Archive for March, 2012

March 31, 2012

আমার লাংগল তোমাদের সুখী করবে: পল্লীবন্ধু

কৃষি মতিবেদক

সাবেক স্বৈরাচার ও ক্ষমতা থেকে বিতাড়িত পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, তার লাংগল মানুষকে সুখী করবে।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে পল্লীবন্ধু এই দাবী করেন।

এরশাদ বলেন, মানুষ আমার আমলে সুখী ছিল। খালেদা ও হাসিনার আমলে মানুষ আর সুখে নেই। কারন এই আমলে আমার লাংগল চাষবাষ করার সুযোগ পায় না। আমার লাংগল একটিভ থাকে যখন আমি ক্ষমতায় থাকি। ক্ষমতায় না গেলে লাংগল চালানর ক্ষমতা পাওয়া যায় না।

পল্লীবন্ধু আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, সবাই বলে আমি স্বৈরাচার ছিলাম। কিন্তু স্বৈরাচার আমলে দেশের অগনিত নারী আমার লাংগলের সংস্পর্শে এসে সুখী হয়েছে। কই, গনতন্ত্র কি তাদের সেই সুখ দিতে পেরেছে?

তিনি বলেন, অনেকে আমার বদনাম করে। কেউ কেউ বলে আমি বৃদ্ধ হয়ে গেছি। আগের মত লাংগল চালাতে পারব না। আমি আপনাদের মাধ্যমে তাদের জানিয়ে দিতে চাই, এখন বাংলার স্টীভ জবস আবিস্কৃত বিজয় টেবলেট আমার হাতের মুঠোয় আছে। আমি যখন খুশি যতখন খুশি অনলাইনে যেতে পারি, অনলাইনে থাকতে পারি।

এরশাদ বলেন, আপনারা আমাকে ক্ষমতা দিন, আমি আপনাদের সুখ দিব।

এরশাদ বলেন, আর কোন জোট মহাজোট নয়। এবার একা নির্বাচন করব। বিএনপির সাথে যাব না। বিএনপির হাতে আঠা।

তিনি দেশের সকল সচিব, যুগ্ম সচিব ও উপ সচিবকে উদ্দেশ করে বলেন, আমি আবার ক্ষমতায় যাব। আপনারা আপনাদের স্ত্রীদের অবহিত করুন।

March 31, 2012

হাংগেরীর প্রেসিডেন্টের ডক্টরেট বাতিলের নিন্দা জানালেন শেখ হাসিনা, ইউনূস, অলি ও মাহফুজুর

কূটনৈতিক মতিবেদক

অন্যের লিখা কপি পেষ্ট করার অপরাধে হাংগেরীর প্রেসিডেন্ট পাল স্মিতের ডক্টরেট ডিগ্রী প্রত্যাহারের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রী, ভাষা কন্যা, গনতন্ত্রের মানস কন্যা ড. শেখ হাসিনা।

আজ এক বিবৃতিতে শেখ হাসিনা বলেন, হাংগেরীর বিশ্ববিদ্যালয়ের এহেন আচরনের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

শেখ হাসিনা বলেন, রাষ্ট্র ও সরকার পরিচালনার দায়িত্বে যারা থাকেন, তাদের এক বা একাধিক ডক্টরেট ডিগ্রী থাকা জরুরী। কারন তারা সারা জীবন ক্ষমতায় থাকতে পারেন না। ক্ষমতা থেকে সরে দাড়ালে তারা সে সময় এ ডক্টরেট ডিগ্রী বা ডিগ্রীগুনোকে কাজে লাগাতে পারেন। নিজের বাসভবনের একতলায় ডাক্তারি চেম্বার খুলে সৎভাবে কিছু টেকাটুকা কামাই করতে পারেন।

তিনি বলেন, সবার তো স্বামীর ছেড়া গেঞ্জি আর ফাটা সুটকেছ থেকে কুটি কুটি টেকা বের হয় না। সৎ মানুষদের তাই ডক্টরেট ডিগ্রীই ভরসা।

এক পৃথক সংবাদ সম্মেলনে নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবীদ ও গ্রামীন বেংকের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. মুহম্মদ ইউনূস বলেন, হাংগেরীর বিশ্ববিদ্যালয়ের আচরন সম্পুর্ন অগ্রহনযোগ্য। তারা শেখ হাসিনার মত আচরন করেছে। তারা একজন প্রেসিডেন্টের হক্কের জিনিস ছিনতাই করেছে।

ইউনূস বলেন, আমি গ্রামীন বেংকের প্রেসিডেন্ট ছিলাম। আমার হক্কের জিনিসও শেখ হাসিনা ছিনতাই করেছে।

তিনি বলেন, কপি পেষ্ট কোন ঘটনা নয়। আমাদের সবাইকে মিলে উন্নতি করতে হবে, সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। কে আগে লিখেছে, কে পরে লিখেছে, তা বিচার করার সময় এখন নয়।

তিনি শেখ হাসিনা ও হাংগেরীর বিশ্ববিদ্যালয়ে, উভয়কেই লাইনে আসার আহ্বান জানিয়ে বলেন, খেলার সাথে রাজনীতি মিশান ঠিক নয়।

পৃথক পৃথক সংবাদ সম্মেলনে এলডিপি নেতা কর্নেল (অবঃ) অলি আহমদ ও এটিএন বাংলার চেয়ারমেন সংগীতশিল্পী ড. মাহফুজুর রহমান হাংগেরীকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, এমন আচরন কোন সভ্য দেশের লোকে করতে পারে না।

March 29, 2012

মাছ, গাছ, মাংস ও রুটির পর এবার আমিষুলের কপালে দেখা দিল আল্লাহু

ধর্ম মতিবেদক

পৃথীবীর বিভিন্ন স্থানে মাছ, গাছ, মাংস ও রুটির গায়ে আল্লাহু লেখা আপনা আপনি ভেসে উঠেছে। কিন্তু আরও চমক বাকি ছিল। এবার কারওয়ানবাজারের উপসর্দার ও বাংলা একাডেমী পুরস্কারপ্রাপ্ত আইভরি কোষ্ট ফিরত লেখক আমিষুল হক ওরফে আমিষুল লা “মা”র কপালে ভেসে উঠল আরবী “আল্লাহু”।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে নিজের কপালে আল্লাহু লেখা সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন আমিষুল।

তিনি বলেন, লালন বলে গেছেন, সময় গেলে সাধন হবে না। আমি এখন বৌদ্ধ। আল্লাহ আমার কপালে দেখা দিতে দেরী করে ফেলেছেন।

আমিষুল আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, আমি আল্লাহকে পাওয়ার জন্য নামাজ পড়েছি। রোজা রেখেছি। হজ করেছি। যাকাত দিয়েছি। পবিত্র কুরআন শরীফ তিলাওয়াত করেছি। কিন্তু আল্লাহ পাত্তা দেন নাই। এখন আমি বৌদ্ধ ধর্ম গ্রহন করার পর তিনি আমার কপালে দেখা দিয়েছেন।

আমিষুল লা "মা"র কপালে আল্লাহু

আমিষুল লা “মা” বলেন, আমি এখন একজন নিষ্ঠাবান বৌদ্ধ। আমি আপনাদের মাধ্যমে দেশবাসী ও টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে জানাতে চাই, হাতি দিয়ে টেনেও আমাকে আর মুসলমান বানান যাবে না।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আমিষুল বলেন, আমার কপালে প্রথম আল্লাহু লিখা ভেসে উঠেছে, এ কথা সত্য। কিন্তু এ লিখাই শেষ লিখা নয়।

হিযবুত তাহরীরের সদস্যদের প্রতি বৌদ্ধ ধর্ম গ্রহনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, সাব্বে সাত্তা সুখিতা ভবনতু।

March 28, 2012

তিনি একটি কুফা: শেখ হাসিনা

বিশেষ মতিবেদক

কারও নাম উল্লেখ না করে বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়াকে ‘কুফা’ বলেছেন প্রধান মন্ত্রী, জননেত্রী, গনতন্ত্রের মানস কন্যা, ভাষা কন্যা ড. শেখ হাসিনা।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘তিনি একটি কুফা।’

শেখ হাসিনা সহাস্যে বলেন, আমি নিজে মাঠে উপস্থিত থেকে ভারত ও শৃলংকার বিরুদ্ধে বাংলাদেশকে জিতিয়ে এনেছি। আপনারা জানেন, যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকে, তখন আমরা জিতি। আমরা তখন শুধু দেশকে দেই। এবারও আমরা দিচ্ছিলাম। বাংলাদেশ ফাইনালে উঠে গিয়েছিল, আপনারা জানেন।

শেখ হাসিনা আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, কিন্তু ফাইনালে, আপনারা জানেন, তিনি খেলা দেখতে এসেছিলেন। জীবনেও কখনও তিনি খেলা দেখতে মাঠে যান না। জিজ্ঞাসা করে দেখুন আমাদের নয়নের মনি সাকিব আল হাসান এ যাবত কয়টি গোল দিয়েছে, বলতে পারবেন না। সারাদিন থাকেন রুপ চর্চা নিয়ে বেস্ত। আর তিনি রাতের বেলা কি করেন তা নিয়ে কথা বলতে চাই না। সেই তিনি গেলেন খেলা দেখতে। ফলাফল, বাংলাদেশ দুই রানে হেরে গেল।

তিনি বলেন, ‘তিনি একজন কুফা। তিনি প্রথম বার দেশের প্রধান মন্ত্রী হওয়ার পর একানব্বইতে ঘুর্নি ঝড় হল। দ্বিতীয় বার প্রধান মন্ত্রী হওয়ার পর দেশ দুর্নীতিতে হেট্রিক করল। কিন্তু শুধু প্রধান মন্ত্রী হিসেবেই নয়, বিরোধী দলীয় নেত্রী হিসেবেও তিনি জবর কুফা।’

শেখ হাসিনা কারও নাম উল্লেখ না করে বলেন, ভবিষ্যতে পাকিস্তানের সাথে বাংলাদেশের খেলা হলে ষ্টেডিয়ামে যাবেন না। রেডিওতে খেলার খবর নিন। ক্রিকিনফোডটকমে চোখ রাখুন। ষ্টেডিয়ামে গিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেট দলকে সুলেমানি বান মেরে কাবু করবেন না।

%d bloggers like this: