Archive for January, 2015

January 31, 2015

এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন মেডাম

নিজস্ব মতিবেদক

চলমান রাজনৈতিক সন্ত্রাসের মধ্যে এসএসসি পরীক্ষার সময় হরতাল, অবরোধ ও মনির পুড়ানি কর্মসুচী অব্যাহত রাখার ঘোষনা দিয়েছেন বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসি।

শনিবার বিকালে মেডামের গুলশানের কার্যালয়ে থাকা নেতা কর্মীদের সঙ্গে আলাপে এ ঘোষনা দিয়েছেন মাদারে গনতন্ত্র।

মেডামের মিডিয়া নায়েব মারুফ কামাল খান মতিকণ্ঠকে বলেন, এসএসসি পরীক্ষার মধ্যেও অবরোধ ভাঙ্গচুর জ্বালাও পোড়াও চলবে। কুন থামাথামি নাই।

লক্ষ লক্ষ এসএসসি পরীক্ষার্থীর ভাগ্য বিড়ম্বনা নিয়ে প্রশ্ন তুললে মারুফ কামাল খান হাসতে হাসতে বলেন, আমরার মেডামও এইবার এসএসসি পরীক্ষা দিতেছেন। কাজেই এসএসসি পরীক্ষার্থীদের উছিলা দিয়া কুন ফয়দা হইত না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মারুফ কামাল খান বলেন, বেগম জিয়া জেএসসি এই বছর বাড্ডা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় হতে বানিজ্য শাখায় এসএসসি পরীক্ষায় অংশ লইতেছেন।

কেন মেডাম বানিজ্য শাখায় এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন, জানতে চাইলে মারুফ কামাল খান বলেন, বিজ্ঞান আমাদের দিতেছে বেগ, কিন্তু কাড়িয়া লইতেছে আবেগ। বিজ্ঞান লইয়া পড়ালিখা করলে আবেগ হাইজেক হইতে পারে। তাছাড়া বিজ্ঞান আজ বলে এক কথা, কাল বলে আরেক কথা। রাজনীতীর নেয় বিজ্ঞানেও শেষ কথা বলিয়া কিছু নাই। মেডাম এক কথার মানুষ। উনি ছিয়ানব্বই সালে বলছিলেন রাজনীতীর নামে হরতাল ভাঙ্গচুর জ্বালাও পোড়াও ঠিক নহে, এখনও তাই বলেন। আর বিজ্ঞানে যা কিছু আবিস্কার হয় তার সবই পবিত্র কুরানে আছে। ইসলাম ধর্ম শিক্ষায় এ প্লাস পাইলেই অটমেঠিক বিজ্ঞানে এ প্লাস দিয়া দেওয়া উচিত। আর মানবিক শাখায় লিখাপড়া করলে পরে রাজনীতী করতে অসুবিধা। মানবিক লিখাপড়া করিয়া মানবিকতা একবার শিখিয়া ফেললে পরে মনির পুড়ানির হুকুম দিতে সমস্যা হইতে পারে। তাই ভবিষ্যতে গদিতে গিয়া হিসাব নিকাশের সুবিধার জন্য বানিজ্য শাখাতে লিখাপড়া করাই উত্তম। তাই মেডাম বানিজ্য শাখায় এসএসসি পরীক্ষা দিবেন।

অবিলম্বে সরকারকে গুলশান কার্যালয়ের বিদ্যুত সংযোগ ফিরিয়ে দেওয়ার আহোভান জানিয়ে মারুফ কামাল খান বলেন, ইহা নিকৃস্ট নিস্ঠুরতা। আমরা কয়েক শত মনির পুড়াইছি, পারলে তুমরাও আমাদিগের কয়েক শত এনি বুলু টুকু ফালু লালু দুলু খোকা দুদু পুড়াইয়া দেও। গনতন্ত্রে এই সব কুন বেপার নহে। তাই বলিয়া কারেন্টের তার কাটিয়া দিবি রে পুড়ারমুখী?

সরকার গুলশান কার্যালয়ের বিদ্যুত সংযোগ কেটে দিয়ে মাদারে গনতন্ত্রকে এসএসসিতে ফেল করানর নিকৃস্ট নিস্ঠুর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত, এমন অভিযোগ করে মারুফ কামাল খান বলেন, পাকিস্তান আমলেও গাও গেরামে বিদ্যুত থাকত না। বিদ্যুতের অভাবেই মেডাম তখন মেটৃকে খারাপ করছিলেন। স্বৈরাচার বাকশাল স্বাধিন বাংলাদেশেও একই রকম পরিস্থিতি সৃস্টি করিয়া মেডামরে আবার ফেল করাইতে চায়। কারেন্ট নাই, ইন্টারনেট নাই, এখন আমরা প্রশ্ন আগাম ফেসবুক হইতে নামাইব কিরুপে?

শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদকে সতর্ক করে দিয়ে মারুফ কামাল খান বলেন, উর্দু সহ সকল বিষয়ে এইবার মেডামরে এ প্লাস দিতে হবে। গল্ডেন এ প্লাস দেওয়া না হইলে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নাম বদলাইয়া দিব সালা ঘোচু।

January 29, 2015

ট্রাকের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত বলপ্রয়গের অভিযোগ করেছে এইচআরডব্লিউ

মানবাধিকার মতিবেদক

বাংলাদেশে চলমান রাজনৈতিক সহিংসতার প্রেক্ষাপটে ট্রাকের বিরুদ্ধে ‘অতিরিক্ত বলপ্রয়গের’ অভিযোগ করেছে যুক্তরাস্ট্র ভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা হিউমেন রাইটস ওয়াচ ওরফে এইচআরডব্লিউ।

সম্প্রতি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বাংলাদেশের ট্রাক সমুহের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লংঘন ও অতিরিক্ত বলপ্রয়গের অভিযোগ এনে ট্রাকের বিরুদ্ধে সরকারের উদাসীনতাকে দায়ী করেছেন এইচআরডব্লিউ এর দক্ষিন এশিয়ার আমীর আল্লামা ব্রেড এডামস।

প্রতিবেদনে ব্রেড এডামস বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী যে নির্বাচন হয়েছে, সেটি কুনমতেই মানিয়া লওন যায় না। এই বতসর সেই কালরাত্রির এক বতসর পুর্তি উপলক্ষে বৃহত্তর জামায়াত শান্তি পুর্ন ভাবে মনির পুড়ানির মাধ্যমে বাংলাদেশে পন্য সরবরাহে বিঘ্ন ঘটানর কর্মসুচী হাতে লইছিল। কিন্তু তাহাদের শান্তি পুর্ন কর্মসুচী কতিপয় ট্রাকের অতিরিক্ত বলপ্রয়গের কারনে পণ্ড হইতেছে।


ঘাতক ট্রাক মানে না মানবাধিকার

আবেগঘন ফন্টে আল্লামা এডামস বলেন, বৃহত্তর জামায়াতের কর্মসুচী সম্পর্কে বাংলাদেশের ৯৯ শতাংশ আল্লাহভীরু জনগনের কুন আপত্তি নাই। বাংলাদেশে ইসলামের সোল এজেন্ট ও হেফাজতে ইসলামের আমীর উপমহাদেশের সর্বাপেক্ষা হিট আলেম আল্লামা রাজ শাহ আহমদ শফী ১৩ দফায় মমবাত্তি প্রজ্জলনের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষনা করলেও মনির প্রজ্জলনের বিরুদ্ধে কুন টে-ফ করেন নাই। উহা হতেই প্রমানিত হয় যে মনির পুড়াইলে ইসলামের কুন ক্ষতি নাই। অতছ এই শান্তি পুর্ন মনির পুড়ানি কর্মসুচীতে ক্ষমতাসীন স্বৈরাচার বাকশালের মদদপুস্ট কতিপয় ফেসিবাদী ট্রাক অতিরিক্ত বলপ্রয়গের মাধ্যমে এই জেহাদে বিঘ্ন ঘটাইয়া বৃহত্তর জামায়াতের মধ্যে সরকারের এজেন্টরুপী কতিপয় তরুন মুজাহিদের মানবাধিকার চুর্ন করিয়াছে।

হুহু করে কান্নার ইমটিকন ( 😥 ) দিয়ে প্রতিবেদনে এডামস বলেন, এই বতসর শান্তি পুর্ন মনির পুড়ানি কর্মসুচী শুরু হওয়ার পর শান্তি পুর্ন ভাবে ট্রাকে আগুন লাগানির মত মৌলিক মানবাধিকার চর্চা করতে গিয়া চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার চুনতি এলাকায় বৃহত্তর জামায়াতের ছাত্র শাখা ইসলামী ছাত্র শিবিরের সরকারী এজেন্ট জুবায়ের ইসলাম, রাজশাহীর গোদাগাড়ীর নবগ্রামে বিএনপি শাখার যুব শাখার সরকারী এজেন্ট ইসলাম হোসেন ও চাপাইনবাবগঞ্জের লালাপাড়ায় ইসলামী ছাত্র শিবিরের সরকারী এজেন্ট আসাদুল্লাহ তুহিন ট্রাকের নিচে পিস্ট হইয়া ইনতেকাল ফরমাইয়াছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

নিরাপদ সড়ক চাই আন্দলনের আমীর ইলিয়াস কাঞ্চনের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে ব্রেড এডামস বলেন, আজ বাংলার মোড়ে মোড়ে বোমার পেট্রল বোমার ভিতরে লইয়াই ট্রাকের নিচে পিস্ট হইতেছে বৃহত্তর জামায়াতের সরকারী এজেন্ট মুজাহিদগন। বাংলার এ দুর্যগের দিনে কাঞ্চইন্যা তুই কই রে?

অবিলম্বে সরকারের প্রতি ট্রাকের ওজন হ্রাসের জন্য প্রয়জনীয় সকল বেবস্থা গ্রহন করার দাবী জানিয়ে প্রতিবেদনে আল্লামা এডামস বলেন, ট্রাকগুলু বেশী ভারী। সরকারকে ট্রাকের ওজন কমাইয়া এমন বেবস্থা করতে হবে যাতে গায়ের উপরে ট্রাক উঠিলেও মুজাহিদদের কুন ক্ষয়ক্ষতি না হয়।

ধাতুর বদলে কাঠ দিয়ে ট্রাকের বডি প্রস্তুত করার আহোভান জানিয়ে ব্রেড এডামস বলেন, ট্রাকগুলু যথেস্ট দাহ্য নহে। অনেক সময় একটি পেট্রল বুমা মারিলে কাজ হয় না, চার পাচটি মারতে হয়। এতে করে বৃহত্তর জামায়াতের তহবিলে টান পড়িয়া মানবাধিকার সংকট সৃস্টি হইতেছে। সকল টেকা পেট্রল বুমায় খরচ হইয়া গেলে মানবাধিকার সংস্থাগুলু ভাগে কিছু পাইবে না। উহাই মানবাধিকার সংকট।

এ বেপারে দেশের শুদ্ধতম মানবাধিকার কর্মী ও বিএনপি শাখার মানবাধিকার উপশাখার আমীর আদিলুর রহমান শুভ্র ওরফে কানাবাবা শুভ্র মতিকণ্ঠকে বলেন, এডামসের হিসাবে কিছু ভুল আছে। ট্রাকের নিচে চাপা পড়িয়া এ পযন্ত বৃহত্তর জামায়াতের ৬১ জন নিহত হইছে।

কিভাবে তিনি এ সংখ্যা সম্পর্কে নিশ্চিত হলেন, এমন প্রশ্নের সরাসরি উত্তর না দিয়ে কানাবাবা শুভ্র বলেন, ভদ্রলোকের এক জবান

January 29, 2015

লন্ডনে “চিকিৎস্বাধীন” তারেক জিয়ার সন্মান সুচক খেতাব প্রাপ্তি

আজ বৃহত্তর জামাতে ইসলামের বিএনপি শাখার একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তী মতিকণ্ঠে এসে পৌছেছে। বিজ্ঞপ্তীটি অবিক্রিত অবস্থায় প্রকাশ করা হল।

একটা ঘষোনা

বৃহত্তর জামাতে ইসলামের বিএনপি শাখার ভবিষ্যত কান্ডারি তারেক জিয়া লন্ডনে দির্ঘ কাল বেপি চিকিৎস্বাধীন জীবন যাপন করছেন। কোমর ও মেরু দন্ড সারানোর পর এখন দু দন্ড সময় বেয় করে তিনি বাকশালী ভন্ড স্ট্রেটেজি পন্ড করে খন্ড খন্ড গন্ডগোল বাধিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছেন। দেশ জুড়ে এখন চলছে মনির পোড়ানর উৎসব। এ উপলখ্যে তিনি একটি ভিডিও বার্তা প্রকাশ করেছেন।

ভিডিও তে তিনি বলেছেন, শান্তির জন্য শক্তি প্রয়গ করা প্রয়জন। এটা পৃথিবির ইতিহাসে হয়েছে, আমাদের ইসলাম ধর্মেও হয়েছে।

বিএনপি শাখার চলমান অবরধ আন্দলনকে শান্তিকামি আক্ষা দিয়ে এর সহিত ইসলামের আন্দলনের মিল খুজে পাওয়ার কৃতিত্তের স্বিকৃতি হিসাবে বিএনপি শাখার পক্ষ হতে একটি সন্মান সুচক উপাধি তার নামের শেষে ব্রেকেটে যোগ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এখন হতে তার পুর্ন নাম – তারেক জিয়া (খাঃ পুঃ), এখানে খাঃ পুঃ অর্থ খালেদার পুত্র। বস্তুত ছোট গনতন্ত্রের মৃত্যুর পর উপাধির দাবিটি তার একচ্ছত্র হয়েছে।

বিএনপি শাখার আরেকটি সিদ্ধান্ত অনুযায়ি গনতন্ত্রের ছোট অংশটিও তারেক জিয়া (খাঃ পুঃ) এর শক্ত কাধে নেস্ত করা হল। তিনি এখন আস্ত গনতন্ত্র। যদিও কিছু দিন পুর্বেও পুর্ন গনতন্ত্রের ভার নিজের কাধে নিবার অবস্থা তার ছিল না।


লন্ডন যাত্রার প্রাক্কালে তার শরির সাস্থের এক্স রে

তবে লন্ডনে দির্ঘ কাল চিকিৎস্বাধীন জীবন যাপন করার পর তার মেরু দন্ড ও কোমর শক্ত হয়েছে। এখন গনতন্ত্র মানেই তারেক জিয়া (খাঃ পুঃ)।

বৃহত্তর জামাতে ইসলামের বিএনপি শাখার সদর দপ্তর
ঢাকা
বাংলাদেশ

 

 

 

January 27, 2015

শত শত মনিরের মায়ের বদদুয়া খালেদার উপর পড়ছে: জুনাইদ সংঘ

হাটহাজারী আল-মতিবেদক

গত দুই বতসরে চলমান রাজনৈতিক সহিংসতায় বৃহত্তর জামায়াতের দেওয়া আগুনে দগ্ধ শত শত মনিরের মায়ের বদদুয়া এসে পড়েছে বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির উপরে। আর এ বদদুয়ার কারনেই মাত্র ৪৩ বতসর বয়সে আল্লাহর পেয়ারা হয়েছেন বেংককে পলাতক মুদ্রা পাচারের অপরাধে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী আওলাদে আমীর ছুট গনতন্ত্র আরাফাত কোকো।

আজ ১১০% অরাজনৈতিক সংগঠন ‘নিখিল বাংলাদেশ জুনাইদ সংঘ’ এর প্রতিষ্ঠাতা আমীর ও বাংলাদেশের অভ্যন্তরে স্বাধীন রাস্ট্র হাটহাজারিস্তানের নায়েবে খলিফা আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী হাটহাজারীর দারুল উলুম মইনুল ইসলাম ওরফে হাটহাজারী বড় মাদ্রাসার ময়দানে পেন্ডেল টাংগিয়ে আয়জিত এক সংবাদ মহাফিলে এ মত প্রকাশ করেন।

সংবাদ মহাফিলে ডান জুনাইদ বলেন, দেইল্যা রাজাকারের রায়ের পর হতে বৃহত্তর জামায়াতে মাদারে গনতন্ত্রের নেতৃত্বে সারা দেশে নিরীহ জনগনের গায়ে আগুন দিয়া খুন করতেছে। শত শত মানুষ মেডামের আগুনে পুড়িয়া মরছে। হাজার হাজার মানুষ আহত হইয়া চিকিতসার বেয়ভারে ধুকতেছে। উহাদের ফরিয়াদ আল্লাহর দরবারে পৌঁছাইয়াছে। তাই উহাদের বদদুয়ার কারনেই আল্লাহ পাক ছুট গনতন্ত্রকে বেংকক হতে জাহান্নামে বদলী করিয়া মেডামকে দুনিয়াবী শাস্তি দিয়াছেন। অতএব তুমরা তার কুন নিয়ামতকে অস্বিকার করিবে?

ডান জুনাইদের এ বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে নিখিল বাংলাদেশ জুনাইদ সংঘের নায়েবে আমীর আল্লামা জুনাইদ সাকী বলেন, ছুট গনতন্ত্র আরাফাত কোকোর মৃত্যুর সংগে মনির পুড়ানির কুন সম্পর্ক নাই। মনিরদিগের মায়ের বদদুয়াও এ ক্ষেত্রে প্রাসংগিক নহে। আল্লাহর লীলা বুঝা বড় ভার। মনিরের মায়ের বদদুয়াকে কোকোর মৃত্যুর জন্য দায়ী করা সমিচিন নহে।

তবে সুন্দরবনের শেলা নদীতে টেংকার ডুবে তেল ছড়ানর পর হাটাহাজারিস্তানের খলিফা ও উপমহাদেশের সর্বাপেক্ষা হিট আলেম আল্লামা রাজ শাহ আহমদ শফীর অভিমত তুলে ধরে বাম জুনাইদ বলেন, সুন্দরবনে তেল ছড়ানির পর শফী হুজুর বলছিলেন, কুরান সুন্নাহ অনুযায়ী দেশ না চালানির কারনেই সুন্দরবনে তেল ছড়াইছে। আমি এই কথার সংগে সম্পুর্ণ একমত। যদি আরাফাত কোকোর জন্য কাউকে দায়ী করতে হয়, তাহলে স্বৈরাচার বাকশালের কুরান সুন্নাহ না মানিয়া দেশ চালানিকেই দায়ী করতে হইবে। মনির পুড়ানি একটি স্বাভাবিক বাস্তবতা।

মাদারে গনতন্ত্রকে সান্তনা দিয়ে বাম জুনাইদ বলেন, দেশবাসী আপনার দিকে তাকাইয়া আছে। ভাংগিয়া পড়লে চলবে না। চাংগা হইয়া পুনরায় মনির পুড়ানি ইষ্টাট করুন। কুটি কুটি মর্দে মুজাহিদ আপনার সংগে আছে। দরকার হলে আমি নিজে গিয়া আপনাকে পেট্রল বুমা বান্ধিয়া দিব।

%d bloggers like this: