Posts tagged ‘সাহারা’

February 4, 2013

রিজভী ও মাহমুদুরের প্রতি সাহারার ক্ষোভ

নিজস্ব মতিবেদক

বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার নায়েবে আমীর রুহুল কবীর রিজভী ও সালাফিয়ে আমীর মাহমুদুর রহমানের প্রতি তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সাবেক স্বরাস্ট্র মন্ত্রী ও বর্তমান টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী এবং নিখিল বাংলাদেশ হোটেল মালিক সমিতির সভাপতি এডভকেট সাহারা খাতুন।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে সাহারা খাতুন এ ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সাহারা খাতুন বলেন, দিনের পর দিন মাসের পর মাস এই রিজভী আর এই মাহমুদুর নিজেদের কার্যালয়ে বসবাস করছে। অফিসের এক কোনে জাজিম তোষক পেতে কম্বল গায়ে ফকিরের মত তারা নিদ্রা সুখ ভোগ করছে। অফিসের টেবিলে তারা চিকেন বিরিয়ানী কাচ্চি বিরিয়ানী মর্গা মসাল্লুম খাচ্ছে। জনি ওয়াকার খাচ্ছে। সকালে নানা প্রকার গন্ধে অন্য কেউ তাদের অফিস কক্ষে ঢুকতে পারে না। গ্রেফতার এড়ানর নাম করে এরা বাড়ি থেকে পালিয়ে আছে।

ক্ষোভ প্রকাশ করে সাহারা খাতুন বলেন, বাড়ির বাইরে থেকে ফুর্তি উপভোগ করতে চাইলে অফিসে বাস করতে হবে কেন? এমপেরিয়াল হোটেল এন্ড গেষ্ট হাউস কি দুষ করেছে?

সাহারা বলেন, এমপেরিয়ালে রয়েছে থাকা খাওয়া সহ জীবনে প্রয়োজনীয় সকল বিনোদনের বেবস্থা।

অফিসে থাকা ও খাওয়ার সুবন্দোবস্ত থাকলে কেন এমপেরিয়াল হোটেল এন্ড গেষ্ট হাউসে উঠতে হবে, এমন প্রশ্নের জবাবে সাহারা খাতুন আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, থাকাখাওয়াই কি সব?

January 1, 2013

বৃহত্তর জামায়াতের মধ্যে অস্বস্তি

নিজস্ব মতিবেদক

সম্প্রতি বিশিষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবীদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের নিষ্ঠুর বলি, ইসলামের বাগানে ফুটন্ত গোলাপ আল্লামা দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীর ফোন সেক্সের আলাপ ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ায় অস্বস্তিতে পড়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে আমীরবৃন্দ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বৃহত্তর জামায়াতের এক নেতা বলেন, আমরা অস্বস্তির মধ্যে আছি।

ইতিমধ্যে বৃহত্তর জামায়াতের নেতাকর্মীদের মাঝে আল্লামা সাঈদীর বেপারে অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে। ভাঁড়প্রাপ্ত খানকির পোলায়ে আমীর মকবুল আহমদ গতকাল লইট্যা ফিশ রান্নার অপরাধে স্ত্রীকে দোররা মেরেছেন। এ ছাড়া আরও কয়েকজন নেতা তাদের স্ত্রী কন্যার সাথে রাগারাগি করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জামায়াত নেতা বলেন, মাথার ঘাম পায়ে ফেলে বৃহত্তর জামায়াতের রাজনীতি করি। ভাংচুর, লুটপাট, খুনাখুনি, ধর্মীয় সংঘর্ষ, রগ কাটা প্রভৃতির আয়োজন করি। এসব করতে গিয়ে সারা দিন সারা রাত কেটে যায়। বাড়ি ফিরে যদি দেখে, ঘরের বউ আল্লামা সাঈদীর সংগে উন্মত্ত ফোন সেক্সে লিপ্ত, তাহলে কেমন লাগে?

বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার কুষ্টিয়া জেলার এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমার মেয়েটা ইসলামী ছাত্রী সংস্থা করে। ভেবেছিলাম ইসলামের খেদমতের অজুহাতে সে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর হাত শক্ত করার কাজ করে চলছে। অথচ এখন জানতে পারলাম, সে আল্লামা সাঈদীর মেশিন শক্ত করার কাজে পড়ালেখা বাদ দিয়ে রাত্রকালে সেক্স চেট করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ছাত্র শিবিরের এক নেতা কাদতে কাদতে মতিকণ্ঠকে বলেন, সারা দিন সারা রাত আমি ইন্টারনেটে বৃহত্তর জামায়াতের জন্য কাজ করি। নেংটা মেয়ের ছবি দিয়ে ফেন পেজ বানিয়ে লক্ষ লক্ষ লাইক যুগাড় করি। তারপর একবার নেংটা ছবি আরেকবার মাছের গায়ে আল্লাহু লেখা ছবি আপ করে যুদ্ধাপরাধী নেতাদের মুক্তি দাবি করি। আমি যখন এই কাজে বেস্ত, পাশের ঘরে আমার মা আল্লামা সাঈদীর সংগে হট ফোন সেক্স করেন। এখন আমার সন্দেহ হচ্ছে, আল্লামা সাঈদীই আমার পিতা।

এ বেপারে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী সাহারা খাতুনের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মানুষ ছায়া দেখে কায়ার মুল্য ভুলে গেছে। এমপেরিয়াল হোটেল এন্ড গেষ্ট হাউসে যেখানে সরাসরি সেক্সের সুবর্ন সুযোগ রয়েছে, সেখানে না গিয়ে লোকে ঘরে বসে ফোনে মেশিন চালাচ্ছে। এতে লাভ হচ্ছে শুধু মুবাইল কম্পানীর।

গ্রামীন ফোনের সদ্য নিযুক্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিবেক ছুদ এ প্রসংগে মতিবেদককে বলেন, বিজ্ঞান আমাদের দিয়েছে বেগ, কেড়ে নিয়েছে আবেগ। ষোল কুটি লোকের দেশে এখন ফোন সেক্সই ভরসা। ধোন সেক্সের দিন ফুরিয়েছে।

বিবেক ছুদ দাবী করেন, গ্রামীন ফোন গত পনের বছরে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রনে বিপুল অবদান রেখেছে। মুঠোফোন প্রযুক্তি না থাকলে বৃহত্তর জামায়াতের নেতাকর্মীদের ঘরে ঘরে আল্লামা সাঈদীর বাচ্চা জন্ম নিত।

September 16, 2012

সাহারা ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী, আশংকায় যুগলেরা

নিজস্ব মতিবেদক

সাহারা খাতুনকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে সরিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর আতংকে আছেন দেশের প্রেমিক ও প্রেমিকা যুগলেরা।

মতিকণ্ঠের অনুসন্ধানে এই আতংকের চিত্র উঠে আসে।

সাহারা খাতুন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী হচ্ছেন, এ খবর ছড়িয়ে পড়ার পর মতিকণ্ঠের কার্যালয়ে একের পর এক ফোন আসতে শুরু করে। অনেকেই ফোন করে খবরের সত্যতা যাচাই করতে চান। কেউ এর বিরুদ্ধে লিখালিখি করতে মতিকণ্ঠের কাছে আবেদন করেন।

কারওয়ানবাজারের সর্দার মতিচুর রহমান মতিবেদককে বলেন, লোকজনের ফোনের যন্ত্রনায় আজ সানি লিওনের ভিডিও দেখতে পারি নাই। সাহারা খাতুন একটি অভিশাপ।

কারওয়ানবাজারের উপসর্দার আমিষুল লা “মা” বলেন, শের শাহ প্রবর্তিত ঘোড়ার ডাক আবার চালু করতে হবে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দেশটা আইভরি কোষ্ট হয়ে যাবে।

সাহারা

প্রেমের বন্ধনে আবদ্ধ যুগলেরা মতিকণ্ঠের কাছে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, সাহারা খাতুন যখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ছিলেন, তখন ছিল ক্রস ফায়ারের উৎপাত। এখন তিনি টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী হয়েছেন, এখন হবে ক্রস কানেকশনের উৎপাত। দবীরের ফোন দবীরের প্রেমিকা দবীরার কাছে না গিয়ে কবীরের প্রেমিকা কবীরার কাছে চলে যাবে। তখন দবীর আর কবীরার মধ্যে প্রেম হয়ে যেতে পারে। এভাবে কুটি কুটি দবীরা ও কবীর সংকটে পতিত হবে। দেশ জুড়ে বিচ্ছেদের সুনামি বয়ে যাবে।

সাহারা খাতুনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মতিবেদককে আশ্বস্ত করে বলেন, কুন চিন্তা নাই। আটচল্লিশ ঘন্টার মধ্যে দবীরের কল দবীরার কাছে যাবে। কবীরের কলও আটচল্লিশ ঘন্টার মধ্যে কবীরার কাছে যাবে। যদি না যায়, তাহলে তাদের চারজনের জন্যই হোটেল এমপেরিয়ালের দুয়ার উন্মুক্ত। সেখানে সকল প্রকার নাগরিক সুবিধা সহ খাওয়া ও শোওয়ার উত্তম বন্দোবস্ত রয়েছে।

সাহারা খাতুন বলেন, লোকে বলে প্রেম আর আমি বলি জ্বালা।

August 20, 2012

ঘর রক্ষা করিবে তালা, তালা রক্ষা করিবে কে: সাহারা

নিজস্ব মতিবেদক

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী সাহারা খাতুন দেশবাসীকে ঈদ মোবারক জানিয়ে বলেছেন, ঘর রক্ষা করিবে তালা, কিন্তু তালা রক্ষা করিবে কে?

সাহারা খাতুন বলেন, ঈদে ঢাকা শহরের ৮০ শতাংশ লোক শহর ছেড়ে ঈদ উদযাপন করতে গ্রামে গেছে। আমি তাদের বলেছিলাম, ঘরে তালা লাগিয়ে যেতে।

সাহারা বলেন, ঘরের নিরাপত্তা দিবে এই তালা। কিন্তু তালার নিরাপত্তার কোন বেবস্থা কি কেউ করেছেন?

সাহারা আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, ভেঙে মোর ঘরের চাবি নিয়ে যাবি কে আমারে?

ঢাকা শহরের ঘরে ঘরে, দোকানে দোকানে তালা মারা হলেও এমপেরিয়াল হোটেল এন্ড রেষ্ট হাউস ঈদের দিন সকাল থেকে রাত খোলা থাকবে বলে জানান সাহারা খাতুন। তিনি এমপেরিয়ালের বিশেষ সেবা বেবস্থার কথা স্বরন করিয়ে দিয়ে বলেন, তোর সোনা দানা বালাখানা সব রাহে লিল্লাহ।

%d bloggers like this: