বিএনপি শাখায় শুদু লাঞ্ছনা বঞ্ছনা গঞ্জনা: শমশের

নিজস্ব মতিবেদক

রাজনীতী হতে অবসর নেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নায়েবে খারিজি, বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির বিলায়েত বিষয়ক উপদেস্টা সাবেক পর রাস্ট্র সচিব ও মনির পুড়ান আন্দুলনের অন্যতম কর্নধার আল্লামা মেজর (অব.) শমশের মবিন চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার নিজ বাসভবনে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে রাজনীতী হতে অবসরের ঘোষনা দেন আল্লামা শমশের।

উপস্থিত সাংবাদিকদের হাতে তিনটি দরখাস্তের ফটকপি বিতরন করে আল্লামা শমশের বলেন, পচাত্তরের ১৫ আগষ্ট হতেই আমি বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার প্রতিষ্ঠাতা আমীর একাত্তরের রেম্ব ও পচাত্তরের টার্মিনেটর জেনারেল রাজ জেনারেল জিয়াউর রহমানের ঘনিস্ট সহচর। একাত্তরে তার অধীনে মুক্তিযুদ্ধ করে শরীলে বেথা পাইছিলাম। কিন্তু বাকশাল সরকার আমার বেথার কুন মুল্যায়ন করে নাই। পর রাস্ট্র মন্ত্রনালয়ে কামাল হোসেনের কামলা বানাইয়া একটি টেবিল ও একটি চেয়ার ধরাইয়া দিয়া বাকশাল সরকার আমায় বহাইয়া রাখছিল।

স্মৃতিঘন কণ্ঠে শমশের মবিন বলেন, আমার কিসমত খুলিয়া যায় পচাত্তরে ঈদুল কতলের পর। কামাল মোক্তার তখন আজকের বড় গুণ্ডের নেয় মাজার চিকিতসা করাইতে লনডনে লুকাইয়া আছিলেন। জেনারেল রাজ তাই আমায় ডাকিয়া বললেন, শমশের তুই ফরেন মিনিষ্টৃটারে সাইজ কর। টেকাটুকা যা লাগে আমি দিমু। মানি ইজ ন পবলেম। আই শেল মেক ফরেন মিনিষ্টৃ ডিফিকাল্ট ফর ফরেনারস। সেই হতে শুরু। শেখের খুনীদের দেশের বাইরে নানা এমবাসিতে চাকরী দিয়া আমিই তাদের সাইজ করিয়াছিলাম। আজও উহারা প্রতি শবে বরাতে আমায় কাড পাঠাইয়া মেহেরবানী জানায়।

দির্ঘশ্বাস ফেলে আল্লামা শমশের বলেন, তারপর ঝিলম নদীতে কত জল বহিয়া গেল। মাদারে গনতন্ত্রর আমলে পর রাস্ট্র সচিব হইলাম। তারপর মাদারে গনতন্ত্রকে কয়েক কুটি টেকা সেলামী দিয়া উনার বিলায়েত বিষয়ক উপদেস্টা হইলাম। বাকশাল সরকার পুনরায় ক্ষমতায় আসার পর বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও বর্তমান আমীর এট লার্জ ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী পলাতক চিকিতসাধীন তরুন নেতৃত্ব মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট বড় গনতন্ত্র বড় গুন্ডে লাদেন-এ-লনডন তারেক জিয়াকে কয়েক কুটি টেকা সেলামী দিয়া উনারও বিলায়েত বিষয়ক হিটমেন হইলাম। আহা সেই সুনালী দিন।

হুহু করে কেদে ফেলে আল্লামা শমশের বলেন, কিন্তু গন আর দউজ গল্ডেন ডেজ। আজ বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখা জুড়ে শুধু লাঞ্ছনা বঞ্ছনা গঞ্জনা। কুন সালা নায়েবের বাচ্চা মান সম্মান নিয়া দুটু ভাল মন্দ খাইতে পরতে পারে না। তাই আজ আমি দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে বিএনপি শাখা হতে ইস্তফা দিতেছি। এক তালাক, দুই তালাক, তিন তালাক।

উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, বিএনপি শাখায় শহীদ জিয়ার আদর্শ আর নাই।

নিজের অবস্থান বেখ্যা করে আল্লামা শমশের বলেন, বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার জন্ম শহীদ জিয়ার হাতে। সেই আদর্শের একমাত্র বাহক আজ তার একমাত্র পুত্র বড় গুণ্ডের হাতে। তিনি দির্ঘদিন যাবত লন্ডনে চিকিতসাধীন আছেন। পিতার মত উনি শহীদ হইতে পারেন নাই, মরীজ অবস্থায় আছেন। শহীদ জিয়ার হাতে বিএনপির আদর্শ ছিল বলবান ও পরিষ্কার। কিন্তু মরীজ জিয়ার হাতে পড়িয়া এই আদর্শের সাইজ এখন ক্ষুদ্র হতে ক্ষুদ্রতর হইতেছে।

শহীদ জিয়ার আমলে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আদর্শের সাইজ

নিজের নানা চাওয়া পাওয়ার কথা তুলে ধরে শমশের মবিন বলেন, আপনারা জানেন, সারা দেশে সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী দিগের বেতন গত দশ বছরে তিন গুনেরও বেশী বাড়িয়াছে। কিন্তু বিএনপি শাখার নায়েবদিগের বেতন এক পয়সা বাড়ে নাই। এই নিয়া দাবী দাওয়া জানাইতে গেলে মেডাম বকা দেয়। বড় গুণ্ডে গালাগালি করে। অতছ বিরুধী দলে নায়েব পদে থাকা মানেই দুই হাতে খরচ করা। আজ ইহাকে ভাড়া করিয়া পেট্রল বমা মারিয়া মনির পুড়াও রে, কাল উহাকে ভাড়া করিয়া বিদেশীর বডি ফালাও রে।

অশ্রু মুছে কান্নাঘন কণ্ঠে আল্লামা শমশের বলেন, সচিব থাকা কালে আল্লাহর বরকতে যে দুই তিন শত কুটি টেকা কামাই করছিলাম, সবই বিরুধী দলের নায়েবের চাকরি করতে গিয়া খরচ করিয়া ফেললাম। বড় গুণ্ডের নিকট পয়সা চাহিলে সে গালি দিয়া বলে, টেকা কি বলদের পুটু দিয়া বাইর হয় নাকি? যা যা, নিজের রাজনীতী নিজের টেকায় কর।

মরীজ জিয়ার আমলে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আদর্শের সাইজ

পাঞ্জাবীর হাতায় কান্না দমন করে শমশের মবিন বলেন, শহীদ জিয়ার আমলে বিএনপির আদর্শ ছিল মানি ইজ নট এ পবলেম। আজ মানিই সর্বাপেক্ষা বড় পবলেম। সকল টেকা টেন্ডার চান্দাবাজি বাকশাল ছাত্রলীগ যুবলীগ শিশুলীগ খাইয়া ফেলে। আমরা নয়টি বতসর ধরিয়া গদির বাইরে পড়িয়া কুন কারবার না করিয়া পেটে গেষ্টৃক বানাইয়া ফেলিয়াছি। এইভাবে খালি পেটে রাজনীতী আর নহে। আমি এখন অবসরে যাব।

তিনটি দরখাস্ত তুলে ধরে আল্লামা শমশের বলেন, আমার প্রথম দরখাস্ত বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’, লনডনে পলাতক চিকিতসাধীন আওলাদে আমীর বড় গুণ্ডে কতৃক ‘হাইড এন্ড সিক’ গালিতে ভুষিত ও ঈদুল কতলের টেলেন্ট হান্ট প্রতিযোগীতায় ‘ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি’ খেতাবে সমাদৃত মির্জা বাড়ির বড় গৌরব আল্লামা মির্জা ফখরুল ইসলাম আগুনগীর ওরফে ফখা ইবনে চখা বরাবর। উহার কাছে আমি আমার দ্বীতিয় দরখাস্ত পিন মারিয়া বলছি, এই দরখাস্ত মাদারে গনতন্ত্র বরাবর ফরওয়াড করিয়া দেন।

দ্বীতিয় দরখাস্তে কি আছে, এমন প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, দ্বীতিয় দরখাস্ত মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসি বরাবর। উনার কাছে আমি আমার তৃতীয় দরখাস্ত পিন মারিয়া বলছি, এই দরখাস্ত আওলাদে আমীর বরাবর ফরওয়াড করিয়া দেন।

তৃতীয় দরখাস্তে কি আছে, এমন প্রশ্নের জবাবে আল্লামা শমশের বলেন, বড় গুণ্ডেকে সত্য কথা বলার সাহস পাই নাই। সত্য কথা বললে সে আমায় মুঠফুন মারিয়া গালাগালি করবে। মনির পুড়ানি আন্দুলনের সময় সে পত্যেক দিন রাত্র কালে আমায় ঘুম হইতে তুলিয়া বলত, কি রে শমশের বানচুদ, আজ কয়টা মনির পুড়াইলি হিসাব না দিয়াই ঘুমাস কেরে? তারে যতই বলি বড় ভাই আজ আমি বড় টায়াড, সে ততই রাগারাগি করত। উহাকে সত্য কথা বলিয়া কুন শুটার রুবেলের গুলি খাওয়ার ইচ্ছা আমার নাই।

তৃতীয় দরখাস্তের বিষয়বস্তু সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরে শমশের মবিন বলেন, এই দরখাস্তে বলিয়াছি,

পৃয় বড় ভাই,
সালাম নিবেন। পর সমাচার এই যে, আমি একাত্তরে আপুনার পিতা একাত্তরের রেম্ব জেনারেল রাজ জিয়াউর রহমানের অধীনে যুদ্ধ করতে গিয়া আহত হই ও বেথা পাই। এর পর জীবনে অনেক কিছু করিয়াছি। যখন শেখের খুনীদের বিদেশী দুতাবাসে চাকরি দিয়া পাঠাইলাম, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। পর রাস্ট্র সচিব হইয়া যখন ওয়াশিংটনে গিয়া ভরা মজলিশে দাবী করলাম একাত্তর সালে মাত্র তিন লক্ষ বাংগালী মরছে, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। গত দুই বছর যখন গনতন্ত্র পতিস্ঠা করতে গিয়া শত শত মনির পুড়ানির আন্দুলন তদারকি করলাম, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। কিন্তু এখন উইন্টার ইজ কামিং। গুলশানে রংপুরে বিদেশী খুনের পিছনে বড় ভাইদের হদিশ তদন্ত চলতেছে। কুন তদন্তে কি বাইর হইয়া আসে তার নাই কুন ঠিক। এমতাবস্থায় আমার শিরায় শিরায় গিরায় গিরায় শুধু একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধা খাতে খাওয়া মাইরের বেথা। এত বেথা নিয়া আর বিএনপি করতে পারতেছি না। বিদায় বড়ে মালিক। পাক সার জমিন সাদ বাদ।

ইতি
আপনার গুলামের ঘরের গুলাম শমশের।

বিএনপি শাখা তেগ করে অন্য কোন রাজনৈতিক দলে যোগ দিবেন কিনা, এমন প্রশ্নের সরাসরি উত্তর না দিয়ে আল্লামা শমশের বলেন, বিএনপি শাখায় আমি ছিলুম ভাইস চেয়ারমেন। ভাইয়ের চেয়ার কান্ধে নিয়ে ঘুরিতাম। এই বয়সে নতুন কুন রাজনৈতিক দলে যুগ দিয়া নতুন বড় ভাইদের চেয়ার কান্ধে নিয়া ঘুরার শক্তি আমার নাই।

সাংবাদিকরা আরও চাপাচাপি করলে সলজ্জ হেসে শমশের মবিন বলেন, যদি দেশে পচাত্তরের নেয় কুন মেজরের দল নতুন কুন দল খুলে, তাহলে মুরুব্বী হিসাবে হয়ত তাদের সংগে থাকব, পর রাস্ট্র নিয়া দুটু পরামিশ দিব। আর যদি তারা জুরাজুরি করে তখন নাহয় অনুরুপ কুন দলে আমীর হব। কিন্তু বদরুদ্দুজা কিংবা নজমুল হুদার মত লাফাংগার নেয় নতুন দল খুলিয়া সার্কাস খেলিবার ইচ্ছা আমার নাই।

হুহু করে কেদে ফেলে শমশের বলেন, শরীলটা ভাল না। বিএনপি শাখার আমীর আর আওলাদে আমীরের কথা বাদই দিলাম। নায়েবরা পযন্ত সকলে চিকিতসার খাতিরে বিদেশে। আল্লামা খোকা নিউ ইয়র্কে, আল্লামা সালাউদ্দিন শিলঙ্গে, আল্লামা মির্জা আব্বাস নিখোজ। জাপানী মারিয়া আল্লামা হাবু সোহেল দিল্লীতে গরুর ছদ্মবেশে খুরা রোগের চিকিতসা লইতেছে শুনছি। ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর ফখা ইবনে চখা আজ যুক্ত রাস্ট্র কাল সিংগাপুর পরশু বেংককে চিকিতসা নিয়া বেড়াইতেছে। আমি শমশের কি বানের পানিতে ভাসিয়া বিএনপি শাখায় আসছি যে দেশে চিকিতসা করাইব? অতছ স্বৈরাচার বাকশাল আমায় পাসপুট দেয় না। কখন আমায় বড় ভাই বানাইয়া রিমান্ডে নিয়া ডিম দেয় তার নাই ঠিক।

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহোভান জানিয়ে আল্লামা শমশের বলেন, পচাত্তর সালের পর হইতে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযুদ্ধা দিগের বারটা বাজাইয়া আসিতেছি। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লুকজন যাদের হাতে সর্বাপেক্ষা পুটু মারা খায়, সেই বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আমি নায়েবে খারিজি। কিন্তু এখন যেহেতু দিনকাল ভাল নহে, তাই আবার ডিগবাজি দিয়া আলমারীর নিচের তাক হইতে নেপথলীন দেওয়া মুক্তিযুদ্ধা সাটিফিকেটটি বাহির করিয়াছি। আপনারা সবাই ঐক্যবদ্ধ হন। জয় বাংলা।

অবসর জীবন কিভাবে কাটাবেন, এ প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, সবার আগে নাম পাল্টাইব। সবাই জানে শমশের মবিন বাসে ট্রাকে টেম্পুতে আগুন দেয়। পথে ঘাটে মানুষের নিকট মুখ দেখাইতে পারি না। নাম পাল্টাইয়া এখন অবসর মবিন চৌধুরী হব। তারপর লিখালিখি করব। আর তেলাপুকায় খাওয়া এলবাম ঘাটিয়া মুক্তিযুদ্ধের ছবি উল্টাইয়া পাল্টাইয়া দেখিব।

কি লিখালিখি করবেন এমন প্রশ্নের উত্তরে আল্লামা শমশের হাসতে হাসতে বলেন, এরশাদ ছার কবিতা লিখেন। উনাকে এসএমএস করিয়া বলছি, আমারে নিবা মাঝি? এরশাদ ছার বলছেন, এক বুতল ব্লেক লেবেল নিয়া চলিয়া আয়, দেখি কিছু শিখাইতে পারি নাকি।

জনগনের কাছে আগাম মাফ ও দুয়া চেয়ে শমশের মবিন চৌধুরী বলেন, আছিলাম শুয়র হইলাম শায়ের।

2 Comments to “বিএনপি শাখায় শুদু লাঞ্ছনা বঞ্ছনা গঞ্জনা: শমশের”

  1. তুমুল

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: