইনুর এ উক্তির প্রতিবাদে সচিবালয়ে আয়জিত এক তাতক্ষনিক সংবাদ সম্মেলনে সংস্কৃতি মন্ত্রী ও বাকশালের নায়েবে আমীর ছুটু মির্জা আসাদুজ্জামান নুর বলেন, ইনু একটি অভিশাপ। টেকা আমি কখনই ফিরাইয়া দিব না।

আবেগঘন কণ্ঠে আসাদুজ্জামান নুর বলেন, ইসলামী বেংকের হাত হতে চেক একবার আমরার হাতে চলিয়া আসলে সে টেকাকে ইসলামী বেংকের টেকা বলা যাবে না। এ টেকা এখন আমাদের টেকা। তবে আমরা এ টেকা জাতীয় সংগিতের পিছনে খরচ করব না। টি টুয়েন্টি কিংবা অন্য কুন তামাশার কাজে লাগাইয়া দিব। আপনারা কুন টেনশন লইবেন না।

হাসতে হাসতে নুর বলেন, ইসলামী বেংকে একাউন্ট ত আপনারাই খুলেন। আর আমরা মাঝে মধ্যে দুই তিন কুটি টেকা নিলে এত রাগারাগি করেন কেন?

ইসলামী বেংককে ফুলের সংগে তুলনা করে আসাদুজ্জামান নুর বলেন, গুবরে পদ্ম ফুল ফুটে, কিন্তু সে ফুলের মধু অতি মিঠা। বৃহত্তর জামাত এইখানে গুবর, ইসলামী বেংক এইখানে পদ্ম ফুল, আর তিন কুটি টেকা এইখানে মধু।

অশ্রু মুছে নুর বলেন, ইসলামী বেংকের নামে আর কুন অপবাদ দিলে একদম যুদ্ধ লাগাইয়া দিব কিন্তু। মরা একটি ফুলকে বাচাব বলে যুদ্ধ করি।

এ বেপারে ইসলামী বেংকের আমীর ইঞ্জিনিয়ার মস্তফার সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি হাসতে হাসতে বলেন, বাকশালের মহিলা আমীরের হাতে নিজের হাতে তিন কুটি টেকা তুলিয়া দিয়া আসছি। আর আজ তারা খাড়ার উপর ইনকার করে। আবার বলতেছে জাতীয় সংগিতে নয়, এই টেকা তারা টি টুয়েন্টিতে খরচ করবে। আমরার বক্তব্য হইল, আমরা এতদিন জাতীয় জংগিতে টেকাটুকা সাপ্লাই দিছি, অনেক বদনাম হইছে। এইবার তাই জাতীয় সংগিতে টেকাটুকা দিলাম, যাতে সুনাম হয়। টি টুয়েন্টিতে আমরার টেকা খরচ করতে হইলে টি টুয়েন্টির চিয়ার লিডার হিসাবে ইসলামী ছাত্রী সংস্থার ফ্লেশ মবকে বেবহার করতে হবে।

আবেগঘন কণ্ঠে মস্তফা বলেন, শহীদ পিছু দশ টেকা করে তিরিশ লক্ষ শহীদের জন্য তিন কুটি টেকা দিয়াছি। কামাল হোসেনের জামাতা ডেভিড বাগমেনকে আমরা নিয়গ দিয়াছিলাম, যাতে সে শহীদের সংখ্যা কমাইয়া তিন লক্ষে নামাইতে পারে। কিন্তু বাগমেন একটি অভিশাপ। তার কারনে আমাদের দশ গুন বেশী টেকা বাইর হইয়া গেল।

হাসতে হাসতে ইঞ্জিনিয়ার মস্তফা বলেন, মাত্র তিন কুটি টেকা দিয়া হাত ধুইয়া ফেলিলাম। এখন বাকশালের কেডাররাই আমাদের হইয়া তর্ক বিতর্ক করবে। ফেসবুকে দেখলাম বাকশালীরাই তর্ক করিয়া প্রমান করিতেছে যে আমাদের টেকা নিলে কুন সমস্যা নাই। উহাদের এত সস্তায় কামে লাগাইতে পারব, আগে বুঝি নাই।

2 Comments to “মরা একটি ফুলকে বাচাব বলে যুদ্ধ করি: নুর”

  1. নূর সাহেবে আর ড্রোন তুষারে পার্থক্য রইল কই?

  2. শেষ পর্যন্ত ঐ তিন কোটি টাকা কি কাজে ব্যয় হইয়া ছিল”? জাতি জানতে চায়”-বড়ই রহস্যময় ব্যাপার” 😦

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: