Archive for October, 2015

October 31, 2015

ইমরান খানের বিবাহ ভাঙ্গায় কারওয়ানবাজার ও গুলশানে আনন্দ মিছিল

নিজস্ব মতিবেদক

বিবাহের দশ মাসের মাথায় পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও পাকিস্তানের তেহরিকি ইনসাফ দলের আমীর দুর্ধর্ষ প্লেবয় তালুই-এ-তালেবান আল্লামা ইমরান খান নিয়াজীর সংগে তার ২০১৫ সালের বিবি রেহাম খানের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটায় বাংলাদেশের প্রভাবশালী এলাকা কারওয়ানবাজার ও গুলশানে বয়ে গেছে আনন্দের হিল্লোল।

শুক্রবার এক বাদ জুম্মা টুইটার বার্তায় ইমরান খান নিয়াজী নিজের বিবাহ ভাংগার সংবাদ প্রকাশ করেন।

টুইটারে তালুই-এ-তালেবান বলেন, দুস্ট গরুর চেয়ে শুন্য গোয়াল ভাল। অনেক সহ্য করছি, আর নহে। রেহাম বিবিরে তালাক দিয়া দিলুম। আমি আবার সিংগেল। সম্ভ্রান্ত মুসলমান বংশের দুস্টু দুস্টু মেয়েরা আমার বাসায় আসিও। গল্প করব। একা একা ভাল লাগে না।

বিবাহের আসরে মাফ ও দুয়া চাইছেন ইমরান ও রেহাম

আবেগঘন ফন্টে ইমরান খান টুইটারে বলেন, রেহাম খানের রুপের জৌলুশে জিসমের আগুনে ভুলিয়া আমি তাহাকে বিবাহ করিয়া ফেলাই। আমার আব্বি আম্মি আমায় তখন বলছিলেন, বেটা তুর বয়স বাষট্টি, আর ঐ চুড়েলের বয়স বিয়াল্লিশ। জীবনের এই স্লগ ওভারে তুই কি উহার সাথে বেটিং করিয়া কুলাইতে পারিবি? আমি তখন কয়েছিলুম, আব্বিজান! আম্মিজান! ডর মাত, সংগে আছে বিজয় টেবলেট।

হুহু করে কেদে ফেলার ইমটিকন দিয়ে ইমরান খান নিয়াজী টুইটারে বলেন, কিন্তু গত দশ মাসে রেহাম বিবির কার্যকলাপ দেখিয়া বুঝলাম, তাহার সংগে আমি পারিয়া উঠব না। সে বিবিসিতে চাকরি করার নাম করিয়া টেলিভিশনে শুয়রের গুস্ত রান্না করে। আমার তেহরিকি ইনসাফ পাটির নানা কামেও সে আমীরের বেগম হিসাবে খবরদারী করে। তার পাল্লায় পড়িয়া একটি উপ নির্বাচনে আমার জামানত বাজেয়াপ্ত হইয়াছে।

চতুর্থ টুইটে ইমরান ঘোষনা করেন, রেহাম বিবি শুধু নাস্তিকই নহে, সে একটি কুফা। আমার চাপাতিটি কে যেন হাওলাত লইয়াছে। তাই চাপাতির অভাবে উহাকে তালাক দিয়া দিলুম।

ইমরান খান নিয়াজীর এরুপ ঘোষনার পর কারওয়ানবাজার এলাকায় দেশের সর্বাপেক্ষা বিখ্যেত কৃড়া সাংবাদিক উতপুটুন শুভ্র এবং বাংলার সেরা বিজ্ঞাপন নির্মাতা ও টেলিভিশনে ইসলামী অনুষ্ঠান উপস্থাপকদের প্রভাবশালী সংগঠন ‘এশশিয়েশন অফ ইসলামী মিডিয়া পারসনালিটি’র বর্তমান আমীর বাংলার ডেভিড ধাওয়ান আল্লামা মস্তফা সরয়ার ফারুকীর যৌথ নেতৃত্বে একটি আনন্দ মিছিল বের হয়। এ সময় কারওয়ানবাজারের কৃড়া বিভাগের কামলারা একে অপরকে মিস্টিমুখ করান।

আনন্দ মিছিলটি কারওয়ানবাজার প্রদক্ষিন করে এসে কারওয়ানবাজারের কেন্দৃয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান গ্রহন করে। উতপুটুন শুভ্র সেখানে এক শুভেচ্ছা বক্তৃতায় বলেন, ইমরান খান নিয়াজীর অপয়া বিবি ছিল একটি পথের কাটা। আজ ইমরান উহাকে দুর করেছে। একটি বিরাট শুন্য স্থান সৃস্টি হয়েছে। কিন্তু প্রকৃতি শুন্যতা পছন্দ করে না। শুন্য কিছু পাইলেই প্রকৃতি ঐখানে ভরে দেয়।

আবেগঘন কণ্ঠে উতপুটুন শুভ্র বলেন, আল্লামা ইমরান খান ইতিপুর্বেও শয়তানের ওয়াসওয়াসায় ফাসিয়া জমিমা গল্ডস্মিথ নামক এক ইয়াহুদী নারীকে বিবি বানাইয়া ঘরে তুলিয়াছিলেন। তারপর আবার রেহাম বিবির ছলনায় ভুলিয়া উহাকে নিকাহ করিয়াছেন। এইরুপ যাতে আর না হয়, তাই ইমরান খান নিয়াজীকে আহোভান জানাই। এখনও সময় আছে, আসুন আমরা পরস্পর সুখের সংসার বান্ধিয়া ইসলামের পতাকা তলে শামিল হই।

সলজ্জ হেসে উতপুটুন শুভ্র বলেন, আপনি হাঁ বলিলে আমি ওয়াহাব রিয়াজকে না বলিয়া দিব।

শুভেচ্ছা বক্তৃতায় বাংলার ধাওয়ান মস্তফা ফারুকী বলেন, পাকিস্তানে সম্প্রতি ভুমিকম্প হইয়া শত সহস্র মমিন মুসলমান শাহাদত বরন করেছেন। উহাদের জন্য দিলটা পুড়ে। কিছু একটা করতে মন চায়। তাই ইমরান খানকে বিবাহ করিব ঠিক করলাম। ইহা উতপুটুন শুভ্র ভাইয়ের কেস নহে, ইহা কুন কামনা বাসনা লালসার বেপার নহে। এই বিবাহ দুর্গতদের জন্য ত্রান মাত্র। পাকিস্তানের ভুমি এখনও কাপতেছে। কাপাকাপি থামলেই আমি আবার ইমরান খানকে তালাক দিয়া বাংলার বুকে ফিরে আসব।

এদিকে ইমরান খান নিয়াজীর বিবাহ বিচ্ছেদের সংবাদ বাংলাদেশের প্রভাবশালী এলাকা গুলশানে পৌছানর পর সেখানেও আনন্দ ঘন পরিবেশ সৃস্টি হয়। উপস্থিত জাতীয় পাটির নেতারা এ সময় সাবেক স্বৈরাচার রাস্ট্রপতি ও পল্লীবন্ধু ফাদারে কৃকেট শায়েরে আজম আলহাজ্জ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে সংগে নিয়ে আনন্দ মিছিল বের করেন ও পরস্পরকে মিস্টিমুখ করান।

আনন্দ মিছিল নিয়ে গুলশান কুটনৈতিক পাড়া প্রদক্ষিন করে নিজ বাসভবনের সামনে এসে এক বক্তৃতায় ফাদারে কৃকেট পল্লীবন্ধু এরশাদ বলেন, ইমরান খান নিয়াজীর বিবাহ বিচ্ছেদেই প্রমান হয়েছে, বাকশাল সরকার সম্পুর্ন বের্থ। বাকশাল সরকারের বের্থতার কারনেই খানের বেটার এই হাল।

রেহাম খানের রুপের জৌলুশ ও জিসমের আগুনের প্রসংশা করে পল্লীবন্ধু বলেন, রেহাম বিবির বয়স মাত্র বিয়াল্লিশ। ছুটকালে কত ভুল ভ্রান্তিই ত হয়। ইহা কুন বেপারই নহে। বয়সের দুষে রেহাম বিবি ভুলিয়া গেছিল যে অল্ড ইজ গল্ড। সেদিনের পুলা ইমরান খানের পিছে না দৌড়াইয়া সে আমার কাছে আসিলে আজ তার এইরুপ দুর্দশা হত না। তেহরিকি ইনসাফ একটি ফালতু রাজনৈতিক পাটি। পাটির মত পাটি একটাই, সেটি আমার জাতীয় পাটি। রাজনীতী করার খায়েশ হইলে গুলশানে আসিয়া জাতীয় পাটির হাল ধর।

রেহাম খানকে বিবাহের প্রস্তাব দিয়ে সাবেক স্বৈরাচার বলেন, রেহাম তুমি আইস আমার হারেমে, দুইজনাতে থাকব সুখে আরেমে।

October 30, 2015

বিএনপি শাখায় শুদু লাঞ্ছনা বঞ্ছনা গঞ্জনা: শমশের

নিজস্ব মতিবেদক

রাজনীতী হতে অবসর নেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নায়েবে খারিজি, বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির বিলায়েত বিষয়ক উপদেস্টা সাবেক পর রাস্ট্র সচিব ও মনির পুড়ান আন্দুলনের অন্যতম কর্নধার আল্লামা মেজর (অব.) শমশের মবিন চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার নিজ বাসভবনে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে রাজনীতী হতে অবসরের ঘোষনা দেন আল্লামা শমশের।

উপস্থিত সাংবাদিকদের হাতে তিনটি দরখাস্তের ফটকপি বিতরন করে আল্লামা শমশের বলেন, পচাত্তরের ১৫ আগষ্ট হতেই আমি বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার প্রতিষ্ঠাতা আমীর একাত্তরের রেম্ব ও পচাত্তরের টার্মিনেটর জেনারেল রাজ জেনারেল জিয়াউর রহমানের ঘনিস্ট সহচর। একাত্তরে তার অধীনে মুক্তিযুদ্ধ করে শরীলে বেথা পাইছিলাম। কিন্তু বাকশাল সরকার আমার বেথার কুন মুল্যায়ন করে নাই। পর রাস্ট্র মন্ত্রনালয়ে কামাল হোসেনের কামলা বানাইয়া একটি টেবিল ও একটি চেয়ার ধরাইয়া দিয়া বাকশাল সরকার আমায় বহাইয়া রাখছিল।

স্মৃতিঘন কণ্ঠে শমশের মবিন বলেন, আমার কিসমত খুলিয়া যায় পচাত্তরে ঈদুল কতলের পর। কামাল মোক্তার তখন আজকের বড় গুণ্ডের নেয় মাজার চিকিতসা করাইতে লনডনে লুকাইয়া আছিলেন। জেনারেল রাজ তাই আমায় ডাকিয়া বললেন, শমশের তুই ফরেন মিনিষ্টৃটারে সাইজ কর। টেকাটুকা যা লাগে আমি দিমু। মানি ইজ ন পবলেম। আই শেল মেক ফরেন মিনিষ্টৃ ডিফিকাল্ট ফর ফরেনারস। সেই হতে শুরু। শেখের খুনীদের দেশের বাইরে নানা এমবাসিতে চাকরী দিয়া আমিই তাদের সাইজ করিয়াছিলাম। আজও উহারা প্রতি শবে বরাতে আমায় কাড পাঠাইয়া মেহেরবানী জানায়।

দির্ঘশ্বাস ফেলে আল্লামা শমশের বলেন, তারপর ঝিলম নদীতে কত জল বহিয়া গেল। মাদারে গনতন্ত্রর আমলে পর রাস্ট্র সচিব হইলাম। তারপর মাদারে গনতন্ত্রকে কয়েক কুটি টেকা সেলামী দিয়া উনার বিলায়েত বিষয়ক উপদেস্টা হইলাম। বাকশাল সরকার পুনরায় ক্ষমতায় আসার পর বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও বর্তমান আমীর এট লার্জ ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী পলাতক চিকিতসাধীন তরুন নেতৃত্ব মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট বড় গনতন্ত্র বড় গুন্ডে লাদেন-এ-লনডন তারেক জিয়াকে কয়েক কুটি টেকা সেলামী দিয়া উনারও বিলায়েত বিষয়ক হিটমেন হইলাম। আহা সেই সুনালী দিন।

হুহু করে কেদে ফেলে আল্লামা শমশের বলেন, কিন্তু গন আর দউজ গল্ডেন ডেজ। আজ বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখা জুড়ে শুধু লাঞ্ছনা বঞ্ছনা গঞ্জনা। কুন সালা নায়েবের বাচ্চা মান সম্মান নিয়া দুটু ভাল মন্দ খাইতে পরতে পারে না। তাই আজ আমি দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে বিএনপি শাখা হতে ইস্তফা দিতেছি। এক তালাক, দুই তালাক, তিন তালাক।

উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, বিএনপি শাখায় শহীদ জিয়ার আদর্শ আর নাই।

নিজের অবস্থান বেখ্যা করে আল্লামা শমশের বলেন, বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার জন্ম শহীদ জিয়ার হাতে। সেই আদর্শের একমাত্র বাহক আজ তার একমাত্র পুত্র বড় গুণ্ডের হাতে। তিনি দির্ঘদিন যাবত লন্ডনে চিকিতসাধীন আছেন। পিতার মত উনি শহীদ হইতে পারেন নাই, মরীজ অবস্থায় আছেন। শহীদ জিয়ার হাতে বিএনপির আদর্শ ছিল বলবান ও পরিষ্কার। কিন্তু মরীজ জিয়ার হাতে পড়িয়া এই আদর্শের সাইজ এখন ক্ষুদ্র হতে ক্ষুদ্রতর হইতেছে।

শহীদ জিয়ার আমলে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আদর্শের সাইজ

নিজের নানা চাওয়া পাওয়ার কথা তুলে ধরে শমশের মবিন বলেন, আপনারা জানেন, সারা দেশে সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী দিগের বেতন গত দশ বছরে তিন গুনেরও বেশী বাড়িয়াছে। কিন্তু বিএনপি শাখার নায়েবদিগের বেতন এক পয়সা বাড়ে নাই। এই নিয়া দাবী দাওয়া জানাইতে গেলে মেডাম বকা দেয়। বড় গুণ্ডে গালাগালি করে। অতছ বিরুধী দলে নায়েব পদে থাকা মানেই দুই হাতে খরচ করা। আজ ইহাকে ভাড়া করিয়া পেট্রল বমা মারিয়া মনির পুড়াও রে, কাল উহাকে ভাড়া করিয়া বিদেশীর বডি ফালাও রে।

অশ্রু মুছে কান্নাঘন কণ্ঠে আল্লামা শমশের বলেন, সচিব থাকা কালে আল্লাহর বরকতে যে দুই তিন শত কুটি টেকা কামাই করছিলাম, সবই বিরুধী দলের নায়েবের চাকরি করতে গিয়া খরচ করিয়া ফেললাম। বড় গুণ্ডের নিকট পয়সা চাহিলে সে গালি দিয়া বলে, টেকা কি বলদের পুটু দিয়া বাইর হয় নাকি? যা যা, নিজের রাজনীতী নিজের টেকায় কর।

মরীজ জিয়ার আমলে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আদর্শের সাইজ

পাঞ্জাবীর হাতায় কান্না দমন করে শমশের মবিন বলেন, শহীদ জিয়ার আমলে বিএনপির আদর্শ ছিল মানি ইজ নট এ পবলেম। আজ মানিই সর্বাপেক্ষা বড় পবলেম। সকল টেকা টেন্ডার চান্দাবাজি বাকশাল ছাত্রলীগ যুবলীগ শিশুলীগ খাইয়া ফেলে। আমরা নয়টি বতসর ধরিয়া গদির বাইরে পড়িয়া কুন কারবার না করিয়া পেটে গেষ্টৃক বানাইয়া ফেলিয়াছি। এইভাবে খালি পেটে রাজনীতী আর নহে। আমি এখন অবসরে যাব।

তিনটি দরখাস্ত তুলে ধরে আল্লামা শমশের বলেন, আমার প্রথম দরখাস্ত বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’, লনডনে পলাতক চিকিতসাধীন আওলাদে আমীর বড় গুণ্ডে কতৃক ‘হাইড এন্ড সিক’ গালিতে ভুষিত ও ঈদুল কতলের টেলেন্ট হান্ট প্রতিযোগীতায় ‘ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি’ খেতাবে সমাদৃত মির্জা বাড়ির বড় গৌরব আল্লামা মির্জা ফখরুল ইসলাম আগুনগীর ওরফে ফখা ইবনে চখা বরাবর। উহার কাছে আমি আমার দ্বীতিয় দরখাস্ত পিন মারিয়া বলছি, এই দরখাস্ত মাদারে গনতন্ত্র বরাবর ফরওয়াড করিয়া দেন।

দ্বীতিয় দরখাস্তে কি আছে, এমন প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, দ্বীতিয় দরখাস্ত মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসি বরাবর। উনার কাছে আমি আমার তৃতীয় দরখাস্ত পিন মারিয়া বলছি, এই দরখাস্ত আওলাদে আমীর বরাবর ফরওয়াড করিয়া দেন।

তৃতীয় দরখাস্তে কি আছে, এমন প্রশ্নের জবাবে আল্লামা শমশের বলেন, বড় গুণ্ডেকে সত্য কথা বলার সাহস পাই নাই। সত্য কথা বললে সে আমায় মুঠফুন মারিয়া গালাগালি করবে। মনির পুড়ানি আন্দুলনের সময় সে পত্যেক দিন রাত্র কালে আমায় ঘুম হইতে তুলিয়া বলত, কি রে শমশের বানচুদ, আজ কয়টা মনির পুড়াইলি হিসাব না দিয়াই ঘুমাস কেরে? তারে যতই বলি বড় ভাই আজ আমি বড় টায়াড, সে ততই রাগারাগি করত। উহাকে সত্য কথা বলিয়া কুন শুটার রুবেলের গুলি খাওয়ার ইচ্ছা আমার নাই।

তৃতীয় দরখাস্তের বিষয়বস্তু সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরে শমশের মবিন বলেন, এই দরখাস্তে বলিয়াছি,

পৃয় বড় ভাই,
সালাম নিবেন। পর সমাচার এই যে, আমি একাত্তরে আপুনার পিতা একাত্তরের রেম্ব জেনারেল রাজ জিয়াউর রহমানের অধীনে যুদ্ধ করতে গিয়া আহত হই ও বেথা পাই। এর পর জীবনে অনেক কিছু করিয়াছি। যখন শেখের খুনীদের বিদেশী দুতাবাসে চাকরি দিয়া পাঠাইলাম, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। পর রাস্ট্র সচিব হইয়া যখন ওয়াশিংটনে গিয়া ভরা মজলিশে দাবী করলাম একাত্তর সালে মাত্র তিন লক্ষ বাংগালী মরছে, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। গত দুই বছর যখন গনতন্ত্র পতিস্ঠা করতে গিয়া শত শত মনির পুড়ানির আন্দুলন তদারকি করলাম, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। কিন্তু এখন উইন্টার ইজ কামিং। গুলশানে রংপুরে বিদেশী খুনের পিছনে বড় ভাইদের হদিশ তদন্ত চলতেছে। কুন তদন্তে কি বাইর হইয়া আসে তার নাই কুন ঠিক। এমতাবস্থায় আমার শিরায় শিরায় গিরায় গিরায় শুধু একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধা খাতে খাওয়া মাইরের বেথা। এত বেথা নিয়া আর বিএনপি করতে পারতেছি না। বিদায় বড়ে মালিক। পাক সার জমিন সাদ বাদ।

ইতি
আপনার গুলামের ঘরের গুলাম শমশের।

বিএনপি শাখা তেগ করে অন্য কোন রাজনৈতিক দলে যোগ দিবেন কিনা, এমন প্রশ্নের সরাসরি উত্তর না দিয়ে আল্লামা শমশের বলেন, বিএনপি শাখায় আমি ছিলুম ভাইস চেয়ারমেন। ভাইয়ের চেয়ার কান্ধে নিয়ে ঘুরিতাম। এই বয়সে নতুন কুন রাজনৈতিক দলে যুগ দিয়া নতুন বড় ভাইদের চেয়ার কান্ধে নিয়া ঘুরার শক্তি আমার নাই।

সাংবাদিকরা আরও চাপাচাপি করলে সলজ্জ হেসে শমশের মবিন বলেন, যদি দেশে পচাত্তরের নেয় কুন মেজরের দল নতুন কুন দল খুলে, তাহলে মুরুব্বী হিসাবে হয়ত তাদের সংগে থাকব, পর রাস্ট্র নিয়া দুটু পরামিশ দিব। আর যদি তারা জুরাজুরি করে তখন নাহয় অনুরুপ কুন দলে আমীর হব। কিন্তু বদরুদ্দুজা কিংবা নজমুল হুদার মত লাফাংগার নেয় নতুন দল খুলিয়া সার্কাস খেলিবার ইচ্ছা আমার নাই।

হুহু করে কেদে ফেলে শমশের বলেন, শরীলটা ভাল না। বিএনপি শাখার আমীর আর আওলাদে আমীরের কথা বাদই দিলাম। নায়েবরা পযন্ত সকলে চিকিতসার খাতিরে বিদেশে। আল্লামা খোকা নিউ ইয়র্কে, আল্লামা সালাউদ্দিন শিলঙ্গে, আল্লামা মির্জা আব্বাস নিখোজ। জাপানী মারিয়া আল্লামা হাবু সোহেল দিল্লীতে গরুর ছদ্মবেশে খুরা রোগের চিকিতসা লইতেছে শুনছি। ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর ফখা ইবনে চখা আজ যুক্ত রাস্ট্র কাল সিংগাপুর পরশু বেংককে চিকিতসা নিয়া বেড়াইতেছে। আমি শমশের কি বানের পানিতে ভাসিয়া বিএনপি শাখায় আসছি যে দেশে চিকিতসা করাইব? অতছ স্বৈরাচার বাকশাল আমায় পাসপুট দেয় না। কখন আমায় বড় ভাই বানাইয়া রিমান্ডে নিয়া ডিম দেয় তার নাই ঠিক।

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহোভান জানিয়ে আল্লামা শমশের বলেন, পচাত্তর সালের পর হইতে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযুদ্ধা দিগের বারটা বাজাইয়া আসিতেছি। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লুকজন যাদের হাতে সর্বাপেক্ষা পুটু মারা খায়, সেই বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আমি নায়েবে খারিজি। কিন্তু এখন যেহেতু দিনকাল ভাল নহে, তাই আবার ডিগবাজি দিয়া আলমারীর নিচের তাক হইতে নেপথলীন দেওয়া মুক্তিযুদ্ধা সাটিফিকেটটি বাহির করিয়াছি। আপনারা সবাই ঐক্যবদ্ধ হন। জয় বাংলা।

অবসর জীবন কিভাবে কাটাবেন, এ প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, সবার আগে নাম পাল্টাইব। সবাই জানে শমশের মবিন বাসে ট্রাকে টেম্পুতে আগুন দেয়। পথে ঘাটে মানুষের নিকট মুখ দেখাইতে পারি না। নাম পাল্টাইয়া এখন অবসর মবিন চৌধুরী হব। তারপর লিখালিখি করব। আর তেলাপুকায় খাওয়া এলবাম ঘাটিয়া মুক্তিযুদ্ধের ছবি উল্টাইয়া পাল্টাইয়া দেখিব।

কি লিখালিখি করবেন এমন প্রশ্নের উত্তরে আল্লামা শমশের হাসতে হাসতে বলেন, এরশাদ ছার কবিতা লিখেন। উনাকে এসএমএস করিয়া বলছি, আমারে নিবা মাঝি? এরশাদ ছার বলছেন, এক বুতল ব্লেক লেবেল নিয়া চলিয়া আয়, দেখি কিছু শিখাইতে পারি নাকি।

জনগনের কাছে আগাম মাফ ও দুয়া চেয়ে শমশের মবিন চৌধুরী বলেন, আছিলাম শুয়র হইলাম শায়ের।

October 29, 2015

বেবী গাণ্ডেকে ভারতে আমন্ত্রন জানালেন হাবু সোহেল

দিল্লী মতিনিধি

পরিবেশের অভাবে বাংলা ছেড়ে যুক্ত রাস্ট্রে পাড়ি জমান বাংলার গানের রাজহাঁস ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার সংস্কৃতী উপশাখার সংগীত পাতিশাখার শিল্পী বেবী গাণ্ডেকে ভারতে চলে আসার আমন্ত্রন জানিয়েছে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহানগর উপশাখার নায়েবে আমীর ও জাপানী নাগরিক কুনিও হশি হত্যা মামলার সন্দেহ ভাজন বড় ভাই আল্লামা হাবিবুন নবী খান সোহেল ওরফে হাবু সোহেল।

আজ দিল্লীতে দি এমপেরিয়াল হোটেল এন্ড গেষ্ট হাউস থেকে মতিকণ্ঠকে দেওয়া এক অন্তরংগ সাক্ষাতকারে বেবী গান্ডে বরাবর এই আমন্ত্রন জানান আল্লামা হাবু সোহেল।

সাক্ষাতকারে আল্লামা হাবু সোহেল বলেন, ভারতে আত্মগুপন করে আছি আলহামদুলিল্লাহ। আপনারা আমার জন্য দুয়া করবেন।

আবেগঘন কণ্ঠে হাবু সোহেল বলেন, জাপানী নাগরিক কুনিও হশির জন্য বাকশাল সরকারের দরদ দেখিয়া আমি লাজওয়াব। উহাকে কতল করতে না করতেই রেব পুলিশ বিজিবি ডিবির দৌড়ানি খাইয়া দুশমনের দেশ হিন্দুস্তানে আইলাম। ইহা আবার কেমুন গনতন্ত্র?

দেশে বর্তমানে বাক স্বাধীনতা নাই জানিয়ে আল্লামা হাবু সোহেল বলেন, দুই চারটা মনির মারলেই বর্তমানে সরকার অত্যান্ত খারাপ আচরন করে। গ্রেফতার করিয়া অপমান করার চেস্টা করে। রিমান্ডের কথা আর বললাম না। এইভাবে যদি তারা ক্রমাগত মানী লোকের বাক স্বাধীনতা হরন করতে থাকে, তাহলে আমরা হাড লাইনে যাইতে বাধ্য হব।

দিল্লীর লাড্ডু হাবু সোহেল

মানুষ হত্যার সাথে বাক স্বাধীনতার কি সম্পর্ক, জানতে চাইলে হাবু সোহেল বলেন, বুঝেনই ত।

কুনিও হশি হত্যার দায়িত্ব স্বিকারের জন্য আইসিসকে কঠর তিরস্কার করে আল্লামা হাবু সোহেল বলেন, বডি ফালাইলাম আমি আর হাততালি খায় আইসিস। এলাকার পুলাপান যারা জাপানী হত্যা করল, উহাদের হাদিয়া বাবদ বড় গুণ্ডের নিকট বকেয়া টেকা চাইতে গেলাম যখন, বড় গুণ্ডে হাসতে হাসতে আমায় মুঠফুনে বলল, জাপানী মারল আইসিস, তুমায় টেকা দিব কেনে?

হুহু করে কেদে ফেলে হাবু সোহেল বলেন, জাপানীকে যারা ফেলিয়াছে, উহারা টেকার জন্য এখন আমায় দুই বেলা মুঠফুন মারিয়া ধমকায়। আইসিসের কারনে আমায় সমাজ সংসার তেগ করিয়া দুশমনের দেশ দিল্লীতে আসিয়া থাকতে হইতেছে। আমি বাকশাল সরকারের কাছে ইহার বিচার চাই।

অশ্রু মুছে আল্লামা হাবু সোহেল বলেন, দিল্লীতে ভালই আছি আলহামদুলিল্লাহ। গরুর ছদ্মবেশে রাস্তা ঘাটে ঘুরিয়া বেড়াই, ডাবের খোসা চাবাই। মাঝে মধ্যে দোকান হইতে সিংগারা সমচা চিপস বিস্কুট গলা বাড়াইয়া ভক্ষন করি, কেউ কিছু বলে না।

ভারতের প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মদীর প্রসংশা করে হাবু সোহেল বলেন, নরুর দেশে গরুর জীবন আরাম বড় ভাই, এখন আমার লাগবে একটি নধর তনু গাই।

সলজ্জ হেসে বাংলার গানের রাজহাঁস বেবী গাণ্ডেকে দিল্লী চলে আসার আমন্ত্রন জানিয়ে হাবু সোহেল বলেন, দেশে গান গাওয়ার পরিবেশ নাই। পদে পদে পেট্রল বম, চাপাতি, গ্রেনেড। আজকে জাপানী মরতেছে ত কালকে শিয়াদের তাজিয়া বম পড়তেছে। বেবী গাণ্ডে তাই পরিবেশের সন্ধানে বিদেশে চলিয়া গেছেন। আমি উনাকে বলতে চাই, দিল্লী চলিয়া আসেন। গরু সাজিয়া ঘুরিবেন ফিরিবেন হাম্বা হাম্বা করিবেন, কুন সালা কিচ্ছু কবে না।

আবেগঘন কণ্ঠে আল্লামা হাবু সোহেল বলেন, এলমেল বাতাসে উড়িয়ে দে শাড়ির আছল।

%d bloggers like this: