Posts tagged ‘ফখরুল’

September 21, 2016

প্রতিষ্ঠিত হল “এফএফএফ”

নিজস্ব মতিবেদক

সমাজ, সংসার ও সরকারের নীপীড়ন নীর্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের নতুন প্লাটফর্ম হিসেবে রাজনীতীর মঞ্চে প্রবেশ করেছে নতুন সংঘটন “ফিউরিয়াস ফখা ফ্রেটারনিটি” ওরফে “এফএফএফ”।

মংগলবার সন্ধ্যায় প্রেস ক্লাবে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ সংঘটনের আত্ম প্রকাশের কথা তুলে ধরেন এফএফএফের প্রতিষ্ঠাতা আমীর ও বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার ভাঁড়মুক্ত মহানায়েব, জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’, লনডনে পলাতক চিকিতসাধীন আওলাদে আমীর বড় গুণ্ডে কতৃক ‘হাইড এন্ড সিক’ গালিতে ভুষিত ও ঈদুল কতলের টেলেন্ট হান্ট প্রতিযোগীতায় ‘ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি’ খেতাবে সমাদৃত মির্জা বাড়ির বড় গৌরব আল্লামা মির্জা ফখরুল ইসলাম আগুনগীর ওরফে ফখা ইবনে চখা।


কাদলেন ফখরুল

সংবাদ সম্মেলনে আগুনগীর বলেন, আজ বাংলার রাজনীতীর আকাশে কাল মেঘের ঘনঘটা। কুথা হতে কি ঘটতেছে, বুঝা মুশকিল। চারিদিকে হয় জংগীর হামলা, নয় পুলিশের মামলা। তার উপরে যদি আপনার নাম ফখ দিয়া শুরু হয়, আপনার জীবন শেষ।

হুহু করে কেদে উঠে ফখা ইবনে চখা বলেন, নিজের কথা ভাবি না। বিএনপি শাখার মহানায়েব আমি, সমস্ত অন্যায় মামলা হামলা ঝামলা আমার উপর দিয়া যাবে। উহার জন্যই আমায় মহানায়েব বানান হইছে। কিন্তু অন্য ফখরুলদের দুঃখে আমার রাত্রকালে ঘুম আসে না।

অশ্রু মুছে রাগারাগি করে মির্জা বাড়ির বড় গৌরব বলেন, কিছুদিন আগে বেরিষ্টার ফখরুলরে ব্রাদারফাকার সাকার মামলায় ট্রায়বুনালের রায় চুরির দায়ে দশ বছরের জেল দিয়া দিল। আপনারাই বলেন উহা কেমন বিচার? ট্রায়বুনালের রায় কেন, ঐশ্যরিয়া রায়রে চুরি করলেও ত দশ বছরের জেল দেওন উচিত না। কাঠগড়ায় তুলিয়া দুটু বকা দিয়া দিলেই ত চলত। কিংবা কানে হেডফুন বান্ধিয়া এস আই টুটুলের “আয় খোকা আয়” একশ বার শুনাইয়া দিলেই হইত। তা না করিয়া উহারে দিল হাজতে পাঠাইয়া। কেনে? কারন তার নাম ফখরুল। সে যদি বেরিষ্টার বদরুল, বেরিষ্টার সদরুল, বেরিষ্টার নজরুল, বেরিষ্টার ফজলুল, বেরিষ্টার কামরুল, বেরিষ্টার জামরুল ইত্যাদি হত, কুন সাজাই তার হত না। শুদু মাত্র ফখরুল হওয়ার কারনে তারে এইরুপ হেনস্তা করা হইল। কই, ব্রাদারফাকার সাকার বিবি আওলাদের ত কুন সাজা হল না। পাপ করল সবাই, জেল হইল ফখরুলের। ইয়ে কেয়সা অবিচার?

আবারও কেদে ফেলে ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি বলেন, তার পর দুই দিন পার হইয়া সারল না, বিশিষ্ঠ অভিনেতা ফখরুল হাসান বৈরাগীরে ফেসিবাদী বাকশালী সরকার গুমখুন করল। যদিও সে জেন্ত ফিরত আসিয়া বলতেছে যে সরকার উহাকে গুম করে নাই, খুনও করে নাই, সে গালফেন্ডের অত্যাচারের ঠেলায় আপন পুত্রের বাসায় গিয়া উঠছিল, কিন্তু বাকশালী সরকারের চাপে নীপীড়ীত বেক্তিরা কত কথাই ত বলতে বাধ্য হয়। আসল ঘটনা হইতেছে, শুদু নেতা ফখরুলরে অত্যাচার করিয়াই বাকশালের পেট ভরে নাই, তাই তারা অভিনেতা ফখরুলের পিছেও লাগছে। কুন প্রকার ফখরুলরেই উহারা জুলুম না করিয়া থাকতে পারে না।

তত্তাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেস্টা ফখরুদ্দির কথা উল্লেখ করে আবেগঘন কণ্ঠে আগুনগীর বলেন, কত উপদেস্টাই ত আইল গেল। কিন্তু শুদু মাত্র নামখানা ফখ দিয়া শুরু হওয়ার কারনে আজ সে লুকটি দেশছাড়া। দেশে আসলেই হয়ত দিবে জেলে ঢুকাইয়া, কিংবা গুম করিয়া। যদি সে বকরুদ্দি, সদরুদ্দি, কামরুদ্দি, জামরুদ্দি হইত, কুন সমস্যাই তার হত না।

অবিলম্বে জাতি ধর্ম বর্ন লিংগ নির্বিশেষ সকল প্রকার ফখার উপর সকল প্রকার জুলুমবাজী বন্ধের আহোভান জানিয়ে ফখা ইবনে চখা বলেন, ফিউরিয়াস ফখা ফ্রেটারনিটি সকল মজলুম ফখার পাশে আছে। নেতা হন কিংবা অভিনেতা, উকিল হন কিংবা আসামী, পুলিশ হন কিংবা চুর, নাম ফখ দিয়া শুরু হইলে এফএফএফ আপনার পাশে থাকবে।

অধুনা নিস্ক্রিয় ফেন্টাষ্টিক ফাইভের প্রসংশা করে আগুনগীর বলেন, তারা ছিল ডাবুল এফ। মাত্র পাচটি পাণ্ডে একত্র হইয়া রাজপথ কাপাইয়া দিছিল। আমরা ট্রিপুল এফ। আমরা কি পারব না?

বৃস্টিপাত কমার পর প্রেস ক্লাবের সামনে একটি ফখাবন্ধনের ডাক দিয়ে কমপ্লান বয় বলেন, ফেলুদায় আছিল সুপারমেন প্রখর রুদ্র। আমরা হব উহার ইসলামী কাউন্টারপাট ফখর রুদ্র। ফখারা মাইর শুরু করলে কুন বাকশালী কান্দিয়া কুল পাবি না হুশিয়ার কয়ে দিলুম।

July 25, 2016

সরকার বিএনপি শাখাকে যৌন হয়রানী করছে: ফখা

নিজস্ব মতিবেদক

সম্প্রতি হাইকুটের রায়ে টাকা পাচারের মামলায় বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও বর্তমান আমীর এট লার্জ ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী পলাতক চিকিতসাধীন তরুন নেতৃত্ব মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট বড় গনতন্ত্র বড় গুন্ডে লাদেন-এ-লনডন তারেক জিয়ার সাত বছরের জেল ও বিশ কুটি টেকা জরিমানা হওয়ার প্রতিবাদে জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার ঢাকা মহানগর পাতিশাখা আয়জিত এক এত্রাজ মহাফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’, লনডনে পলাতক চিকিতসাধীন আওলাদে আমীর বড় গুণ্ডে কতৃক ‘হাইড এন্ড সিক’ গালিতে ভুষিত ও ঈদুল কতলের টেলেন্ট হান্ট প্রতিযোগীতায় ‘ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি’ খেতাবে সমাদৃত মির্জা বাড়ির বড় গৌরব আল্লামা মির্জা ফখরুল ইসলাম আগুনগীর ওরফে ফখা ইবনে চখা বলেছেন, সরকার বিএনপি শাখারে যৌন হয়রানী করা শুরু করছে।

বক্তব্যের মঞ্চে উঠে আগুন ঝরা বক্তিতায় আগুনগীর বলেন, হাইকুটের এই রায় প্রমান করে, সরকার বিএনপির বুকে হাত দিছে। ইতিপুর্বে তারা বেংককে পলাতক ছুট গনতন্ত্র আল্লামা আরাফাত কোকোরেও সাত বতসরের জেল আর উনিশ কুটি টেকা জরিমানা করছিল। সেই রায়ের হয়রানীতে আমরার ছটে মালিক তিলে তিলে কাহিল হয়ে একদিন ইনতেকাল ফরমাইতে বাধ্য হন। আমি তখন বলছিলাম, ফেসিবাদী বাকশাল সরকার বিএনপির বাম বুকে হাত দিল।

হুহু করে কেদে উঠে কমপ্লান বয় বলেন, ছুট গনতন্ত্র বেংককে পলাতক থাকায় তার সাজা লইয়া কুন উচ্চবাচ্চ হয় নাই। ইন ফেক্ট উনি দেশে থাকলেও হইত না। রাজনীতীর ময়দানে উনি আছিলেন দুদভাত। কিন্তু সরকার দুদভাতে হাত দেওনের পরেও আমরা উপযুক্ত পরিমানে মনির পুড়াইতে কামিয়াব হই নাই। আর এতে করিয়া বখাটে বাকশালের সাহস আরও বাড়িয়া গেছে। তার নমুনা আপনারা এখন দেখতেছেন, কেমনে হাইকুট বড়ে মালিকরেও সাত বতসরের জেল আর বিশ কুটি টেকা জরিমানা করিয়া দিল। আমি এখন বলতেছি, ফেসিবাদী বাকশাল সরকার এখন বিএনপির ডান বুকেও বুংগী বাজাইয়া দিল।


ফুটন্ত ফখরুল

অশ্রু মুছে পুনরায় আগুন ঝরা বক্তব্যে ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি বলেন, হাইকুটের এই রায়ে প্রমান হইছে, সরকারের চোখে বিএনপির দুই বুকের মধ্যে পার্থক্য মাত্র এক কুটি টেকার। অতছ আমরা জানি, বিএনপি শাখার দুই বুক কখনই সমান নহে। বাম বুক আরাফাত কোকো রাজনীতীর ময়দানে কেইরা নাইটলি, আর ডান বুক তারেক জিয়া কিম কারদাশিয়ান। কিন্তু কথা সেটা নহে। কথা হচ্ছে সরকার বিএনপির বুকে হাত দিয়া দিছে। অতছ আমরা কি করতেছি? হাম লগ ত চীনা বাদাম চাবা রাহা হু। ১৯৫২ সালেও হাম লগ চীনা বাদাম চাবা করতা থা, ১৯৭১ সালে ভি। এখন পযন্ত আমরা চীনা বাদাম চাবাকে চলতা হু। এইভাবে চলবে না ভাইলগ। বুকের রক্ত দিয়া অধিকার আদায় করতে হবে।

এ সময় মিলনায়তনে গুঞ্জন উঠলে হাইড এন্ড সিক নিজেকে সংশোধন করে বলেন, এই বুক বিএনপির বুক নহে, নিজের বুক। রক্ত দিলে নিজের বুকের রক্তই দিতে হবে, বিএনপির বুক ওরফে বড় গনতন্ত্রের রক্ত আপাতত এভিলেবিল নহে। এই বিষয়ে সংশয়ের কুন অবকাশই নাহি মিলেংগে।

সামনে কঠিন দিনের প্রতি ইংগিত করে ফখা ইবনে চখা বলেন, ডান বুক বাম বুক দুই বুকেই সরকার হাত দিয়া দিল। সামনে মহিলা আমীরের ইয়াতীমের টেকা মারার কেসেও রায় হবে, মনির পুড়ানির মামলায় আমরা যারা নায়েবরা আছি তাদেরও রায় হবে। সরকার বিএনপির অবশিস্ট বুকগুলুরেও হাতাফাই করিবে। যে করিয়াই হউক উহা ঠেকাইতে হবে। তা না হলে এনি বুলু টুকু ফালু প্রভৃতি নাবালকদের হাতে বিএনপি শাখার মালিকানা চলে যাবে।

বিএনপির বুকের সংখ্যা দুই এর অধিক কেন, মিলনায়তনে এ প্রশ্ন গুঞ্জন আকারে ছড়িয়ে পড়লে রাগারাগি করে আগুনগীর বলেন, ফেক্ট দিয়া আমার সুন্দর থিউরিটারে বরবাদ করতে চাও কেনে? চুপ করিয়া সীটে বসিয়া যা বলি শুন।

অবিলম্বে এ যৌন হয়রানীর বিরুদ্ধে তিব্র আন্দলন গড়ে তুলার আহোভান জানিয়ে ফখা বলেন, সরকার যা করছে, কুন ইসলামী কানটৃতে তাহা করলে সরকাররে মাজা পযন্ত মাটিতে গাড়িয়া পাত্থর মারা হইত। কিংবা সরকাররে একশত দররা মারা হইত। দিনকাল যা পড়ছে, তাতে সরকাররে কিসাস করলেও কেহ আপত্তি করত না। কিন্তু আমরার দেশে সালা নাছারাদিগের প্রবর্তিত গনতন্ত্র চলে, তাই উহার আলকে আমার ফয়সালা একটিই।

আবেগঘন কণ্ঠে ফখা ইবনে চখা বলেন, সরকারকে বিএনপি শাখার সংগে বিবাহ দিয়া দিতে হবে।

July 18, 2016

জন্মেই দেখি ক্ষুব্ধ স্বদেশ ভুমি: ফখা

নিজস্ব মতিবেদক

সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে গভীর হতাশা বেক্ত করে বিএনপি শাখার ভাঁড়মুক্ত নায়েবে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’, লনডনে পলাতক চিকিতসাধীন আওলাদে আমীর বড় গুণ্ডে কতৃক ‘হাইড এন্ড সিক’ গালিতে ভুষিত ও ঈদুল কতলের টেলেন্ট হান্ট প্রতিযোগীতায় ‘ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি’ খেতাবে সমাদৃত মির্জা বাড়ির বড় গৌরব আল্লামা মির্জা ফখরুল ইসলাম আগুনগীর ওরফে ফখা ইবনে চখা বলেছেন, আর ভাল লাগে না।

আজ লনডনে আরাম দায়ক বিলাস বহুল এক হোটেল কক্ষে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে রাগারাগি করে আগুনগীর বলেন, এতদিন আছিলুম ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর। এখন ভাঁড়মুক্ত হইয়া আমার পুনজন্ম হইল। কিন্তু জন্মেই দেখি ক্ষুব্ধ স্বদেশ ভুমি।

কারও নাম প্রকাশ না করে ইংগিতে ফখা ইবনে চখা বলেন, গত মাসে অষ্টেলিয়ায় কন্যার কাছে বেড়াইতে যাব বলিয়া ছুটকেছ গুছাইতেছিলুম, এমন সময় আতকা লনডন হতে একটি মিসকল আসিল। আমি পাল্টা কল দিয়া সালাম দিয়া বললাম, ছার কাইফা হালুকা? বিবিসাবের শইলডা ভালা? জবাবে প্রভাবশালী এক বেক্তি আমায় বলল, হাইড এন্ড সিক মির্জাফখ সাহেব, মারহাবা। আপনি ভাঁড়মুক্ত নায়েবে আমীর হইছেন, এই উছিলায় আপনারে খাওয়াইতে চাই। জুলাই মাসের এক তারিখে আপনি তারাবীর নামাজের পর গুলশানের হলি আটিজান বেকারীতে গিয়া ইচ্ছামত খাদ্য ভক্ষন করেন, বিল যা উঠে আমি বাকী ফালাব। পিজ্জা পাস্তা পেটিস সব আমার তরফ হইতে। আপনি শুদু যাইবেন আর খাইবেন। তবে এই অফার সিমিত সময়ের জন্য।


জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’

হুহু করে কেদে উঠে আগুনগীর বলেন, তখনই মনে খটকা লাগায় আমি আর এই অফার কামে না লাগাইয়া চলিয়া গেলুম অষ্টেলিয়া আমার কন্যার বাড়ি। দুসরা জুলাই দুপুর বেলা রোজা পেটে শুইয়া শুইয়া মকসেদুল মুমেনিনের মলাট লাগাইয়া মাসুদ রানার ‘মুল্য এক কুটি টেকা মাত্র’ বইখানি পড়তেছিলুম, আতকা আমার কন্যা মির্জা তানিয়া ও পুত্র মির্জা সুমন আসিয়া আনন্দে চিক্কুর দিয়া বলল, আব্বা আব্বা ঢাকার রাস্তায় টেংক নামছে।

অশ্রু মুছে ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি বলেন, আনন্দে আমি তখন নাচতে নাচতে রবী ঠাকুরের গানে অষ্টেলিয়ার ফ্লেবার দিয়া গান ধরিলাম, হৃদয় আমার নাচে রে আজিকে কেংগারুর মত নাচে রে। ঢাকার রাস্তায় টেংক নামা মানে শেখের বেটীর দফারফা। অর্থাত আবার আমরা গদিতে। আর এইবার যেহেতু ভাঁড়মুক্ত নায়েবে আমীর পদে প্রমুশন পাইয়াইলাইছি, স্বাস্থ্য বানিজ্য যোগাযোগ ইত্যাদি বড়লুকি মন্ত্রনালয় আমার পাওনা। নাচতে নাচতে বাবুর মারে ডাক দিয়া বললাম, ও গ মকসেদুল মুমেনিনটা দিয়া যাও, নফল নামাজের তরিকাটি দেখি। আর ইফতারের নাস্তায় কেংগারুর দপেয়াজা আর এমু পাখীর কোরমা রান্ধ। আজ ফির জিনে কি তামান্না হায়। জামাতা মির্জা ফরমানরে হাতে একশ ডলার দিয়া বললাম, যাও বাবাজী বাজার সদাই করিয়া আন।

আবেগঘন কণ্ঠে আগুনগীর বলেন, কিন্তু আমার সাজান বাগান শুকাইয়া গেল, যখন দেখলাম, টেংক শেখের বেটীর কুন ক্ষয়ক্ষতি না করিয়া গুলশানের হলি আটিজানে গুতাগুতি করিতেছে। তারপর টিভি রেডিউ ফেসবুক অনলাইন রিবিশন দিয়া জানতে পারলাম, হলি আটিজানে বাদ তারাবী জংগী হামলা হইছে। আমার গদির স্বপন খানখান ত হইলই, বাজার হইতে জামাতা ঘোচুটি কেংগারুর বদলে ওয়ালাবী আর এমু পাখীর বদলে গলাছিলা মুরগী আনিয়া হাজির হইল। ঢাকার খবর শুনিয়া জামাতা সালা আমার সংগে বাজার লইয়া উলটা রাগারাগি করিয়া বলল, সংসদের বাইরে বসিয়া রাজনীতী করলে ওয়ালাবী আর গলাছিলা মুরগী হইতে বেশী কিছু আশা করিয়েন না। কেংগারু খাইতে চান ত আগে মন্ত্রী হইয়া দেখান। আর এই সব রবী ঠাকুরের হিন্দুয়ানী গান হামারা মকান মে নাহি চলেগি। আনন্দে গান গাইতে হইলে নুসরাত ফতে আলীর কাওয়ালী গান।

কোন নাম প্রকাশ না করে ফখা বলেন, বহু আন্দুলন সংগ্রামের পর ভাঁড়মুক্ত নায়েবে আমীর হইলাম। কিন্তু প্রভাবশালীরা এমন আচরন করলে কেমনে চলিব?

হুহু করে কেদে উঠে আগুনগীর বলেন, আমার পাস্তাও গেল নাস্তাও গেল।

October 30, 2015

বিএনপি শাখায় শুদু লাঞ্ছনা বঞ্ছনা গঞ্জনা: শমশের

নিজস্ব মতিবেদক

রাজনীতী হতে অবসর নেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নায়েবে খারিজি, বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির বিলায়েত বিষয়ক উপদেস্টা সাবেক পর রাস্ট্র সচিব ও মনির পুড়ান আন্দুলনের অন্যতম কর্নধার আল্লামা মেজর (অব.) শমশের মবিন চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার নিজ বাসভবনে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে রাজনীতী হতে অবসরের ঘোষনা দেন আল্লামা শমশের।

উপস্থিত সাংবাদিকদের হাতে তিনটি দরখাস্তের ফটকপি বিতরন করে আল্লামা শমশের বলেন, পচাত্তরের ১৫ আগষ্ট হতেই আমি বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার প্রতিষ্ঠাতা আমীর একাত্তরের রেম্ব ও পচাত্তরের টার্মিনেটর জেনারেল রাজ জেনারেল জিয়াউর রহমানের ঘনিস্ট সহচর। একাত্তরে তার অধীনে মুক্তিযুদ্ধ করে শরীলে বেথা পাইছিলাম। কিন্তু বাকশাল সরকার আমার বেথার কুন মুল্যায়ন করে নাই। পর রাস্ট্র মন্ত্রনালয়ে কামাল হোসেনের কামলা বানাইয়া একটি টেবিল ও একটি চেয়ার ধরাইয়া দিয়া বাকশাল সরকার আমায় বহাইয়া রাখছিল।

স্মৃতিঘন কণ্ঠে শমশের মবিন বলেন, আমার কিসমত খুলিয়া যায় পচাত্তরে ঈদুল কতলের পর। কামাল মোক্তার তখন আজকের বড় গুণ্ডের নেয় মাজার চিকিতসা করাইতে লনডনে লুকাইয়া আছিলেন। জেনারেল রাজ তাই আমায় ডাকিয়া বললেন, শমশের তুই ফরেন মিনিষ্টৃটারে সাইজ কর। টেকাটুকা যা লাগে আমি দিমু। মানি ইজ ন পবলেম। আই শেল মেক ফরেন মিনিষ্টৃ ডিফিকাল্ট ফর ফরেনারস। সেই হতে শুরু। শেখের খুনীদের দেশের বাইরে নানা এমবাসিতে চাকরী দিয়া আমিই তাদের সাইজ করিয়াছিলাম। আজও উহারা প্রতি শবে বরাতে আমায় কাড পাঠাইয়া মেহেরবানী জানায়।

দির্ঘশ্বাস ফেলে আল্লামা শমশের বলেন, তারপর ঝিলম নদীতে কত জল বহিয়া গেল। মাদারে গনতন্ত্রর আমলে পর রাস্ট্র সচিব হইলাম। তারপর মাদারে গনতন্ত্রকে কয়েক কুটি টেকা সেলামী দিয়া উনার বিলায়েত বিষয়ক উপদেস্টা হইলাম। বাকশাল সরকার পুনরায় ক্ষমতায় আসার পর বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও বর্তমান আমীর এট লার্জ ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী পলাতক চিকিতসাধীন তরুন নেতৃত্ব মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট বড় গনতন্ত্র বড় গুন্ডে লাদেন-এ-লনডন তারেক জিয়াকে কয়েক কুটি টেকা সেলামী দিয়া উনারও বিলায়েত বিষয়ক হিটমেন হইলাম। আহা সেই সুনালী দিন।

হুহু করে কেদে ফেলে আল্লামা শমশের বলেন, কিন্তু গন আর দউজ গল্ডেন ডেজ। আজ বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখা জুড়ে শুধু লাঞ্ছনা বঞ্ছনা গঞ্জনা। কুন সালা নায়েবের বাচ্চা মান সম্মান নিয়া দুটু ভাল মন্দ খাইতে পরতে পারে না। তাই আজ আমি দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে বিএনপি শাখা হতে ইস্তফা দিতেছি। এক তালাক, দুই তালাক, তিন তালাক।

উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, বিএনপি শাখায় শহীদ জিয়ার আদর্শ আর নাই।

নিজের অবস্থান বেখ্যা করে আল্লামা শমশের বলেন, বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার জন্ম শহীদ জিয়ার হাতে। সেই আদর্শের একমাত্র বাহক আজ তার একমাত্র পুত্র বড় গুণ্ডের হাতে। তিনি দির্ঘদিন যাবত লন্ডনে চিকিতসাধীন আছেন। পিতার মত উনি শহীদ হইতে পারেন নাই, মরীজ অবস্থায় আছেন। শহীদ জিয়ার হাতে বিএনপির আদর্শ ছিল বলবান ও পরিষ্কার। কিন্তু মরীজ জিয়ার হাতে পড়িয়া এই আদর্শের সাইজ এখন ক্ষুদ্র হতে ক্ষুদ্রতর হইতেছে।

শহীদ জিয়ার আমলে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আদর্শের সাইজ

নিজের নানা চাওয়া পাওয়ার কথা তুলে ধরে শমশের মবিন বলেন, আপনারা জানেন, সারা দেশে সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী দিগের বেতন গত দশ বছরে তিন গুনেরও বেশী বাড়িয়াছে। কিন্তু বিএনপি শাখার নায়েবদিগের বেতন এক পয়সা বাড়ে নাই। এই নিয়া দাবী দাওয়া জানাইতে গেলে মেডাম বকা দেয়। বড় গুণ্ডে গালাগালি করে। অতছ বিরুধী দলে নায়েব পদে থাকা মানেই দুই হাতে খরচ করা। আজ ইহাকে ভাড়া করিয়া পেট্রল বমা মারিয়া মনির পুড়াও রে, কাল উহাকে ভাড়া করিয়া বিদেশীর বডি ফালাও রে।

অশ্রু মুছে কান্নাঘন কণ্ঠে আল্লামা শমশের বলেন, সচিব থাকা কালে আল্লাহর বরকতে যে দুই তিন শত কুটি টেকা কামাই করছিলাম, সবই বিরুধী দলের নায়েবের চাকরি করতে গিয়া খরচ করিয়া ফেললাম। বড় গুণ্ডের নিকট পয়সা চাহিলে সে গালি দিয়া বলে, টেকা কি বলদের পুটু দিয়া বাইর হয় নাকি? যা যা, নিজের রাজনীতী নিজের টেকায় কর।

মরীজ জিয়ার আমলে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আদর্শের সাইজ

পাঞ্জাবীর হাতায় কান্না দমন করে শমশের মবিন বলেন, শহীদ জিয়ার আমলে বিএনপির আদর্শ ছিল মানি ইজ নট এ পবলেম। আজ মানিই সর্বাপেক্ষা বড় পবলেম। সকল টেকা টেন্ডার চান্দাবাজি বাকশাল ছাত্রলীগ যুবলীগ শিশুলীগ খাইয়া ফেলে। আমরা নয়টি বতসর ধরিয়া গদির বাইরে পড়িয়া কুন কারবার না করিয়া পেটে গেষ্টৃক বানাইয়া ফেলিয়াছি। এইভাবে খালি পেটে রাজনীতী আর নহে। আমি এখন অবসরে যাব।

তিনটি দরখাস্ত তুলে ধরে আল্লামা শমশের বলেন, আমার প্রথম দরখাস্ত বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ‘কমপ্লান বয়’, লনডনে পলাতক চিকিতসাধীন আওলাদে আমীর বড় গুণ্ডে কতৃক ‘হাইড এন্ড সিক’ গালিতে ভুষিত ও ঈদুল কতলের টেলেন্ট হান্ট প্রতিযোগীতায় ‘ফ্লেয়ার এন্ড লাবলি’ খেতাবে সমাদৃত মির্জা বাড়ির বড় গৌরব আল্লামা মির্জা ফখরুল ইসলাম আগুনগীর ওরফে ফখা ইবনে চখা বরাবর। উহার কাছে আমি আমার দ্বীতিয় দরখাস্ত পিন মারিয়া বলছি, এই দরখাস্ত মাদারে গনতন্ত্র বরাবর ফরওয়াড করিয়া দেন।

দ্বীতিয় দরখাস্তে কি আছে, এমন প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, দ্বীতিয় দরখাস্ত মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসি বরাবর। উনার কাছে আমি আমার তৃতীয় দরখাস্ত পিন মারিয়া বলছি, এই দরখাস্ত আওলাদে আমীর বরাবর ফরওয়াড করিয়া দেন।

তৃতীয় দরখাস্তে কি আছে, এমন প্রশ্নের জবাবে আল্লামা শমশের বলেন, বড় গুণ্ডেকে সত্য কথা বলার সাহস পাই নাই। সত্য কথা বললে সে আমায় মুঠফুন মারিয়া গালাগালি করবে। মনির পুড়ানি আন্দুলনের সময় সে পত্যেক দিন রাত্র কালে আমায় ঘুম হইতে তুলিয়া বলত, কি রে শমশের বানচুদ, আজ কয়টা মনির পুড়াইলি হিসাব না দিয়াই ঘুমাস কেরে? তারে যতই বলি বড় ভাই আজ আমি বড় টায়াড, সে ততই রাগারাগি করত। উহাকে সত্য কথা বলিয়া কুন শুটার রুবেলের গুলি খাওয়ার ইচ্ছা আমার নাই।

তৃতীয় দরখাস্তের বিষয়বস্তু সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরে শমশের মবিন বলেন, এই দরখাস্তে বলিয়াছি,

পৃয় বড় ভাই,
সালাম নিবেন। পর সমাচার এই যে, আমি একাত্তরে আপুনার পিতা একাত্তরের রেম্ব জেনারেল রাজ জিয়াউর রহমানের অধীনে যুদ্ধ করতে গিয়া আহত হই ও বেথা পাই। এর পর জীবনে অনেক কিছু করিয়াছি। যখন শেখের খুনীদের বিদেশী দুতাবাসে চাকরি দিয়া পাঠাইলাম, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। পর রাস্ট্র সচিব হইয়া যখন ওয়াশিংটনে গিয়া ভরা মজলিশে দাবী করলাম একাত্তর সালে মাত্র তিন লক্ষ বাংগালী মরছে, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। গত দুই বছর যখন গনতন্ত্র পতিস্ঠা করতে গিয়া শত শত মনির পুড়ানির আন্দুলন তদারকি করলাম, তখনও একাত্তরের বেথা কুন পবলেম করে নাই। কিন্তু এখন উইন্টার ইজ কামিং। গুলশানে রংপুরে বিদেশী খুনের পিছনে বড় ভাইদের হদিশ তদন্ত চলতেছে। কুন তদন্তে কি বাইর হইয়া আসে তার নাই কুন ঠিক। এমতাবস্থায় আমার শিরায় শিরায় গিরায় গিরায় শুধু একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধা খাতে খাওয়া মাইরের বেথা। এত বেথা নিয়া আর বিএনপি করতে পারতেছি না। বিদায় বড়ে মালিক। পাক সার জমিন সাদ বাদ।

ইতি
আপনার গুলামের ঘরের গুলাম শমশের।

বিএনপি শাখা তেগ করে অন্য কোন রাজনৈতিক দলে যোগ দিবেন কিনা, এমন প্রশ্নের সরাসরি উত্তর না দিয়ে আল্লামা শমশের বলেন, বিএনপি শাখায় আমি ছিলুম ভাইস চেয়ারমেন। ভাইয়ের চেয়ার কান্ধে নিয়ে ঘুরিতাম। এই বয়সে নতুন কুন রাজনৈতিক দলে যুগ দিয়া নতুন বড় ভাইদের চেয়ার কান্ধে নিয়া ঘুরার শক্তি আমার নাই।

সাংবাদিকরা আরও চাপাচাপি করলে সলজ্জ হেসে শমশের মবিন বলেন, যদি দেশে পচাত্তরের নেয় কুন মেজরের দল নতুন কুন দল খুলে, তাহলে মুরুব্বী হিসাবে হয়ত তাদের সংগে থাকব, পর রাস্ট্র নিয়া দুটু পরামিশ দিব। আর যদি তারা জুরাজুরি করে তখন নাহয় অনুরুপ কুন দলে আমীর হব। কিন্তু বদরুদ্দুজা কিংবা নজমুল হুদার মত লাফাংগার নেয় নতুন দল খুলিয়া সার্কাস খেলিবার ইচ্ছা আমার নাই।

হুহু করে কেদে ফেলে শমশের বলেন, শরীলটা ভাল না। বিএনপি শাখার আমীর আর আওলাদে আমীরের কথা বাদই দিলাম। নায়েবরা পযন্ত সকলে চিকিতসার খাতিরে বিদেশে। আল্লামা খোকা নিউ ইয়র্কে, আল্লামা সালাউদ্দিন শিলঙ্গে, আল্লামা মির্জা আব্বাস নিখোজ। জাপানী মারিয়া আল্লামা হাবু সোহেল দিল্লীতে গরুর ছদ্মবেশে খুরা রোগের চিকিতসা লইতেছে শুনছি। ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর ফখা ইবনে চখা আজ যুক্ত রাস্ট্র কাল সিংগাপুর পরশু বেংককে চিকিতসা নিয়া বেড়াইতেছে। আমি শমশের কি বানের পানিতে ভাসিয়া বিএনপি শাখায় আসছি যে দেশে চিকিতসা করাইব? অতছ স্বৈরাচার বাকশাল আমায় পাসপুট দেয় না। কখন আমায় বড় ভাই বানাইয়া রিমান্ডে নিয়া ডিম দেয় তার নাই ঠিক।

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহোভান জানিয়ে আল্লামা শমশের বলেন, পচাত্তর সালের পর হইতে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযুদ্ধা দিগের বারটা বাজাইয়া আসিতেছি। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লুকজন যাদের হাতে সর্বাপেক্ষা পুটু মারা খায়, সেই বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার আমি নায়েবে খারিজি। কিন্তু এখন যেহেতু দিনকাল ভাল নহে, তাই আবার ডিগবাজি দিয়া আলমারীর নিচের তাক হইতে নেপথলীন দেওয়া মুক্তিযুদ্ধা সাটিফিকেটটি বাহির করিয়াছি। আপনারা সবাই ঐক্যবদ্ধ হন। জয় বাংলা।

অবসর জীবন কিভাবে কাটাবেন, এ প্রশ্নের জবাবে শমশের মবিন বলেন, সবার আগে নাম পাল্টাইব। সবাই জানে শমশের মবিন বাসে ট্রাকে টেম্পুতে আগুন দেয়। পথে ঘাটে মানুষের নিকট মুখ দেখাইতে পারি না। নাম পাল্টাইয়া এখন অবসর মবিন চৌধুরী হব। তারপর লিখালিখি করব। আর তেলাপুকায় খাওয়া এলবাম ঘাটিয়া মুক্তিযুদ্ধের ছবি উল্টাইয়া পাল্টাইয়া দেখিব।

কি লিখালিখি করবেন এমন প্রশ্নের উত্তরে আল্লামা শমশের হাসতে হাসতে বলেন, এরশাদ ছার কবিতা লিখেন। উনাকে এসএমএস করিয়া বলছি, আমারে নিবা মাঝি? এরশাদ ছার বলছেন, এক বুতল ব্লেক লেবেল নিয়া চলিয়া আয়, দেখি কিছু শিখাইতে পারি নাকি।

জনগনের কাছে আগাম মাফ ও দুয়া চেয়ে শমশের মবিন চৌধুরী বলেন, আছিলাম শুয়র হইলাম শায়ের।

%d bloggers like this: