হামার পচাস রুপেয়া কে লিল: সেলিম

নিজস্ব মতিবেদক

দেশের মাথাপিছু আয় বাড়লেও কমরেড ও ক্ষেতমজুরদের মাথা গননায় কারচুপি হয়েছে দাবী করে মাথাপিছু আয় পুনর্গননার দাবী জানিয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার সিপিবি-বাসদ উপশাখার আমীর কমরেড আল্লামা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম।

বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহে বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতির নবম সম্মেলনের উদ্ভোদন অনুষ্ঠানে বক্তব্যে এ দাবী তোলেন কমরেড আল্লামা সেলিম।

ক্ষেতমজুর আন্দুলনের সাবেক নেতা কমরেড আল্লামা সেলিম বলেন, ফেসিবাদী বাকশাল সরকার একদিকে যেমন পুলিশ লেলাইয়া দিয়া দেশের আপামর মুক্তিকামী শুষিত নীপীড়ীত জনতার পুটু হতে ধুলা উড়াইতেছে, তেমনি একাউন্টেন্ট লেলাইয়া দিয়া কেলকুলেটরের বাড়ি মারিয়া দেশের ভুখা নাংগা গরীবদিগকে ঠকাইতেছে। সেদিন রাত্র কালে ঘুমাইতে গেলাম গরিব দেশের নাগরিক হিসাবে। সকালে উঠিয়া আতকা দেখি আমি মধ্যম আয়ের দেশের লুক। বাকশালী রাস্ট্রে আর কত তামশা দেখব?

আবেগঘন কণ্ঠে কমরেড আল্লামা সেলিম বলেন, সরকার সারা দুনিয়ায় ঢোল পিটাইয়া কইতেছে, আমাদিগের জনপ্রতি আয় বতসরে এক লাখ টেকা। তাহলে ক্ষেতমজুরদের জীবন এত কষ্টের কেনে? আমার বখরার গ্রামীন বরাদ্দ গেল কুণ্ঠে?


কতিপয় ক্ষেতমজুরের মাঝে কমরেড আল্লামা সেলিম

হুহু করে কেদে উঠে কমরেড আল্লামা সেলিম বলেন, আমার আয় বতসরে এক লক্ষ নয়, এক কুটি টেকা। কিন্তু সে আয় অন্য লাইনের আয়। রাজনীতী লাইনে দুটু বেবসা করে কুনমতে খাই পরি। পুত্র কন্যাকে বিলাত আমেরিকা পড়তে পাঠাই। কিন্তু ক্ষেতমজুর লাইনে আমার কুন বরাদ্দই এখন পযন্ত বুঝিয়া পাই নাই।

হাউমাউ করে কেদে ফেলে সেলিম বলেন, হামার পচাস রুপেয়া কে লিল?

এ সময় উপস্থিত ক্ষেতমজুর বৃন্দ কমরেড আল্লামা সেলিমকে হরলিকস পান করিয়ে শান্ত করেন ও তার জন্য গ্রামীন বরাদ্দ চেয়ে আল্লাহর নিকট মুনাজাত করেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত তেল গেস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুত বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির আহোভায়ক প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ একটি হামান দিস্তা প্রদর্শন করে বলেন, বর্তমান সমাজ ধনীক শ্রেনীর স্বার্থ রক্ষা করছে। ক্ষেতমজুরদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে পুজিবাদী এই সমাজ ভেংগে গুড়া করে ফেলতে হবে। আমি হামান দিস্তা দিয়া গেলাম। আপনারা ভাংগা ভাংগি শুরু করেন।

বক্তব্যের এক পর্যায়ে পুজিবাদী সমাজের আকার নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রকৌশলী শহীদুল্লাহ বলেন, আমি যখন জুয়ান আছিলাম, তখন পুজিবাদ সমাজ ভাংগার জন্যি গুলিস্তান হতে এই হামান দিস্তাটি খরিদ করিয়াছিলাম। পেশাগত কারনে টেন্ডার লইয়া দৌড়াদৌড়ির মধ্যে দিয়া কুন ফাকে যে পুজিবাদী সমাজের সাইজ এত বড় হইয়া গেল, দিশাই পাইলাম না। সমাজ এত বড় কেনে?

পুজিবাদী সমাজ ভাংগার সময় সাবধানতা অবলম্বনের আহোভান জানিয়ে ক্ষেতমজুরদের উদ্দেশে কমরেড আল্লামা সেলিম বলেন, আপনারা হামান দিস্তা এস্তেমালের সময় সাবধানতা অবলম্বন করিয়েন। পুজিবাদী সমাজ ভাংগেন, আমার আপত্তি নাই। কিন্তু এমন করিয়া ভাংগিয়েন না যাতে আমরা দুই চার জন যারা সাবেক ক্ষেতমজুর নেতা আছি, তাদের কুন দিষ্টাপ হয়। আমার বেবসা বানিজ্য হামান দিস্তায় দিলে কিন্তু আপনারা পুজিবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একজন অভিজ্ঞ কমরেডকে হারাইবেন, এ আমি আগেই কয়ে দিলুম।

আন্দুলন সংগ্রামের পাশাপাশি ক্ষেতমজুরির দিকেও মনযোগ দেওয়ার আহোভান জানিয়ে কমরেড আল্লামা সেলিম বলেন, পুজিবাদী সমাজ ভাংগাভাংগি করবেন ছুটির সিজনে। চাষের মৌসুমে ক্ষেতের কাম ঠিক মত করতে হইবে। ধান গাছ হইতে ধান পাড়ার সময় সাবধানে গাছে উঠিবেন। সাবধান ভাইসব, কুন কাঠবিড়ালী কিংবা কাঠঠুকরা যেন আলু গাছে আস্তানা বানাইতে না পারে। খালি আন্দুলন সংগ্রাম করলেই হবে না, কৃষি নিয়াও পড়াশুনা করতে হইবে।

অবিলম্বে দেশকে পুনরায় গরিব দেশ ঘোষনার দাবী জানিয়ে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, আমরা যারা দুই চারজন কমরেড এনজিও বেবসা খুলিয়া পুজিবাদী সাম্রাজ্যবাদী ঘোচুদিগের পকেট মারিয়া দুটু আয় রুজগার করতেছিলাম, তারা আতকা মধ্যম আয়ের দেশের নাগরিক হইয়া পড়ছি বিপদে। কুন ডনারই এখন ডনেশন দিতে চায় না। দারিদ্রতা দুর করার জন্যি টাকা মাংগিলে বলে, তুমরা এখন মধ্যম আয়ের দেশের লুক, কুন টেকাটুকা পাইবা না।

আবারও কেদে ফেলে কমরেড আল্লামা সেলিম বলেন, আমার সব পেন্টের কমর ঢিলা হইয়া গেল। নতুন করিয়া পেন্ট সিলাইতে দিতে হবে।

বাকশাল সরকারকে অভিশাপ দিয়ে তিনি বলেন, মাথাপিছু আয় দেখ, কমরপিছু বেয় দেখ না সালা ঘোচু।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: