আমিষুল মন্ত্রীই আমরার উকিল বাপ: আনু

বিপ্লবী মতিবেদক

ফেসিবাদী বাকশালের আইন মন্ত্রী ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভুতত্তের অধ্যাপক তাহেরের হত্যাকারী জামায়াতি খানকির পোলাগনের আইনজীবি বেরিষ্টার আমিষুল হককে জাতির শ্রেষ্ঠ মোক্তার হিসাবে স্বিকার করে জাহাংগীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতীর অধ্যাপক, তেল গেস খনিজ বন্দর বিদ্যুত রাজাকার বাচাও আন্দুলনের আমীর ‘আওলাদে মাওসেতুং’ আনু মুহাম্মদ বলেছেন, আমিষুল মন্ত্রীই আমরার উকিল বাপ।

আজ জাহাংগীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় নিজ কোয়াটারের আংগিনায় আয়জিত এক সুধী সমাবেশে বক্তিতা কালে আমিষুল মন্ত্রীকে উকিল বাপ হিসাবে ঘোষনা দেন অধ্যাপক আনু।

বক্তব্যে আনু অধ্যাপক বলেন, আমরার বন্দু পিয়াস করিম হাগু মরার পর কতিপয় সাম্রাজ্যবাদের দালাল ঘোষনা দিল, হাগুর লাছটিকে তারা শহীদ মিনারে লইতে দিবে না। হাগুর পিতা নাকি একাত্তর সালে শান্তি কমিটির চেরমেন আছিল। তিনি নাকি ধীরেন্দ্রনাথ দত্তরে পাক বাহিনীর হাতে ধরাইয়া দিছিলেন। মুক্তিযুদ্ধারা নাকি হাগুর পিতার বাড়িতে গ্রেনেড হামলা করছিল। হাগু নাকি নিজেও রাজাকারের দালাল আছিল।

আবেগঘন কণ্ঠে আওলাদে মাও বলেন, অতছ সাম্রাজ্যবাদের দালাল ফেসিবাদী বাকশালের আইন মন্ত্রী আমিষুল সত্য কথা ফাস করিয়া দিছে। সে বলছে পিয়াস করিম হাগু মুক্তিযুদ্ধের সময় মিটিং মিছিল করত। লিপলেট বিলি করত। পোষ্টার সাটাইত। রিকশায় করিয়া মুক্তিযুদ্ধাদের পক্ষে মাইকিং করিত। নিজের বাড়িতে মেহমান খানার পালংকে ঘুমন্ত পাক বাহিনীর অফিসারদের উলংগ পুটুতে চুন কালি মাখাইত। আর হাগুর পিতাও শখ করিয়া শান্তি কমিটিতে যোগ দেন নাই। হাগুরে জিম্মি করিয়া পাক বাহিনী তারে শান্তি কমিটিতে নাম লিখাইতে বাধ্য করছে।


আমিষুলই একমাত্র হালাল বাকশাল: আনু

হুহু করে কেদে উঠে আনু অধ্যাপক বলেন, যুগ যুগ ধরিয়া বাকশালের সংগে লড়াই করতেছি। ভাবতাম তেল গেস বন্দর বিদ্যুত রাজাকার কুন কিছুই তাহাদের হাতে নিরাপদ নহে। কিন্তু এখন দেকতেছি রাজাকার বাচাইতে বাকশালের আইন মন্ত্রীই সর্বাপেক্ষা বড় আওয়াজ তুলিয়াছে। পিয়াস করিম হাগুর ভগ্নি তাহার আইন বেবসার পাটনার, ইহাতে কিছুই আসে যায় না। আমিষুল মন্ত্রী যাহা বলছে তাহাই সত্য। যদিও সে আগে অনেক মিছা কথা বলিয়াছে, এবং পরেও অনেক মিছা কথা বলিবে, কিন্তু পিয়াস করিম হাগুরে লইয়া সে যাহা বলিয়াছে তাহার উপর কুন কথা চলে না। অতএব আজ হইতে আমিষুল মন্ত্রীই আমরার উকিল বাপ।

অশ্রু মুছে আওলাদে মাও বলেন, জন্মিলে মরিতে হবে জানে গ সবাই। একদিন আসিফ নজরুল ইঞ্চি ও ফরহাদ মজহার লুংগিকেও মরিতে হইবে। আলামত দেখিয়া মনে হইতেছে উহাদের লাছ শহীদ মিনারে লওয়ার কথা বলিলে আমরা সকলেই পুটুমারা খাইব। তাই অগ্রীম সত্য কথা বলিয়া উহাদের সাইজ করিয়া লইতে হইবে। আমিষুল মন্ত্রীর দেখান রাস্তাতেই আমি চলিব। একাত্তর সালে বালক ইঞ্চি ও যুবক লুংগি দুইজনেই মুক্তিযুদ্ধা আছিল। উহারা বুকে মাইন বান্ধিয়া পাক বাহিনীর টেংকের তলে ঝাপাইয়া পড়ছিল। কিন্তু জঘন্য সাম্রাজ্যবাদী ইনডিয়ান মাইনের কুয়ালিটি খারাপ আছিল বলিয়া তাহা ফুটে নাই। কিন্তু পাক বাহিনীর টেংকের চাক্কা টেপ খাইয়া গিয়াছিল, আমিষুল মন্ত্রী সাক্ষী।

One Comment to “আমিষুল মন্ত্রীই আমরার উকিল বাপ: আনু”

  1. চ্রম হইছে। পিয়াস মরিয়া সব গুলা বুদ্ধিবেশ্যার পাছায় টাটু মাইরা গেলো।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: