আপন মুক্তিই এখন মান্নার তামান্না: নাগরিক ঐক্য

নিজস্ব মতিবেদক

রাজনীতীর নতুন তামাশা তৃতীয় শক্তি নাগরিক ঐক্যের প্রতিষ্ঠাতা আমীর ও বৃহত্তর জামায়াতের ভাইবার শাখার আমীর আল্লামা মাহমুদুর রহমান মান্নার নিঃশর্ত মুক্তি দাবী করে রাজধানীর তোপখানায় বাংলাদেশ শিশু কল্যান পরিষদ মিলনায়তনে বাদ জুম্মা এক মোজাহিদ সমাবেশ করেছে দলটি।

মোজাহিদ সমাবেশে ক্ষমতাসীন ফেসিবাদী বাকশাল সরকারের কঠর সমালচনা করেন নাগরিক ঐক্যের নেতৃ বৃন্দ।

নাগরিক ঐক্যের ঢাকা মহানগর উত্তরের আমীর শহীদুল্লা কায়সার বলেন, আজ এই ঐতিহাসিক মোজাহিদ সমাবেশটি নানা কারনে তাতপর্য পুর্ন। প্রথমেই ধরেন গিয়া এর লুকেশন। শিশু কল্যান পরিষদে আমরা নাগরিক ঐক্যের মোজাহিদ সমাবেশ করি। এতদ্বারা কি বুঝা যায়? বুঝা যায় যে নাগরিক ঐক্য রাজনীতীর ময়দানে আভি তক শিশু। আরও বুঝা যায় যে এই ঢাকা শহরে কুন নাগরিক কল্যান পরিষদ মিলনায়তন নাই, যাহা আমরা ভাড়া লইবার পারি।

আবেগঘন কণ্ঠে শহীদুল্লা আমীর বলেন, শিশু কল্যান পরিষদ মিলনায়তনটিও অত্যান্ত তাতপর্য পুর্ন স্থানে অবস্থিত। ইহা তোপখানায়। তোপখানায় আগে তোপ আছিল। এখন তোপ নাই, খানা আছে। আজ আমরা এইখানে হুদাহুদি আসি নাই। বাদ জুম্মা কিছু খানার বন্দবস্ত আছে দেখিয়াই আসিয়াছি। খানার পুর্বে কিছু বক্তিতা দিলে ক্ষুদা বাড়ে, হজম ভি ভাল হয়। তাই আজ আমরা কিংবদন্তী ভাইবার শিল্পী মান্না ভাইকে লইয়া কিছু কথা কব।


রহস্যময় কৌটা হাতে মান্না

বাকশাল সরকারের ফেসিবাদী পুলিশের হাতে আটক মান্নার একটি ছবি প্রদর্শন করে শহীদুল্লা বলেন, আপনারা দেখতে পাইতেছেন যে কিংবদন্তী ভাইবার শিল্পী মান্না ভাইয়ের হাতে একটি রহস্যময় কৌটা আছে। এক বুক আশা লই আমরার মান্না ভাই এক কৌটা জেল নিয়া জেলে গিয়াছিলেন। কিন্তু এই স্বৈরাচার বাকশাল সরকার উনাকে কুন ডিভিশন দেয় নাই। বিনা ডিভিশনে জেলে আলাল মিলে না। সরকার মান্না ভাইয়ের মানবাধিকার ত লংঘন করছেই, সাথ সাথ আলালাধিকার ভি লংঘন কিয়া।

হুহু করে কেদে ফেলে শহীদুল্লা আমীর বলেন, মান্না ভাইয়ের কৌটার জেল যে একেবারেই কামে আসে নাই, উহা আমি বলব না। বিস্তারিত সব কথা খুলিয়া বলিয়া নাগরিক ঐক্যে ফাটল ধরাইতে চাই না। এক বুক বেথা বুকে লই শুদু বলতে চাই, ডিভিশন না পেলে, জেল নিও না জেলে।

ভাইবারে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মার্কিন যুক্তরাস্ট্র পলাতক নায়েবে আমীর, অবিভক্ত ঢাকা মহানগরীর সাবেক মেয়র ও ৫মে শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের জেহাদে গাজী ও শহীদদের বকেয়া ১৭৫০ কুটি টেকা মজুরি খেলাপী আল্লামা সাদেক হোসেন খোকার সংগে একটি আলাপে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের লাশ ফেলার পরিকল্পনা করাঅজ্ঞাত পরিচয় অষ্ট্রেলীয়া নিবাসী বেক্তির সংগে সেনা বাহীনীর উচ্চ পদস্ত কর্মকর্তাদের লাইনে আনার বেপারে ষড়যন্ত্র করার কারনে মান্নাকে বাকশাল সরকার অন্যায় ভাবে গ্রেফতার করেছে জানিয়ে শহীদুল্লা বলেন, ভাইবারে ত আমরা কত কথাই বলি। কত লুকের লাশই ত ফেলতে চাই, কত জেনারেলরে দুস্ত বানাইয়াই ত গদি হাছেল করতে চাই। রাত্র কালে খাইবার পর ভাইবার করলে হজমটা ভাল হয়, সকাল সকাল ছুট ঘরে আন্দুলনটা আরামের হয়। তাই বলিয়া উহাকে রাস্ট্রদ্রহ বানাইয়া দিলি রে বাকশাল?

নাগরিক ঐক্যের ঢাকা দক্ষিনের আমীর আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এই খানে বসিয়া পেনপেন করিয়া আমরা মান্নাদাকে মুক্ত করতে পারব না। মান্নাদার মুক্তি মানে জাতির মুক্তি, আমাদের স্বপ্নের মুক্তি। তৃতীয় শক্তি ছাড়া এই জালেমের দেশে কুন কালে শান্তি শৃংখলা আসবে না। আর তৃতীয় শক্তির জন্যি চাই মান্নাদার মুক্তি। মান্নাদারে মুক্ত করতে আমরারে টেকনাফ হতে তেতুলিয়া পযন্ত মোজাহিদ বাহীনী গড়ে তুলতে হবে। সবাইরে খানা দিবার পারুম না, আপাতত বাসা হইতে ভাত খাইয়া আসিয়াই যা জেহাদ করনের করতে হইবে। কিন্তু একবার মান্নাদা মুক্ত হইয়া তৃতীয় শক্তি লইয়া গদিতে গেলেই শুদু খানা আর খানা। তখন আমরা আবার তোপখানায় তোপের বেবস্থা করব। তবে জাতির মুক্তি নিয়া আপাতত মান্নাদার কুন মাথাবেথা নাই। আপন মুক্তিই মান্নাদার তামান্না।

মোজাহিদ সমাবেশে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নায়েবে জামদানী গনসাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ও নিপীড়ীত জাফর ঐক্যের উপদেষ্টা জাফরুল্লাহ চৌধুরী এবং বিশিষ্ঠ চিন্তাবীদ ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আমীর পর্নষ্টার আল্লামা আসিফ নজরুল ইঞ্চি অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তারা আসেননি জানিয়ে আবু বকর সিদ্দিক বলেন, কয়েক পেকেটে বিরিয়ানী বাচিয়া গেল। উহা নাগরিক ঐক্যের আমীর ওমরাহদিগের কাজে লাগবে। ভালই হইল উনারা আসেন নাই।

এ বেপারে নায়েবে জামদানী জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সংগে মুঠফুনে যোগাযোগ করা হলে তিনি মতিকণ্ঠকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মান্না নামে একজন আমার নিকট হতে এই বছরের গোড়ার দিকে এক কৌটা জেল খরিদ করিয়াছিল। এর চেয়ে বেশি কিছু জানি না, তারে ভালমত চিনিও না। তার মুক্তির দাবীতে মোজাহিদ সমাবেশে হুদাই কেন যাব? তবে আমার নামে বরাদ্দ বিরিয়ানী কুন শহীদুল্লা বা বকরে যদি খায়, আমি তাদের বিরুদ্ধে রাস্ট্রদ্রহ মকদ্দমা ঠুকিয়া দিব। খুব সাবধান।

পর্নষ্টার আল্লামা আসিফ নজরুল ইঞ্চির সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি মুঠফুনে বলেন, মান্না নামে কাউরে আমি জীবনে কুন দিন চিনতাম না। ছুটকাল হতেই আমি ১১০% মান্না মুক্ত জীবন যাপন করতেছি। মান্নার সাথে আমার কুথাও কুন ভিডিও নাই। একদল লুক তোপখানায় গিয়া তার মুক্তি চাহিয়া মোজাহিদ সমাবেশ করলেই আমি যাব নাকি? মান না মান মান্না মেরা মেহমান, ইহা ত কুন ইনসাফের কথা হতে পারে না। তবে বিরিয়ানীর কয়েক পেকেট আমার বাসায় পাঠাইয়া দিলে ভাল হয়।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: