রিয়াজের পুটুর ঘা না শুকান পর্যন্ত মামলার তারিখ না ফেলতে খালেদার আইনজীবিদের চাপ

আদালত মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মুজাহিদদের গুলিতে আহত হয়ে ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিতসাধীন বিএনপি শাখার কুটনৈতিক শাখার সদস্য নায়েবে খারেজি আল্লামা রিয়াজ রহমানের পুটুতে গুলির ক্ষত স্থান না শুকান পর্যন্ত জিয়া এতিমখানা ও জিয়া দাতব্য ট্রাষ্ট দুর্নীতি মামলায় শুনানির তারিখ না ফেলতে ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আবু আহমেদ জমাদরের উপর তিব্র চাপ সৃস্টি করেছেন বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির আইনজীবি গন।

বৃহস্পতিবার ইয়াতীমদের হক্কের সোয়া পাঁচ কুটি টেকাটুকা মেরে দেওয়ার এই চাঞ্চল্যকর মামলায় বাদীর সাক্ষ্য গ্রহনের সময় মাদারে গনতন্ত্রের আইনজীবি গন তিব্র হট্টগল সৃস্টি করেন।

প্রত্যক্ষ দর্শীরা জানান, বাদী হারুনুর রশীদের সাক্ষ্য গ্রহনের সময় মেডামের উকিলবৃন্দ আদালতে এক ভয়াল বিভীষীকার অবতারনা করেন। তাদের কেউ কেউ বিচারক আবু আহমেদ জমাদরকে ‘মালাউন’ ডাকেন। এ সময় আদালত উকিলদের শান্ত হওয়ার আদেশ দিলে তারা মামলার বিচার পরিচালনার জন্য ১১০% খাঁটি মুসলিম বিচারক দাবী করে শ্লগান দিতে থাকেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মেডামের এক মোক্তার মতিকণ্ঠকে বলেন, আগের বিচারক বাসুদেব রায়রে মালাউন ডাকিয়া পটুয়াখালী বদলী করিয়া দিছি। আবু আহমেদ জমাদররেও দিব। জাতীয়তাবাদী কুন বিচারক এজলাশে না আসা পযন্ত আমরা এই কাম চালাইয়া যাব।

আবু আহমেদ জমাদর মুসলিম ধর্মানুসারী, এ তথ্য জানান হলে মেডামের মোক্তার বৃন্দ হাসাহাসি করে বলেন, আপনারে মুসলিম বলে মুসলিম সে নয়, আমরা যারে মুসলিম বলি মুসলিম সে হয়। ইয়াতীমের টেকা মারার মামলায় মেডামের বিচার করতে চায় যে বিচারক, সে ত সাক্ষাত কাফের।

এক পর্যায়ে আদালতে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হলে বাদীর সাক্ষ্য গ্রহনের মাঝখানে মাদারে গনতন্ত্রর উকিল বৃন্দ নতুন আবদার দাখিল করে বলেন, এই মামলায় শুনানির পরবর্তী তারিখ নায়েবে খারেজি রিয়াজ রহমানের পুটুর ঘা শুকানর পরে ফেলতে হবে।

আদালত এর বেখ্যা চাইলে জাতীয়তাবাদী মোক্তাররা বলেন, মেডাম ইয়াতীমের টেকা মারার মামলায় আদালতে আসিয়া বেইজ্জত হইতে চান না। তাই এই মামলার সকল শুনানির দিন হরতাল ডাকা হইবে। কিন্তু শুদু শুদু হরতাল ডাকলে জন সাধারন বুঝিয়া ফেলবে যে মেডাম হরতাল দিয়া মামলা বাং মারতে চান। তাই অজুহাত হিসাবে আপন দলের কুন নায়েবের পুটুতে গুলি করিয়া তারপর হরতাল ডাকলে ভাল দেখায়। বিএনপি শাখার বড় বড় সকল নায়েব বর্তমানে হয় কারাগারে প্রথম শ্রেনীর কয়েদী হিসাবে বেহেস্তি আরামে আছেন, অথবা পলাইয়া কুন বান্ধবীর বাড়িতে গা ঢাকা দিয়া আছেন। এমতাবস্থায় হাতের নাগালে গুলি করার মত বড় নায়েব আছে একমাত্র রিয়াজ রহমান। আজকের শুনানির দিনে হরতাল বাবদ তার পুটু গুলিতে খরচ করা হইয়া গেছে। পরবর্তী শুনানির আগে আবার গুলি করার আগে তার পুটুর ক্ষত স্থান শুকাইতে দিতে হবে। তা না হলে বেপারটি খারাপ দেখায়।

আদালত বেগম জিয়ার মোক্তারদের বেখ্যা শুনে আবদার খারিজ করে দিলে মোক্তারগন তাতক্ষনিক স্লোগান ধরে জমাদর বিচারকের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করেন।

এ বেপারে বিএনপি শাখার উকিলে আমীর আল্লামা মওদুদ আহমদের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি নাম প্রকাশ না করার শর্তে মতিকন্ঠকে বলেন, আদালত আগামী ২৯ জানুয়ারী ইয়াতীমের টেকা মারার মামলার শুনানির তারিখ ফেলার কারনে ২৭ জানুয়ারী কিংবা ২৮ জানুয়ারী সারা দেশে বিএনপি শাখার বড় বড় নায়েবরা সকলেই গা ঢাকা দিবেন, এমন আশংকা করতেছি। রিয়াজ রহমানের পুটুর ঘা মার্চ এপ্রিলের আগে শুকাইবে না। গুলি হজম করার মত নায়েব এখন কুথায় পাই?

সরকারের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ মওদুদ বলেন, ২৭ জানুয়ারী সকাল সকাল ফখা ইবনে চখা কিংবা শমসের মবিনরে ছাড়িয়া গুলশান এলাকায় আনিয়া দিলে ২৯ জানুয়ারীর হরতাল ডাকা যাইত। সরকার যদি উহাদের মুক্তি না দেয়, আমি নিজেও পলাইব। হরতালের মুল্য আপন পুটু দিয়া পরিশুধ করিতে চাহি না এই সুন্দর ভুবনে।

2 Comments to “রিয়াজের পুটুর ঘা না শুকান পর্যন্ত মামলার তারিখ না ফেলতে খালেদার আইনজীবিদের চাপ”

  1. পুটুর ঘা !
    পুটুর ক্ষত স্থান শুকাইতে দিতে হবে। তা না হলে বেপারটি খারাপ দেখায় গুলশান এলাকায় :পি

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: