Archive for ‘ক্রীড়া’

September 9, 2016

পুটুন এখন ভল্ডামটের নেয় ভয়ংকর: বাফুফে

ক্রীড়া মতিবেদক

কুরবানীর সিজনে লোকাল নন এসি বাসে অনুর্ধ-১৬ ফুটবল দলের বিজয়ী খেলয়াড় মেয়েদিগকে ময়মনসিংহে কলসিন্দুরে ফিরত পাঠানর অভিযগের জবাবে প্রভাবশালী এলাকা কারওয়ানবাজারের উপসর্দার ও আইভরী কোষ্ট ফিরত উপন্যাসিক ‘মা’র্কেজে কারওয়ানবাজার’ কুফামাষ্টার আল্লামা আমিষুল হক পুটুনদার বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযগ করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন ওরফে বাফুফে।

আজ নিজ কার্যালয়ে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে বাফুফে এ অভিযগ করে।

সংবাদ সম্মেলনে বাফুফে সভাপতি ও সাবেক কৃতি ফুটবলার কাজী সালাউদ্দি বলেন, যা ঘটেছে, সবই কুফামাষ্টার পুটুনদার লীলে। ওতে আমরার কুন হাত নাই।

আবেগঘন কণ্ঠে কাজী সালাউদ্দি বলেন, কয়েক দিন পুর্বে একটি ভয়ানক বেপার আমরার দৃস্টি গচর হয়। কুফামাষ্টার পুটুন ষ্টেডিয়ামে একটি সেলফি ষ্টিক লয়ে আমাদের গর্ব অনুর্ধ ১৬ বালিকা দলের সদস্যদিগের দিকে গুটি গুটি পায়ে আগাইয়া যাইতিছে। আমরা কুন প্রতিরধ গড়ার আগেই সে মেয়েগুলুকে বগলদাবা করিয়া খচাখচ কয়েকটি সেলফি তুলিয়া লিল। আমরা কুন প্রকার বাধা দানের পুর্বেই নির্মম পুটুনদা সেলফিগুলু উহার ফেসবুকে আপ করিয়া দিল।

হুহু করে কেদে উঠে সালাউদ্দি ফুটবলার বলেন, তার পর সব ইতিহাস। কুথা হতে কি হল কিছুই পরিষ্কার মনে নাই। আবছা আবছা শুদু মনে আছে, একটি লোকাল নন এসি বাসে আমরার বাচ্চা বাচ্চা মেয়েগুলুকে মহাখালী বাস ষ্টেন্ড হতে অজানার পানে তুলিয়া দিতিছি। উহারা টেনশনে কান্নাকাটি করিয়া বলতিছে, ছার এত লম্বা জারনি আমরা বাচ্চা কতগুলু মেয়ে পথ ঘাট চিনি না গরমের মদ্যে এসি নাই এখন কি হবে? জবাবে আমি আবেগঘন কণ্ঠে বলতিছি, পুটুনদার সংগে সেলফি উঠিয়া গেছে রে এখন তুদের আল্লাহর হাতে তুলিয়া দেওন ছাড়া করার কিছু নাই। এয়ার দিছেন যিনি রে মন কন্ডিশন করবেন তিনি।

ক্ষোভঘন কণ্ঠে বাফুফে সভাপতি বলেন, পুটুনদার প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের নেয় ভয়ংকর হইয়া উঠছে। বন্যা খরা জলচ্ছাস ভুমিকম্প মহামারী সুনামী দাবানলের নেয় কুফামাষ্টার পুটুনও এখন একটি অপ্রতিরধ্য শক্তি। উহার নেয় পিশাচী শক্তি এ যাবত আর একজনের মধ্যেই দেখছি, আর সে হইতিছে ডার্ক লড ভল্ডামট।

আবারও কেদে ফেলে সালাউদ্দি বলেন, ফুটবলে বাচ্চা বাচ্চা মেয়েগুলুকে ডিফেন্স শিখাই। কিন্তু পুটুনদার মকাবিলা করতে হইলে শিখাইতে হইবে ডিফেন্স এগেনষ্ট দি ডার্ক আটস। উহা কে শিখাইবে?

এক প্রশ্নের জবাবে বুক চাপড়ে কেদে উঠে বাফুফে সভাপতি বলেন, বাফুফের সভাপতি নির্বাচনে আমি নরসিংদীর এমপি কামরুল আশরাফ পোটনকে পরাজিত করছি দেখিয়া তুমরা আমায় পুটুনের মকাবিলা করতে বল? কুথায় পোটন আর কুথায় পুটুন?


ডার্ক লড ভল্ডাপুটুন (সবুজ পাঞ্জাবী পাকনা চুল নংরা হাসি)

এদিকে ময়মনসিংহের কলসিন্দুরে গোলরক্ষক তাসলিমার পিতা সবুজ মিয়া স্থানীয় ইস্কুলের ক্রীড়া শিক্ষক জবেদ আলীর হাতে আহত হয়েছেন। এ বেপারে তার সংগে যোগাযোগ করলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, জবেদ আলী কলসিন্দুরের ফুটবলার মেয়েদের ইস্কুল হতে বিতাড়নের হুমকী দিয়ে আমার উপর চড়াও হয়। আমি প্রতিবাদ করলে সে আমায় মারতে মারতে বলে, কুফামাষ্টার পুটুনদার সংগে তাসলিমার সেলফি উঠিয়া গিয়াছে, এখন হতে তুমায় এরুপ মাইরই খাইতে হইবে।

এদিকে লোকাল বাসে করে মেয়েদের গ্রামে ফিরত পাঠান নিয়ে সারা পৃথীবির বাংলাদেশীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃস্টি হয়েছে।

এ বেপারে আমিষুল হকের সংগে যোগাযোগ করলে তিনি হাসতে হাসতে বলেন, আর্জেন্টিনা ব্রাজিল গেল তল কলসিন্দুর কয় কত জল। কৃকেট টিমে এমন কুন পেলেয়ার নাই যারে কুফাফাই করি নাই। মেয়ে বলিয়া ফুটবলারগুলুকে ছাড় দিব কেনে? কলসিন্দুরের কলসে ইন্দুর হইয়া তাই কয়েকটি সেলফি তুলিয়ালাইলুম। সেই সাথে প্রত্যেক পেলেয়ার মেয়ের নিকট এক কপি করিয়া ফৃডম’স মাদার বিক্রয় করছি।

ভবিষ্যতে পুটুনদার কুফা হতে কিভাবে ফুটবলারদের রক্ষা করা হবে, এ প্রশ্ন নিয়ে পুনরায় বাফুফের সংগে যোগাযোগ করা হলে মুঠফুনে কাজী সালাউদ্দি কাদতে কাদতে বলেন, সাস্থ্যকে রক্ষা করে লাইপবয়, লাইপবয় যেখানে সাস্থ্য সেখানে, লাইপবয়য়য়য়য়!

 

October 31, 2015

ইমরান খানের বিবাহ ভাঙ্গায় কারওয়ানবাজার ও গুলশানে আনন্দ মিছিল

নিজস্ব মতিবেদক

বিবাহের দশ মাসের মাথায় পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও পাকিস্তানের তেহরিকি ইনসাফ দলের আমীর দুর্ধর্ষ প্লেবয় তালুই-এ-তালেবান আল্লামা ইমরান খান নিয়াজীর সংগে তার ২০১৫ সালের বিবি রেহাম খানের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটায় বাংলাদেশের প্রভাবশালী এলাকা কারওয়ানবাজার ও গুলশানে বয়ে গেছে আনন্দের হিল্লোল।

শুক্রবার এক বাদ জুম্মা টুইটার বার্তায় ইমরান খান নিয়াজী নিজের বিবাহ ভাংগার সংবাদ প্রকাশ করেন।

টুইটারে তালুই-এ-তালেবান বলেন, দুস্ট গরুর চেয়ে শুন্য গোয়াল ভাল। অনেক সহ্য করছি, আর নহে। রেহাম বিবিরে তালাক দিয়া দিলুম। আমি আবার সিংগেল। সম্ভ্রান্ত মুসলমান বংশের দুস্টু দুস্টু মেয়েরা আমার বাসায় আসিও। গল্প করব। একা একা ভাল লাগে না।

বিবাহের আসরে মাফ ও দুয়া চাইছেন ইমরান ও রেহাম

আবেগঘন ফন্টে ইমরান খান টুইটারে বলেন, রেহাম খানের রুপের জৌলুশে জিসমের আগুনে ভুলিয়া আমি তাহাকে বিবাহ করিয়া ফেলাই। আমার আব্বি আম্মি আমায় তখন বলছিলেন, বেটা তুর বয়স বাষট্টি, আর ঐ চুড়েলের বয়স বিয়াল্লিশ। জীবনের এই স্লগ ওভারে তুই কি উহার সাথে বেটিং করিয়া কুলাইতে পারিবি? আমি তখন কয়েছিলুম, আব্বিজান! আম্মিজান! ডর মাত, সংগে আছে বিজয় টেবলেট।

হুহু করে কেদে ফেলার ইমটিকন দিয়ে ইমরান খান নিয়াজী টুইটারে বলেন, কিন্তু গত দশ মাসে রেহাম বিবির কার্যকলাপ দেখিয়া বুঝলাম, তাহার সংগে আমি পারিয়া উঠব না। সে বিবিসিতে চাকরি করার নাম করিয়া টেলিভিশনে শুয়রের গুস্ত রান্না করে। আমার তেহরিকি ইনসাফ পাটির নানা কামেও সে আমীরের বেগম হিসাবে খবরদারী করে। তার পাল্লায় পড়িয়া একটি উপ নির্বাচনে আমার জামানত বাজেয়াপ্ত হইয়াছে।

চতুর্থ টুইটে ইমরান ঘোষনা করেন, রেহাম বিবি শুধু নাস্তিকই নহে, সে একটি কুফা। আমার চাপাতিটি কে যেন হাওলাত লইয়াছে। তাই চাপাতির অভাবে উহাকে তালাক দিয়া দিলুম।

ইমরান খান নিয়াজীর এরুপ ঘোষনার পর কারওয়ানবাজার এলাকায় দেশের সর্বাপেক্ষা বিখ্যেত কৃড়া সাংবাদিক উতপুটুন শুভ্র এবং বাংলার সেরা বিজ্ঞাপন নির্মাতা ও টেলিভিশনে ইসলামী অনুষ্ঠান উপস্থাপকদের প্রভাবশালী সংগঠন ‘এশশিয়েশন অফ ইসলামী মিডিয়া পারসনালিটি’র বর্তমান আমীর বাংলার ডেভিড ধাওয়ান আল্লামা মস্তফা সরয়ার ফারুকীর যৌথ নেতৃত্বে একটি আনন্দ মিছিল বের হয়। এ সময় কারওয়ানবাজারের কৃড়া বিভাগের কামলারা একে অপরকে মিস্টিমুখ করান।

আনন্দ মিছিলটি কারওয়ানবাজার প্রদক্ষিন করে এসে কারওয়ানবাজারের কেন্দৃয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান গ্রহন করে। উতপুটুন শুভ্র সেখানে এক শুভেচ্ছা বক্তৃতায় বলেন, ইমরান খান নিয়াজীর অপয়া বিবি ছিল একটি পথের কাটা। আজ ইমরান উহাকে দুর করেছে। একটি বিরাট শুন্য স্থান সৃস্টি হয়েছে। কিন্তু প্রকৃতি শুন্যতা পছন্দ করে না। শুন্য কিছু পাইলেই প্রকৃতি ঐখানে ভরে দেয়।

আবেগঘন কণ্ঠে উতপুটুন শুভ্র বলেন, আল্লামা ইমরান খান ইতিপুর্বেও শয়তানের ওয়াসওয়াসায় ফাসিয়া জমিমা গল্ডস্মিথ নামক এক ইয়াহুদী নারীকে বিবি বানাইয়া ঘরে তুলিয়াছিলেন। তারপর আবার রেহাম বিবির ছলনায় ভুলিয়া উহাকে নিকাহ করিয়াছেন। এইরুপ যাতে আর না হয়, তাই ইমরান খান নিয়াজীকে আহোভান জানাই। এখনও সময় আছে, আসুন আমরা পরস্পর সুখের সংসার বান্ধিয়া ইসলামের পতাকা তলে শামিল হই।

সলজ্জ হেসে উতপুটুন শুভ্র বলেন, আপনি হাঁ বলিলে আমি ওয়াহাব রিয়াজকে না বলিয়া দিব।

শুভেচ্ছা বক্তৃতায় বাংলার ধাওয়ান মস্তফা ফারুকী বলেন, পাকিস্তানে সম্প্রতি ভুমিকম্প হইয়া শত সহস্র মমিন মুসলমান শাহাদত বরন করেছেন। উহাদের জন্য দিলটা পুড়ে। কিছু একটা করতে মন চায়। তাই ইমরান খানকে বিবাহ করিব ঠিক করলাম। ইহা উতপুটুন শুভ্র ভাইয়ের কেস নহে, ইহা কুন কামনা বাসনা লালসার বেপার নহে। এই বিবাহ দুর্গতদের জন্য ত্রান মাত্র। পাকিস্তানের ভুমি এখনও কাপতেছে। কাপাকাপি থামলেই আমি আবার ইমরান খানকে তালাক দিয়া বাংলার বুকে ফিরে আসব।

এদিকে ইমরান খান নিয়াজীর বিবাহ বিচ্ছেদের সংবাদ বাংলাদেশের প্রভাবশালী এলাকা গুলশানে পৌছানর পর সেখানেও আনন্দ ঘন পরিবেশ সৃস্টি হয়। উপস্থিত জাতীয় পাটির নেতারা এ সময় সাবেক স্বৈরাচার রাস্ট্রপতি ও পল্লীবন্ধু ফাদারে কৃকেট শায়েরে আজম আলহাজ্জ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে সংগে নিয়ে আনন্দ মিছিল বের করেন ও পরস্পরকে মিস্টিমুখ করান।

আনন্দ মিছিল নিয়ে গুলশান কুটনৈতিক পাড়া প্রদক্ষিন করে নিজ বাসভবনের সামনে এসে এক বক্তৃতায় ফাদারে কৃকেট পল্লীবন্ধু এরশাদ বলেন, ইমরান খান নিয়াজীর বিবাহ বিচ্ছেদেই প্রমান হয়েছে, বাকশাল সরকার সম্পুর্ন বের্থ। বাকশাল সরকারের বের্থতার কারনেই খানের বেটার এই হাল।

রেহাম খানের রুপের জৌলুশ ও জিসমের আগুনের প্রসংশা করে পল্লীবন্ধু বলেন, রেহাম বিবির বয়স মাত্র বিয়াল্লিশ। ছুটকালে কত ভুল ভ্রান্তিই ত হয়। ইহা কুন বেপারই নহে। বয়সের দুষে রেহাম বিবি ভুলিয়া গেছিল যে অল্ড ইজ গল্ড। সেদিনের পুলা ইমরান খানের পিছে না দৌড়াইয়া সে আমার কাছে আসিলে আজ তার এইরুপ দুর্দশা হত না। তেহরিকি ইনসাফ একটি ফালতু রাজনৈতিক পাটি। পাটির মত পাটি একটাই, সেটি আমার জাতীয় পাটি। রাজনীতী করার খায়েশ হইলে গুলশানে আসিয়া জাতীয় পাটির হাল ধর।

রেহাম খানকে বিবাহের প্রস্তাব দিয়ে সাবেক স্বৈরাচার বলেন, রেহাম তুমি আইস আমার হারেমে, দুইজনাতে থাকব সুখে আরেমে।

February 22, 2015

মেডামের দুয়ায় সমস্যা আছে: মিছবাউল

ক্রীড়া মতিবেদক

চলমান বিশ্বকাপ কৃকেটে পাকিস্তানের উপর্যুপরি শোচনীয় পরাজয়ের পিছনে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির দুয়া কালামে সমস্যাকে দায়ী করে পাকিস্তান কৃকেট দলের আমীর মিছবাউল হক বলেছেন, মেডামের দুয়ায় সমস্যা আছে।

আজ বৃসবেনের একটি স্থানীয় কৃকেট মাঠে জিম্বাবুয়ের সংগে পরবর্তী মেচের পুর্বে বেটিং, বলিং, ফিলডিং ও মেচ ফিকসিং অনুশীলনের পর আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে মাদারে গনতন্ত্রের দুয়ায় সমস্যার কথা তুলে ধরেন মিছবাউল।

সংবাদ সম্মেলনে মিছবাউল হক বলেন, আমরা ইতি পুর্বে পত্র পতৃকা পাঠ করিয়া জানতে পারছিলাম যে মাদারে গনতন্ত্র পাকিস্তান কৃকেট দলের জন্যি রোজা রাখিয়া ছিলেন। কিন্তু আমরা মালাউন ইনডিয়ার নিকট নির্মম ভাবে পরাজিত হওয়ার পর তিনি রোজা ভংগ করেন।

আবেগঘন কণ্ঠে মিছবাউল কৃকেটার বলেন, ওয়েষ্ট ইন্ডিজের সংগে খেলতে নামিয়া আমরা মেডামের নায়েবে সাহাফা মারুফ কামাল খানের এছেমেছ পাইলাম যে তিনি এছেছছি পরীক্ষার পড়ালিখা বাদ দিয়া আমরার জন্যি একুশে ফেব্রুয়ারী মধ্য রাত্রে দুয়া মহাফিলের আয়জন করছেন। মেডামের দুয়ার উপর ভরসা করিয়া আমরা খেলতে নামলাম। কিন্তু সে দুয়ার প্রতিক্রিয়ায় আমাদিগের জয় লাভ ত দুরের কথা, পাইজামা পুটুতে রাখাই কঠিন হইয়া গেল। ১ রানে ৪ উইকেট হারানির বিশ্ব রেকড লইয়া ওয়েষ্ট ইন্ডিজের মত একটি মালাউন দলের হাতে নির্মম পুটুমারা খাইয়া আমরা পেভিলনে ফিরত আইলাম।


ইনডিয়া জিতে গেছে

হুহু করে কেদে উঠে মিছবাউল বলেন, মেডামের দুয়ায় যদি কুন কাম হইত, তাহলে আজ সাউথ আফৃকার সংগে ইনডিয়া শত শত রানের বেবধানে জয় লাভ করতে পারত? পারত না। এতে কি প্রমান হয়? প্রমান হয় যে মেডামের দুয়ায় সমস্যা আছে।

অবিলম্বে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে স্বাধীন রাস্ট্র হাটহাজারিস্তানের খলিফা ও হেফাজতে ইসলামের আমীর উপমহাদেশের সর্বাপেক্ষা হিট আলেম আল্লামা রাজ শাহ আহমদ শফীর তত্তাবধানে মাদারে গনতন্ত্রকে দুয়া কালাম প্রশিক্ষনের বেবস্থা করার জন্য বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন বাকশাল সরকারের প্রতি আহোভান জানিয়ে মিছবাউল হক বলেন, মেডামের ভুল দুয়ার কারনে আমাদের মেচ ফিকসিং বেবসায় চরম অবক্ষয় দেখা দিছে। মাদারে গনতন্ত্র অবিলম্বে সঠিক ও কার্যকরী দুয়া শিখিয়া দুয়া মহাফিলে না বসলে আমরা বৃসবেন প্রেস ক্লাবের সামনে অনশন করতে বাধ্য হইব।


দুয়ার টেবিলে নারী পুরুষের অবাধ মিলামিশা

পতৃকায় প্রকাশিত মেডামের দুয়া মহাফিলের ছবি দেখিয়ে মিছবাউল উপস্থিত সাংবাদিকগনের কাছে ক্ষুব্ধ কণ্ঠে প্রশ্ন করেন, দুয়ার টেবিলে নারী পুরুষের অবাধ মিলামিশা হলে সে দুয়ায় কি কখনও কাম হবে? এ কেমন মহাফিল? আল্লামা রাজের ১৩ দফার ইতনা অবমাননা কিউ হতা হায়?

এদিকে মিছবাউলের অভিযোগের জবাবে পাল্টা বিবৃতীতে মাদারে গনতন্ত্রের নায়েবে সাহাফা মারুফ কামাল খান বলেন, আমি পাকিস্তানের কৃকেট দলের আমীর শ্রীযুক্ত মিছবাউল হককে মেডামের পক্ষ হতে পরিস্কার জানাইয়া দিতে চাই যে একুশে ফেব্রুয়ারী আমরা পাকিস্তান কৃকেট দল নহে, বরং ভাষা শহীদ গোলাম আজম, ভাষা শহীদ ইউছুপ, ভাষা শহীদ আবদুল আলীম ও ভাষা শহীদ আবদুল কাদের মোল্লা ও হবু ভাষা শহীদ কামারুজ্জামানের জন্যি দুয়া মহাফিল বসাইয়াছিলাম। জিম্বাবুয়ের সংগে পাকিস্তানের মেচের পুর্বে মেডাম খাস দিলে ইস্পিশাল দুয়ায় বসবেন ইনশা আল্লাহ। আপুনি টেকাটুকা খাইয়া জিম্বাবুয়ের সংগে পরাজয়ের রাহে পা না বাড়াইলে পাকিস্তানের ইজ্জত বাচবে, মেডামের দুয়ার বদনামও কমবে। লাইনে আসুন।

হাসতে হাসতে মারুফ নায়েব বলেন, এ দুয়া সে দুয়া নহে।

 

February 19, 2015

আফৃদী আমায় উতপল শুভ্র বলেছে: লুডেন

ক্রীড়া মতিবেদক

পাকিস্তান কৃকেট দলের অল রাউন্ডার বুম বুম শহীদ আফৃদীর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ এনে পাকিস্তান কৃকেট দলের ফিলডিং কুচ গ্রেন্ট লুডেন বলেছেন, আমি আর পাকিস্তান কৃকেট দলে চাকরী করব না। উহারা শুদু মারতে চায়।

আজ টুইটারে এক বার্তায় এ অভিযোগ করে পদতেগের হুমকি দেন দক্ষিন আফৃকার লোক লুডেন।

এ বেপারে লুডেনের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি মতিকণ্ঠকে বলেন, দুটু পয়সার জন্যি পাকিস্তানের নেয় একটি মাদারচুদ দেশে গিয়াছিলুম। কৃকেটারগুলুকে ফিলডিং শিখানই আমার চাকরী। কিন্তু বললে বিশ্বাস করবেন না ভাইছাব, উহারা একেকটি পুরস্কার প্রাপ্ত মাদারচুদ। যদি মাদারচুদামির উপর কুন বিশ্বকাপ থাকত, পাকিস্তান একাই চেম্পিয়ন ও রানাসাপ হইত।


আফৃদীর হাতে যৌন নির্যাতিত লুডেন

আবেগঘন কণ্ঠে গ্রেন্ট লুডেন বলে, বিশ্বকাপে ভারতের নিকট উপর্যুপরি পুটুমারা খাওয়ার পর আমি কৃকেটারগুলুকে মাঠে ডাকিয়া বললুম, আইস বেরাদারগন, এখন আমরা কিছু ফিলডিং পেকটিস করি, যাতে অন্য দলগুলু আমাদের মারা খাওয়া পুটুতে লবন রাখিয়া বরই ভক্ষন করতে না পারে। তখন কুথা হতে এই বুম বুমের বাচ্চা শহীদ আফৃদী তার দুই বেয়াদব বন্দু শাহজাদ ও উমর আকমলকে সংগে লইয়া আমার নিকট আসিয়া চক্ষু রাংগাইয়া বলল, আরে কৌন হামারা পুটু মে লবন রাখিয়া বরই খায়েংগে? বিশ্বকাপ মে সব টিম ক ইনডিয়া সমঝতে হে তু? সালা উতপল শুভ্র।

হুহু করে মুঠফুনে কেদে উঠে লুডেন বলেন, আমি এই তিন বেয়াদবকে বুঝাইয়া বলতে গেলাম যে দেখ, ইনডিয়ার কাছে পুটুমারা খাইছ, খাইছ। তাই বলিয়া এখন রিলেক্স করার কুন কারন নাই। যে কুন সময় যে কুন দল তুমাদিগকে পুনরায় পুটু মারিয়া দিতে পারে। কে জানে হয়ত এই উমর আকমল আর শাহজাদই মেচ ফিকসিং করিয়া বরইয়ের জন্য লবনের বেবস্থা করিয়া দিবে। তখন খানকির পুলা বুম বুম আমায় বলে কি, আরে তু ফিলডিং কুচ হে, বেটিং কে বেপার মে ইতনা মাথাবেথা কিউ করতে হে সালা উতপল শুভ্র?

কাদতে কাদতে লুডেন বলেন, পর পর দুইবার তারা আমায় উতপল শুভ্র বলিয়া গালি দিল। ইহা পরিষ্কার যৌন নির্যাতন। আমি পিসিবি ও আইসিসি উভয়ের কাছে বিচার দিব। ফর্সা হওয়ার কারনে উহারা আমায় কি যেন করতে চায়।

%d bloggers like this: