Archive for December, 2014

December 27, 2014

জিহাদ নহে, উহা গোলাম আযমের কান্নার শব্দ: জুনাইদ সংঘ

নিজস্ব মতিবেদক

রাজধানীর রাজধানীর শাহজাহানপুরের রেলওয়ে কলোনি মাঠের পাশে পরিতেক্ত গভীর নলকুপের পাইপে যে রহস্যময় শব্দ শুনে দমকল বাহিনী, এলাকা বাসী ও সাংবাদিকরা আটকা পড়া চার বছর বয়সী শিশু জিহাদের কান্নার শব্দ মনে করেছেন, তা জিহাদের কান্নার শব্দ নয়, বরং কবর বাসী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক ৯০ বতসরের আরামদন্ড প্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর ভাষা সৈনিক অধ্যাপক গোলাম আজমের কান্নার শব্দ।

গভীর রাতে এমনই চাঞ্চল্য কর বিবৃতী দিয়ে সারা দেশের মানুষকে স্তব্ধ করে দিয়েছেন সদ্যগঠিত ১১০% অরাজনৈতিক সংগঠন ‘নিখিল বাংলাদেশ জুনাইদ সংঘ’-র প্রতিষ্ঠাতা আমীর আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী ওরফে কুরান-পুড়াইন্যা জুনাইদ ও নায়েবে আমীর জুনাইদ সাকী।

বাংলাদেশের অভ্যন্তরে স্বাধীন রাস্ট্র হাটহাজারিস্তানের দারুল উলুম মইনুল ইসলামের ময়দানে পেন্ডেল টাংগিয়ে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে শত শত কুরান হাদিস পুড়ানর মামলার আসামী আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী বলেন, শিশু জিহাদকে খুজিয়া পাওয়া যাইতেছে না। এমন সময় গভীর নলকুপের পাইপে শুনা গেল কান্নাকাটির শব্দ। সকলে মনে করল জিহাদ গর্তে পতিত হইছে। কিন্তু পরে এয়াহুদী নাছাড়াদিগের আবিস্কৃত এই কেমেরা যন্ত্রটি নামাইয়া দেখা গেল, পাইপের ভিতরে শুদু টিকটিকি আছে, জিহাদ নাই।

আবেগঘন কণ্ঠে নায়েবে আমীর আল্লামা জুনাইদ সাকী বলেন, এমতাবস্থায় সম্ভাবনা দুইটি। প্রথম সম্ভাবনা হইতেছে, কারও বদদুয়ায় শিশু জিহাদ টিকটিকিতে পরিনত হইয়াছে। অত্যান্ত কামেল কুন আলেম, যেমন আমরার আল্লামা রাজ আহমদ শফীকে দিয়া বদদুয়া পড়াইলে ইহা অসম্ভব কিছু নহে।

আরও আবেগঘন কণ্ঠে আমীর আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী বলেন, কিন্তু দ্বীতিয় সম্ভাবনাটিই বেশী বাস্তব। যে শব্দ শুনা গেছে, উহা শিশু জিহাদের কান্নার আওয়াজ নহে, বরং কবর নিবাসী বৃহত্তর জামায়াতের সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর অধ্যাপক গোলাম আজমের কান্নার শব্দ।

হুহু করে কেদে উঠে বাবুনগরী বলেন, আমীরুল গাদ্দারানকে মগবাজারের গাদ্দারপাড়ায় পারিবারিক কবরস্থানে গোর দেওয়া হইয়াছে। উহা শাহজাহানপুর হইতে খুব বেশী দুরে নহে। ইসলামে বলা আছে, যারা ইহকালে নানা গুনাহের মধ্যে লিপ্ত থাকে, উহাদের কবরে মুনকার নাকীর নামক ফেরেস্তাদিগের মাইর খাইতে হয়। আমরার হিসাব মতে এখন গোলাম আজম সলিড আযাবের ভিতর দিয়া যাইতেছে। মুনকার নাকীর ইচ্ছা মত উহার পুটু বিনা অলিভ অয়েলে মারিয়া চুরমার করিতেছে। আর ঐ আযাবের মাইর খাইয়া গোলাম আজম কান্দিতেছে।

পদার্থ বিজ্ঞানের বেখ্যা দিয়ে আল্লামা জুনাইদ সাকী বলেন, মাটিতে শব্দের বেগ বাতাসে শব্দের বেগ অপেক্ষা বেশী। আর এই শব্দ যায়ও অনেক দুর পযন্ত। তাই গাদ্দারপাড়ায় কবরের কান্নাকাটি শাহজাহানপুরের পাইপে গিয়া বাড়ি মারবে, ইহাই স্বাভাবিক।

শাহজাহানপুরের পাইপের মুখ ঠিক মত আটকানর পরামর্শ দিয়ে জুনাইদ সংঘের আমীর ও নায়েবে আমীর বলেন, দমকল দিয়া গোলাম আজমের কান্না থামান যাইবে না। লাইনে আসুন।

December 23, 2014

মেডাম বাচলে জামদানী বাচবে: জাফরুল্লাহ

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির জামদানী শাড়ীর প্রসংশা করে বিএনপি শাখার ভক্ত, গনসাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ও নিপীড়ীত জাফর ঐক্যের উপদেষ্টা জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, জামদানী শাড়ীতে মেডামকে অপুর্ব লাগে। মেডাম বাচলে জামদানী বাচবে।

রবিবার রাজধানীতে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল আয়জিত এক মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে জাফরুল্লাহ চৌধুরী মাদারে গনতন্ত্রের শাড়ী বিষয়ে উচ্ছসিত প্রসংশা করেন।

জাফরুল্লাহ বলেন, তিন দশক ধরিয়া আমি এই কথাটি মেডামকে বলব বলব করিয়া বলিয়া সারতে পারি নাই। সময় মত কথাটি বলিয়া ফেলতে পারলে কত কি ঘটতে পারত। আপসুস, তিনটি দশক নানা ডামাডুলে কাটিয়া গেল। বুড়ীগংগায় কত পানি বহিয়া গেল। লালু কালু ফালুরা সব দখল করিয়ালাইল। কিন্তু এত দিন ধরিয়া সব ক্ষয় ক্ষতি সব হারানর বেদনা হজম করিয়া আজ আমি আর নিজেকে সামলাইতে পারতেছি না। মজীনার সহিত সাক্ষাতের সময় মেডাম যে জামদানী শাড়ীটি পরিধান করছিলেন, উহাতে আপনাকে অপুর্ব লাগতেছিল। ববিতা চম্পা আপনার কাছে ফেল। অতছ আমাদের সংগে সাক্ষাতের সময় আপনি শিফন কাতান প্রভৃতি ফালতু শাড়ী পরিধান করিয়া আসেন।

আবেগঘন কণ্ঠে জাফরুল্লাহ বলেন, জামদানীর মজা শুদু মজীনা পাবে কেন? আমরার সংগে সাক্ষাতের সময়ও আপনাকে জামদানী পরিধান করতে হইবে। এইসব শিফন কাতান আর ছইলত ন।

হুহু করে কেদে উঠে জাফরুল্লাহ বলেন, এই ফেসিবাদী সরকার আপনাকে ইয়াতীমের টেকা মারার মামলায় ফাসাইয়া জেলের বড় হরলিকস খাওয়াইতে চায়। কিন্তু সে ষড়যন্ত্র আমরা সফল হতে দিব না।

অশ্রু মুছে জাফরুল্লাহ বলেন, ইয়াতীমের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা মারায় মেডামকে লইয়া জজকুট হাইকুটে টানাটানি। আরে সালা ঘোচুর দল, ইয়াতীম এত কুটি কুটি টেকা দিয়া কি করবে? মেডাম এই ২ কুটি টেকা দিয়া ২০০ জামদানী শাড়ী খরিদ করিয়া পরিলে আমরা নায়েবের দল চক্ষু ঠাণ্ডা করিয়া শান্তি মতে রাজনীতী করতে পারি। ইয়াতীমের পিছে কুটি কুটি টেকা নস্ট না করিয়া মেডামের জামদানীতে বেয় করা হইলে দেশের জামদানী শিল্পে উন্নতি হবে, নায়েবদের সাস্থ্যও ভাল থাকবে।

উত্তেজিত জাফরুল্লাহ বলেন, মেডাম বাচলে জামদানী বাচবে। এবারের সংগ্রাম জামদানীর সংগ্রাম। আরে সালা ঘোচুর দল, আমরার মেডাম আর মেডামের জামদানী থাকতে গুগলে নায়লা নাইম ফাষ্ট হয় কেমন করিয়া? তুদের কি ঈমান নাই?

উত্তেজিত জাফরুল্লাহকে থামানর জন্য অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে দমকল ডাকার আদেশ দেন বেগম জিয়া।

Tags:
December 22, 2014

প্রতিষ্ঠিত হল ‘নিখিল বাংলাদেশ জুনাইদ সংঘ’

হাটহাজারী আল-মতিবেদক

বেপক ধুমধাম ও ধর্মীয় ভাব গম্ভীর্যের মধ্যে প্রতিষ্ঠিত হল ১১০% অরাজনৈতিক সংগঠন ‘নিখিল বাংলাদেশ জুনাইদ সংঘ’।

আজ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে স্বাধীন রাস্ট্র হাটহাজারিস্তানে দারুল উলুম মইনুল ইসলামের কুচকাওয়াজ ময়দানে পেন্ডেল মেরে আয়জিত শুভ মহরত অনুষ্ঠানে জুনাইদ সংঘের আকিকা ঘোষনা করেন নিখিল বাংলাদেশ জুনাইদ সংঘের প্রতিষ্ঠাতা আমীর ও ২০১৩ সালের ৫ মে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় শত শত কুরান পুড়ানর মাষ্টার মাইন্ড আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী এবং জুনাইদ সংঘের নায়েবে আমীর ও বাংলাদেশের বাম আন্দলনের প্রবাদ পুরুষ আল্লামা জুনাইদ সাকী।

এ সময় হাটহাজারী বড় মাদ্রাসার হাজার হাজার তালেবে এলেম মোমবাতি প্রজ্জলন করে জুনাইদ সংঘের প্রতি একাত্মতা ঘোষনা করেন।

শুভ মহরত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথীর বক্তব্যে হাটহাজারিস্তানের খলিফা ও উপমহাদেশের সর্বাপেক্ষা বুজুর্গ ইসলামী বেক্তিত্ব আল্লামা রাজ শাহ আহমদ শফী বলেন, একমাত্র জুনাইদরাই পারে বাংলাদেশের সকল জমিজমা নাস্তেকদের দখল মুক্ত করিয়া হাটহাজারিস্তানের অন্তর্ভুক্ত করিতে। জুনাইদটা সাদা নাকি কাল, ডান নাকি বাম, উহা বাছিয়া আমার কুন কাম নাই। আমি শুদু দেখতে চাই জুনাইদটা নাস্তেক মারিতে পারে কিনা। আলহামদুলিল্লাহ, আমাদের জুনাইদ সংঘে ডান ধারার আমীর ও বাম ধারার নায়েবে আমীর পাওয়া গেছে।

জুনাইদ সংঘের আমীর আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী বলেন, সামনে শীতকাল। গরম গরম ভাপা পিঠা, হাসের গুস্ত ও আন্দুলনের সিজন। বাতাসে হালুয়া রুটির সুগন্ধ পাইতেছি। এ সিজনে একটু গরম গরম কথা ও দুই চারখান তালেবে এলেমের লাশ ফালানির নিয়ত থাকলে কুটি কুটি টেকা রুজগারের সুযুগ আছে আলহামদুলিল্লাহ।

আবেগঘন কণ্ঠে জুনাইদ বাবুনগরী বলেন, ফেসিবাদী সরকার তার সাম্রাজ্যবাদী প্রভুদের নিকটে দেশটির সকল সম্পদ তুলিয়া দিতে চায়। তারই ধারাবাহিকতায় সুন্দরবনে শেলা নদীতে তেল ফালানি হইছে। অতছ এই সুন্দরবনের মালিক জনগন। জনগনকে তাহার সম্পদের মালিকানা বুঝিয়া লইতে হইবে। তাই সুন্দরবনকে রক্ষার জন্য আমি সকল মুজাহিদ ভাইকে জান কুরবানের আহোভান জানাইতেছি। এবারের সংগ্রাম পরিবেশ রক্ষার সংগ্রাম।

জুনাইদ সংঘের নায়েবে আমীর জুনাইদ সাকী বলেন, আমি আমীর সাহেবের বক্তব্যের সংগে দিমত পোষন করিয়া বলতেছি, সবকিছুতে সাম্রাজ্যবাদ ফেসিবাদ এইসব টানিয়েন না। সুন্দরবনে তেল পড়ছে কারন সরকার হাটহাজারিস্তানের খলিফার ১৩ দফা মতাবেক দেশ চালাইতে বের্থ হইছে। ইহা ডাইরেক আল্লাহর গজব।

জুনাইদ বাবুনগরীকে পরিবেশ নিয়ে বেশী কথা না বলার আহোভান জানিয়ে জুনাইদ সাকী বলেন, এক বতসর আগে সারা দেশে যখন বৃহত্তর জামায়াতের ভাই চাচ্চুরা হাজার হাজার গাছ কাটিয়া মুল্লুক সাফা করিয়ালাইছিল, আমরা তখন কিছু বলি নাই। বাম জুনাইদ সেদিন ডান জুনাইদের আংগুল ও ডান জুনাইদ সেদিন বাম জুনাইদের আংগুল চুষিতে বেস্ত আছিল। তাই পরিবেশ নহে, আল্লাহর গজব লইয়া কথা বলতে হবে।

বর্তমানের সর্বাপেক্ষা হট মডেল নায়লা নাইমকে জুনাইদ সংঘের ব্রেন্ড এমবেসেডরনি হিসাবে যোগদানের আহোভান জানিয়ে তাহার হেফাজত বিষয়ে বাম জুনাইদ ও ডান জুনাইদ উভয়ে একটি সমঝতা চুক্তিতে সাক্ষর করেন।

December 18, 2014

মজিনার বীচি হতে গাছ গজাল মেডামের বাড়িতে

কূটনৈতিক মতিবেদক

বাংলাদেশে মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের রাস্ট্রদুত ডেন ডাবলু মজিনা ওরফে মজিনা ফায়ারফক্সের বীচি হতে গাছ গজিয়েছে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির বাড়িতে।

দুই বতসর আগে মজিনা ফায়ারফক্স বিরুধী দলীয় নেত্রী হিসাবে খাতির করে মাদারে গনতন্ত্রকে দুইটি বীচি উপহার দেন। দুই বতসর নিয়মিত পানি দেওয়ার পর বর্তমানে মাদারে গনতন্ত্রের বাড়িতে বীচি দুইটি হতে গাছ উতপন্ন হয়েছে।

বুধবার বর্তমান বিরুধী দলীয় নেত্রী ও সাবেক স্বৈরাচার পল্লীবন্ধু ফাদার অব কৃকেট জেনারেল আলহাজ্জ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পত্নী রওশন এরশাদের বাসভবনে তার সংগে সাক্ষাত কালে এই গাছ গজানর খবর দেন মজিনা ফায়ারফক্স।

মজিনা রওশন এরশাদের বাসভবনে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, গাছ গজানির কারনে আমাদিগের সম্পর্ক এখন সবচেয়ে শক্তিশালী।

আবেগঘন কণ্ঠে মজিনা ফায়ারফক্স বলেন, এক বুক আশা লইয়া বাংলাদেশে আইছিলাম। বাংলাদেশ এক অপার সম্ভাবনাময় দেশ। লাইন ঠিক থাকলে আর ঠিক লাইনে থাকলে এই দেশে কুটি কুটি ডলার রুজগার করা কুন বেপারই নহে। আমার দায়িত্ব কালে আমি কতিপয় রাইস মিল, কয়েকটি আটার কল, কয়েকটি ট্রলার ও নছিমন নামাইয়া কিছু বেবসা বানিজ্য করছি। ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে নির্বাচনেরও ইচ্ছা আছিল। কিন্তু তার আগেই বদলী হইয়া গেলাম। কিন্তু আবার আসব।


খালেদার বাড়িতে গাছ গজানর খবর বেখ্যা করছেন ফায়ারফক্স

হাসতে হাসতে মজিনা বলেন, দুই বতসর পুর্বে মাদারে গনতন্ত্রকে দুইটি বীচি উপহার দিয়াছিলাম। আজ গিয়া দেখি মেডামের টবে দুইটি কেকটাস গাছ উতপন্ন হইয়াছে আলহামদুলিল্লাহ।

এ সময় রওশন এরশাদ বিরুধী দলীয় নেত্রী হিসাবে মজিনার নিকট দুইটি বীচি উপহার দাবী করলে মজিনা ফায়ারফক্স তা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

অশ্রু মুছে মজিনা বলেন, তিনটি বতসর দেখতে দেখতে কাটিয়া গেল। কুন কামের কাম সাধন করতে পারলাম না। ইউনূসকে তাহার গ্রামীন বেংকের গদি ফিরাইয়া দিতে পারলাম না, কসাই কাদেরের ফাসি ঠেকাইতে পারলাম না, সেনা বাহীনী লাগাইয়া কুন কু করাইতে পারলাম না। দেশে গেলে মা-খালারা আমায় নিন্দা করিয়া বলে, হয়াই ইউ ন ডু নাথিং বয়? আমি তাদের শুদু একটা কথাই বলি, এ কুইক ব্রাউন ফক্স জাম্পস ওভার এ লেজি ডগ।

হুহু করে কেদে উঠে ফায়ারফক্স বলেন, এখন চলিয়া যাইতেছি। কিন্তু টারমিনেটরের নেয় আই উইল বি বাক। আগামী বতসর চাকরী হতে ছুটি লইয়া বেংগল ফেষ্টিভালে রাগ সংগীত শুনতে আসব। রাজনীতীবীদগনের রাগারাগি অনেক শুনিয়াছি, এইবার সংগীতবীদদের রাগারাগি শুনব। আশা করি এর মধ্যে আমার বন্ধু বার্নিকাট বাকশালের সানডে মানডে কোলজ করিয়া দিবে।

%d bloggers like this: