Posts tagged ‘মজহার’

September 4, 2016

১০ টাকা কেজির চাল সরবরাহে বিলম্বে সুশীল সমাজের ক্ষোভ

নিজস্ব মতিবেদক

‘খাদ্যবান্ধব’ কর্মসুচীর আওতায় আগামী ৭ সেপ্টেম্বর হতে দেশের ৫০ লাখ পরিবারকে ১০ টাকা কেজিতে মাসে ৩০ কেজি চাল সরবরাহের ঘোষনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে দেশের সুশীল সমাজ।

আজ ইনজিনিয়ারস ইনস্টিটিউটে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে আরও দ্রুত এই কর্মসুচী চালু না করায় সরকারকে তিরস্কার করেছেন সুশীল সমাজের প্রতিনিধি গন।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্যে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল ইঞ্চি বলেন, সরকার আমরার মীর কাশেম ছাহেবকে ফাসি দিল ৩ তারিখ। আর ১০ টেকা কেজির চাল বরাদ্দ শুরু করতিছে ৭ তারিখ হতে। আমরা সুশীলরা, যারা মীর কাশেম ছাহেবের মৃত্যুর পর ইয়াতীম হয়ে গেনু, তারা ৪, ৫ ও ৬ তারিখে কি খাব?

বক্তব্যে মীর কাশেমের পতৃকা নয়া দিগন্তের নিয়মিত লেখক প্রবীন অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী মীর কাশেমের ফাসির ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, আমরা যারা মীর কাশেমের পেপারে দুটু কলম লিখে খাইতুম, তাদের বিকল্প কর্ম সংস্থানের কুন রকম বন্দবস্ত না করিয়াই ফেসিবাদী বাকশাল কাশেম ছাহেবকে ফাসি দিয়া ফেলল। এতে সামাজিক নিরাপত্তা মারাত্মক রুপে বিঘ্ন হইতিছে। এতেই প্রমান হয় যে দেশে গনতন্ত্র নাই।

বিশিষ্ঠ কবি, হেকিমী চিকিতসক ও বোমারু দার্শনিক আল্লামা ফরহাদ মজহার লুংগি বলেন, ভারতীয় হিন্দু হাতি বংগ বাহাদুরকে পযন্ত এই নাস্তেক সরকার আখ ও কলাগাছ সরবরাহ করিয়াছে। অতছ আমরা কয়েক ঘর মুসলমান বুদ্ধিজীবী ৩ সেপ্টেম্বর কাল রাত্রিতে মীর কাশেম ছাহেবের ফাসির পর হতে যে বেকার হইয়া গেলুম, অনাহারে অর্ধাহারে দিন গুজরান করিলুম, উহার দিকে সরকারের কুন খেয়াল নাই। দুর্যগ ও ত্রান মন্ত্রী মায়ার মধ্যে কুন মায়াদয়া নাই। থাকলে সে আমাদের বাড়িতে কাটারিভগ চাউল, মুগ ডাইল, ঘি ও খাসির মাংস পাঠাইত। এমনকি আখ ও কলাগাছ পাঠাইলেও বুঝতাম যে তাহারা আমাদের কথা ভাবে। কিন্তু বিকাল পযন্ত আমরার বাড়িতে কিছুই যায় নাই।

বাংলাদেশের সংবিধানের প্রনেতা দলের অন্যতম সদস্য, খেতনামা আইনজীবী ও দেশের একমাত্র নির্ভরযোগ্য সাংবাদিক ডেভিড বাগমেনের বৈধ শশুড় গন ফোরামের প্রতিষ্টাতা আমীর এবং হাজার রাজনৈতিক জোটের পাটনার বেক্তিত্ব বাংলার সংবিধানের পিতা আতাসংবিধান ড. কামাল হোসেন ওরফে আইনের ময়দানে কিংবদন্তী ফুটবলার কামালহো বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আপসস করে বলেন, ১০ টেকা কেজির চাউল নিয়া আপসস করি না। কিন্তু মীর কাশেমের ফাসির পর আমার বিলাতি জামাতা ডেভিডরে লইয়া টেনশনে আছি। পুনরায় যদি উহার হাতখরচ আমায় যুগাইতে হয়, মালাই লামার নেয় বেংক লুট করা ছাড়া আমার আর কুন উপায় থাকবে না।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে হুহু করে কেদে উঠে কামালহো বলেন, ডেভিডরে ১০ টেকা কেজির চাউলের জন্য রেশন কাড করাইয়া দিব ঠিক করছিলুম, কিন্তু সালা ঘোচু শুদু পাস্তা পিজ্জার জন্যি কান্নাকাটি করে।

উপস্থিত সুশীলদের সান্তনা দিয়ে জাহাংগীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতীর অধ্যাপক ও তেল গেস খনিজ বন্দর বিদ্যুত রাজাকার বাচাও আন্দুলনের আমীর ‘আওলাদে মাও’ আল্লামা আনু মুহাম্মদ বলেন, আপনারা আমার সংগে নিকটস্থ চরে চলেন। কাটারিভগ চাউলের ভাতের বন্দবস্ত হবে। তবে বিনিময়ে বন্দুক চালনা ও তাইকেন্দু শিখতে হবে।

 

November 21, 2015

পাকা পাইখানার মোহ তেগ করে দেশে ফিরায় খালেদাকে বৃহত্তর জামায়াতী বুদ্ধিজীবিদের অভিনন্দন

নিজস্ব মতিবেদক

চক্ষু চিকিতসার জন্য লনডনে দুই মাস অবস্থানের পর পুনরায় দেশে ফিরে আসায় বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বুদ্ধিজীবি শাখার আমীর ওমরাহ বৃন্দ।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে পাকা পাইখানার মোহ তেগ করে দেশে ফিরায় মাদারে গনতন্ত্রর প্রসংশা করে বিশিষ্ঠ দার্শনিক, কবি, হেকিমী চিকিতসক ও সাংবাদিকদের উপর বোমা মারার দার্শনিক প্রবক্তা ফরহাদ মজহার লুংগি বলেন, পাকা পাইখানার মোহে অনেক লুকজন ইদানীং দেশ তেগ করিয়া বিদেশে আশ্রয় লইতেছে। দুই মাস ধরিয়া আমরার মেডাম লনডনে পড়িয়া থাকায় আমরাও ভাবছিলাম, মেডামেরও একই কেস। কিন্তু আজ দেশে ফিরিয়া মেডাম প্রমান করিয়া দিলেন যে পাকা পাইখানার মোহ উনাকে লনডনে আটকাইয়া রাখতে পারবেক লাই।

আবেগঘন কণ্ঠে ফরহাদ মজহার লুংগি বলেন, পাকা হোক তবু ভাই পরের ও বাসা, নিজ হাতে গড়া মোর কাচা ঘর খাসা।

খেতনামা ড্রন বিশেষজ্ঞ, মস্তফা অনুরাগী, কাপড় বেবসায়ী ও ইসলামী বেংকের সমঝদার হরলিকস পাগলা বিতর্ক রাজ ও আত্মস্বিকৃত ‘ফেসবুক গু-বাবা’ আল্লামা আবদুন নুর তুষার হাত তালি দিয়ে মাদারে গনতন্ত্রকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, সাম্রাজ্যবাদী শক্তি যুগে যুগে আসিয়া আমরারে দেশজ পন্থায় হালকা হওয়ার রাহে হতে বিচ্যুত করার চেস্টা করছে। এর জন্য দায়ী ফ্রান্স। ফ্রান্সের ছলনায় ভুলিয়া আমরা আবহমান বাংলার ঐতিহ্যবাহী কায়দা ভুলিয়া ইয়াহুদী-নাছাড়ার বিকৃত কুতসিত গদিনশীন কায়দায় মাতিয়া উঠছি। প্রতি শনিবার সকালে যখন আমি হালকা হইতে যাই, আমার কান্না পায়। পাকা পাইখানা আমরার ইহকাল পরকাল সব নস্ট করিয়া দিতেছে।

হুহু করে কেদে ফেলে হরলিকস পাগলা বলেন, এই গুনাহ হতে রক্ষার একটাই উপায়, কাচা পাইখানা। ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া একটি ঘাসের শিশের উপর একটি শিশির বিন্দুর নরম ছোয়া। বদনা ও চুলার ছাইয়ের কুমল পরশ। সাম্রাজ্যবাদী পশ্চিমের পাকা পাইখানার হাতছানি উপেক্ষা করিয়া আমরার মেডাম আমরার কাছে ফিরিয়া আসছেন। এ জয় গনতন্ত্রের জয়, এ জয় ইতিহাসের জয়, এ জয় তমদ্দুনের জয়। বাড়ির ভিতরে এক কুনায় প্রতি শনিবার আটকা পড়িয়া না থাকিয়া সাতান্ন হাজার বর্গমাইলের প্রতিটি বর্গফুটরেই আমরারে আপন করিয়া লইতে হইবে।

এদিকে নিজের আরাম দায়ক বিলাস বহুল বাসভবনে ফিরে যাওয়ার পর মেডামের মিডিয়া নায়েব মারুফ কামাল খান বলেন, মেডামের জাকুজিতে পানি গরম দেওয়া হইছে। এখন বক্তব্য চাহিয়া দিষ্টাপ দিবেন না।

কেন ব্রাদারফাকার সাকা ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাসির লগ্নে বেগম জিয়া জেএসসি দেশে ফিরে এলেন, এ প্রশ্নের জবাবে মারুফ কামাল খান হাসতে হাসতে বলেন, আমরার মেডাম খাইতে আইছেন কুলখানি, সেইটা লইয়াও তুমরার এত চুলকানি?

March 4, 2015

ফারাবীকে নিয়ে দন্দে জড়িয়ে পড়লেন শফী ও ফারুকী

হাটহাজারীস্তান আল-মতিবেদক

বইমেলা হতে অদুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় মুক্তমনা লেখক ও ব্লগার অভিজিত রায় হত্যাকাণ্ডের নির্দেশদাতা ও ফেসবুকে অবিবাহিত তরুনীদের ত্রাস ছুট শফী হুজুর ফারাবী শফীউর রহমানের গ্রেফতার নিয়ে তিব্র দন্দে জড়িয়ে পড়েছেন বাংলাদেশের অভ্যন্তরে স্বাধীন রাস্ট্র হাটহাজারিস্তানের খলিফা ও অরাজনৈতিক রাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা আমীর, উপমহাদেশের সর্বাপেক্ষা হিট আলেম ও ১৩ দফার প্রবক্তা আল্লামা রাজ তেতুল হুজুর শাহ আহমদ শফী এবং বাংলার সেরা বিজ্ঞাপন নির্মাতা ও টেলিভিশনে ইসলামী অনুষ্ঠান উপস্থাপকদের প্রভাবশালী সংগঠন ‘এশশিয়েশন অফ ইসলামী মিডিয়া পারসনালিটি’র বর্তমান আমীর বাংলার ডেভিড ধাওয়ান আল্লামা মস্তফা সরয়ার ফারুকী।

আজ সংবাদ সম্মেলনে বিবৃতী ও পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে পাল্টা বিবৃতী দিয়ে সারা দেশে আলচনার শির্ষে উঠে আসেন এই দুই আল্লামা।

হাটহাজারিস্তানের দারুল উলুম মইনুল ইসলাম ওরফে হাটহাজারী বড় মাদ্রাসার কুচকাওয়াজ ময়দানে আজ সশস্ত্র তালেবগনের কুচকাওয়াজ ও সালাম গ্রহনের পর আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে ফারাবী শফীউর রহমানের প্রতি তিব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে আল্লামা রাজ শাহ শফী বলেন, যুক্তরাস্ট্রের নাস্তিক অভিজিত রায়রে হত্যার হুকুম দাতা এই ফারাবী শফীউর রহমান একটি অভিশাপ। উহার কারনে আমার সহজ সরল জিন্দেগী তামা তামা হইয়া গেল।

আবেগঘন কণ্ঠে আল্লামা শফী বলেন, ইন্টারনেটে নাস্তিকদের সংগে লড়াই কর, ভাল কথা। কিন্তু উহাদের কাছে নিজেরে ছুট শফী হুজুর পরিচয় দেও কুন সাহসে? এই সালা ফারাবী ঘোচুর কারনে সকলে এখন শফী হুজুররে গালি দিতেছে। মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের ভয়ংকর নাস্তিক সংগঠন এফবিআই পযন্ত এখন আমার পিছে লাগিয়াছে। আর এর জন্য দায়ী এই আবুল ফারাবী।

হুহু করে কেদে উঠে তেতুল হুজুর বলেন, সেদিন বাদ জোহর একটু বিশ্রাম করতে লইছিলুম। আতকা মুঠফুন বাজিয়া উঠিল। ফুন তুলিয়া দেখি কে যেন ২১ টাকা ফ্লেক্সীলুট করিয়া দিছে। আমি ত মাননীয় স্পীকার হইয়া গেলুম। উল্টা সেই লাম্বারে ফুন মারিয়া বললুম, আপুনি মনে হয় ভুল করিয়া আমার লাম্বারে ২১ টেকা ফ্লেক্সীলুট করিয়াছেন। তখন একটি বেয়াদব তেতুল সুমধুর কণ্ঠে খিলখিল বেদাতের হাসি হাসিয়া বলল, না গ আমার ছুট শফী হুজুর, ২১ টেকা আমি তুমায়ই পাঠায়ছি গ তুমায়ই পাঠায়ছি। আমি থতমত খাইয়া বললুম, আস্তাগফিরুল্লাহ আপুনি কেন আমায় ২১ টেকা পাঠাইতে গেলেন? সেই তেতুল হুরপরী তখন কামনা মদির শয়তানী হাসি হাসিয়া বলল, ছয়টি মাস ধরিয়া আপুনি আমায় ফেসবুকে ইনবক্স করিয়া ২১ টেকা পাঠাইতে বলতেছেন। আইজ পাঠাইলাম যখন, এত সওয়াল করেন কেনে। আমি তখন রাগ করিয়া বললুম, আরে বেলেহাজ আওরত আমি তুকে ২১ টেকা পাঠাইতে বলব কি কারনে। মিডিল ইষ্ট হতে মাসে মাসে আমার নামে কুটি কুটি টেকা আসে। তুর ২১ টেকা দিয়া আমি কি করব বেত্তমিজ লেড়কী। তখন সে হাসতে হাসতে আমায় বলল, আপুনি মিডিল ইষ্টরেও ফেসবুকে দিষ্টাপ দেন?


যুক্তরাস্ট্রের নাস্তিক কুপাইয়া বিপদে ফালাও কেনে: আল্লামা শফী

চক্ষু মুছে আল্লামা রাজ বলেন, ২১ টেকার অপমান বাদ দিলুম। সেদিন এক জল্লাদের নেয় রাগী বেক্তি আমায় মুঠফুন দিয়া বলল, ইহা কি ছুট শফী হুজুরের লাম্বার। আমি বললাম, আমি আর ছুট নাই। মে শফী হুজুর বলতা হু। আপ কউন হায়। তখন সে বেক্তি চিক্কুর দিয়া আমায় ধমক মারিয়া কহিল, চপ সালা ঘোচুর ডিম। রোজ রাত্রে আমার মেয়েরে মুঠফুন দিয়া বিবাহের প্রস্তাব দেস কেনে? হাবিলদার সলায়মানের মেয়ের সংগে তামাশা করিতেছিস সালা মাউড়া। চড়াইয়া তুর ফেসবুক অফ করিয়া দিব।

আবারও কেদে ফেলে শফী হুজুর বলেন, এয়সে আরও বহুত বেইজ্জতির পরে আমি বুঝতে পারলাম, বাজারে আমি আর একা শফী নাই। আরও একটি ঘোচু শফী হুজুর নাম ভাংগাইয়া মেরা নাম কা বদনাম করতা হায়। ইসলামী বলগার এন্ড একটিভিষ্ট নেটওয়াকের এক তালেবরে খবর দিয়া জানতে পারলাম, উক্ত ঘোচুটির নাম ফারাবী শফী। বেয়াদব জনতা উহাকে ছুট শফী হুজুর ডাকে।

ফারাবীর প্রতি রাগারাগি করে আল্লামা রাজ বলেন, নাস্তিক মারতেছ ভাল কথা, কিন্তু মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের নাস্তিক মার কেনে? আমরার দেশে ত ফরহাদ মজহার লুংগির নেয় নাস্তিক আছে, উহারে কিছু বল না কেনে? এখন যে এফবিআই আসিয়া আমায় তকলিফ দিবে, তার মুকাবেলা করেংগা কউন?

ফারাবীর উপর প্রয়গ করার জন্য এক ডজন রাজহাসের ডিম খরিদ করে রেব কার্যালয়ে পাঠানর ওয়াদা করে কাদতে কাদতে খাটি শফী হুজুর বলেন, জে সুইস অভিজিত।


মরা একটি ফুলকে কুপাব বলে যুদ্দ করি: আল্লামা ফারুকী

এদিকে শফী হুজুরের বিবৃতীর তিব্র বিরধিতা করে আয়জিত পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে বাংলার ধাওয়ান আল্লামা ফারুকী বলেন, ফরহাদ মজহার একটি ভাল নাস্তিক। সে বৃহত্তর জামায়াতের সংগে আছে। শফী হুজুরের ১৩ দফারও সে একজন সমর্থক। ইসলাম সম্পর্কে ভালমত পড়ালিখা না করিয়া আন্দাজে তাহার নেয় ভদ্র নাস্তিকের বিরুদ্ধে কথা বলা উচিত নহে।

অভিজিত রায় হত্যার নির্দেশ দানের জন্য ফারাবীকে পয়েন্দাবাদ জানিয়ে ফারুকী বলেন, ছুট শফী হুজুরের কারনে দুনিয়া হতে একটি সেকুলার কমল। এতে করিয়া দুনিয়াতে অনুপাতের বিচারে ইসলামের রাহে আগুয়ান মর্দে মুজাহিদের সংখা বৃদ্দি পাইল। অতছ ছুট শফীকে কিনা খাটি শফী গালাগালি করে, রেবকে রাজহাসের ডিম খরিদ করিয়া পাঠায়। আরে ইহা কেমন ইসলাম?

আল্লামা রাজের প্রতি নিন্দাবাদ জ্ঞাপন করে আল্লামা ফারুকী রাগারাগি করে বলেন, সারাটি জীবন সেকুলার ঘোচুদের সংগে লড়াই করিয়া বৃদ্ধ বয়সে ‘এশশিয়েশন অফ ইসলামী মিডিয়া পারসনালিটি’র আমীর হইলাম। আর সেদিনের শফী হুজুর কিনা আমায় ইসলাম দেখায়। আরে ইহা কি ইরান পাইছ যে মার্কিন নাস্তিক ছাড়িয়া শুদু দেশী নাস্তিক কুপান হবে?

ফরহাদ মজহারকে সান্তনা দিয়ে ফারুকী বলেন, ফরহাদ মজহার নাস্তিক হলেও সে আমাদিগের দলের নাস্তিক। কাজেই শুদু শুদু উহার উপর ইসলাম প্রয়গ করার কুন মানে নাই। ২০১৩ সালের জিহাদে জুনাইদ বাবুনগরীর হাতে সে সারজারীর স্বিকার হইছিল। যদি প্রয়জন হয়, ২০১৫ সালে আমি নিজ হাতে তার উপর সারজারী করব। মুঠফুনে একটা কল দিয়া ইউনাইটেড হাসপাতালে আসিয়া পড়িলেই হইবে।

January 26, 2015

কায়কাউস আমরার তালুই: কারওয়ানবাজার

নিজস্ব মতিবেদক

চলমান রাজনৈতিক সহিংসতার মাঝে এক বেতিক্রম ধর্মী আয়জন করে ঢাকার বোদ্ধা মহলের আলোচনার কেন্দ্রে চলে এসেছে দেশের প্রভাবশালী এলাকা কারওয়ানবাজার।

চলমান রাজনৈতিক সহিংসতাকে পাত্তা না দিয়ে কারওয়ানবাজারের কর্মীদের পক্ষে কারওয়ানবাজারের উপসর্দার ও আইভরী কোষ্ট ফিরত উপন্যাসিক মা’র্কেজে কারওয়ানবাজার কুফামাষ্টার আমিষুল হক পুটুনদা বলেছেন, কায়কাউস আমরার তালুই।

রবিবার সন্ধায় কারওয়ানবাজারের মিলনায়তনে এক বেতিক্রম ধর্মী সাহিত্য অনুষ্ঠানে বিশিষ্ঠ দার্শনিক, কবি, হেকিমী চিকিতসক ও সাংবাদিকদের উপর বোমা মারার দার্শনিক প্রবক্তা ফরহাদ মজহার লুংগির সভাপতিত্বে কায়কাউসকে নিজেদের তালুই ঘোষনা করেন কারওয়ানবাজারের কর্মী বৃন্দ।

সাহিত্য অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গোলাম আজমের অবৈধ পুত্র, দেশের প্রভাবশালী এলাকা কারওয়ানবাজারের সর্দার ও ১১০% অরাজনৈতিক সংগঠন ‘হেফাজতে মাহমুদুর’ এর প্রতিষ্ঠাতা আমীর মতিচুর রহমান আজমী বলেন, দেশে নানা রকম সমস্যা চলতেছে। দুর্বৃত্তরা বাসে আগুন দিয়া মানুষ মারতেছে। এমতাবস্থায় আমি দ্বের্থহীন কণ্ঠে বলতে চাই, আমি কায়কাউসের ছেলে।


কায়কাউস কারওয়ানবাজারের তালুই

কারওয়ানবাজার সর্দার মতিচুরের এমন ঘোষনায় উপস্থিত বিশিষ্ঠ নাগরিক বৃন্দ ও কারওয়ানবাজারের ছুটা কর্মীরা হতবাক হয়ে যান।

নাচতে নাচতে মতিচুর আজমী কারওয়ানবাজার ফীচারিং জীবনানন্দ দাশ পুরষ্কার প্রাপ্ত কবি জামিলের কবিতা আবৃত্তি করে বলেন, আমি কায়কাউসের ছেলে। আমি বেড়াই হেসে খেলে।

মতিচুর সর্দারের অকপট স্বিকারুক্তিতে দর্শক বৃন্দ তুমুল করতালিতে ফেটে পড়েন।

মতিচুর সর্দার আপন পুত্র সাশাচুরকে মঞ্চে ডেকে নিয়ে তাকেও কায়কাউসের ছেলে হিসাবে পরিচয় করিয়ে দিয়ে কবি জামিলের আরেকটি কবিতা আবৃত্তি করে বলেন, প্রতিটি পুরুষ তার পুত্রের দুধভাই। কাজেই সাশাচুর আমার দুধভাই ও আমি গোলাম আজমের দুধভাই। আমরা সবাই কায়কাউসের ছেলে।

হতবাক কারওয়ানবাজারের কর্মীদের প্রতি চেলেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে মতিচুর রহমান আজমী আবেগঘন কণ্ঠে প্রশ্ন করেন, আমি কায়কাউসের ছেলে হলে তুমরা কায়কাউসের কি?

কারওয়ানবাজারের কর্মীদের পক্ষ হতে এ সময় উপসর্দার আমিষুল হক পুটুনদা এ জটিল প্রশ্নের সমাধান দিয়ে বলেন, কায়কাউস আমরার তালুই।

উত্তর সঠিক হয়েছে জানিয়ে কায়কাউসের ছেলে মতিচুর রহমান বলেন, আমি কায়কাউসের ছেলে আর তুমরা সবাই আমার চুদির ভাই। অতএব কায়কাউস তুমরার তালুই। ঠিক কি না?

সভাপতির বক্তব্যে ফরহাদ মজহার লুংগি বলেন, কায়কাউসের সংগে আমাদের সবার সম্পর্ক এখন পরিস্কার। আমরা কায়কাউসের সুত্রে সবাই সবার আত্মীয়। কাল আর ধল বাইরে কেবল, ভিতরে সবার সমান রাঙ্গা।

%d bloggers like this: