Posts tagged ‘কোকো’

January 24, 2015

জরিমানার ১৯ কুটি টাকা মেরে দিয়ে চির পলাতক কোকো

বেংকক মতিনিধি

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির অপর সন্তান ছুট গনতন্ত্র আরাফাত কোকো আজ বেংককে নিজ বাস ভবনে ককটেল প্রস্তুত করার সময় হৃদরোগে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যু কালে তার বয়স হয়েছিল ৪৩ বতসর।

টেকাটুকা পাচারের দায়ে ছয় বতসরের আরামদণ্ড ও ১৯ কুটি টাকা জরিমানার শাস্তি মাথায় নিয়ে পলাতক ছিলেন বেগম জিয়া জেএসসির অপর সন্তান কোকো।

আজ ঢাকায় মাদারে গনতন্ত্রের কার্যালয়ে ছুট গনতন্ত্রের ইন্তেকালের সংবাদ এসে পৌছালে এক আবেগঘন পরিস্থিতির সৃস্টি হয়। এ সময় উপস্থিত বিএনপির নেতা নেতৃরা কান্নায় ভেংগে পড়লে আপোষহীন দেশনেত্রী তাদের সান্তনা দেন।


ছুট গনতন্ত্র

বেংকক সুত্র থেকে জানা যায়, বাদ জোহর বেংককে নিজের আরাম দায়ক বিলাস বহুল বাস ভবনে বসে ককটেল প্রস্তুত করার সময় আরাফাত কোকো আচমকা হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে বেংককের বিখ্যেত হাসপাতাল বুমরুনগ্রাদে নিয়ে যাওয়ার পথে এমবুলেন্সেই তার মৃত্যু হয়।

কোকোর মৃত্যুতে বেংককের লেডিবয় এশশিয়েশন গভীর শোক প্রকাশ করেছে।

কোকোর মৃত্যুর পর জরিমানার ১৯ কুটি টাকা আদায় না হওয়ার সম্ভাবনা তুলে ধরে বিএনপি শাখার নায়েবে আমীর আল্লামা রুহুল কবীর রিজভী বলেছেন, ঐ টেকা কভি নেহি আদায় হগি। ছুট গনতন্ত্র মরিয়াও সরকারের ১৯ কুটি টেকা লছ করাইয়া দিয়া গেছেন আলহামদুলিল্লাহ।

কোকোর মৃত্যুর কারনে অবরধ বা হরতালের সুচীতে কোন পরিবর্তন হবে না জানিয়ে রিজভী বলেন, ২৯ জানুয়ারী ইয়াতীমের টেকা মারার মামলায় মাদারে গনতন্ত্রের মামলার শুনানির তারিখ আছে। আরাফাত কোকোর মৃত্যুর প্রতিবাদে স্বৈরাচার বাকশালের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ জানাইয়া ২৯ তারিখ হরতাল দেওয়া হবে। উছিলা যখন একটা পাওয়া গেছে, হেলায় হারান ঠিক নহে।

এদিকে জরিমানার ১৯ কুটি টাকা আদায়ের সুযোগ হারিয়ে সরকার আজ রাস্ট্রীয় শোক ঘোষনা করেছে।

মাদারে গনতন্ত্রের অপর সন্তান কোকোর মৃত্যুর পর বাংলাদেশের সমস্ত গনতন্ত্র এখন বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও বর্তমান আমীর এট লার্জ ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী পলাতক চিকিতসাধীন তরুন নেতৃত্ব মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট বড় গনতন্ত্র বড় গুন্ডে তারেক জিয়ার কাধে এসে নেস্ত হয়েছে বলে জানান বিএনপি শাখার রাস্ট্র বিজ্ঞানী ডা. এমাজুদ্দি।

September 1, 2014

আগামী বতসর হতে ২১শে আগষ্ট কোকোর জন্মদিন পালনের সিদ্ধান্ত

নিজস্ব মতিবেদক

২০১৫ সাল হতে প্রথম বারের মত ২১শে আগষ্টে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির অপর সন্তান আরাফাত কোকোর জন্মদিন উতসব পালনের সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত হয়েছে।

আজ বিএনপি শাখার স্থায়ী কমিটির জনৈক সদস্যের ঘনিস্ট সুত্র থেকে এ সিদ্ধান্তের কথা জানাজানি হয়।

এ সিদ্ধান্তের কথা জানাজানি হওয়ার পর বিএনপি শাখার নানা পাতিশাখায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

ঘনিস্ট সুত্র থেকে জানা যায়, কিছুদিন পুর্বে জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিকানার ভাগ বাটোয়ারা বিষয়ে সৌদী আরবের পবিত্র মদিনা নগরীতে মদিনা সামিটে আলচনায় বসেন জাতীয়তাবাদী শক্তির বর্তমান মালিক বেগম খালেদা জিয়া ও জাতীয়তাবাদী শক্তির উত্তরাধিকারী শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের পুত্র বড় গুণ্ডে বড় গনতন্ত্র তারেক জিয়া।

এ সামিটে জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত নিয়ে নানা আলচনা হয়।


ভুলনা আমায়: কোকো

সামিটে এক পর্যায়ে ২১শে আগষ্ট পুনরায় জন্মদিন পালনের জন্য মাদারে গনতন্ত্রকে অনুরধ করে বড় গনতন্ত্র বলেন, ২১শে আগষ্টের নেয় একটি গুরুত্ব পুর্ন দিনে কুন কেক কাটা না হইলে জাতীয়তাবাদী শক্তির সম্মান থাকবে না।

এ সময় মাদারে গনতন্ত্র ১৫ আগষ্ট জন্মদিন পালনের কথা বড় গুণ্ডেকে স্মরন করিয়ে দিলে বড় গুণ্ডে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের নেয় কয়েক ধাপে জন্মদিন পালনের পরামর্শ দেন। তিনি ১৫ আগষ্টে দুই হালি কেক কর্তনের সমালচনা করে বলেন, সব কেক একদিনে না কাটিয়া কিছু কেক এক সপ্তা পর কাটিলে কি এমন ক্ষতি?

এক সপ্তাহ পর কেক বাসি হয়ে যায়, এ তথ্য জানালে বড় গুণ্ডে উত্তেজিত হয়ে বলেন, বাসি কেক ত বিএনপি শাখার বিভিন্ন গ্রাম গঞ্জের পাতিশাখার নেতারাই খাইব। উহাদের পেট নামিলে আমরার কি?

এ সময় মাদারে গনতন্ত্র বড় গুণ্ডের প্রতি রাগারাগি করে তাকেই ২১শে আগষ্টে জন্মদিন পালনের আহোভান জানালে বড় গুণ্ডে বলেন, আমার জন্মদিনে দুবাই হতে দাউদ ইব্রাহীম ও লন্ডন হতে লড লেডীরা ফুন করিয়া হেপি বাড্ডে বলে। এখন আর জন্মদিন পাল্টান যাইত না।

এ সময় উভয় পক্ষ আগামী ২১শে আগষ্ট হতে বেংকক নিবাসী বেগম খালেদা জিয়ার অপর সন্তান আরাফাত কোকোর জন্মদিন পালনে সম্মত হয়।

এ সিদ্ধান্তে সন্তুস্টি প্রকাশ করে বড় গুণ্ডে বলেন, আরাফাত কোকোর জন্মদিন কেহই জানে না। উহারে লইয়া এমনেই অনেক রহস্য। কাজেই কুন সমস্যা হইত না।

এদিকে ২১শে আগষ্ট নিজের জন্মদিন উপলক্ষে উতসব পালনের সিদ্ধান্তের কথা জানতে পেরে এক তাতক্ষনিক সংবাদ সম্মেলন করে আনন্দ প্রকাশ করে পলাতক আরাফাত কোকো বলেন, বিএনপি শাখার রাজনীতীতে আমার নাম কেহই লয় না। সব খানে শুদু বড় গুণ্ডের কদর। অতছ আমি ছুট গুণ্ডে এইখানে বেংককে কুন মতে দুটু খাই পরি। বেংককে যখন পরথম আসি, তখন ভাবছিলাম এমন আনন্দ ফুর্তি করব যে সকলে আমায় দি কক অফ বেংকক নামে ডাকিবে। কিন্তু এখন সকলে আমায় দেখিয়া হাসে, দি বেং অফ বেংকক বলিয়া ডাকে।

২১শে আগষ্ট নিজের জন্মদিন ধুম ধাড়াক্কার সংগে পালনের অংগীকার বেক্ত করে আনন্দে হুহু করে কেদে উঠে ছোট গুণ্ডে বলেন, ভায়ের মায়ের এত স্নেহ কুথায় গেলে পাবে কেহ?

May 20, 2014

থাইলেন্ডে এক এগার, আমায় ডাকল না একবারও: মতিচুর

নিজস্ব মতিবেদক

থাইলেন্ডে এক এগার ঘটানর পর থাইলেন্ডের সেনাবাহীনীর আমীর জেনারেল প্রিউথ চেন ওছাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন দেশের প্রভাবশালী এলাকা কারওয়ানবাজারের সর্দার ও ১১০% অরাজনৈতিক সংগঠন ‘হেফাজতে মাহমুদুর’ এর প্রতিষ্ঠাতা আমীর আল্লামা মতিচুর রহমান আজমী।

পাশাপাশি এক এগার ঘটানর আগে তাকে আমন্ত্রন না জানানয় জেনারেল ওছার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেন মতিচুর।

আজ নিজ কার্যালয়ে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে থাইলেন্ডের জেনারেলের প্রতি অভিনন্দন ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন কারওয়ানবাজার সর্দার।

সংবাদ সম্মেলনে মতিচুর বলেন, থাইলেন্ড একটি সুন্দর দেশ। বিভিন্ন প্রয়জনে প্রায়ই আমায় বেংকক যাইতে হয়। সেখানে উন্নত মানের মেসাজের বেবস্থা আছে। ছুটকালে একবার বেংকক গিয়াছিলাম। একটি মেসাজ পালারে গিয়া বললাম, চালাও দেখি তুমাদের নুরু মেসাজ। কিন্তু পালারের মহিলা আমীর আমায় কানে ধরিয়া বহিস্কার করিয়া বলল, তুমার গায়ে ইস্কিন ডিজিজ। তুমায় আমরা নুরু মেসাজ দিব না।

আবেগঘন কণ্ঠে মতিচুর আজমী বলেন, এরপর যখন বড় হইলাম, তখন সিংগাপুরে গিয়া অপারেশন করিয়া ডিজিজে আক্রান্ত ইস্কিন বদলাইয়া লইয়া আসিয়াছি। সিংগাপুর হইতে ফিরার পথে আবার বেংককে থামছিলাম। তখন সেই মেসাজ পালারে গিয়া বললাম এই দেখ আমার ইস্কিন কত সুন্দর। এখন দেও দেখি তুমাদের নুরু মেসাজ। তখন প্রকান্ড এক লোমশ বেংককী পুরুষ আসিয়া আমায় এক ঘন্টা ধরিয়া নুরু মেসাজ দিল।

অশ্রু মুছে মতিচুর বলেন, বেংকক অদ্ভুদ।


ওরা আমায় খেলায় নিল না: মতিচুর

আবেগ সংবরন করে হেফাজতে মাহমুদুরের আমীর বলেন, এত ট্রেজেডির পরেও বেংককের প্রতি আমার সমর্থন কমে নাই। কারন বেংককে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার মহিলা আমীরের অপর সন্তান আরাফাত স্নো ওরফে কোকো বাস করে। সে একটি ভুদাই। বেংককের কায়দা কানুন কিছুই সে জানে না। একবার তার সংগে একটি রাত বেংককে চক্কর মারিয়া বুঝলাম, এই সুন্দর শহরটির কুন মজার খোজই সে রাখে না। আমি তখন তাকে বললাম, ইউ ন নাথিং স্নো।

জেনারেল ওছার প্রতি অভিনন্দন জানিয়ে মতিচুর বলেন, থাইলেন্ডে এক এগার ঘটাইছেন, ভাল কাজ করছেন। আপনাদের অন্তর্বর্তী সরকারের ফখরুদ্দিনটি পদত্যেগ করতে চায় না যখন, উহাকে বন্দুক দিয়া গুতাইয়া জেলখানায় ঢুকান। এরপর আর কি কি করতে হবে, সব আমি বলিয়া দিব, কুন চিন্তা করিয়েন না।

এক এগার ঘটনার আগে তাকে আমন্ত্রন না জানানয় ক্ষোভ প্রকাশ করে মতিচুর বলেন, বেংকক হতে ঢাকা কত কাছে। এক এগারর আগে আমায় ডাকলে আমি বেংককের সকল মিডিয়া মেনেজ করিয়া দিতাম। শুদু বন্দুক দিয়া এক এগার হয় না, দুয়েকটি মতিচুরও সংগে লাগে। এখনও সময় আছে, টিকেট পাঠাইয়া দিন। আর একটি ভাল দেখিয়া বেংককী নারীকে দিয়া নুরু মেসাজের বেবস্থাও করিয়েন।

November 25, 2013

অবহেলিত কোকো

নিজস্ব মতিবেদক

চলমান রাজনীতী নিয়ে গভীর হতাশা বেক্ত করেছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির অপর সন্তান বেংকক পলাতক ছোট গনতন্ত্র আরাফাত কোকো।

আজ বেংককে স্থানীয় একটি হোটেলে আয়জিত সংবাদ সম্মেলনে এ হতাশা বেক্ত করেন কোকো।

সংবাদ সম্মেলনে কোকো বলেন, বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর হয়েও আমি অবহেলিত। জীবনে কিছুই পেলেম না।

আবেগঘন কণ্ঠে কোকো বলেন, আমাদের দেশে পরিবারে জেষ্ঠ সন্তানকেই যাবতীয় আদর আপ্যায়ন করা হয়। কনিষ্ঠ সন্তান পড়ে থাকে ভালবাসা হীন অনাদরে, প্রদীপের নিচের অন্ধকারে। জেষ্ঠ সন্তান পরিবারের বেবসায় ভাইস চেয়ারমেনের পদ পায়, কনিষ্ঠ সন্তান কুন পদ টদ পায় না। জেষ্ঠ সন্তানের সংগে চালাক চতুর বেবসায়ীদের বন্ধুত্ব হয়, কনিষ্ঠ সন্তানের সংগে বন্ধুত্ব হয় শুধু ফেন্সীডিলের পাইকারী ও খুচরা বিক্রেতা গনের। জেষ্ঠ সন্তান চারশত ছুটকেছ ভর্তি করিয়া টেকাটুকা নির্বিঘ্নে নিরাপদে সৌদী আরবে নিয়া যায়, কনিষ্ঠ সন্তানের তিলে তিলে সঞ্চয় করা টেকাটুকা বাকশালের ফেসিবাদীরা সিংগাপুর হতে জব্দ করিয়া আনিয়া রাজকোষে জমা দেয়। জেষ্ঠ সন্তান থাকে মহা সুখে বিলাতের অট্টালিকা পরে, কনিষ্ঠ সন্তান কস্ট পায় বেংককের রোদ বৃস্টি ঝড়ে। জেষ্ঠ সন্তানের নামে ফেসবুকে এত্তগুলু পেজ, কনিষ্ঠ সন্তানের নামে কেহই পেজ খুলে না। ইন্টারনেট ভর্তি জেষ্ঠ সন্তানের খবর, অতছ কনিষ্ঠ সন্তানের নামটিও কেহ লয় না।

এক পর্যায়ে হুহু করে কেদে ফেলে আরাফাত কোকো বলেন, বেংককের সকল ভাতের হটেলের মালিক আমায় চিনে। সকল মদের ঠেক, সকল ইয়াবার টঙ্গে আমার নামে বাকির খাতা। থাইলেন্ডের নাক বুচা হারামজাদাগুলি আমায় রাস্তায় দেখলে ভেংগাইয়া বলে, বাকির নাম মাদাফাকি। তারা আমার পকেটের নাম দিয়াছে আরাফাতের ময়দান। বেংককের ঠোলারা আমায় ডাকে আরাফাত কোকেন। অতছ আমিও বেগম খালেদা জিয়ার সন্তান। তবে কেন এত বিভেদ, কেন এত বৈষম্য?

শার্টের হাতায় নাক মুছে কোকো বলেন, আমার নামে এখন শুদু কতিপয় লঞ্চ আছে, যেগুলির মালিক এখন কে, আমি জানি না। কুন আয় রুজগার নাই। মাঝে মাঝে ফখা ইবনে চখা দেখা করতে আসেন, তখন পাচ দশ হাজার ডলার দিয়া যান। এই টেকা দিয়া বেংককের নেয় বেয়বহুল বিনুদন পুর্ন নগরীতে বাস করা কি কস্টের, তা ভুক্তভুগী ছাড়া কেহই বুঝবে না।

অশ্রু মুছে কোকো বলেন, নাহয় আমি দেখতে একটু অন্য রকম, তাই বলিয়া ইতনা অবহেলা?

দেশের রাজনীতী নিয়ে গভীর হতাশা বেক্ত করে আরাফাত কোকো বলেন, যে দেশে জেষ্ঠ সন্তান এত টেকাটুকা মারার পরও টেকা পাচারের মামলায় খালাস পান, আর কনিষ্ঠ সন্তানের ছয় সাত বতসরের কারাদন্ড হয়, সে দেশের রাজনীতী নিয়া আমি আর কি কব? বৃহত দুই রাজনৈতিক দল জনগনের প্রত্যাশা পুরনে বের্থ। জনগন চেয়েছিল জেষ্ঠ সন্তানের পাশাপাশি কনিষ্ঠ সন্তানেরও একটা সুষ্ঠু নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক মানের বেবস্থা হয়ে যাবে, কিন্তু সরকার ও বিরুধী দল জনগনের চাওয়া পাওয়ার হিসাব নিতে পারেন নি। এ থেকেই বুঝা যায়, গনতন্ত্র আজ বিপন্ন। বিশেষ করিয়া ছুট গনতন্ত্র।

আগামীতে সাবেক স্বৈরাচার ও পল্লীবন্ধু রহস্যপুরুষ আলহাজ্জ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে ভোট দেওয়ার আহোভান জানিয়ে কোকো বলেন, বিএনপি শাখার সংগে আমি আর নাই। দেশে টেকা পাচারের প্রবাদ পুরুষ ও টেকা পাচারের পরেও নিরাপদে থাকার অগ্র পথিক এরশাদ সারের দলে যোগ দিব।

সলজ্জ হেসে কোকো বলেন, ওনিও দেখতে একটু অন্য রকম। গ্রেট মেন লুক এলাইক।

Tags:
%d bloggers like this: