Posts tagged ‘বাসদ’

August 6, 2016

মাইলসকে জংগী প্রশিক্ষন দিব: আনু

নিজস্ব মতিবেদক

বাংলাদেশের বিখ্যেত বেন্ড সংগীত দল মাইলসকে জংগী প্রশিক্ষন দানের ঘোষনা দিয়ে রাজনীতীর মাঠে আলড়ন তুলেছেন জাহাংগীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতীর অধ্যাপক ও তেল গেস খনিজ বন্দর বিদ্যুত রাজাকার বাচাও আন্দুলনের আমীর ‘আওলাদে মাও’ আল্লামা আনু মুহাম্মদ।

বৃহস্পতি বার বাম মর্চা আয়জিত এক বিবিধ প্রতিবাদ সভায় বক্তিতা কালে এ ঘোষনা দেন আওলাদে মাও।

বক্তিতায় আল্লামা আনু বলেন, আপনাদের এই সভায় আসার পুর্বে বাসদের তালেব শাখা সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট আয়জিত আরেকটি সভায় আমি বক্তিতা দিয়াসছি। ঐ সভায় বলছি, কাজের অভাবে পুলাপান জংগী হইতেছে। আপনাদের এইখানে আসিয়া উল্টা কথা বলতে ত পারি না। তাই একই কথা এইখানেও কব। ফেসিবাদী বাকশাল সরকার কাজ দিতে পারে না বলিয়াই দেশে জংগীর এমন বাম্পার ফলন ফলতিছে।

এ সময় উপস্থিত দর্শকরা তুমুল হাততালি দিয়ে আওলাদে মাওকে উতসাহ দেন।


কতিপয় বেকারের সামনে আওলাদে মাও

আবেগঘন কণ্ঠে আওলাদে মাও বলেন, আগে বেকার হইলে পুলাপান বাসদে ঢুকত। এখন গিয়া ঢুকতিছে হিযবুদ তাহরীর, জেএমবি, আনসারুল্লা, প্রভৃতি সংগঠনে। কেন এমন হতিছে? কারন বাসদ ঐ বেকারদিগকে উপযুক্ত জংগী প্রশিক্ষন দিতে বের্থ। আর একবিংশ শতাব্দীতে কুন বেকারই বিনা প্রশিক্ষনে ফাও বসিয়া থাকবে না।

বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে আল্লামা আনু বললেন, এইটুক পযন্ত বলার পরই বাসদের আমীর ঐ খালকাটা খালেক আমায় ঘেটী ধরিয়া মাইকের সম্মুখ হইতে সরাইয়া আনিয়া বলল, আওলাদে মাও তুই পুলাপানের সামনে এইসব বলিয়া খাটনি বাড়াইতেছিস কেনে? আদর্শের কথা বল নয়ত যা গিয়া। এই আচরন তার নিকট হইতে আশা করি নাই। তাই পুনরায় মাইক নিয়া বললাম, শুদু কাজের অভাবেই নহে, ভালবাসার অভাবেও পুলাপান জংগী হয়। তুমরা সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট নিয়মিত ভালবাসা কর ত?

হুহু করে কেদে উঠে আওলাদে মাও বলেন, সাদা মনে এই কথা জিগানর পরপরই ফ্রন্টের সভায় যেন ঠাডা আসিয়া পড়ল। যুবক যুবতী পরস্পরের পানে তাকাইয়া হুহু করিয়া কাদিয়া উঠল। খালেক সালা আমায় পুনরায় ঘেটী ধরিয়া চক্ষু রাংগাইয়া বলল, জানস না দুই দিন পরপর যৌন বেপার লইয়া আমার সাধের বাসদ ভাংগিয়া দুই তিন টুকরা হয়? তবে কেনে এই জিনিস ঘাটস?

আল্লামা আনুর বক্তব্যের এ পর্যায়ে সভায় উপস্থিত দর্শকদের মাঝে গুঞ্জন উঠে। কতিপয় বেয়াড়া দর্শক ডাক্তার রোকন, মোক্তার তাকী, ডেন্টিষ্ট তুষার, আইটি সুজন প্রভৃতি পেশায় বেস্ত বিবাহিত জংগীর উদাহরন দিলে আওলাদে মাও রাগারাগি করে বলেন, বেতিক্রম ত দুই তিনশ থাকবেই। পাকনা কথা না বলিয়া চুপ করিয়া বস, যা বলি শুন।

অতি সম্প্রতি ভারতের কলকাতা নগরীতে বেন্ড সংগীত পরিবেশন করতে গিয়ে বয়কটের স্বিকার মাইলস বেন্ডের উদাহরন দিয়ে আওলাদে মাও বলেন, হমীন হুজুর ও শফীন হুজুর, উভয়েই নিজ নিজ গনতান্ত্রিক অধিকার চর্চা করতে গিয়া হিন্দুস্থানের পুটু মারিয়া ফেসবুক ষ্টেটাস দিত। ইহাতে ফেসিবাদী হিন্দুস্থানীরা চেতাচেতি করিয়া উহাদিগের রিজিকে হাত দিছে। মাইলস আর কলকাতায় কনসাট করিতে পারবে না। দেশেও শাহাবাগী ফেসিবাদের পর হইতে আজ ইস্তক সরকারের গুপন ইশারায় উহাদের রোজগার বন্দ। বেকারত্বের অভিশাপে মাইলস আজ জর্জরিত। মাইলসের শিল্পিরা বয়সে আমারও মুরুব্বি, এই বয়সে ভালবাসা পাওয়া অসম্ভব না হইলেও কঠিন। তাই কাজ ও ভালবাসা, উভয়ের অভাবে উহাদের জংগী হওয়া ছাড়া আর কুন উপায় নাই। আমি হমীন হুজুর ও শফীন হুজুরকে অবিলম্বে নিকটস্থ চরে গিয়া জংগী প্রশিক্ষন লওয়ার আহোভান জানাইতেছি। প্রয়জনে আমি নিজে উহাদের বন্দুক চালনা ও তাইকেন্দু শিখাব।

হাসতে হাসতে আওলাদে মাও বলেন, রুপম ইসলাম নামক নখড়াবাজটিকে কুপাইতে পারলে ভাল হইত। কিন্তু সে মুসলমান, তাই তার গুটিবাজীর শাস্তি মালাউন হেমন্ত মুখপাধ্যায়কে দেওয়া হবে। মাইলস শিঘ্রই কলকাতায় গিয়া হেমন্তরে কিসাস করবে।

এ সময় উপস্থিত দর্শকরা হেমন্ত মুখপাধ্যায়ের মৃত্যু সংবাদ তুলে ধরলে আল্লামা আনু পুনরায় রাগারাগি করে বলেন, ভাল কাজে বাগড়া দেওয়ার জন্য আগে আগে মরিয়া গেল সালা। সুমন চট্টপাধ্যায়ের কি খবর, সে কি বাচিয়া আছে?

সুমন চট্টপাধ্যায় ইসলাম গ্রহন করে সুমন কবীর হয়েছেন শুনে আওলাদে মাও আরও রাগারাগি করে বলেন, তাইলে অঞ্জন দত্ত আর নচিকেতারেই কুপাব। এর মদ্যে মুসলমান হবি না খবরদার।

দর্শকদের মাঝে স্বস্তি ফিরে এলে লড়াকু কণ্ঠে আল্লামা আনু বলেন, একটি বেকারও যেন বেকার না যায়। হয় বাসদে ঢুক, নতুবা আমাদের জাতীয় কমিটির হইয়া খেদমত খাট, নয়ত জংগী হইয়া যাও। মানি ইজ নট এ প্রবলেম।

এ সময় মঞ্চে উপস্থিত বক্তা ১১০% অরাজনৈতিক সংগঠন ‘নিখিল বাংলাদেশ জুনাইদ সংঘ’ এর নায়েবে আমীর জোনায়েদ সাকী আওলাদে মাওয়ের কানে কানে কিছু বলার পর তিনি নিজেকে সংশধন করে বলেন, একটু আগে ব্রাদারফাকার সাকার পুত্র হুকারে ডিবি ঘোচুর দল ধরিয়া লইয়া গেছে। মানি ইজ এ প্রবলেম নাউ। আপনারা সামনে কয়দিন একটু অল্প খাইয়া অভ্যাস করেন।

December 12, 2013

কুন আঁতাতে এমন রায়: খালেক

নিজস্ব মতিবেদক

ফেসিবাদী বাকশাল সরকারের প্রতি চেলেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল ওরফে বাসদের আমীর কমরেড আল্লামা খালেকুজ্জামান বলেছেন, কুন আঁতাতে এমন রায়, কমরেড খালেক জানতে চায়।

আপীল বিভাগ কতৃক আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল ও আপীল বিভাগের নির্মম বলি, মেধাবী শিক্ষক ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে নায়েব আবদুল কাদের মোল্লা ওরফে কসাই কাদেরের মৃত্যু দন্ডের রায় রিভিউয়ের আবেদন খারিজ হওয়ার পর কমরেড আল্লামা খালেক এ চেলেঞ্জ দেন।

কমরেড খালেক বলেন, বাংলাদেশে হাজার হাজার বতসর ধরে দুই কুকুরের লড়াই চলতেছে। জনগন, বিশেষ করিয়া বাসদী জনগন গেলারীতে বসিয়া বসিয়া এই লড়াই দেখতে দেখতে ক্লান্ত। তারা পরিবর্তন চায়। একটা কুন সালা ঘোচু জেনারেল নাই যে ক্ষমতা দখল করলে কোদাল নিয়া তার সংগে খাল কাটতে বাইর হব। এইভাবে আর চলতে পারে না।

আবেগঘন কণ্ঠে কমরেড খালেক বলেন, ফেসিবাদী শেখের বেটী আবার বৃহত্তর জামায়াতের সংগে আঁতাত করতেছে। তার আঁতাতের কারনেই কসাই কাদের ওরফে কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় ঝুলিয়া গেল। গত বিয়াল্লিশটি বতসর কাদেরের ফাঁসি দেখব বলিয়া দুয়ারে দুয়ারে ঘুরতেছি। কুন সালাই তাকে ফাঁসি দিল না।


খালকাটা খালেক

শেখের বেটীর প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে খালকাটা খালেক বলেন, শেখের বেটী গদিতে উঠার পরই আমি বুঝতে পারছিলাম, কাদেরের হায়াত আরও ৫০-৬০ বতসর বৃদ্ধি পাইল। এই আঁতাতের রায় থেকেই প্রমানিত হয়, দেশে বিদ্যমান দুই কুকুরের মধ্যে বাকশাল বেশী দুস্ট কুকুর।

কমরেড খালেকের বক্তব্যে উপস্থিত এগার জন শ্রোতার মাঝে গুঞ্জন উঠলে তিনি আরাম দায়ক বিলাস বহুল একটি ষ্মার্ট ফুনের মাধ্যমে সংবাদ পাঠ করে হাসতে হাসতে বলেন, আসলে ঘুম থেকে উঠতে বিলম্ব হয়েছে। গত রাত্রে যে বক্তিতাটি মুখস্ত করছিলাম, সেটাই বলিয়া ফেলছি।

আবেগঘন কণ্ঠে কমরেড আল্লামা খালেক বলেন, কমরেড! পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে নতুন বক্তিতা তৈয়ার করতে সময় লাগবে। আপাতত আপনারা টিকফা চুক্তি ও সুন্দরবন নিয়া একটি মিছিল রেডী করেন। বাকশালের চামড়া তুলে লব আমড়া।

December 7, 2013

খাল কাটতে হাত খাউজায়: খালেক

নিজস্ব মতিবেদক

অবিলম্বে কোন বলিষ্ঠ জেনারেলের হাতে ক্ষমতা ছেড়ে দিয়ে পদত্যেগের জন্য বাকশালের ফেসিবাদী মহিলা আমীর শেখ হাসিনার প্রতি হুশিয়ারী বেক্ত করেছেন বাসদের আমীর কমরেড আল্লামা খালেকুজ্জামান।

শাহবাগে ‘সহিংসতা প্রতিরোধ জনতার’ বেনারে বক্তব্য দানকালে কমরেড আল্লামা খালেক এ কথা বলেন।

খালেক বলেন, বিএনপি শাখা বাকশালের ফেসিবাদী ফান্দে পাড়া দিয়া জনগনের গায়ে আগুন দিতেছে। এইসব খুব খারাপ। ছি। আমি খালেদাকে বকে দিব।


খালকাটা খালেক

আবেগঘন কণ্ঠে কমরেড আল্লামা খালেক বলেন, দুই কুকুরের লড়াইয়ের মাঝখানে পড়িয়া জনগনের হালুয়া টাইট। তারা এখন সিপিবি-বাসদের শাসন চায়। একমাত্র সিপিবি আর বাসদই পারে জনগনকে আরাম দিতে।

নিপীড়িত মানুষের নেতা খালেক বলেন, শেখের বেটীর পিতাকে কতল করার পর একাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়াকে যেমন অকুণ্ঠ চিত্তে সমর্থন দিয়াছিলাম, তেমনি কুন বলিষ্ঠ জেনারেল যদি এখন ক্ষমতা দখল করে, তবে তার পিছে কাতার বান্ধিয়া খাড়াব।

নতুন করে খাল কাটা কর্মসুচী চালুর জন্য ভবিষ্যতের জেনারেলদের আহোভান জানিয়ে খালেক বলেন, জিয়ার সংগে খাল কাটা কর্মসুচীতে বাইর হইয়া অসংখ্য খাল কাটার রেকড আমার আছে। আপনারা যদি ডাক দেন, বাসদের শত শত কমরেড কোদাল হাতে উপস্থিত হব।

বৃহত্তর জামায়াতের প্রতি অভিমান প্রকাশ করে খালেক বলেন, উহাদের উতপাতে বিএনপি শাখার সংগে বাসদের ঠিকমত ভালবাসা হল না। পাষান কতগুলি।

December 6, 2013

দুই কুকুরের লড়াইয়ে আমি গেলারীতে: খালেক

নিজস্ব মতিবেদক

চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে উচ্ছাস প্রকাশ করে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল ওরফে বাসদের আমীর কমরেড আল্লামা খালেকুজ্জামান বলেছেন, দুই কুকুরের লড়াই জমে উঠেছে। আমি গেলারীতেই আছি।

আজ নিজ বাসভবনে আয়জিত এক অন্তরংগ সাক্ষাতকারে এ উচ্ছাস প্রকাশ করেন কমরেড আল্লামা খালেক।

খালেক বলেন, এখন পযন্ত লড়াইয়ে হানাহানির দিক হতে আগাইয়া আছে আমার প্রিয় কুকুর বৃহত্তর জামায়াত। অপ্রিয় কুকুর বাকশাল মাইরের উপর আছে। কিছু ভুদাই জনগন, যারা কুনদিন বিপ্লব করবে না, তারাও অসুবিধায় আছে। তবে সম্ভাব্য বিপ্লবীগনের কুন সমস্যা নাই। তারা গেলারীতে আছে।

আবেগঘন কণ্ঠে কমরেড আল্লামা খালেক বলেন, বাকশালের ফেসিবাদকে বাসদ একা বিপ্লব করিয়া ঠেকাইতে পারবে না। ভেনগার্ড বিক্রয় করিতে গিয়াই আমাদের নাভিশ্বাস উঠিয়া যায়। তাই বৃহত্তর জামায়াতের বাকশাল ধুলাইকে আমরা মৌন সমর্থন দিতেছি।


কল রেডী

বৃহত্তর জামায়াতকে মৌন সমর্থন দেওয়া আত্মঘাতী হবে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে হাসতে হাসতে কমরেড আল্লামা খালেক বলেন, বৃহত্তর জামায়াতরে মৌন সমর্থন না দিয়ে জুরে জুরে সমর্থন দিলে সেটা কি ভাল দেখাবে? আর তাদের সংগে শত্রুতা করতে গেলে যদি মাইর খাই?

রাস্ট্র ক্ষমতা দখলের পরিকল্পনা বেখ্যা করে খালেক বলেন, এই দুই কুকুরের লড়াইতে দুই কুকুরই মাইর দিতে দিতে ও মাইর খাইতে খাইতে হয়রান হইবে। মাঝখান দিয়া কতিপয় জনগন, যারা কুনদিন বিপ্লব করবে না, তারাও জ্বলিয়া পুড়িয়া বিনাশ হবে। তখন বাসদের বিপ্লবীরা ফিডেল কেষ্ট্রর নেয় রাস্ট্র দখল করবে। আমি হব প্রধান মন্ত্রী আর আমীরে সিপিবি সেলিম হবে বিরুধী দলীয় নেতা। তখন আমরা নিজেরা নিজেরা শেখ-মেডাম খেলব।

মুক্তিযুদ্ধের নিন্দা করে খালেক বলেন, মুক্তিযুদ্ধও আছিল দুই কুকুরের লড়াই। আমরা তখনও গেলারীতে আছিলাম, এখনও গেলারীতে আছি। হাড্ডি একদিন আমাদেরই হইবে।

এ সময় মুঠোফুনে কল এলে কল ধরে কমরেড আল্লামা খালেক হাসতে হাসতে বলেন, আমরা সর্বদা কল রেডী।

%d bloggers like this: