গোলাম আজমের নেয় এত সহজে হাল ছাড়তাম না: নিজামী

নিজস্ব মতিবেদক

ট্রাইবুনালের রায়ে গোলাম আজমের নেয় ৯০ বতসর আরামদণ্ড দিলে পুর্ন মেয়াদ খেটে দৈনিক ২১ পদের খানা ভক্ষন করে বাংলাদেশ সরকারের তহবিল ফাক করার অংগীকার জানিয়ে একাত্তরের আলবদর সর্দার ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে আমীর আল্লামা মতিউর রহমান নিজামী বলেছেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক ৯০ বতসরের আরামদন্ড প্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর ভাষা সৈনিক অধ্যাপক গোলাম আজমের নেয় দুবলা আমি নহি। এত সহজে হাল ছাড়তাম না। ৯০ বতসর আরামদণ্ড দিলে কাটায় কাটায় ৯০ বতসরই মেয়াদ খাটব। ব্রিঙ্গ ইট অন বেবী।

রায়ের আগের দিবাগত সন্ধায় কাশিমপুর কারাগারে ফাসির আসামীর জন্য বরাদ্দ কনডম সেলে আয়জিত এক খবর মহাফিলে এ অংগীকার করেন আলবদর সর্দার নিজামী।

খবর মহাফিলে বৃহত্তর জামায়াতের খানকির পোলায়ে আমীর বলেন, গোলাম আজম সারা জীবন ডাল ভাত লাল শাক ছুট মাছ দিয়া মুটা চাউলের ভাত খাইল। কিন্তু ফেসিবাদী বাকশালী সরকার তারে জেলে ঢুকানর পর সে সিদ্ধান্ত লইল, মরার আগে ইহাদের তহবিল সে ফাক করিবে। তখন সে দৈনিক ২১ পদের খাওনের জন্যি অনশন শুরু করল। তার আন্দুলনের ঠেলায় কারাগার কতৃপক্ষ তাহাকে মগল বাদশাদিগের খানা সরবরাহ শুরু করল। সকালের নাস্তা হিসেবে তাকে দেওয়া হতো লাল আটার তৈরি চার-পাঁচটি পাতলা রুটি, ডিম ভাজি, আলু ছাড়া সব্জি ভাজি, ভুনা মুরগির মাংস, মিষ্টি, এনসিউর কোম্পানির দুধ ও কলা। দুপুরের খাবার হিসেবে দেওয়া হতো, চিকন চালের ভাত, করলা ভাজি, টাকি অথবা চিংড়ি মাছের ভর্তা, বেগুন ভাজি অথবা ভর্তা, ছোট চিংড়ি ও ছোট মাছ ভুনা, সালাদ, লেবু, মাল্টা, বরই ও নাশপাতি। সন্ধ্যার নাশতা হিসেবে দেওয়া হতো- লাড্ডু, নিমকি বিস্কুট, হরলিকস কিংবা স্যুপ। রাতের খাবার হিসেবে দেওয়া হতো চিকন চালের ভাত, করলা ভাজি, বেগুন ভাজি অথবা ভর্তা, ঢেঁড়শ, মিষ্টিকুমড়া ও পেঁপে ভাজি, গরু অথবা খাসির ভুনা মাংস, সালাদ ও লেবু, কমলা, মাল্টা, নাশপাতি, আঙ্গুর ও বরই। সম্রাট শাজাহান যখন ফেসিবাদী আওরংগজেবের হাতে তাজমহলে বন্দী হইছিল, উহাকে শুধু বুট মুড়ি ও কলা খাইতে দেওয়া হইত। আর ঈদের দিন এক বাটি সেমাই। গোলাম আজম মগল বাদশাদিগেরেও হালকাইয়া খাইছে।

হাসতে হাসতে নিজামী বলেন, ৯২ বতসর বয়সে এত এত খাইয়া গোলাম আজম সাহেব বদহজমে এন্তেকাল করলেন। শুনিয়াছি ডেলি ডেলি উনার এক চামুচ করিয়া অলিভ অয়েল লাগত, উহা ছাড়া হাগা হইত না।


আরামদণ্ডের জন্য প্রস্তুত নিজামী

৯০ বতসরের আরামদণ্ডের জন্য নিজেকে সম্পুর্ন প্রস্তুত ঘোষনা করে নিজামী বলেন, গোলামদা সংযমের অভাবে ৯০ বতসরের মেয়াদের দেড় বতসর কাটাইতে না কাটাইতেই আযাব খাইতে কবরে চলিয়া গেল। কিন্তু আমি এত সহজে হাল ছাড়ব না। আমায় বরইয়ের পরিবর্তে হজমী সরবরাহ করলেই আমি হাসিয়া খেলিয়া ৯০ বতসর কাটাইয়া দিব। আর অলিভ অয়েল ত আছেই।

এ সময় নিজামী হাসতে হাসতে ‘আই এম পপাই দি সেইলর মেন’ গানটি গুনগুন করে গেয়ে উঠেন।

বাংগালী জাতিকে মধ্যমা প্রদর্শন করে বৃহত্তর জামায়াতের খানকির পোলায়ে আমীর বলেন, কত মুক্তিযুদ্ধা আদাড়ে বাদাড়ে ধুকিয়া মরল। উহারা জীবনে মাল্টা চুখেও দেখছে কিনা সন্দেহ। কিন্তু উহাদের রক্তে খরিদ করা স্বাধীন বাংলায় উহাদের বালবাচ্চার টেকশের টেকায় আমার জন্য মাল্টা খরিদ করা হবে। মুক্তিযুদ্ধ করিয়া তারা পাইল বালটা, আর আমি পাব মাল্টা। ভিভা লা রেভলুশিওন, হে মাকারেনা।

আদালতের মনের ভুলে দুর্ঘটনা বশত ফাসি হয়ে গেলে শ্রদ্ধা জানানর জন্য লাশ রায়েরবাজার বধ্যভুমি ও শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়ার খায়েশ প্রকাশ করে আলবদর সর্দার নিজামী বলেন, আমার অবৈধ পুত্র আসিফ নজরুল ইঞ্চি পুলাটা খুব খাটতেছে। উহাকে কি সরকার এক ডজন মাল্টা খরিদ করিয়া দিবে না?

2 Comments to “গোলাম আজমের নেয় এত সহজে হাল ছাড়তাম না: নিজামী”

  1. ha ha ha……….

  2. খানকির পোলা নিজামী

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: