Archive for August, 2014

August 31, 2014

আলীমের মৃত্যুতে বিএনপি শাখায় শোকের ছায়া

নিজস্ব মতিবেদক

আজীবন আরামদণ্ড প্রাপ্ত একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী ও একাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়ার মন্ত্রী সভার সাবেক মন্ত্রী আব্দুল আলীমের মৃত্যুতে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখা জুড়ে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

আজ আলীমের মৃত্যু উপলক্ষে আয়জিত বিশেষ দুয়া মাহফিলে বিএনপি শাখার বিভিন্ন স্তরের নেতা কর্মীরা উপস্থিত হন।

বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’, লনডনে পলাতক চিকিতসাধীন আওলাদে আমীর বড় গুণ্ডে কতৃক ‘হাইড এন্ড সিক’ গালিতে ভুষিত ও ঈদুল কতলের টেলেন্ট হান্ট প্রতিযোগীতায় ‘ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি’ খেতাবে সমাদৃত মির্জা বাড়ির বড় গৌরব আল্লামা মির্জা ফখরুল ইসলাম আগুনগীর ওরফে ফখা ইবনে চখা আলীমের স্মৃতি চারন করে বলেন, আব্দুল আলীম আছিলেন বিএনপি শাখার সম্পদ। একাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়া উনাকে পরথমে বস্ত্র মন্ত্রী, পরে যোগাযোগ মন্ত্রী বানাইছিলেন। একাত্তর সালে উনি আরও দুই তিন হাজার মানুষ মারতে পারলে হয়ত আলীম চাচা প্রধান মন্ত্রী পদও পাইতেন। আপসুস, তার আগেই পাক বাহিনীর ভাইয়ারা আত্ম সমর্পন করিয়ালাইল।

আবেগঘন কণ্ঠে আগুনগীর বলেন, তিনি আছিলেন আমার পিতার বয়সী। আমার সংগে দেখা হইলেই আমার ওয়ালিদের খবর লইতেন। রসিকতা করিয়া বলতেন, আমি এক হাজার গাদ্দার মারছি। তুমার ওয়ালিদ কয় হাজার মারছে?


আলীমের মৃত্যুতে বেথিত মাদারে গনতন্ত্র

আব্দুল আলীমকে আজীবন আরামদণ্ড দেওয়ার জন্য বাকশালকে ধিক্কার জানিয়ে ফখা ইবনে চখা বলেন, আমরাও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই। কিন্তু সে বিচার হইতে হবে সচ্ছ নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক। বিচারের নামে আমরার পেহলে বস্ত্র মন্ত্রী বাদ মে যোগাযোগ মন্ত্রী ক আরামদণ্ড দেনা নাহি চলেগি। নাহয় আলীম চাচা যুদ্ধের সময় কিছু বাংগালী মারছে, তাই বলিয়া ইতনা জুলুম?

আব্দুল আলীমের সুযোগ্য পুত্র ফয়সল আলীমের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে মির্জা বাড়ির বড় গৌরব বলেন, নির্বাচনের আগে দিয়া যখন আমরা সারা দেশে মনির পুড়াইতেছিলাম আর রেল লাইন উপড়াইতেছিলাম, তখন ফয়সল আলীমও সেই জিহাদে গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা রাখছিল। আমরা আবার কুনদিন যদি গদিতে যাইবার পারি, ফয়সল আলীমকে বস্ত্র মন্ত্রী বানাব।

জীবনের শেষ দিনগুলিতে বাংলাদেশের দরিদ্র জনগনের খাজনার টেকায় আলীমের চিকিতসা করানর জন্য বাকশালকে ধন্যবাদ জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, কত মুক্তিযুদ্ধা চিকিতসার অভাবে আদাড়ে বাদাড়ে ধুকিয়া ধুকিয়া মরে। অতছ আমরার আলীম চাচারে বাকশাল সরকার ভিআইপি চিকিতসা দিয়াছে। তিনি পাদ মারিলেও তিন চারখান বড় বড় ডাক্তার আসিয়া পাদের ইনজেকশন দিয়া যাইত। এই প্রহসনের বিচারের মাধ্যমে সাস্থ্য খাতে আমাদিগের প্রচুর টেকা বাচিয়া যাইতেছে, যা দ্বারা আমরা উন্নত মানের বিষ্ফরক খরিদ করিয়া কুন এক ঈদের পর আন্দুলনে নামতে পারব।

August 30, 2014

তেগের মানসিকতা লইয়া রাজনীতী করুন: আব্বাস

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নেতা কর্মীদের ‘তেগের মানসিকতা’ নিয়ে রাজনীতী করার আহোভান জানিয়ে বিএনপি শাখার ঢাকা মহানগর উপশাখার আমীর ও ‘বংগ মলটভ’ খেতাবে ভুষিত মির্জা বাড়ির মেজ গৌরব মির্জা আব্বাস বলেছেন, তেগের মানসিকতা লইয়া রাজনীতী করুন। তেগেই সুখ।

শনিবার ঢাকা মহানগর উপশাখা আয়জিত এক আলচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহোভান জানান মির্জা আব্বাস।

অনুষ্ঠানে বংগ মলটভ বলেন, বিএনপি শাখা যখন পরথম গঠিত হইল, আমরা কেউ হালুয়া রুটির পরয়া করি নাই। সকলেই গেছিলাম তেগের আদর্শ বুকে লইয়া। অতছ আজ যখন দেখি, পাড়ায় পাড়ায় মহল্লায় মহল্লায় বিএনপি শাখার ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নায়েবগুলি কে কার আগে হালুয়া দিয়া রুটি খাইব, তার প্রতিযোগীতায় দিশাহারা, তখন কান্না পায়।

আবেগঘন কণ্ঠে মির্জা বাড়ির মেজ গৌরব বলেন, জেনারেল জিয়া ছিলেন একজন তেগী জেনারেল। একাত্তর সালে যখন পাক বাহিনী চট্টগ্রামে বাংগালী সেনাদের উপর হামলা চালাইল, একাত্তরের রেম্ব তখন তাদের মুকাবিলা না করিয়া অষ্টম ইষ্ট বেংগল লইয়া চুপচাপ কেন্টনমেন্ট তেগ করিয়া কালুরঘাট সেতুর পিছে গিয়া খাড়াইলেন। পিছনে হাজারের উপর নিরস্ত্র সৈনিক পাক বাহিনীর হামলায় শহীদ হইল। এমন তেগ কুন যুদ্ধে আর কেউ করছে?


তেগী আব্বাস

কর্নেল তাহেরের উদাহরন তুলে ধরে মির্জা আব্বাস বলেন, কর্নেল তাহের একাত্তরের রেম্বরে বন্দী দশা হইতে মুক্ত করছিল। কিন্তু জেনারেল জিয়া বতসর না ঘুরতেই কর্নেল তাহেরকে তেগ করিয়া তারে ফাসিতে ঝুলাইয়া দিলেন। এমন তেগ আর কেহ কি করছে?

বিকল্প ধারা বাংলাদেশের আমীর ও সাবেক রাস্ট্রপতি বদরুদ্দুজা চৌধুরীর কথা স্মরন করে মির্জা আব্বাস বলেন, বদরুদ্দুজাও ছিলেন একাত্তরের রেম্বর ঘনিষ্ট সহচর। অতছ বেয়াদ্দপী করার কারনে মাদারে গনতন্ত্র মেডাম খালেদা জিয়া জেএসসি উহাকে খাড়ার উপরে তেগ করিয়া দিলেন।

লনডনে পলাতক চিকিতসাধীন বড় গনতন্ত্র বড় গুণ্ডে তারেক জিয়ার কথা উল্লেখ করে বংগ মলটভ বলেন, আওলাদে আমীর ছয়টি বতসর হাওয়া ভবনের মাধ্যমে দেশটিকে লুটিয়া পুটিয়া খাইলেন। কিন্তু বিপদ যখন দেখা দিল, তখন রাজনীতী তেগ করার মুচলেকা দিয়া তিনি দেশ তেগ করলেন। এমন তেগ আর কুথায় কবে কে করিয়াছে?

গত ১৫ আগষ্ট বংগবন্ধু হত্যা উপলক্ষে বিএনপি শাখার বিশেষ উতসব ‘ঈদুল কতল’ আয়জনে নিম্ন মানের মাখনে প্রস্তুত কেক ভক্ষন করে বিএনপি শাখার ১৩ জন শহীদ কর্মীর রুহের মাগফিরাত কামনা করে মির্জা আব্বাস বলেন, জীবনে যে শেখরে চক্ষে দেখে নাই, সেও দেশের প্রত্যন্ত এলাকা হইতে মেডামের দরবারে কেক খাইতে ছুটিয়া আসিয়া জান তেগ করিল। ইহাকেই বলে তেগের নেয় তেগ।

বিএনপি শাখার স্বার্থে ঢাকা মহানগরী উপশাখার নায়েবে আমীর হাবু সোহেলকে কুরবানী করার জন্য প্রস্তুত থাকার কথা জানিয়ে আব্বাস বলেন, প্রয়জনে পৃথীবিতে আমার সর্বাপেক্ষা আদরের ধোন হাবু সোহেলকে তেগ করিয়ালাইব। ঐ রকম বড় তেগের জন্যও আমি প্রস্তুত আছি আলহামদুলিল্লাহ।

নেতা কর্মীদের ধৈর্য ধরার আহোভান জানিয়ে মির্জা বাড়ির মেজ গৌরব বলেন, বাকশাল ২১ বতসর গদির বাইরে আছিল। আমরা আছি মাত্র সাত বতসর। এখন তেগের রাস্তায় থাকতে হবে। আমার যদি কুনদিন গদিতে যাইবার পারি, ভুগ কারে কয় দেখবাইন।

August 28, 2014

বিনোদ খান্নাকে লক্ষ্য করে তুষারের কবিতা ‘ধোনুক হয়েছি আজ’

সাহিত্য মতিবেদক

প্রচলিত পথ পরিত্যেগ করে এবার বেটাছেলেদের লক্ষ্য করে প্রেমের কবিতা রচনা শুরু করেছেন খেতনামা ড্রন বিশেষজ্ঞ, মস্তফা অনুরাগী, কাপড় বেবসায়ী ও ইসলামী বেংকের সমঝদার হরলিকস পাগলা বিতর্ক রাজ ও আত্মস্বিকৃত ‘ফেসবুক গু-বাবা’ আল্লামা আবদুন নুর তুষার।

বুধবার তিনি গত শতাব্দীর হিট বলিউডি নায়ক বিনোদ খান্নাকে লক্ষ্য করে ‘ধোনুক হয়েছি আজ’ শিরনামে একটি জংগী প্রেমের কবিতা রচনা করেন।

এ বেপারে আল্লামা তুষারের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি নাম প্রকাশ না করার শর্তে মতিকণ্ঠকে বলেন, রমনীর মন জয় করার জন্য গত পঞ্চাশটি বতসর কবিতা রচনা করতেছি। কিন্তু ফয়দা পাইতেছি না। রমনীর মন, সহস্র বর্ষের সখা সাধনার ড্রন। আরও নয়শত পঞ্চাশ বতসর সাধনা করার ধৈর্য্য আমার নাই। তাই আমি আমার যৌবন কালের হিরু বিনোদ খান্নাকে ট্রাই করিয়া দেখতেছি। যদি লাইগা যায়। বিনোদ খান্নারেই আমার বিনোদন বানাইয়া লব।

আবেগঘন কণ্ঠে ফেসবুক গু-বাবা বলেন, ‘ধোনুক হয়েছি আজ’ কবিতাটি আমার অমর কাব্য গ্রন্থ ‘একলা খাব ডুবিয়ে নুলু’তে থাকবে।


তুষারের কবিতা পেয়ে আতংকে বিনোদ খান্না

তোমাকে দেখতে থাকি
তীরের নিশানায়
বিদ্ধ করব বলে ধোনুক হয়েছি আজ

তুমি জমি
সমুদ্র
পর্বত
দ্বীপ
আকাশ

তুমি কিছু নও
কেউ নও

শুধু
বিনোদ খান্না আমার।


বিনোদ খান্নার জন্য তুষার ধোনুক হয়েছেন

এ বেপারে বিনোদ খান্নার প্রতিক্রিয়া জানতে তার মুঠফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কাদতে কাদতে বলেন, ইস উমর মে হাম ইয়ে কেয়া চক্কর মে ফাস গয়া ভেইয়া?

August 25, 2014

আমার দলে আইস বন্দু বসতে দিব পিড়ে: এরশাদ

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখাকে বৃহত্তর জামায়াত হতে তালাক গ্রহন করে বৃহত্তর জাতীয় পার্টিতে যোগদানের আমন্ত্রন জানিয়ে সাবেক স্বৈরাচার রাস্ট্রপতি ও পল্লীবন্ধু ফাদার অফ কৃকেট আলহাজ্জ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, আমার দলে আইস বন্দু বসতে দিব পিড়ে।

আজ নিজ বাসভবনে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি শাখার প্রতি এ আহোভান জানান পল্লীবন্ধু।

সংবাদ সম্মেলনে পল্লীবন্ধু বলেন, একাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়া যখন বিএনপি শাখা গঠন করেন, আমি আছিলাম তার উপ। আমার চক্ষের সামনেই দেশের তরুন টাউট বাটপারদের লইয়া বিএনপি শাখা গঠিত হল। কিন্তু আজ পাইতিরিশ বতসর কাটিয়া গেল, সেই একই টাউট বাটপারদের লইয়াই বিএনপি শাখা চলতে আছে। অতীতের সেই তরুন টাউটের দল আজ সকলই বৃদ্ধ। তাদের মাজায় আর জুর নাই।

আবেগঘন কণ্ঠে এরশাদ বলেন, মাজায় জুর না থাকলে আন্দুলন হবে না।

এ সময় উপস্থিত সাংবাদিকদের মধ্যে গুঞ্জন উঠলে ফাদার অফ কৃকেট হাসতে হাসতে বলেন, আমার কথা বিশ্বাস না হইলে জিনাত মশাররফ আর নাশীদ কামালকে জিজ্ঞাসা করিয়া দেখ।


মাজার রাজা এরশাদ

বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসিকে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসাবে যোগদানের আমন্ত্রন জানিয়ে পল্লীবন্ধু বলেন, আপনার আদর যত্নের কুন ত্রুটি হবে না। আপনি চেয়ার পারসনের চেয়ারটি সংগে করিয়া আনিয়া আমাদিগের মিটিঙ্গে বসতে পারবেন, কুন অসুবিধা নাই। রওশন এরশাদ যদি আপনার সহিত কুন দিগদারী করে, আমাকে জানাইবেন, আমি মীমাংসা করিয়া দিব।

বিএনপি শাখার অন্যান্য নায়েবদেরও যোগ্যতা অনুযায়ী পদ বণ্টনের অংগীকার বেক্ত করে পল্লীবন্ধু বলেন, জাতীয় পার্টিই বাংলাদেশের প্রকৃত জাতীয়তাবাদী পার্টি। কিন্তু কতিপয় ঘোচুর কারনে এই পার্টি শুদু আকারে ছুট হইতেছে। নাজিউর রহমান মঞ্জুর, আনোয়ার হোসেন মঞ্জু ও কাজী জাফর বাঞ্চু, এই তিনজনেই জাতীয় পার্টি হইতে বাইর হইয়া নিজ নিজ নামে জাতীয় পার্টি খুলছে। তাই জাতীয় পার্টি দিনকে দিন ক্ষুদ্রতর হইতেছে। বিএনপি ও বিএনপির সংগে আরও যে দুই চাইরটি চামচা পার্টি আছে, সকলেই আসিয়া জাতীয় পার্টিতে ঢুকিয়া ইহাকে বৃহত্তর জাতীয় পার্টি বানান। আন্দুলন কাকে বলে আমি দেখাইয়া দিব।

আনন্দঘন কণ্ঠে এরশাদ বলেন, আন্দুলন যদি চাও তাজা, বেছে নাও এরশাদের মাজা।

%d bloggers like this: