একাত্তরের রেম্বই প্রথম পাসপুট ধারী বাংলাদেশী: বড় গুণ্ডে

লনডন মতিনিধি

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী পলাতক চিকিতসাধীন তরুন নেতৃত্ব মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট বড় গনতন্ত্র বড় গুন্ডে তারেক জিয়া বলেছেন, একাত্তর ও পচাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়াই প্রথম পাসপুট ধারী বাংলাদেশী।

৭ নভেম্বর মনির পুড়াও দিবস উপলক্ষে লনডনে আয়জিত এক ইতিহাস মহাফিলে বড় গুণ্ডে এ ঘোষনা দেন।

ইতিহাস মহাফিলে বাংলাদেশের ইতিহাসকে গনিমতের মাল উল্লেখ করে বড় গনতন্ত্র বলেন, ১৯৭১ সালের মার্চ মাসের ২৫ তারিখে যখন পৃয় দেশ পাকিস্তানের সেনা বাহীনী চট্টগ্রামে নিরস্ত্র বাংগালী সৈনিকদের উপর এটাক করে, তখন একাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়া কুথায় ছিলেন আর বাকশালের আমীর শেখ মুজিব কুথায় ছিলেন, তাহা ভাল করিয়া লক্ষ করিলেই বুঝা যাবে ঘটনা কি ছিল। বাকশালের আমীর শেখ মুজিব তখন পাকিস্তানীদের হাতে পাকিস্তানী পাসপুটসহ বন্দী। আর আমার ওয়ালিদ একাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়া তখন বাংলাদেশী পাসপুট সংগ্রহ করিতে সোয়াত জাহাজের উদ্দেশে রওনা করিয়াছেন।

একাত্তর সালে ২৫শে মার্চ চট্টগ্রামের নিহত সৈনিকদের কথা স্মরন করে বড় গনতন্ত্র বলেন, উহাদের পাকিস্তানী পাসপুট আছিল, তাই উহাদের জন্য আমি বেশি মহব্বত প্রদর্শন করব না। মুক্তিযুদ্ধে নিহত ৩০ লক্ষ শহীদের কথাও চিন্তা করিয়া লাভ নাই, উহাদেরও পাকিস্তানী পাসপুট আছিল। একমাত্র বাংলাদেশী পাসপুট আছিল জেনারেল জিয়ার।

মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস ভারতের ভুমিতে তাবু খাটিয়ে জেনারেল জিয়ার অবস্থান ধর্মঘটের কথা স্মরন করে আওলাদে আমীর বলেন, একাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়ার পাসপুট অনুভুতি ছিল অত্যান্ত টনটনা। তিনি নয় মাস ভারতের মেঘালয়ে তাবু খাটাইয়া অবস্থান ধর্মঘট করলেও বাংলাদেশী পাসপুট সংগে রাখতে ভুলেন নাই। যখনই কুন ভারতীয় অফিসার আসিয়া মেজর জিয়া তুম কাহা হ বলিয়া ডাকাডাকি করত, তখনই তিনি এক হাতে বাংলাদেশী পাসপুট ও অপর হাতে আর্জেস গ্রেনেড লইয়া তাবু হইতে বাইর হইয়া বলতেন, হাম ইধার সো রাহা হে।

পাকিস্তানের দালাল ও একাত্তরের যুদ্ধাপরাধে ৯০ বতসরের আরামদণ্ড প্রাপ্ত বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর অধ্যাপক গোলাম আজমের জানাজায় অংশ গ্রহনের অপরাধে গয়েশ্বর চন্দ্র আজমীর প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে তারেক জিয়া বলেন, আমি নিজে সকলকে এসএমএস করিয়া মানা করছিলাম যে গোলাম নানার জানাজায় কেহ যাবা না। সালারা সারদা গ্রুপের টেকা সব নিজেরা নিজেরা খাইছে, আমাদিগেরে কিচ্ছু দেয় নাই। সকলে কথা শুনল, কিন্তু বিএনপি শাখার মালাউন উপশাখার আমীর এই সালা গয়েশ্বর আজমী জানাজায় গিয়া হাজির। শুনিয়াছি সে গুপনে গুপনে কয়েকটি গায়েবানা জানাজায় নকল দাড়ি লাগাইয়া ইমামতিও করছে। ক্ষমতায় গিয়া লই, সাঈদী আংকেলকে দিয়া এই গয়েশ্বরকে খতনা করাইয়া নও মুসলমান বানাইয়া বাইতুল মকাররমের খতিব বানাব।

গোলাম আজমের পুত্র ও সেনা বাহীনী হতে বহিস্কৃত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আবদুল্লাহিল আমান আজমীর ওপেন চেলেঞ্জ গ্রহন করে বড় গুণ্ডে বলেন, তুমাদের ছাড়াই ক্ষমতায় যাব সালা ঘোচু। সারদার টেকার ১৫% তখন দশ টেকার নটের বান্ডিল বান্ধিয়া তুমায় নিজের হাতে আলগাইয়া আনিয়া হাওয়া ভবনে দিয়া যাইতে হবে। খালি দিয়া গেলেই হবে না, আমার সামনে বসিয়া গনিতেও হইবে। এখনই টেকা গনা অভ্যাস কর সালা আওলাদে গাদ্দার।

2 Comments to “একাত্তরের রেম্বই প্রথম পাসপুট ধারী বাংলাদেশী: বড় গুণ্ডে”

  1. তুফান প্রকৃতির পোস্ট! আরেকটা টর্নেডো/সুনামি পোস্ট পাইলাম মতিকন্ঠে!!!
    নিঃসন্দেহে স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ এবং আন্তর্জাতিক মানের মানের সাংবাদিকতা হইছে!!!

  2. 😀 😀 😀 বড় গুন্ডে রক্স

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: