ইসলামী বেংকের টেকাটুকার হিসাব নেওয়া হচ্ছে

নিজস্ব মতিবেদক

জংগীদের পিছনে টেকাটুকা বেয় করার অভিযোগের মুখে থাকা বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে নায়েবদের নিয়ন্ত্রনে থাকা ইসলামী বেংকের টেকাটুকা কোন পথে বেয় হয়, তার হদিশ নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাস্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

গতকাল স্বরাস্ট্র মন্ত্রনালয়ে সাংবাদিকদের মুখমুখী হয়ে প্রতিমন্ত্রী কামাল বলেন, ইসলামী বেংক তাদের লাভের টেকাটুকা বেয়ের একটি হিসাব আমাদিগের কাছে দাখিল করিয়াছে। তারা কুন পথে এই টেকা বেয় করে, আমরা গোয়েন্দা লাগাইয়া তার খবর লইতেছি।

কেন এত বেংক ফেলে ইসলামী বেংকের টেকা বেয়ের হিসাব নেওয়া হচ্ছে, কতিপয় সাংবাদিকের এমন অভিমানী প্রশ্নের জবাবে কামাল প্রতিমন্ত্রী বলেন, জংগীবাদের আসল শক্তি হল টেকাটুকা। টেকাটুকার পথ বন্ধ করিয়া দিলেই জংগীবাদের ভুত মাথা হতে নামিয়া যাবে। আর আমাদের দেশে জংগীবাদে আশকারা দেয় ইসলামী বেংক।

এ পর্যন্ত ইসলামী বেংকের টেকা বেয়ের হিসাবে কোন সন্দেহজনক লেনদেন গোয়েন্দাদের নজরে এসেছে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাস্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত বতসর হতে ইসলামী বেংকের বেয়ের হিসাবে একটি অস্বাভাবিক লেনদেন আমরা চিহ্নিত করতে পারিয়াছি। ইসলামী বেংক গত বতসর হতে ‘ফেসবুক গু-বাবা’ নামক এক রহস্যময় বেক্তির পিছে লক্ষ লক্ষ টাকার হরলিকস খরচ করতেছে।

বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা এই ‘ফেসবুক গু-বাবা’কে সনাক্ত করার জন্য মাঠে নেমেছে, এ তথ্য জানিয়ে কামাল প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা সন্দেহ করতেছি এই ‘ফেসবুক গু-বাবা’ ছদ্মবেশে সভ্য সমাজে বসবাসের ফাকে ইসলামী বেংকের টেকায় হরলিকস ভক্ষন করিয়া কুন সাংঘাতিক জংগীপনায় লিপ্ত আছে।


ফেসবুক গু-বাবা: ইসলামী বেংকের টেকায় হরলিকস ভক্ষনে লিপ্ত এক রহস্যময় বেক্তি

এদিকে স্বরাস্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে আজ বিকালে নিজ বাসভবনে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে খেতনামা ড্রন বিশেষজ্ঞ, মস্তফা অনুরাগী, কাপড় বেবসায়ী ও ইসলামী বেংকের সমঝদার হরলিকস পাগলা বিতর্ক রাজ আল্লামা আবদুন নুর তুষার বলেছেন, স্বরাস্ট্র প্রতিমন্ত্রীর আশংকা ঠিক নয়। আমি কুন জংগীপনায় লিপ্ত নহি।

সংবাদ সম্মেলনে বিতর্ক রাজ বলেন, হরলিকস খাওয়া কুন অপরাধ নহে। ইসলামী বেংক ভালবেসে আমায় হরলিকস কিনিয়া দেয়, আমিও ভালবেসে তাদের অনুষ্ঠানে বেক ষ্টেজ হতে উপস্থাপনা করি। যেথা আছে শুদু ভালবাসাবাসি সেথা যেতে প্রান চায় মা। আমার সাধ না মিটিল আশা না পুরিল হরলিকস ফুরায়ে যায় মা।

আবেগঘন কণ্ঠে আল্লামা তুষার বলেন, হরলিকস খাওয়া যদি জংগীপনা হয়, আমি ইতিহাসের সর্বাপেক্ষা বৃহত জংগী। আমি হরলিকসের লাদেন। পারলে আমায় ঠেকা।

4 Comments to “ইসলামী বেংকের টেকাটুকার হিসাব নেওয়া হচ্ছে”

  1. / আমি হরলিকসের লাদেন / উবামা জানলে কিন্তু ড্রন পাঠিয়ে দেবে 😛

  2. যৌন জিহাদে মনে হয় বেশী টাকা খরচ করে ফেলছে………………

  3. চরম বাজে হইছে। এই লেখক কে দিয়ে হবেনা

  4. আমার সাধ না মিটিল আশা না পুরিল
    হরলিকস ফুরায়ে যায় মা 😀

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: