Archive for October, 2014

October 29, 2014

ছোট গাদ্দারের পোলাকে বড় গাদ্দারের পোলার ওপেন চেলেঞ্জ

নিজস্ব মতিবেদক

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক ৯০ বতসরের আরামদন্ড প্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর ভাষা সৈনিক অধ্যাপক গোলাম আজমের জানাজায় অংশ নেওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারী করায় বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার আওলাদে আমীর, জাতীয়তাবাদী শক্তির ভবিষ্যত মালিক ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী পলাতক চিকিতসাধীন তরুন নেতৃত্ব মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্ট বড় গনতন্ত্র বড় গুন্ডে তারেক জিয়ার প্রতি রাগারাগি করেছেন গোলাম আজমের পুত্র ও বাংলাদেশ সেনাবাহীনী হতে বহিস্কৃত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আওলাদে গাদ্দার আবদুল্লাহিল আমান আজমী।

আজ ফেসবুকে একটি ষ্টেটাসের মাধ্যমে তারেক জিয়ার প্রতি রাগারাগি করেন আওলাদে গাদ্দার আমান আজমী।

ষ্টেটাসে আওলাদে গাদ্দার বলেন, বৃহত্তর জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা খানকির পুলায়ে আমীর, আমীরুল গাদ্দারান গোলাম আজম ছাহেবের এন্তেকালের পর তার নামাজে জানাজায় বিএনপি শাখার পক্ষ হতে একমাত্র বিএনপির মালাউন উপশাখার আমীর ও আল্লামা গয়েশ্বর চন্দ্র আজমী ছাড়া কেহই অংশ গ্রহন করে নাই। খবর লইয়া আমরা জানতে পারছি, ইহা লনডন প্রবাসী পলাতক মিষ্টার ফিপটিন পারসেন্টের হুকুমে ঘটিয়াছে। বড় গনতন্ত্র নিষেধ করায় আমীরুল গাদ্দারানের জানাজায় আর কুন বিএনপি আসে নাই।


বড় গুণ্ডেকে আওলাদে গাদ্দারের ওপেন চেলেঞ্জ

বিএনপি শাখার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে বহিস্কৃত বিগ্রেডিয়ার আজমী বলেন, সারদা গ্রুপ তাহাদের কাল টেকা পাচারের জন্য বৃহত্তর জামায়াতের সহায়তা লইছে। তাহাদের হইয়া হাজার হাজার কুটি টেকা আমরা মধ্য প্রাচ্যে পাচার করিয়া দিছি। বিনিময়ে গত বতসর ট্রাইবুনালের রায়ের পর দাংগা ফেসাদ বাবদ কয়েক শত কুটি টেকা কমিশন আমরা খাইছি। সারদা গ্রুপ এই বিজনেশ আমাদিগের সংগে করছে। বিএনপি শাখারে তারা ভরসা করে নাই বলিয়া বড় গনতন্ত্র এই বিজনেশে কুন পারসেন্টিজ খাইতে পারে নাই। এই লইয়া আমাদিগের সংগে তাদের মন কালাকালি। এই খবর তাহাদিগের কানেও উঠছে এক বতসর পরে। তখন এই হারামজাদা বড় গুণ্ডে লনডনে বসিয়া ফতুয়া দিছে, ধর্ম ভিত্তিক কুন দল নাকি হইতে পারে না। আরে সালা ঘোচু, ধর্ম নিয়া দল যদি না হইবে, আমরা তাহলে কি বেচিয়া খাইতেছি?

তারেক জিয়াকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে আওলাদে গাদ্দার বলেন, বিজনেশে কভু লাভ কভু লশ হয়। তাই বলিয়া আমীরুল গাদ্দারানের জানাজায় মফিজ সরবরাহে বাধা দিবি? হুয়াটস দি পবলেম?

বড় গনতন্ত্রকে ওপেন চেলেঞ্জ দিয়ে বহিস্কৃত বিগ্রেডিয়ার আজমী বলেন, তুমার পিতা গাদ্দারি করছে চিপায় বসিয়া। আর আমার পিতা গাদ্দারি করছে খোদ আল্লামা জেনারেল টিক্কা খান (রঃ)র বাসায় গিয়া। তুমার পিতা গাদ্দারি করিয়া বাচিয়া আছিল মাত্র ছয় বতসর। আমার পিতা গাদ্দারি করিয়া বাচিয়া আছিল তেতাল্লিশ বতসর। তুমার পিতার পুত্র একা তুমি। আর আমার পিতার পুত্র সাতজন। তুমার পিতা মরার আগে পন্ত সকালে রুটি আর আলুর ভাজি খাইছে। আমার পিতা মরার আগে ডেলি ডেলি ২১ পদের খানা ভক্ষন করছে। তুমার পিতার আছিল ছিড়া গেঞ্জি আর ভাংগা ছুটকেছ। আমার পিতার নয় তলা বাড়ি আছে, গাড়ি আছে, আইপেড আছে। গাদ্দারির আন্তর্জাতিক SI এককে যদি আমার পিতা হয় ১ গোয়াজম, তুমার পিতা কুনমতে ১০ মিলিগোয়াজম। অতএব শুন, তুমি ছুট গাদ্দারের পুলা, আমি বড় গাদ্দারের পুলা। ছুট গাদ্দারের পুলা হইয়া বড় গাদ্দারের পুলার পুটুতে আংগুল দিতে আসিও না। ওপেন চেলেঞ্জ দিয়া বলতেছি, বৃহত্তর জামায়াতের লিল্লাহ বেতীত বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখা কুনদিন ক্ষমতায় আসিতে পারিবে না।

রাগারাগি করে আওলাদে গাদ্দার বলেন, প্রেমদণ্ডের জুরেই কনডম খাড়াইতে পারে। প্রেমদণ্ড ছাড়া কনডমের দৌড় টয়লেট পযন্ত। ফিপটিন পারসেন্ট খাইতে খাইতে কে প্রেমদণ্ড আর কে কনডম, উহাই ভুলিয়া গেছ সালা ঘোচু।

October 29, 2014

আছিলাম কুকুর হইলাম লেজ: মেডাম

নিজস্ব মতিবেদক

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক একাত্তরের আলবদর সর্দার ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে আমীর আল্লামা মতিউর রহমান নিজামীর ফাসির রায় ঘোষনার পর বৃহত্তর জামায়াতের কেডারদের ডাকা হরতালের চাপে বৃহত্তর জামায়াতের বিএনপি শাখার মহিলা আমীর ও জাতীয়তাবাদী শক্তির মালিক আপোষহীন দেশনেত্রী মাদারে গনতন্ত্র বেগম খালেদা জিয়া জেএসসির জনসভা পিছিয়ে গেছে।

বৃহত্তর জামায়াতের ঠেলায় নিজের জনসভা পিছাতে বাধ্য হয়ে মেডাম বলেছেন, আগেও কুকুর লেজ নাড়াইত, এখনও কুকুর লেজ নাড়ায়। কিন্তু আগে কুকুর আছিলাম আমরা, আর বৃহত্তর জামায়াত আছিল লেজ। কিন্তু ললাটের লিখন না যায় খন্ডন। আজ তারা হইছে কুকুর আর আমরা হইছি লেজ। আছিলাম কুকুর হইলাম লেজ।

আজ বগুড়া সার্কিট হাউসে আয়জিত এক সংবাদ সম্মেলনে কুকুর হতে লেজে পরিনত হওয়া নিয়ে এ আপসস করেন মাদারে গনতন্ত্র।


আগে মেডাম বসতেন নিজামী খাড়াইত, আজ মেডাম খাড়ান নিজামী বসে থাকে

সংবাদ সম্মেলনে মেডাম দুঃখ করে বলেন, নাটরে আমার বক্তিতা দেওয়ার কথা আছিল। আতকা নিজামীর ফাসির রায় দিয়া ফেসিবাদী বাকশালীর দল আমার নাটর বক্তিতায় পানি ঢালিয়া দিল। বৃহত্তর জামায়াত তিন দিনের হরতাল ডাকছে। হরতালে বাইর হইলে কখন যে কি ঘটে কিছুই বলা যায় না। তাই বক্তিতা পিছাইতে বাধ্য হইলাম।

আবেগঘন কণ্ঠে মেডাম বলেন, শুনলাম বৃহত্তর জামায়াতের জংগী শাখা জেএমবি আমারে ও শেখের বেটীরে কতলের কোশেশ করতেছে। পচ্চিম বংগে তারা ঘরে ঘরে বুমার দুর্গ বানাইয়ালাইছে। কাজেই বৃহত্তর জামায়াত হরতাল ডাকলে সে হরতাল উজাইয়া বক্তিতা দিতে গেলে কখন যে কুন চিপা হইতে গায়ের উপর বুমা কিংবা আর্জেস গ্রেনেড আসিয়া পড়ে কুন ঠিক নাই। তাই আমার ঐতিহাসিক নাটর বক্তিতা পিছাইয়া দিলাম।

নিজামীর মুক্তির দাবীতে মেডামের বক্তিতা

বৃহত্তর জামায়াতের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে মেডাম বলেন, নিজের সম্মান বিসর্জন দিয়া এই নিজামী গোলাম আজম কাদের মোল্লা মেশিন সাঈদীর মুক্তি চাইয়া বক্তিতা দিছি। আর আজ কিনা তাদের হরতালেই আমার বক্তিতা পিছাইতে হয়। আছিলাম কুকুর হইলাম লেজ।

সোনালী অতীতের কথা স্মরন করে মেডাম বলেন, যখন গদি ছিল আমার, হাতজুড় করি আসি খাড়াইত নিজামী চামার। আজ আমার গদি আর নাই, নিজামীর হরতালে বক্তিতার তারিখ পিছাই।

একাত্তর ও পচাত্তরের রেম্ব জেনারেল জিয়ার কথা স্মরন করে মাদারে গনতন্ত্র বলেন, জিয়া এ জন্যই বলছিল, ধর্ম ভিত্তিক কুন দল হতে পারে না। সালা ঘোচুর দলরে লাই দিলেই কান্ধে উঠে।

October 29, 2014

গোলাম আজমের নেয় এত সহজে হাল ছাড়তাম না: নিজামী

নিজস্ব মতিবেদক

ট্রাইবুনালের রায়ে গোলাম আজমের নেয় ৯০ বতসর আরামদণ্ড দিলে পুর্ন মেয়াদ খেটে দৈনিক ২১ পদের খানা ভক্ষন করে বাংলাদেশ সরকারের তহবিল ফাক করার অংগীকার জানিয়ে একাত্তরের আলবদর সর্দার ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর খানকির পোলায়ে আমীর আল্লামা মতিউর রহমান নিজামী বলেছেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক ৯০ বতসরের আরামদন্ড প্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর ভাষা সৈনিক অধ্যাপক গোলাম আজমের নেয় দুবলা আমি নহি। এত সহজে হাল ছাড়তাম না। ৯০ বতসর আরামদণ্ড দিলে কাটায় কাটায় ৯০ বতসরই মেয়াদ খাটব। ব্রিঙ্গ ইট অন বেবী।

রায়ের আগের দিবাগত সন্ধায় কাশিমপুর কারাগারে ফাসির আসামীর জন্য বরাদ্দ কনডম সেলে আয়জিত এক খবর মহাফিলে এ অংগীকার করেন আলবদর সর্দার নিজামী।

খবর মহাফিলে বৃহত্তর জামায়াতের খানকির পোলায়ে আমীর বলেন, গোলাম আজম সারা জীবন ডাল ভাত লাল শাক ছুট মাছ দিয়া মুটা চাউলের ভাত খাইল। কিন্তু ফেসিবাদী বাকশালী সরকার তারে জেলে ঢুকানর পর সে সিদ্ধান্ত লইল, মরার আগে ইহাদের তহবিল সে ফাক করিবে। তখন সে দৈনিক ২১ পদের খাওনের জন্যি অনশন শুরু করল। তার আন্দুলনের ঠেলায় কারাগার কতৃপক্ষ তাহাকে মগল বাদশাদিগের খানা সরবরাহ শুরু করল। সকালের নাস্তা হিসেবে তাকে দেওয়া হতো লাল আটার তৈরি চার-পাঁচটি পাতলা রুটি, ডিম ভাজি, আলু ছাড়া সব্জি ভাজি, ভুনা মুরগির মাংস, মিষ্টি, এনসিউর কোম্পানির দুধ ও কলা। দুপুরের খাবার হিসেবে দেওয়া হতো, চিকন চালের ভাত, করলা ভাজি, টাকি অথবা চিংড়ি মাছের ভর্তা, বেগুন ভাজি অথবা ভর্তা, ছোট চিংড়ি ও ছোট মাছ ভুনা, সালাদ, লেবু, মাল্টা, বরই ও নাশপাতি। সন্ধ্যার নাশতা হিসেবে দেওয়া হতো- লাড্ডু, নিমকি বিস্কুট, হরলিকস কিংবা স্যুপ। রাতের খাবার হিসেবে দেওয়া হতো চিকন চালের ভাত, করলা ভাজি, বেগুন ভাজি অথবা ভর্তা, ঢেঁড়শ, মিষ্টিকুমড়া ও পেঁপে ভাজি, গরু অথবা খাসির ভুনা মাংস, সালাদ ও লেবু, কমলা, মাল্টা, নাশপাতি, আঙ্গুর ও বরই। সম্রাট শাজাহান যখন ফেসিবাদী আওরংগজেবের হাতে তাজমহলে বন্দী হইছিল, উহাকে শুধু বুট মুড়ি ও কলা খাইতে দেওয়া হইত। আর ঈদের দিন এক বাটি সেমাই। গোলাম আজম মগল বাদশাদিগেরেও হালকাইয়া খাইছে।

হাসতে হাসতে নিজামী বলেন, ৯২ বতসর বয়সে এত এত খাইয়া গোলাম আজম সাহেব বদহজমে এন্তেকাল করলেন। শুনিয়াছি ডেলি ডেলি উনার এক চামুচ করিয়া অলিভ অয়েল লাগত, উহা ছাড়া হাগা হইত না।


আরামদণ্ডের জন্য প্রস্তুত নিজামী

৯০ বতসরের আরামদণ্ডের জন্য নিজেকে সম্পুর্ন প্রস্তুত ঘোষনা করে নিজামী বলেন, গোলামদা সংযমের অভাবে ৯০ বতসরের মেয়াদের দেড় বতসর কাটাইতে না কাটাইতেই আযাব খাইতে কবরে চলিয়া গেল। কিন্তু আমি এত সহজে হাল ছাড়ব না। আমায় বরইয়ের পরিবর্তে হজমী সরবরাহ করলেই আমি হাসিয়া খেলিয়া ৯০ বতসর কাটাইয়া দিব। আর অলিভ অয়েল ত আছেই।

এ সময় নিজামী হাসতে হাসতে ‘আই এম পপাই দি সেইলর মেন’ গানটি গুনগুন করে গেয়ে উঠেন।

বাংগালী জাতিকে মধ্যমা প্রদর্শন করে বৃহত্তর জামায়াতের খানকির পোলায়ে আমীর বলেন, কত মুক্তিযুদ্ধা আদাড়ে বাদাড়ে ধুকিয়া মরল। উহারা জীবনে মাল্টা চুখেও দেখছে কিনা সন্দেহ। কিন্তু উহাদের রক্তে খরিদ করা স্বাধীন বাংলায় উহাদের বালবাচ্চার টেকশের টেকায় আমার জন্য মাল্টা খরিদ করা হবে। মুক্তিযুদ্ধ করিয়া তারা পাইল বালটা, আর আমি পাব মাল্টা। ভিভা লা রেভলুশিওন, হে মাকারেনা।

আদালতের মনের ভুলে দুর্ঘটনা বশত ফাসি হয়ে গেলে শ্রদ্ধা জানানর জন্য লাশ রায়েরবাজার বধ্যভুমি ও শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়ার খায়েশ প্রকাশ করে আলবদর সর্দার নিজামী বলেন, আমার অবৈধ পুত্র আসিফ নজরুল ইঞ্চি পুলাটা খুব খাটতেছে। উহাকে কি সরকার এক ডজন মাল্টা খরিদ করিয়া দিবে না?

October 25, 2014

কাজী অফিসের গলিকে ‘গাদ্দারপাড়া’ ডাকায় রাগারাগি করলেন গোলামপুত্র মতিচুর

নিজস্ব মতিবেদক

মগবাজারে পারিবারিক গরস্তানে দাফনের পর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কতৃক ৯০ বতসরের আরামদন্ড প্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী ও বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর সাবেক খানকির পোলায়ে আমীর ভাষা সৈনিক অধ্যাপক গোলাম আজমের বাসস্থান ও কবরের মধ্যবর্তী এলাকাকে এলাকাবাসী ‘গাদ্দারপাড়া’ ডাকা শুরু করায় রাগারাগি করেছেন গোলাম আজমের অবৈধ পুত্র, দেশের প্রভাবশালী এলাকা কারওয়ানবাজারের সর্দার ও ১১০% অরাজনৈতিক সংগঠন ‘হেফাজতে মাহমুদুর’ এর প্রতিষ্ঠাতা আমীর মতিচুর রহমান আজমী।

আজ জাতীয় মসজিদ বায়তুল মকাররমে বৃহত্তর জামায়াতের সাবেক খানকির পোলায়ে আমীরের নামাজে জানাজা আদায়ের পর নিজ কার্যালয়ে ফিরে এসে এক সংবাদ সম্মেলনে এ রাগারাগি করেন গোলামপুত্র মতিচুর।

সংবাদ সম্মেলনে মতিচুর আজমী বলেন, আমার অবৈধ পিতা বাস করতেন মগবাজার কাজী অফিসের গল্লিতে। উনার দাফনও হইছে মগবাজারে পারিবারিক গরস্তানে। অতছ মগবাজার এলাকাবাসী সালা ঘোচুর দল এখন উনার কবর আর বাড়ির মাঝের এলাকারে গাদ্দারপাড়া ডাকা শুরু করছে। ইহা কেমন আচরন?


গাদ্দার গোলাম আজম

হুহু করে কেদে উঠে মতিচুর সর্দার বলেন, নাহয় পাকিস্তান আর্মির খেদমত খাটতে গিয়া আমাদিগের সংগে উনি গাদ্দারী করিয়াছিলেন, খুন জখম ধর্ষন লুটপাটে সহায়তা করিয়াছিলেন, দেশ স্বাধীন হওয়ার পরেও সৌদী গিয়া বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করিয়াছিলেন, বাংলার মানুষদিগকে হজ করিতে বাধা দিয়াছিলেন, তাই বলিয়া ইতনা অপমান?

এ বেপারে গাদ্দার গোলাম আজমের আরেক পুত্র সেনাবাহীনী হতে বহিষ্কৃত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আবদুল্লাহিল আমান আজমীর সংগে যোগাযোগ করা হলে তিনি হাসতে হাসতে মতিকণ্ঠকে বলেন, গাদ্দারপাড়া নামটি সুন্দর হইছে।

%d bloggers like this: