Posts tagged ‘আওয়ামী লীগ’

May 9, 2014

আহা মিস্টি কি যে মিস্টি এই সুন্দর ছুট সংসার: মায়া

নিজস্ব মতিবেদক

নারায়নগঞ্জের চাঞ্চল্যকর সাত খুন মামলায় আপন পরিবারের কাউকে না জড়াতে হুশিয়ারী জারী করেছেন বাকশালের ত্রান ও দুর্যগ বেবস্থাপনা মন্ত্রী মফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।

শুক্রবার বাদ জুম্মা এক সংবাদ সম্মেলনে এ হুশিয়ারী জারী করেন মায়া মন্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে মায়া বলেন, বাংলাদেশের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রনে ঘরে ঘরে পরিচিত একটি নাম মায়া। মায়া না থাকলে দেশের জনসংখ্যা আজ পঞ্চাশ কুটি হইত। সুদির্ঘ চার দশক ধরিয়া এই দেশের ভিড় কমাইতে মায়া নানা ভাবে ভুমিকা রাখছে। কুন কারনে যদি জন্মের আগে জন্ম নিয়ন্ত্রনে মায়া বের্থ হয়, তাহলে জন্মের পরেই উক্ত কাম মায়া হাছিল করতে পারে। নারায়নগঞ্জের সাত খুন আর কিছুই নহে, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রনে মায়ার খেলা।

আবেগঘন কণ্ঠে মায়া মন্ত্রী বলেন, আমার পরিবারে লোক আছেই কয়জন? কিন্তু এই সাংবাদিক ঘোচুর দল খামখা আমার ছুট পরিবার সুখী পরিবারটিকে নারায়নগঞ্জের সাত খুন মামলায় ফাসাইতে চায়। তারা খালি বলে খুনের মামলার আসামী নুর হোসেনের সংগে নাকি আমরার বেবসা।

সাংবাদিকদের প্রতি হুশিয়ারী জারী করে মায়া বলেন, আহা মিস্টি কি যে মিস্টি এই সুন্দর ছুট সংসার। আমার সংসার আলো করিয়া আছে আমার বেটা দিপু চৌধুরী। গতবার যখন বাকশাল গদিতে আছিল, তখনও একটি বেয়াদব দুকানীকে কতল করায় দিপুকে লইয়া তুমরা টানাটানি করছ। এইবার দিপুরে ত টানতেছই, লগে আমার জামাতা রেবের কর্নেলটিকেও টানতেছ। এইসব কি?

অশ্রু মুছে মায়া বলেন, হাতে বন্দুক থাকলে মাঝে মধ্যে একটু গুলি ফুটবে। এইসব নিয়া এত গন্ডগুলের কি আছে?


মায়ার খেলা

বৃহত্তর জামায়াতের টোকাই শাখার আমীর শফীউল আলম প্রধানের দিকে ইংগিত করে মায়া বলেন, এই দেশে সাত খুন মাফ। সেভেন মার্ডার কেসের আসামী শফীউল প্রধান এখন বাংলাদেশের রাজনীতীর ছুট শফী হুজুর। বংগবন্ধু উহাকে জেলে ঢুকাইলেও একাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়া আসিয়া উহাকে ছাড়িয়া দিয়াছে। তোমরা সবাই নুর হোসেন নুর হোসেন করিয়া চিল্লাও, কি লাভ? বাকশালের আমলে নুর হোসেনকে আর খুজিয়া পাওয়া যাবে না। বৃহত্তর জামায়াত ক্ষমতায় আসিলেও নুর হোসেন ঠিকই ছাড়া পাইবে। কারন সে আগে বৃহত্তর জামায়াতের লোকই আছিল।

হাসতে হাসতে মফাজ্জল হোসেন বলেন, সাদ্দাম হোসেনের ফাসি হইতে পারে, নুর হোসেনদের কিছুই হইবে না। তাই শুদু শুদু আমার পরিবারটিকে কলংক না দিয়া লাইনে আসুন। নুর হোসেনের ছুট ভাইয়ের শটগান জব্দ করা হইছে, আপাতত এই নিয়াই খুশি থাকতে হবে।

নিহত সাত বেক্তির রুহের মাগফেরাত কামনা করে মায়া মন্ত্রী বলেন, আমি দুর্যগ মন্ত্রী। লঞ্চ ডুবিয়া শীতলক্ষায় মিত্যু ঘটিলে মরহুম পিছু দুটি করিয়া ব্লেক বেংগল ছাগল ক্ষতি পুরন দিতে পারতাম। কিন্তু বিনা লঞ্চে ডুবিয়া মরলে আপসোস, কিছুই বরাদ্দ করা যাইবে না। আপাতত সরকারের চোদ্দটি ছাগলের টেকা বাচিয়া গেল।

January 3, 2013

ইট বিলংস টু আবর্জনা: মালাই লামা

সিনিয়র মতিবেদক

অর্থ মন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ওরফে মালাই লামা আজ এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, অর্থই সকল অনর্থের মুল। টেকাটুকা হাতের ময়লা। ইট বিলংস টু আবর্জনা।

বুধবার সন্ধ্যায় সচিবালয়ে টিপা চুক্তি নিয়ে মন্ত্রনালয়ে এক বৈঠকের পর সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। টিপা চুক্তি বিষয়ে কি আলোচনা হয়েছে, তা জানতে চাইলে সাংবাদিকদের অর্থ মন্ত্রী বলেন, “দুই চারটা টিপ দেওয়ার জন্য বাড়তি টেকাটুকা খরচ করা কোন বড় বিষয় নয়। এটি আলোচনার ব্যাপার নয়। কয়েকদিন পরে জানতে পারবেন।”

রাজনৈতীক কোন আলোচনা হয়েছে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, টিপাটিপি পলিটিকেল কোন বিষয় নয়। ইহা প্রেম ভালোবাসার বিষয়। প্রেম ও যুদ্ধে টেকা খরচ নিয়া হইচই করা ঠিক নয়।

অর্থই সকল অনর্থের মূল

বিশিষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবীদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের নিষ্ঠুর বলি, ইসলামের বাগানে ফুটন্ত গোলাপ আল্লামা দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীর ফোন সেক্সের আলাপের বিষয়ে কোন কথা হয়েছে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী সগর্জনে বলেন, ফোন সেক্স  ধোন সেক্স নিয়ে আলাপ আলোচনার কি আছে? কথা কম বলবেন, কাম বেশি করবেন।

আবেগঘন কণ্ঠে মালাই লামা বলেন,  কামেই শান্তি, কামেই নির্বান। সাব্বে সাত্তা সুখিতা ভবনতু। জগতের সকল প্রানী সুখী হোক।

December 4, 2012

মখা vs ফখা

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলাদের ডাকে চলমান আজকের হরতালকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মখা আলমগীর ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মধ্যে মুরগা লড়াই বলে অভিহিত করেছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বৃন্দ।

উপমহাদেশের বিশিষ্ঠ ইতিহাসবীদ, কলামিষ্ট ও গান্ধীবাদী আন্দোলনের অগ্র সেনানী সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, এ হরতাল মখা আলমগীর ও ফখা আলমগীরের ইগোর লড়াই।

মকসুদ বলেন, মখার ইশারায় ফখাকে কাশিমপুর কারাগারে বন্দী রাখা হয়েছিল একটি মাস। ফখা তাই প্রতিশোধ নিতে এ হরতালে অংশ নিয়েছে।

দেশের বিশিষ্ঠ আওয়ামী পন্থী সাংবাদিক ও মিডিয়া বেক্তিত্ব মোজাম্মেল বাবু বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় চুরির দায়ে মখা আলমগীরকে জেলের ভাত খেতে হয়েছিল। এর পিছনে ফখা আলমগীরের হাত ছিল বলে সন্দেহ করা হয়। তাই প্রতিশোধ নিতে মখা এই হরতালে ফখাকে পিটানর জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়ে রেখেছে।

এ বেপারে প্রতিক্রিয়া জানতে মখা আলমগীরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ফখা আলমগীর আলমগীর নামের কলংক। আমি তাকে আজ রাস্তায় পাইলে শিবিরপিটা করব।

আলমগীর

আলমগীর

ফখা আলমগীরের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি হাসতে হাসতে বলেন, বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর যাবতীয় আন্দোলন সংগ্রাম খাটাখাটনি করে জামায়াত শিবির। বিএনপি শাখা আরামে থাকে, টক শো করে। আজ হরতালে আমি রাস্তায় নামব কুন দুঃখে? আমি রাস্তায় নামলে দুপুরে ভাত খেয়ে শাবানা, জসিম ও অঞ্জু ঘোষ অভিনীত “দুই রংবাজ” চলচিত্র দেখবে কে?

ফখা আলমগীর বলেন, মখা আলমগীর আলমগীর বংশের কলংক। আমি তাকে আলমগীর নামটি পরিবর্তন করার অনুরোধ করছি। অনুরোধ না রাখলে ক্ষমতায় গিয়ে আমি মখাকে ধরে তার নাম পাল্টায় দিব।

এ প্রসংগে বাংলাদেশ আলমগীর সমিতির সভাপতি চিত্রনায়ক আলমগীর বিরক্ত হয়ে বলেন, ফখা আর মখা, দুইটাই বখা।

October 6, 2012

আপনারা আমায় শান্তিতে পেন্ট পরতে দিন: সুরঞ্জিত

নিজস্ব মতিবেদক

দপ্তর বিহীন মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত আজ মিডিয়ার উদ্দেশে বলেছেন, আপনারা আমায় শান্তিতে পেন্ট পরতে দিন।

নিজ নির্বাচনী এলাকা সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের হোসেনপুর বাজারে এক সভায় মিডিয়ার উদ্দেশে এ আহ্বান জানান তিনি।

সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, মিডিয়া আমায় শান্তিতে পেন্ট পরতে দিচ্ছে না। আমি পেন্ট পরলেই তারা অসত্য ষড়যন্ত্র মুলক মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে আমার পেন্ট খুলে হাটু বরাবর টেনে নামিয়ে দেয়। সেই পেন্ট আমি আবার কোমর বরাবর তুলতে তুলতে চার পাচ মাস সময় লেগে যায়। যখন আমি পেন্ট পুনরায় কোমরে টেনে বেল্টের সঠিক ফুটায় হুক ঢুকানর চেষ্টা করি, তখন তারা আরেকটি মিথ্যা ষড়যন্ত্র মুলক বানোয়াট সংবাদ প্রচার করে আবার সে পেন্ট হাটুতে নামায়।

আবেগঘন কণ্ঠে সুরঞ্জিত বলেন, আমায় নেংটা করে মিডিয়ার কি লাভ?

সুরঞ্জিত ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বেক্সিমকোর সালমান রহমান হাজার হাজার কুটি টেকা মারল, সৈয়দ আবুল হোসেন হাজার হাজার কুটি টেকা মারল, হলমার্কের তানভীর আর মোদাচ্ছের হাজার হাজার কুটি টেকা মারল, আর মাত্র সত্তর লক্ষ টেকা মারায় মিডিয়া আমার পেন্ট ধরে টানে। তিনি বলেন, মিডিয়া একটি অভিশাপ। সালমান রহমান, সৈয়দ আবুল, তানভীর, মোদাচ্ছের সবাই পেন্ট পরে ঘুরে বেড়ায়। কিন্তু মিডিয়ার নজর শুধু আমার পেন্টের দিকে।

নিজ নির্বাচনী এলাকার জনগনের উদ্দেশে তিনি বলেন, মন্ত্রী থাকাকালে যে টেকা আমি মেরেছি, তা নিজে খেয়ে ও অপরকে খাইয়ে হজমও করে ফেলেছি। সে টেকা আজ বুড়িগংগা নদীতে দুর্গন্ধ হয়ে মিশে আছে। মিডিয়া ভেবেছে তারা আমার পেন্ট খুললে লুক্কায়িত ধন সম্পদ দেখতে পাবে। আপনারা বলেন, রাজনীতিবীদদের পেন্ট খুললে কি ধন দেখা যায়?

এ সময় উপস্থিত জনতা ‘না, না’ বলে শোরগোল করে উঠে।

সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত কান্নাবিজড়িত কণ্ঠে বলেন, ইসলামের নবী উট আর ঘোড়ায় চলাফিরা করতেন। আমিও এখন থেকে এপিএসকে উট কিনে দিব। উটের কুন ড্রাইভার লাগে না। ড্রাইভার লইছেন ত মরছেন।

সতীর্থ রাজনীতিবীদদের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, নিজের গাড়ি নিজে চালা, ড্রাইভারগুলিরে খালে ফালা। ড্রাইভার মানেই অভিশাপ।

সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের এপিএসের গাড়ি চালক আজম খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মতিবেদককে বলেন, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, মথুরাপুরীর প্রাচীরের তলে হয়ে যাবে তুমি লুপ্ত।

%d bloggers like this: