Posts tagged ‘সাঈদী’

November 30, 2014

যিনি ফুল, তিনিই মালী

কারাগার মতিবেদক

কাশিমপুর কারাগারের ফুল বাগানে মালীর দায়িত্ব গ্রহন করেছেন আমরন আরামদণ্ড প্রাপ্ত বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে নায়েব, বিশিষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবীদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের নির্মম বলি, ইসলামের বাগানে ফুটন্ত গোলাপ ও এক হাতে মুবাইল অন্য হাতে মেশিন হাতে বেস্ত আল্লামা দেলাওয়ার হোসেন সাঈদী ওরফে দেইল্যা রাজাকার।

গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারের কারাধক্ষ আনোয়ার হোসেন মতিকণ্ঠকে দেইল্যা রাজাকার মালী পদে নিয়োগের সংবাদ নিশ্চিত করেন।

মুঠফুনে ক্ষোভ প্রকাশ করে আনোয়ার হোসেন বলেন, দেইল্যা রাজাকার একটি অভিশাপ। আমরন আরামদণ্ড পাইয়া সে কুন কস্টের কাজ করতে চায় না। ইট ভাংগিতে দিলে বলে তার হাতে বেথা। মোড়া বানাইতে দিলে বলে তার পায়ে বেথা। কাঠের কাজ করতে দিলে বলে তার পুটুতে বেথা। উহার বেথা বেদনার কুন শেষ নাই। অবশেষে তাহাকে মালীর কাজ দিতে হইছে।


দেইল্যা রাজাকার

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কাশিমপুর কারাগারের এক কয়েদী বলেন, দেইল্যা রাজাকারের হাতে বেথা না হওয়াই অস্বাভাবিক। কাশিমপুরে ঢুকার দিন হইতেই সে মুঠফুন লইয়া বেস্ত থাকে। অপর হাতের মুঠতে কি থাকে তাহা বলিয়া বিপদে পড়তে চাই না।

কাশিমপুর কারাগারের তত্তাবধায়ক ফজলুর রহমান বলেন, মালীর দায়িত্ব নেওয়ার পর দেইল্যা আমায় জ্বালাইয়া মারতেছে। কারাগারের ফুল বাগানে পানি দেওনের জন্যি ২ ইঞ্চি বেস বিশিস্ট পানির হস পাইপ মজুদ আছে। কিন্তু সালা ঘোচু খালি দরখাস্তের পর দরখাস্ত দিয়া ফুল বাগানে পানি দেওনের জন্যি ১ ইঞ্চি বেসের হস পাইপ অথবা সর্বচ্চ ওয়ান এন্ড হাপ ইঞ্চি বেসের হস পাইপের দাবী করে। তাহাকে ডাকিয়া বললাম, দেইল্যা তুমি ছুট পাইপ খুজ কি কারনে? সে আমায় হাসতে হাসতে বলে কি, বুঝেনই ত।

এ বেপারে বিস্তারিত জানতে দেইল্যা রাজাকারের মুঠফুনে যোগাযোগ করা হলে তিনি হাসতে হাসতে বলেন, আছিলাম ইসলামের বাগানে ফুটন্ত গোলাপ, হইলাম কাশিমপুরের বাগানে ফুটন্ত মালী। মালী কি শুদু ফুল নিয়াই বেস্ত থাকবে? ফুল গাছে পানি দেওনের পাইপের মাপ হেফাজতের দায়িত্বও মালীর। আমি শুদু সেই দায়িত্ব পালন করতেছি।

২ ইঞ্চি বেস বিশিস্ট পাইপে কি সমস্যা, জানতে চাইলে দেইল্যা রাজাকার সরাসরি উত্তর না দিয়ে হাসতে হাসতে বলেন, কিছু কথা থাক না গুপন।

September 17, 2014

রিভিউয়ের পর ভি দেখাব: দেইল্যা

নিজস্ব মতিবেদক

আপিল বিভাগের রায়ে ফাসির পরিবর্তে আমরন আরামদণ্ডের রায় পেয়ে আনন্দে উচ্ছসিত বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে নায়েব, বিশিষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবীদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের নির্মম বলি, ইসলামের বাগানে ফুটন্ত গোলাপ ও এক হাতে মুবাইল অন্য হাতে মেশিন হাতে বেস্ত আল্লামা দেলাওয়ার হোসেন সাঈদী বলেছেন, আলহামদুলিল্লাহ বাচিয়া গেলুম। তবে এখনই আংগুল দেখাব না। রিভিউ বাকি আছে। রিভিউয়ের পর সবকিছু ঠিক থাকিলে ভি দেখাব ইনশা আল্লাহ।

আজ কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের কনডম সেলে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ উচ্ছাস প্রকাশ করেন খুন ও ধর্ষনের অপরাধী দেইল্যা রাজাকার।

সংবাদ সম্মেলনে সাঈদী বলেন, ইলেকশনের আগ পযন্ত অনেক টেনশনে আছিলাম। কিন্তু এখন ইলেকশন হইয়া গেছে। তাই আমি বেশী টেনশন করি নাই। সকল রাজাকারের ওস্তাদ বড় রাজাকার গোলাম আজম যেখানে নব্বই বতসরের আরামদণ্ড পাইয়া বংগবন্ধু মেডিকেলের তথাকথিত পৃজন সেলে সারাদিন টেলিভিশনে বেবী ডল নৃত্য অবলোকন করিয়া, সুস্বাদু খানাখাদ্য চাবাইয়া আর অলিভ অয়েল প্রয়গে হাগিয়া সুখে হায়াত গুজরান করিতেছে, সেইখানে আমি ছুট মানুষ ডরাব কেন?


কাশিমপুর জেলে মুবাইল সুবিধা আছে আলহামদুলিল্লাহ

আবেগঘন কণ্ঠে সাঈদী বলেন, কসাই কাদের পুলাটা কেলেন্ডারের কেলেংকারীতে অকালে ফাসি খাইয়া মরিল। কুনভাবে যদি সে তার মামলাটিকে কেলেন্ডারের এই পারে পাঠাইয়া দিতে পারত, সেও আজ আমার মত তিন বেলা ভালমন্দ খাইয়া মুবাইলে কলিজুদের সহিত দুদণ্ড রসের আলাপ করিতে পারত।

হাসতে হাসতে সাঈদী বলেন, আমি কসাই কাদেরকে দেখিয়া শিক্ষা লইছি। রিভিউয়ের আগ পযন্ত আমি আমার আংগুলের হেফাযত করব। আংগুল যথাস্থানে রাখলে কুন ডরভয় নাই। কসাই কাদেরের আংগুল অসময়ে বেজায়গায় উঠিয়া গিয়া তার গর্দানটিকে ডুবাইল। আমার আংগুল সর্বদাই আমার মেশিনের চারপাশে থাকে।

বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার প্রতি কঠর ভর্তসনা করে দেইল্যা রাজাকার বলেন, আরে তুরা সালা ঘোচুরা খালি ইলেকশন ইলেকশন করিস কেনে? ইলেকশন মানেই ত কুন না কুন খানকির পুলায়ে নায়েবের ফাসি। ২০১৯ সালের আগে কুন ইলেকশন মানি না।

পরবর্তী নির্বাচনে জয়লাভ করে দেশের নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়, টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয় ও বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফেক্টরীর দায়িত্ব গ্রহনের আগ্রহ প্রকাশ করে ইসলামের বাগানে ফুটন্ত গোলাপ বলেন, এই যুগান্তকারী রায়ের মাধ্যমে বাকশাল টেবিলে পাও ঝুলাইয়া শুইয়া পড়ছে।

কাশিমপুর কারাগারে মুবাইল যোগাযোগের সুবিধার প্রসংশা করে সাঈদী বলেন, দিন রাত ২৪ ঘণ্টা এইখানে নেটওয়াক থাকে। ইসলামী ছাত্রী সংস্থার নাতনীগুলিরে ধন্যবাদ। তুমরা না থাকলে বাদ এশা এত মিস্টি হত না।

ফেসিবাদী বাকশালের মহিলা আমীর জননেত্রী ভাষা কন্যা গনতন্ত্রের মানস কন্যা ড. শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে হাসতে হাসতে দেইল্যা রাজাকার বলেন, এক চতুর নার করকে সিংগার।

August 5, 2014

সরকার বেঠিক দেলোয়ারকে জামিন দিছে: রিজভী

নিজস্ব মতিবেদক

উচ্চ আদালত হতে জামিন পেয়ে কারাগার হতে বাইরে এসেছেন তোবা গ্রুপের চেয়ারমেন ও শত শত তৈরী পোশাক কর্মীর পুড়ে মরার জন্য দায়ী শিল্প মালিক দেলোয়ার হোসেন।

আর এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নায়েবে আমীর ও বিশেষ নৃশংস শাখা ফেন্টাষ্টিক ফাইভের আমীর এবং প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপদেস্টা গওহর রিজভীর ছোট ভাই আল্লামা রুহুল কবীর রিজভী বলেছেন, সরকার সঠিক দেলোয়ারকে মুক্তি দিতে শোচনীয় ভাবে বের্থ হইছে। এর বদলে তারা বেঠিক দেলোয়ারকে জামিন দিছে।

আজ বিএনপি শাখার নয়া পল্টন কার্যালয়ে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ প্রতিবাদ জানান আল্লামা রিজভী।


সঠিক দেলোয়ার

বাকশাল সরকারকে ফেসিবাদী আখ্যা দিয়ে রিজভী বলেন, বর্তমান সরকার অগনতান্ত্রিক সরকার। যে সরকারে আমাদের সকলের নয়নের মনি বড় গনতন্ত্র নাই, সে সরকারকে কুন ভাবেই গনতান্ত্রিক সরকার বলা যায় না। তাই এ সরকারকে গদি হতে নামিয়ে বাংলার গদিকে বাকশালের কলংক মুক্ত করতে হবে। আর সে জন্য প্রয়জন বিস্ফোরক। অতছ ঈদের পর জেএমবিকে দিয়া আমরা ঢাকায় যত পুটলা বমা পাউডার আনাইলাম, সরকার তার সবটি বাজেয়াপ্ত করিয়ালাইছে। এ কেমন গনতন্ত্র?

আবেগঘন কণ্ঠে রিজভী বলেন, সারাটি রমজান আমরা বলিয়া আসছি, ঈদের পর আন্দুলন করিয়া সরকার টলাই দিব। অতছ ঈদের পর নয়া পল্টন কার্যালয়ে রোল কল করিয়া মাথা গুনতে গিয়া দেখি আমাদিগের অন্যতম একশন ফিগার বিএনপি শাখার নায়েবে আমীর, সাবেক মেয়র ও বিএনপি শাখায় নারী পুরুষে মিলামিশার বিরুদ্ধে জাগ্রত কণ্ঠ স্বর আল্লামা সাদেক হোসেন খোকা আমেরিকায় চিকিতসা করাইতে গেছে। আমাদিগের ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির কমপ্লান বয় ও বড় গুণ্ডে কতৃক হাইড এন্ড সিক গালির কলংকে ভুষিত মির্জা বাড়ির বড় গৌরব মির্জা ফখা ইবনে চখা চিকিতসা করাইতে গেছে সিংগাপুর। ফেন্টাষ্টিক ফাইভের সাবেক আমীর বাবু পাগলা জয়নাল আবদিন ফারুক ফুন সেক্স করিতে গিয়া ধরা পড়িয়া দলের হুইপের পদ হারাইয়া এখন অভিমানে রিটায়াড। আমাদের অন্যতম অভিজ্ঞ নায়েব এম কে আনোয়ার ওরফে মতি কণ্ঠ আনোয়ার জনৈক বিএনপি কেডারের স্ত্রীর সংগে ফুন সেক্সের এক পর্যায়ে তিন আংগুল দিতে গিয়া এখন বিএনপি শাখার মহিলা সদস্যদের চাপে গৃহবন্দী। মির্জা আব্বাস আর হাবু সোহেল একে অন্যের পুটুতে কাঠি দিতে লিপ্ত। সরকারকে গদি হতে ফালানর জন্য সকলে শুদু আমায় ঠেলে। কিন্তু আমি ত ছুট।

হুহু করে কেদে উঠে রিজভী বলেন, এর মাঝে বাকশালী ফেসিবাদীরা বেঠিক দেলোয়ারকে জামিন দিয়া দিল। আরে সালা ঘোচুর দল, সঠিক দেলোয়ারটিকে জামিন দিলে কি এমন ক্ষতি হইত?

সরকারের প্রতি রাগারাগি করে রিজভী বলেন, হয় সঠিক দেলোয়ারকে মুক্তি দেও, নয়ত ফাসি দেও। ইস টুটে দিল কি পিড় সহি না যায়।

March 4, 2013

জন্মদিনে পুটুন তোমায় জানাই আম্মাবাদ

নিজস্ব মতিবেদক

আজ কারওয়ানবাজারের উপসর্দার ও আইভরি কোষ্ট ফিরত ঔপন্যাসিক আমিষুল হক ওরফে পুটুনদার একষট্টিতম জন্ম বার্ষিকী।

এ উপলক্ষ্যে কারওয়ানবাজারের প্রতিটি সর্দার কার্যালয়ে ছিল খুশির আমেজ।

একষট্টি পাউন্ড ওজনের একটি কেকে চাপাতির কোপ মেরে জন্মদিন মাহফিল উদ্বোধন করেন আমিষুল হক পুটুন। কারওয়ানবাজারের কর্মীরা এ সময় হাত তালি দিয়ে আনন্দ প্রকাশ করেন।

আমিষুল হকের প্রতি শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর ভাঁড়প্রাপ্ত খানকির পোলায়ে আমীর মকবুল আহমদ। তিনি বলেন, সারা বাংলাদেশে যখন কতিপয় ভারতীয় গোয়েন্দা বাহিনী কতৃক লালিত বুদ্ধীজীবি বৃহত্তর জামায়াতের বদনাম করছেন, তখন সত্যের পথে, সুন্দরের পথে, শান্তির পথে আছেন আমিষুল হক পুটুনদা। তিনি এ যুগের ফররুখ আহমদ। আমি রোজ এশার নামাজের পর তার লিখা কবিতা তিলাওয়াত করি। আল মাহমুদের ইন্তেকালের পর তাকেই আমরা বৃহত্তর জামায়াতের শায়েরে আমীর পদে নিয়োগ দিব।

আমিষুলের গালে ভেসে উঠল সাঈদী

হাস্যোজ্জল আমিষুল হক বলেন, দেখতে দেখতে একষট্টি বছর কেটে গেল। কিন্তু লুংগি পরলে নিজেকে এখনও একুশ বছর বয়সের তরুন বলে মনে হয়।

আবেগঘন কণ্ঠে পুটুনদা বলেন, একুশ বছর বয়স ভয়ংকর।

আমিষুলের জন্মদিনে মুম্বাই থেকে পুনম পান্ডে, ভিনা মালিক ও সানি লিওনি মুঠোফোনে শুভেচ্ছা জানায়।

এদিকে পুটুনদার জন্মদিনে কারাগারের কনডম সেল থেকে শুভেচ্ছা পাঠিয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে নায়েব, বিশিষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবিদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনেলের নির্মম বলি, ইসলামের বাগানে ফুটন্ত গোলাপ আল্লামা দেলাওয়ার হোসেন সাঈদী। তার ঐশী জোরে পুটুনদার মুখমণ্ডলে আল্লামা সাঈদীর ছবি ভেসে উঠে।

%d bloggers like this: