August 13, 2014

কবি তুষারের অমর কাব্য গ্রন্থ

November 1, 2014

আন্তর্জাতিক চাপে পড়ে ব্রাদারফাকার সাকাকে আলাল সরবরাহ

নিজস্ব মতিবেদক

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গোষ্ঠীর অব্যাহত চাপে পড়ে কাশিমপুর কারাগারে কনডম সেলে বন্দী ফাসির আসামী বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার নায়েবে আমীর রাউজানের রসপুটিন ব্রাদারফাকার সাকাকে আলাল সরবরাহ করতে বাধ্য হয়েছে সরকার।

কয়েক দিন পুর্বে লালমাটিয়া হতে বিপুল সংখ্যক গেলমান সহ আপত্তিকর অবস্থায় অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত অবস্থায় বিএনপি শাখার যুবদল উপশাখার আমীর আল্লামা মোয়াজ্জেম হোসেন আলালকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

আজ আল্লামা আলালকে কাশিমপুর কারাগারের কনডম সেলে ব্রাদারফাকার সাকার হাতে তুলে দেয় কারাগার কতৃপক্ষ।


ব্রাদারফাকার সাকার কাছে পাঠানর জন্য বিপুল সংখ্যক ডিবি আলালকে টেনে হিচড়ে কাশিমপুর নিয়ে যায়

এ বেপারে কাশিমপুর কারাগারের আমীর রহমত পাঠানের সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন, কানাবাবা শুভ্র, টবি কেডমেন, ডেভিড বাগমেন, ইত্যাদি লুকজন আমাদিগেরে বড় তেক্ত করতেছে। আর ফাসির আসামী ব্রাদারফাকার সাকার কথা আর কি বলব। মরার আগে সে দুটু ভালমন্দের বেবস্থা করিয়া দিতে বলে। তাই আলালকে তার কাছে পাঠান হইছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ব্রাদারফাকার সাকা সুখে আছে। তবে আলাল সুখে নাই।

সদ্য মৃত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক ৯০ বতসরের আরামদন্ড প্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর ভাষা সৈনিক অধ্যাপক গোলাম আজম একটি অভিশাপ, এই মত বেক্ত করে রহমত পাঠান বলেন, গোলাম আজম ঘোচুটির দেখাদেখি ট্রাইবুনালের হাতে সাজা পাওয়া সকল যুদ্ধাপরাধী এখন এক চামুচ করিয়া অলিভ অয়েল চাওয়া শুরু করছে। ব্রাদারফাকার সাকার হাতে আলালকে তুলিয়া দেওনের সময় সে এক শিশি অলিভ অয়েল চায়। আমি তাকে বললাম, অলিভ অয়েল কি বলদের পুটু দিয়া বাহির হয় নাকি রে সালা ব্রাদারফাকার? সে তখন হাসতে হাসতে আমায় বলল, কার পুটু দিয়া বাহির হয় তা জানি না, তবে কার পুটুতে ঢুকবে তা জানি। এ সময় আলাল হুহু করে কেদে উঠেন।

November 1, 2014

লুংগি ও জব্বারই আমার ভরসা: মুজিবুল

নিজস্ব মতিবেদক

যৌবনের শেষ প্রান্তে এসে মাত্র ৬৭ বতসর বয়সে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার পিছনে উৎসাহ যোগানর জন্য বিশিষ্ঠ দার্শনিক, কবি ও হেকিমী চিকিতসক ফরহাদ মজহার লুংগি ও বাংলার তথ্য প্রযুক্তির জগতের ব্লেক হল বাংলার জবস মোস্তফা জব্বারকে ধন্যবাদ জানিয়ে রেল মন্ত্রী মুজিবুল হক বলেছেন, লুংগি ও জব্বারই আমার ভরসা।

শুক্রবার শুভ বিবাহের পর নব পরীনীতা বধুকে নিয়ে কুমিল্লা হতে ঢাকায় ফিরে মধ্য রাত্রে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে লুংগি ও জব্বারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন মুজিবুল মন্ত্রী।

রেল মন্ত্রীর বাসর পুর্ব সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের মিডিয়া জগতের সকল নামকরা সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে মুজিবুল বলেন, গত কয়েক মাস তুমরা সাংবাদিকরা আমারে তেক্ত করিয়ালাইছ। সংসদে লাল পাঞ্জাবী পরিয়া গেলাম, তুমরা নিউজ করিয়া দিলা। আমার গায়ে হলুদ সরাসরি সম্প্রচার করিয়া দিলা। বিবাহের অনুষ্ঠানে লগে লগে আইলা। শালীদিগের সংগে দুটু কাচ্ছর কাচ্ছর রসিকতা করার ফুরসত পাইলাম না, তুমরা সাক্ষাতকারের নামে উহাদিগকে ভাগাইয়া লইলা। এখন মধ্য রাত্রে সংবাদ সম্মেলন ডাকিলাম, কমিউনিটি সেন্টারের গলির কুত্তার নেয় সব কয়ডি দৌড়াইয়া আইলা। তুমাদের উদ্দেশে বলতে চাই, গেট এ লাইপ, মাদাফাকা।

মন্ত্রীর পরামর্শ শুনে উপস্থিত সাংবাদিকরা হাসতে হাসতে বলেন, লাইপ ছাক্স।


মুঠফুনে জব্বারকে বিজয় টেবলেট অডার দিচ্ছেন মুজিবুল

ফরহাদ মজহার লুংগিকে নিজের আদর্শ ঘোষনা করে রেল মন্ত্রী বলেন, ভাবিয়াছিলাম লুংগিদার নেয় বাকিটা জীবন কাবিন বেতিরেকেই ফুলে ফুলে মদু খাইব। উনি এই বয়সেও ফরিদা আক্তারের নেয় একটি বিপ্লবী ভাবীকে বিনা কাবিনে সামাল দিয়া চলতেছেন। কিন্তু মদীনা সনদ অনুযায়ী দেশ চালাইতে গেলে ত ফরহাদ মজহার লুংগির নেয় বেলাল্লাপনা করিয়া চলা সম্ভব হয় না। তাই সমাজ ও ইসলামের খাতিরে কচি দেখিয়া একটি বধু মেনেজ করিয়া ফেলিলাম আলহামদুলিল্লাহ।

বাংলার তথ্য প্রযুক্তির ব্লেক হল ও বাংলার জবস মোস্তফা জব্বারের টেকনলজীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মুজিবুল মন্ত্রী বলেন, বিজয় টেবলেট ছাড়া সংসার অচল। কাবিনে সাক্ষর হইতেছে গিয়া কৃকেট খেলার পুর্বে টশ। টশে হার জিত আছে, কাবিনেও দেনমোহর বাবদ হারজিত আছে। কিন্তু শুদু টশে জয় লাভ করিলেই হয় না। মাঠে নামিয়া চার ছক্কা পিটাইতে হয়, বাউঞ্ছার ফুল টশ হাপ ভলি প্রভৃতির মাধ্যমে রানের খাতা আগাইতে হয়। কলম থাকলেই কাবিন হয়, কিন্তু বিজয় টেবলেট না থাকলে ছক্কা মারা যায় না।

সংবাদ সম্মেলনের পর উপস্থিত সাংবাদিকরা মন্ত্রীর বাসর রাতের লাইভ কভারেজ নেওয়ার আবদার করলে মন্ত্রী হাসতে হাসতে বলেন, এই যে তুমাদের একটু আগে মাদাফাকা বলিলাম, তুমাদের অনুভূতি কি?

October 29, 2014

ছোট গাদ্দারের পোলাকে বড় গাদ্দারের পোলার ওপেন চেলেঞ্জ

নিজস্ব মতিবেদক

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক ৯০ বতসরের আরামদন্ড প্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর ভাষা সৈনিক অধ্যাপক গোলাম আজমের জানাজায় অংশ নেওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারী করায় বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী পলাতক চিকিতসাধীন তরুন নেতৃত্ব মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট বড় গনতন্ত্র বড় গুন্ডে তারেক জিয়ার প্রতি রাগারাগি করেছেন গোলাম আজমের পুত্র ও বাংলাদেশ সেনাবাহীনী হতে বহিস্কৃত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আওলাদে গাদ্দার আবদুল্লাহিল আমান আজমী।

আজ ফেসবুকে একটি ষ্টেটাসের মাধ্যমে তারেক জিয়ার প্রতি রাগারাগি করেন আওলাদে গাদ্দার আমান আজমী।

ষ্টেটাসে আওলাদে গাদ্দার বলেন, বৃহত্তর জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা খানকির পুলায়ে আমীর, আমীরুল গাদ্দারান গোলাম আজম ছাহেবের এন্তেকালের পর তার নামাজে জানাজায় বিএনপি শাখার পক্ষ হতে একমাত্র বিএনপির মালাউন উপশাখার আমীর ও আল্লামা গয়েশ্বর চন্দ্র আজমী ছাড়া কেহই অংশ গ্রহন করে নাই। খবর লইয়া আমরা জানতে পারছি, ইহা লনডন প্রবাসী পলাতক মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্টের হুকুমে ঘটিয়াছে। বড় গনতন্ত্র নিষেধ করায় আমীরুল গাদ্দারানের জানাজায় আর কুন বিএনপি আসে নাই।


বড় গুণ্ডেকে আওলাদে গাদ্দারের ওপেন চেলেঞ্জ

বিএনপি শাখার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে বহিস্কৃত বিগ্রেডিয়ার আজমী বলেন, সারদা গ্রুপ তাহাদের কাল টেকা পাচারের জন্য বৃহত্তর জামায়াতের সহায়তা লইছে। তাহাদের হইয়া হাজার হাজার কুটি টেকা আমরা মধ্য প্রাচ্যে পাচার করিয়া দিছি। বিনিময়ে গত বতসর ট্রাইবুনালের রায়ের পর দাংগা ফেসাদ বাবদ কয়েক শত কুটি টেকা কমিশন আমরা খাইছি। সারদা গ্রুপ এই বিজনেশ আমাদিগের সংগে করছে। বিএনপি শাখারে তারা ভরসা করে নাই বলিয়া বড় গনতন্ত্র এই বিজনেশে কুন পারসেন্টিজ খাইতে পারে নাই। এই লইয়া আমাদিগের সংগে তাদের মন কালাকালি। এই খবর তাহাদিগের কানেও উঠছে এক বতসর পরে। তখন এই হারামজাদা বড় গুণ্ডে লনডনে বসিয়া ফতুয়া দিছে, ধর্ম ভিত্তিক কুন দল নাকি হইতে পারে না। আরে সালা ঘোচু, ধর্ম নিয়া দল যদি না হইবে, আমরা তাহলে কি বেচিয়া খাইতেছি?

তারেক জিয়াকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে আওলাদে গাদ্দার বলেন, বিজনেশে কভু লাভ কভু লশ হয়। তাই বলিয়া আমীরুল গাদ্দারানের জানাজায় মফিজ সরবরাহে বাধা দিবি? হুয়াটস দি পবলেম?

বড় গনতন্ত্রকে ওপেন চেলেঞ্জ দিয়ে বহিস্কৃত বিগ্রেডিয়ার আজমী বলেন, তুমার পিতা গাদ্দারি করছে চিপায় বসিয়া। আর আমার পিতা গাদ্দারি করছে খোদ আল্লামা জেনারেল টিক্কা খান (রঃ)র বাসায় গিয়া। তুমার পিতা গাদ্দারি করিয়া বাচিয়া আছিল মাত্র ছয় বতসর। আমার পিতা গাদ্দারি করিয়া বাচিয়া আছিল তেতাল্লিশ বতসর। তুমার পিতার পুত্র একা তুমি। আর আমার পিতার পুত্র সাতজন। তুমার পিতা মরার আগে পন্ত সকালে রুটি আর আলুর ভাজি খাইছে। আমার পিতা মরার আগে ডেলি ডেলি ২১ পদের খানা ভক্ষন করছে। তুমার পিতার আছিল ছিড়া গেঞ্জি আর ভাংগা ছুটকেছ। আমার পিতার নয় তলা বাড়ি আছে, গাড়ি আছে, আইপেড আছে। গাদ্দারির আন্তর্জাতিক SI এককে যদি আমার পিতা হয় ১ গোয়াজম, তুমার পিতা কুনমতে ১০ মিলিগোয়াজম। অতএব শুন, তুমি ছুট গাদ্দারের পুলা, আমি বড় গাদ্দারের পুলা। ছুট গাদ্দারের পুলা হইয়া বড় গাদ্দারের পুলার পুটুতে আংগুল দিতে আসিও না। ওপেন চেলেঞ্জ দিয়া বলতেছি, বৃহত্তর জামায়াতের লিল্লাহ বেতীত বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখা কুনদিন ক্ষমতায় আসিতে পারিবে না।

রাগারাগি করে আওলাদে গাদ্দার বলেন, প্রেমদণ্ডের জুরেই কনডম খাড়াইতে পারে। প্রেমদণ্ড ছাড়া কনডমের দৌড় টয়লেট পযন্ত। ফিপটিন পারসেন্ট খাইতে খাইতে কে প্রেমদণ্ড আর কে কনডম, উহাই ভুলিয়া গেছ সালা ঘোচু।

October 29, 2014

আছিলাম কুকুর হইলাম লেজ: মেডাম

নিজস্ব মতিবেদক

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক একাত্তরের আলবদর সর্দার ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে আমীর আল্লামা মতিউর রহমান নিজামীর ফাসির রায় ঘোষনার পর বৃহত্তর জামায়াতের কেডারদের ডাকা হরতালের চাপে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির জনসভা পিছিয়ে গেছে।

বৃহত্তর জামায়াতের ঠেলায় নিজের জনসভা পিছাতে বাধ্য হয়ে মেডাম বলেছেন, আগেও কুকুর লেজ নাড়াইত, এখনও কুকুর লেজ নাড়ায়। কিন্তু আগে কুকুর আছিলাম আমরা, আর বৃহত্তর জামায়াত আছিল লেজ। কিন্তু ললাটের লিখন না যায় খন্ডন। আজ তারা হইছে কুকুর আর আমরা হইছি লেজ। আছিলাম কুকুর হইলাম লেজ।

আজ বগুড়া সার্কিট হাউসে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে কুকুর হতে লেজে পরিনত হওয়া নিয়ে এ আপসস করেন মাদারে গনতন্ত্র।


আগে মেডাম বসতেন নিজামী খাড়াইত, আজ মেডাম খাড়ান নিজামী বসে থাকে

সংবাদ সম্মেলনে মেডাম দুঃখ করে বলেন, নাটরে আমার বক্তিতা দেওয়ার কথা আছিল। আতকা নিজামীর ফাসির রায় দিয়া ফেসিবাদী বাকশালীর দল আমার নাটর বক্তিতায় পানি ঢালিয়া দিল। বৃহত্তর জামায়াত তিন দিনের হরতাল ডাকছে। হরতালে বাইর হইলে কখন যে কি ঘটে কিছুই বলা যায় না। তাই বক্তিতা পিছাইতে বাধ্য হইলাম।

আবেগঘন কণ্ঠে মেডাম বলেন, শুনলাম বৃহত্তর জামায়াতের জংগী শাখা জেএমবি আমারে ও শেখের বেটীরে কতলের কোশেশ করতেছে। পচ্চিম বংগে তারা ঘরে ঘরে বুমার দুর্গ বানাইয়ালাইছে। কাজেই বৃহত্তর জামায়াত হরতাল ডাকলে সে হরতাল উজাইয়া বক্তিতা দিতে গেলে কখন যে কুন চিপা হইতে গায়ের উপর বুমা কিংবা আর্জেস গ্রেনেড আসিয়া পড়ে কুন ঠিক নাই। তাই আমার ঐতিহাসিক নাটর বক্তিতা পিছাইয়া দিলাম।

নিজামীর মুক্তির দাবীতে মেডামের বক্তিতা

বৃহত্তর জামায়াতের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে মেডাম বলেন, নিজের সম্মান বিসর্জন দিয়া এই নিজামী গোলাম আজম কাদের মোল্লা মেশিন সাঈদীর মুক্তি চাইয়া বক্তিতা দিছি। আর আজ কিনা তাদের হরতালেই আমার বক্তিতা পিছাইতে হয়। আছিলাম কুকুর হইলাম লেজ।

সোনালী অতীতের কথা স্মরন করে মেডাম বলেন, যখন গদি ছিল আমার, হাতজুড় করি আসি খাড়াইত নিজামী চামার। আজ আমার গদি আর নাই, নিজামীর হরতালে বক্তিতার তারিখ পিছাই।

একাত্তর ও পচাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়ার কথা স্মরন করে মাদারে গনতন্ত্র বলেন, জিয়া এ জন্যই বলছিল, ধর্ম ভিত্তিক কুন দল হতে পারে না। সালা ঘোচুর দলরে লাই দিলেই কান্ধে উঠে।

%d bloggers like this: